আইনগতভাবে সেই জমি বিপুল রায়হানদের পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই: শাহরিয়ার কবির

শহীদ বুদ্ধিজীবী শহীদুল্লা কায়সারের পরিবারের বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখলের অভিযোগ করেছে জহির রায়হানের পরিবার। এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি বিবৃতি হাজির করেছে শহীদুল্লা কায়সার ও জহির রায়হানের পরিবার। 

শহীদ বুদ্ধিজীবী শহীদুল্লা কায়সারের পরিবারের বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখলের অভিযোগ করেছে জহির রায়হানের পরিবার। এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি বিবৃতি হাজির করেছে শহীদুল্লা কায়সার ও জহির রায়হানের পরিবার।

জহির রায়হানের নাতি ভাষা রায়হান সম্প্রতি ফেসবুক মারফত সম্পত্তি দখলের অভিযোগ তোলেন। তার স্ট্যাটাসে শহীদুল্লা কায়সারের স্ত্রী পান্না কায়সার, মেয়ে অভিনেত্রী শমী কায়সার ও ছেলে অমিতাভ কায়সারের বিরুদ্ধে জহির রায়হানের সম্পত্তি দখলের অভিযোগ উঠেছে।

জহির রায়হানের নাতনি ভাষা রায়হান ফেসবুকে অভিযোগ করেছেন, গুলশানের বারিধারার এক বিঘা জমি এবং গুলশান আড়ংয়ের পেছনের তিন বিঘা জমি তার দাদার টাকায় কেনা হলেও সেই সম্পত্তিগুলো পান্না কায়সার, শমী কায়সার ও অমিতাভ কায়সার দখল করে রেখেছেন।

যদিও জহির রায়হান পরিবারের এমন দাবি নাকচ করে দিয়েছেন কায়সার পরিবার। শহীদুল্লা কায়সারের ছেলে অমিতাভ কায়সার গণমাধ্যমে একটি বিবৃতি পাঠিয়ে প্রতিবাদও জানিয়েছেন।

তাদের সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের প্রভাব পড়ছে ভার্চুয়াল জীবনেও। সম্প্রতি ভাষা রায়হানকে ফেসবুকে ব্লক করেছেন শমী কায়সার।

জহির রায়হানের চাচাত ভাই ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির প্রধান শাহরিয়ার কবিরও বিষয়টি ভালোভাবে গ্রহণ করেননি।

শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘বিপুল রায়হান ও ভাষা রায়হানরা যে সম্পত্তি নিয়ে অভিযোগ তুলেছে সেই সম্পত্তিটা জহির রায়হানের টাকায় কেনা হলেও জহির রায়হান জমিটা শহীদুল্লা কায়সারকে উপহার দিয়েছেন। দলিলাদিও শহীদুল্লা কায়সারের নামে। ফলে আইনগতভাবে সেই জমি বিপুল রায়হানদের পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। আর জহির রায়হান যে জহির রায়হান হয়েছে তা শহীদুল্লা কায়সারের কারণেই হয়েছে। জহির রায়হানকে জহির রায়হানের যে খ্যাতি-যশ তা শহীদুল্লা কায়সারের মাধ্যমেই হয়েছে। জহির রায়হান তা নিজের জীবন দিয়ে প্রমাণও করেছেন বড় ভাইয়ের প্রতি তার শ্রদ্ধা দেখিয়ে। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে শহীদুল্লা কায়সার ও জহির রায়হানের ছেলেমেয়েরা তাদের বাবা-চাচা দুই শহীদকে নিয়ে বিতর্ক তৈরি করেছে। এটা উচিত হয়নি।’

শাহরিয়ার কবির আরও বলেন, ‘তারা দুজনই জাতির অসামান্য সন্তান। আমাদের বংশে আমরা বড়দের খুব সম্মান করি। ভাইয়ে-ভাইয়ে শ্রদ্ধাবোধ এটা আমাদের ভেতর আছে। বড়দের জন্য ছোটরা জানও বাজি রাখতে পারে। যুদ্ধের শেষ দিকে মূলত নিখোঁজ শহীদুল্লা কায়সারকে খুঁজতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন জহির রায়হান। বড় ভাইকে তিনি কতটা ভালোবাসতেন-এটা থেকেই প্রমাণ পাওয়া যায়। এখন বেঁচে থাকতে যে সম্পদ তিনি বড় ভাইকে উপহার দিয়ে গেছেন, সেটা ফেরত চাওয়া কি ঠিক? এত দিন পরে এসে বিপুলদের সেই সম্পদ ফেরত চাওয়াটা ঠিক হয়নি। তারা এটা কখনো দাবি করতে পারে না। জহির রায়হান বেঁচে থাকলে তিনিও এতে রাগ করতেন। তারা কেন এটা করছে আমি ঠিক জানি না। তবে তারা যা করছে, সেটা শহীদুল্লা কায়সার ও জহির রায়হানকে ছোট করছে। এ দেশের মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে সাহিত্য, চলচ্চিত্রে তাদের অবদান সবাই জানেন। তারা দুজনই বাংলাদেশের অস্তিত্বের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। এখন এমন বিরোধ তৈরি করে তাদের বাপ-চাচাদের অপমান করছে।’

পারিবারিকভাবে এই সমস্যার সমাধান সম্ভব কি না জানতে চাইলে শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘এটার কোনো সমাধান নেই। এটা অর্থহীন একটা অভিযোগ করা হয়েছে। আর বিষয়টা নিয়ে আমরা এর আগেও বসেছি। আর এটা সমাধানের জন্য তো আমার কাছে আসতে হবে। তারা কেউই আমাদের কাছে আসেনি। তারা যদি আসত তাহলে বসে মীমাংসার চেষ্টা করা যেত। আর তাদের নানা ঝামেলা আমি সমাধানও করেছি। জহির রায়হানের বই নিয়ে রয়্যালটি নিয়ে ঝামেলা তৈরি হয়েছিল, সেই ঝামেলাও আমি মিটিয়ে দিয়েছি। এখন তারা যদি আবার আসে তো সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করব।’

এ প্রসঙ্গে জানতে জহির রায়হানের ছেলে বিপুল রায়হানের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে পরে কথা বলবেন বলে  জানিয়েছেন।

Download Premium WordPress Themes Free
Download Premium WordPress Themes Free
Download WordPress Themes
Free Download WordPress Themes
udemy course download free