এমডির ‘সুপেয় পানি’র শবরত খেলেন না ওয়াসার প্রকৌশলী

ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খানের দাবিকৃত ‘শতভাগ সুপেয়’ পানির শরবত খেলেন না প্রতিষ্ঠানটির প্রকৌশলী ও কে এম সহিদ উদ্দিন। তিনি জানিয়েছেন, ‘আজ শরবত খাবেন না, জুরাইন এলাকার পাইপ লাইন দ্রুত ঠিক করে শরবত খাবেন।’

ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খানের দাবিকৃত ‘শতভাগ সুপেয়’ পানির শরবত খেলেন না প্রতিষ্ঠানটির প্রকৌশলী ও কে এম সহিদ উদ্দিন। তিনি জানিয়েছেন, ‘আজ শরবত খাবেন না, জুরাইন এলাকার পাইপ লাইন দ্রুত ঠিক করে শরবত খাবেন।’

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে ওয়াসা ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা জানান।

এর আগে ১১টার দিকে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খানকে ওয়াসার সুপেয় পানি দিয়ে শরবত খাওয়াতে কারওয়ান বাজারে ওয়াসা ভবনের সামনে হাজির হন জুরাইন এলাকার বাসিন্দারা। এ সময় তাদের সঙ্গে ঢাকা ওয়াসার পানি, চিনির প্যাকেট ও লেবু ছিল।

সহিদ উদ্দিন এ সময় বলেন, ‘পাইপলাইনের ত্রুটির কারণে ওয়াসার পানি দূষিত হয়ে থাকতে পারে, তবে ওয়াসার পানি সুপেয়। জুরাইন এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগের কথা আমরা শুনেছি। খুব শিগগির এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘জুরাইনবাসীর সমস্যার কথা আমরা উপলব্ধি করেছি। আজ শরবত খাব না। পানির লাইন ঠিক করেই শরবত খাব।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের ঢাকা শহরে ১০টি জোন আছে। প্রত্যেকটা জোনে লক্ষ্য বলা আছে। কোথাও কোনো সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গে জোনে গিয়ে কমপ্লেইন দিলে আমরা সেটা ঠিক করে দিয়ে আসবো।’

এ সময় পানির কোনো সমস্যা হলে ১৬১৬২ নম্বরে কল দিলে তিন দিনের মধ্যে সমস্যার সমাধান করা হয় বলেও জানান প্রকৌশলী সহিদ উদ্দিন।

ওয়াসার এমডিকে শরবত খাওয়ানোর এই উদ্যোগের নেতৃত্ব দেন রাজধানীর জুরাইন এলাকার বাসিন্দা মো. মিজানুর রহমান। দুপুরের দিকে মিজানুর রহমানসহ অন্যদের ডেকে পাঠান ওয়াসার এমডির প্রতিনিধি প্রকৌশলী কেএম সহিদ উদ্দিন।

উল্লেখ্য, গত বুধবার টিআইবি গবেষণা উপস্থাপন করে জানায়, ‘ঢাকা ওয়াসার পানির নিম্নমানের কারণে ৯৩ শতাংশ গ্রাহক বিভিন্ন পদ্ধতিতে পানি পানের উপযোগী করে। এর মধ্যে ৯১ শতাংশ গ্রাহকই পানি ফুটিয়ে পান করে। গৃহস্থালি পর্যায়ে পানি ফুটিয়ে পানের উপযোগী করতে প্রতিবছর আনুমানিক ৩৩২ কোটি টাকার গ্যাসের অপচয় হয়।’

টিআইবির এই প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রত্যাখ্যান করে ঢাকা ওয়াসা। সংবাদ সম্মেলন করে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খান ‘ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়’ দাবি করেন। তিনি বলেন, ‘ঢাকা ওয়াসার সরবরাহ করা পানি উৎস থেকে গ্রাহকের জলাধার পর্যন্ত পানি সম্পূর্ণ শতভাগ বিশুদ্ধ ও নিরাপদ।’

তার এই দাবি’র পরপর নগরব্যাপী বিরূপ মন্তব্যের মুখে পড়েন। তাকে তার দাবিকৃত ‘শতভাগ সুপেয়’ পানির শরবত খাওয়ানোর কর্মসূচি ঘোষণা দেন রাজধানীবাসী।

Download Premium WordPress Themes Free
Download WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
online free course