আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে কারখানা মালিকের কান্নার ছবি

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,বরাবরের মতো এবারও ঈদের আগে শ্রমিকদের হাতে বেতন-বোনাস আর ঈদ উপহার তুলে দেওয়ার তাড়না থেকে টানা ১০ দিনের বেশি বিদেশি ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে আসছিলেন। শেষ দিন সকাল ১০টায় ব্যাংকে বসেই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে থাকেন।বিকাল ৩টার দিকে ব্যাংক থেকে জানানো হয়, ইউরোপ কিংবা আমেরিকা কোনো দেশ থেকেই টাকা আসেনি। তাই আজকে আর কোনো লেনদেনের সুযোগ নেই।

করোনাভাইরাসের মধ্যে দেশে এক পোশাক কারখানা

মালিকের কান্না শিরোনাম হয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে।

বিদেশি ক্রেতাদের অর্ডার বাতিল, স্থগিত ও পাওনা টাকা

আটকে দেওয়ারে কারণে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

ডেনিম এক্সপার্ট নামের পোশাক করখানার মালিক মোস্তাফিজ উদ্দিন।

প্রায় দুই হাজার শ্রমিক কাজ করেন তার প্রতিষ্ঠানে।

তার কান্নার ছবি দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে অ্যাপারেলইনসাইডার ডটকম নামের একটি ওয়েবসাইট।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,বরাবরের মতো এবারও ঈদের আগে শ্রমিকদের হাতে

বেতন-বোনাস আর ঈদ উপহার তুলে দেওয়ার তাড়না থেকে টানা ১০

দিনের বেশি বিদেশি ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে আসছিলেন।

শেষ দিন সকাল ১০টায় ব্যাংকে বসেই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে থাকেন।

বিকাল ৩টার দিকে ব্যাংক থেকে জানানো হয়, ইউরোপ কিংবা আমেরিকা কোনো দেশ থেকেই টাকা আসেনি।

তাই আজকে আর কোনো লেনদেনের সুযোগ নেই।

তিনি জানান, এ কথা শোনার পর আমার মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়ল।

আগের রাতে একটুও ঘুমাতে পারিনি।

বুধবার সকালে শেষ কর্মদিবসে শ্রমিকদের কী করে

খালি হাতে বিদায় করব তা ভাবতেই আমার কান্না চলে আসে।

কিছুক্ষণের জন্য নিজের ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলি।

মোস্তাফিজ বলেন, প্রতি বছর ঈদে শ্রমিকদের হাতে উপহার তুলে দিই।

তাদেরকে নিয়ে ভালো মানের হোটেলে একদিন বসে ইফতার করি।

এবার এসব কিছুই করতে পারিনি।

কিন্তু ঈদ বোনাস থেকেও বঞ্চিত রাখতে হবে সেটা ভাবতে পারিনি।

শেষ মুহূর্তে পরিচিত বন্ধু-স্বজনদের কাছ থেকে ধার-দেনা করে তাদের হাতে বোনাস তুলে দিয়েছি।

Download Best WordPress Themes Free Download
Download WordPress Themes
Download Best WordPress Themes Free Download
Download Premium WordPress Themes Free
udemy paid course free download