আমার ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার: আসামি রাসেলের মা

আলোচিত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যায় গ্রেফতার হওয়া বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান (রাসেল)-এর মা ঝর্ণা বেগম বলেন, আমার ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার। আমার ছেলে কাউকে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে এটা আমি বিশ্বাস করতে পারি না।

আলোচিত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যায় গ্রেফতার হওয়া বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান (রাসেল)-এর মা ঝর্ণা বেগম বলেন, আমার ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার। আমার ছেলে কাউকে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে এটা আমি বিশ্বাস করতে পারি না।

মঙ্গলবার সরেজমিন রাসেলের গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের সালথা উপজেলার দাঙ্গাপ্রবণ সোনাপুর ইউনিয়নের রাঙ্গারদিয়ায় বাড়ির সামনে ছড়ানো-ছিটানো কয়েকটি চেয়ার পড়ে থাকতে দেখা যায়। চরম আতঙ্কের মাঝে সময় পার করছেন মেহেদী হাসানের মা ঝর্ণা বেগম।

স্থানীয়রা জানান, রাঙ্গারদিয়া গ্রামের সাবেক সেনা সদস্য রুহুল আমিন ও ঝর্ণা আমিন দম্পতির বড় ছেলে মেহেদী হাসান। রুহুল আমিনের চার সন্তানের মধ্যে মেহেদী হাসান সবার বড়।

রাসেলের বাবা রুহুল আমিন ২০০৮ সালে ময়মনসিংহ থেকে অবসরে যান। ছেলে সম্পর্কে রাসেলের বাবা রুহুল আমিন সাংবাদিকদের বলেন, সামান্য বেতনে চাকরি করে ছেলেকে বুয়েটে ভর্তি করাতে পেরেছিলাম বলে নিজেকে ধন্য মনে করছিলাম। মাঝপথে এসে এমন একটা দুর্ঘটনার শিকার হবে এটা আমার কল্পনারও বাইরে।

তিনি বলেন, ছোটবেলা থেকে আমার ছেলেকে আমি চিনি, সে এই ধরনের কাজ করতে পারে না।

রাসেলের ছোট বোন জান্নাতী মীম গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন। আর এক বোন গ্রামের যোগারদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণির ছাত্রী আর ছোট ভাই একই স্কুলের ৭ম শ্রেণির ছাত্র। বাবা রুহুল আমিন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ওয়ারেন্ট অফিসার ছিলেন।

Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
Premium WordPress Themes Download
Download Premium WordPress Themes Free
udemy paid course free download