অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে ‘স্নেহ’ করে জড়িয়ে ধরেছিলেন এই অফিস সহকারি!

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার জনকল্যান বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারি তাবারক হোসেন আজাদের বিরুদ্ধে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার জনকল্যান বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস সহকারি তাবারক হোসেন আজাদের বিরুদ্ধে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।

ওই ছাত্রীকে জড়িয়ে ধরেছিলেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ ব্যাপারে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। অষ্টম শ্রেণির ওই ছাত্রী তার স্কুলের ওই অফিস সহকারির বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে একটি ভিডিও করে। পরে ফেসবুকে আপলোড করলে সেটি ভাইরাল হয়।

ওই ছাত্রী ভিডিওতে বলে, তাবারক হোসেন নামে ওই ব্যক্তি অফিস সহকারি হলেও মাঝে মাঝে স্কুলের ক্লাস করাতেন। তিনি ক্লাসে ছাত্রীদের বিভিন্নভাবে যৌন হয়রানি করেন। কুপ্রস্তাবও দিতেন। প্রস্তাবে রাজি না হলে ফেল করিয়ে দেওয়া হবে বলেও হুমকি দিতেন। সম্প্রতি তাকেও জড়িয়ে ধরে যৌন হয়রানি করেন তিনি।

সে আরও বলে, ‘তাবারকের বিরুদ্ধে গত ১৬ এপ্রিল প্রধান শিক্ষকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়ে বিচার চেয়েছি। এর মধ্যে বিষয়টি যাতে আর কাউকে না জানাই, সেজন্য আজাদ তার বাবাকে পাঠিয়েছেন আমাদের বাড়িতে। তিনি আমাকে মা ডেকে বিষয়টি গোপন করতে বলেছেন। তবে তার ছেলের ক্ষতি হলে বিষয়টি দেখে নিবেন বলে হুমকি দিয়েছেন। এ কারণে আতঙ্কে থাকতে হচ্ছে।’

এ ব্যাপারে তাবারকের বাবার সঙ্গে কথা বলতে চেয়েও পারা যায়নি। তবে তাবারক দাবি করছেন, তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

তাবারক বলেন, ‘অনেক আগে ওই ছাত্রীর বাবা সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। জানার পর তাকে স্নেহ করে জড়িয়ে ধরি। যৌন হয়রানির কিছুই করা হয়নি।’

এই অফিস সহকারি দুই বিয়ে করেছেন। এলাকায় তার সুনাম রয়েছে। লোকে তা ক্ষুন্ন করতে তার চার বিয়ের কথা ছড়িয়ে ষড়যন্ত্র করছেন।

অষ্টম শ্রেণির ওই ছাত্রীর অভিযোগের ব্যাপারটি নিশ্চিত করে জনকল্যান বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘যা রটেছে তা সঠিক। ভাইরাল হওয়ায় সবাই জেনে গেছে। এটা আমাদের জন্য লজ্জার হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘গত মঙ্গলবার ওই ছাত্রী লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। এরপর তদন্ত করে ঘটনার সত্যতাও পাওয়া গেছে। তাবারক হোসেন আজাদ সাময়িকভাবে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি ইউএনওকে মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। তিনি এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ ঘটনার পর গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে স্কুলের ১০ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা স্কুলে আসেন। তারা তাবারকের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতির কাঝে লিখিত অভিযোগ দেয়। একই সঙ্গে তাকে অপসারণ ও কঠোর শাস্তির দাবি করেন।

Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes
Free Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
udemy course download free