তফসিল ঘোষণার পর এমপি-মন্ত্রীদের নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এমপি-মন্ত্রীদের ইসির আচরণবিধি মেনে চলার নির্দেশ

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থীদের ওপর নির্বাচন কমিশনের  ( ইসি) আচরণ বিধি অর্পিত হবে। আচরণ বিধি মেনেই সকল কর্ম তৎপরতা চালাতে হবে।’ 

তফসিল ঘোষণার পর এমপি-মন্ত্রীদের নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজননৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ নির্দেশ দেন। এর আগে সেখানে দলের সম্পাদকমন্ডলীর এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থীদের ওপর নির্বাচন কমিশনের  ( ইসি) আচরণ বিধি অর্পিত হবে। আচরণ বিধি মেনেই সকল কর্ম তৎপরতা চালাতে হবে।’

নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘নির্বাচনকালীন সরকারে টেকনোক্রেট থাকছে না এটা সুনিশ্চিত করে বলতে পারি। তবে মন্ত্রী সভার আকার ছোট না বড় হবে সেটা একান্তই প্রধানমন্ত্রীর এখতিযার। নির্বাচনকালিন সরকার কবে গঠন হবে তাও প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার ওপর নির্ভর কর। নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে আগাম কিছু বলতে চাই না।’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে দুই দফা সংলাপের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘উই আর হোপিং ফর দ্যা বেস্ট এন্ড প্রিপায়েরিং ফর দ্যা ওয়েস্ট।  আমরা ভালোর জন্য আশা করে আছি। যে কোনে মন্দ মোকাবেলাও আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। সংলাপের পর আমাদের যে অবস্থান কী সেটা প্রতিদিনই স্পষ্ট করেছি। ’

এসময় দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার প্রসঙ্গটি উঠে আসে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া জেলে  থেকে চিকিৎসা করালেও যে স্ট্যাটাস, জেলের বাইরে থাকলেও সেই একই স্ট্যাটাস। কেননা খালেদা জিয়া সংলাপে অংশ নিতে পারছেন না। বাইরে থাকলেই কি তিনি সংলাপে অংশ নিতে পারতেন? তার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নেওয়ার সুযোগ নেই। বরং আমি মনে করি, (শী) ইজ সেইভ। বাইরে থাকলেও হাসপাতালে হাসপাতালে ডাক্তার-নার্সদের বাইরে কেউ তার সঙ্গে কথা কথা বলতে পারবে না। জেলের বাইরে থাকলেও একটা কারাবিধি আছে তাকে ওই কারাবিধি অনুযায়ী চলতে হবে।’

এক আসন থেকে একাধিক মনোময়ন প্রত্যাশীর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘যে কেউ মনোনয়ন চাইতে পারে। মনোনয়ন চাওয়া যে কারও যে গণতান্ত্রিক অধিকার। এটাই ইন্টার্নাল ডেমোক্রেসি ‘বিউটি’। মনোনয়ন অনেকেই চাইবেন কিন্তু আমাদের মনোনয়ন বোর্ডের একটি সভা হবে সেখানে যাচাই-বাছাই করে যাকে উইনেবল মনে হবে, তাকেই মনোনয়ন দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।’

শরিকদের ক্ষেত্রেও এ শর্ত প্রযোজন্য হবে বলে জানান কাদের।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম, এনামুল হক শামীম, আহমদ হোসেন, মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, বিএম মোজাম্মেল হক প্রমুখ।

Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
Download Best WordPress Themes Free Download
free download udemy paid course