আগামী বছরের এসএসসি-এইচএসসিতেও থাকবে করোনার রেশ

করোনায় বদলে গেছে অনেক কিছু। শিক্ষাব্যবস্থায় এসেছে বিস্তর পরিবর্তন। চলমান পরিস্থিতিতে কয়েকদফা চেষ্টা করেও এইচএসসি ও সমমানের পরিক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। এছাড়া এসএসসি পরীক্ষা হলেও যথাযথ সময়ে ফল প্রকাশ করা সম্ভব হয়নি। যার ফলে উচ্চমাধ্যমিকে ভর্তিতে অনেক সময় বিঘ্নিত হয়েছে। আর ধারণা করা হচ্ছে এর প্রভাব পড়তে পারে আগামী শিক্ষাবর্ষেও। কারণ পুরো বছরের হিসেব করেই সিলেবাস প্রনয়ন ও পরীক্ষা পদ্ধতি সাজানো হয়ে থাকে।

করোনায় বদলে গেছে অনেক কিছু। শিক্ষাব্যবস্থায় এসেছে বিস্তর পরিবর্তন। চলমান পরিস্থিতিতে কয়েকদফা চেষ্টা করেও এইচএসসি ও সমমানের পরিক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। এছাড়া এসএসসি পরীক্ষা হলেও যথাযথ সময়ে ফল প্রকাশ করা সম্ভব হয়নি।

যার ফলে উচ্চমাধ্যমিকে ভর্তিতে অনেক সময় বিঘ্নিত হয়েছে। আর ধারণা করা হচ্ছে এর প্রভাব পড়তে পারে আগামী শিক্ষাবর্ষেও।

কারণ পুরো বছরের হিসেব করেই সিলেবাস প্রনয়ন ও পরীক্ষা পদ্ধতি সাজানো হয়ে থাকে।

যার ফলে কোনো বছরের শেষনে সময়ে সমস্যা হলে পরবর্তি বছরেও তার প্রভাব পড়ার কথা।

সূত্রমতে, নির্ধারিত সময়ের পাঁচ মাস পার হতে চললেও এখনো চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষার আয়োজন করা সম্ভব হয়নি।

করোনা পরিস্থিতিতে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় সকল পাবলিক পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ার কারণে এমন আশঙ্কা তৈরি হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

সাধারণত বছরের জুলাই মাসে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাক-নির্বাচনী আর অক্টোবরে নির্বাচনী পরীক্ষা নেয়া হয়।

আর দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাক-নির্বাচনী বা অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা জুলাই-আগস্টে এবং ডিসেম্বরে নির্বাচনী পরীক্ষা হয়।

এরপর নভেম্বরে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ এবং ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ করা হয়।

ইতিমধ্যে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা বাতিল হয়ে গেছে।

আগামী বছরের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের একাদশ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষাও হয়নি।

একাদশ শ্রেণিতে কলেজ পর্যায়ে নেয়া বিভিন্ন ক্লাস টেস্ট আর অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার ফলের ওপর ভিত্তি করে এসব শিক্ষার্থীকে ‘অটো পাস’ দেয়া হয়েছে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, প্রতি বছর সাধারণত ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি এবং এপ্রিলে এইচএসসি পরীক্ষা হয়।

করোনাকালে প্রাতিষ্ঠানিক পাঠদান বন্ধ। এর ফলে পরীক্ষা যথাসময়ে শেষ করাটা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

তবে প্রতিষ্ঠান খোলার পরে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

এদিকে দেরি হলেও এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন অভিভাবকরা।

এ বিষয়ে অভিভাবক ঐক্য ফোরামের চেয়ারম্যান জিয়াউল কবীর দুলু বলেন, এসএসসি ও এইচএসসি পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের পাঠ্যক্রম শেষ করে পরীক্ষা নেয়া উচিত।

অন্যথায় শেখা ও জ্ঞান অর্জনে ঘাটতি থেকে গেলে তা পরবর্তী জীবনে ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

সূত্র জানায়, বিশেষ ব্যবস্থায় পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ও চিন্তা করছে। সেই কারণে সারাদেশ থেকে সিটপ্ল্যান সংগ্রহ করেছে বোর্ডগুলো।

সে অনুযায়ী, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৩ ফুট দূরত্ব রেখে ‘জেড’ সিস্টেমে শিক্ষার্থীদের বসানো হবে।

শিক্ষা বোর্ড থেকে নভেম্বরে পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে অবশ্য আরও তিনটি বিকল্প প্রস্তাব দিয়ে রাখা হয়েছে।

সেগুলো হচ্ছে-শিক্ষার্থীদের অতীত পরীক্ষার (জেএসসি-এসএসসি) ফলের ওপর ভিত্তি করে গ্রেড দেয়া; স্বল্পপরিসরে পরীক্ষা নেয়া; (এই দুটি গ্রহণ না করলে) আগামী মার্চ মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করা।

Download Nulled WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
free download udemy course