আফ্রিকার যে ছয় দেশে হানা দেয়নি করোনা

দেশগুলো হল- সাউথ সুদান, বুরুন্ডি, সাও টোমে অ্যান্ড প্রিনসাইপ, মালাউই, লেসোথো, কমোরোস।

নভেল করোনাভাইরাসের আতঙ্কে কাঁপছে পুরো বিশ্ব। চীনের উহান থেকে শুরু, এরপর ছড়িয়ে পড়ে ১৯৯টিরও বেশি দেশে। আফ্রিকার ৫৪টি দেশের মধ্যে মাত্র ছয়টিতে এখনও করোনা থাবা বসায়নি।

দেশগুলো হল- সাউথ সুদান, বুরুন্ডি, সাও টোমে অ্যান্ড প্রিনসাইপ, মালাউই, লেসোথো, কমোরোস।

করোনামুক্ত রয়েছে ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্র পালাউ, টঙ্গো, সলোমন দ্বীপপুঞ্জ, মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ, মাইক্রোনেশিয়া, এশিয়ার যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন উত্তর কোরিয়া।

অন্যান্য ছয় মহাদেশে করোনা তাণ্ডব চালালেও বরফ আচ্ছাদিত এন্টার্কটিকা মহাদেশ এ ভাইরাস থেকে মুক্ত রয়েছে।

সাউথ সুদান : দীর্ঘ ছয় বছরের গৃহযুদ্ধ থেকে উঠে এসেছে পূর্ব আফ্রিকার দেশটি। তীব্র দুর্ভিক্ষ, রোগবালাইয়ের মুখোমুখি হয়েছে। অবকাঠামো ব্যবস্থাও খুবই নাজুক।

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, করোনা দেশটিতে হানা দিলে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালাবে। ডা. অ্যানগোক গর্ডন কুওল বলেন, সাউথ সুদানে মাত্র ১২ জনের টেস্ট করা হয়েছে, কারো পজিটিভ পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, অন্য দেশ থেকে সেখানে বিদেশীদের ভ্রমণ কম হওয়ায় তারা ভাইরাসমুক্ত রয়েছেন। কারণ অধিকাংশ দেশই বিদেশিদের থেকে সংক্রমিত হয়েছে।’

এর পরেও সতর্কতা হিসেবে স্কুল, বিয়ে, শেষকৃত্যানুষ্ঠান, খেলাধুলার মতো জনসমাগমের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৫০০ টেস্ট কিট ও ২৪ বেডের আইসোলেশন সেন্টার।

বুরুন্ডি : গত সপ্তাহে বুরুন্ডি সরকারের মুখপাত্র প্রসপার নাটাহোরওয়ার্মি বলেছিলেন, বুরুন্ডিকে সুরক্ষিত রাখায় সর্বশক্তিমান ঈশ্বরকে সরকার ধন্যবাদ জানাচ্ছে। দেশটিতে এখনও সংক্রমিত না হলেও কিছু প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট স্থগিত, ব্যাংক এবং রেস্তোরাঁয় প্রবেশের আগে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা অন্যতম। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ডাক্তার সমালোচনা করে বলেন, ‘বুরুন্ডিতে আক্রান্ত কাউকে না পাওয়ার অর্থ হলো এখানে কোন টেস্ট কিট নেই।’

সাও টোমে অ্যান্ড প্রিন্সিপি : ঘন বনাঞ্চলসমৃদ্ধ ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্রটিতে এখনও কেউ করোনা আক্রান্ত হয়নি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি অ্যানি অ্যানসিয়া বলেন, দেশটির করোনা টেস্ট করার কোনো সক্ষমতাই নেই।

এর পরেও আমরা প্রতিনিয়ত প্রস্তুতি নিচ্ছি। করোনা-বিধ্বস্ত দেশগুলো থেকে আসা প্রায় ১০০ জনকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। দুই লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে আইসিইউ বেড রয়েছে মাত্র চারটি।

মালাউই : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জোশুয়া মালাঙ্গো বলেন, ‘আমাদের টেস্টিং কিট রয়েছে। আমরা টেস্ট করছি। এখনও কেউ আক্রান্ত হইনি।’ দেশটির ডাক্তারদের সংস্থার প্রধান ডা. ব্রিগেট মালেওয়েজি বলেন, ‘আমরা এখনও শতভাগ প্রস্তুত নই। মালাউই আক্রান্ত হবে না এ সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।’

লেসোথো : কেউ আক্রান্ত না হলেও ২০ লাখ জনসংখ্যার ক্ষুদ্র রাষ্ট্রটিতে সোমবার থেকে লকডাউন জারি করা হয়েছে। গত সপ্তাহেও দেশটিতে কোনো টেস্ট কিট ছিল না। চীনা বিলিয়নিয়র জ্যাক মা দেশটিকে টেস্ট কিট দিয়েছেন।

কমোরোস : ভারত মহাদেশের দ্বীপরাষ্ট্রটি মাদাগাস্কার ও মোজাম্বিকের মাঝে অবস্থিত। কমোরোসের রাজধানী মোরোনির ডাক্তার আবদোউ আদা বলেন, গণহারে ম্যালেরিয়া প্রতিরোধী চিকিৎসার কারণে কোভিড-১৯ থেকে মুক্ত থাকতে পেরেছে কমোরোস।

উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে চীনে করোনার প্রকোপ কমলেও ইউরোপে এখন রীতিমতো তাণ্ডব চালাচ্ছে ভাইরাসটি। প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে লাশের সারি।

Download WordPress Themes
Download Premium WordPress Themes Free
Download Nulled WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
udemy paid course free download