কাশ্মিরী মা-বোনদের সম্মান রক্ষা করা আমাদের ধর্মীয় দায়িত্ব: শিখ নেতারা

তাতে অকাল তখতের জাঠেদার জ্ঞানী হরপ্রীত সিং বলেছেন, ‘ঈশ্বর সকলকে সমান অধিকার দিয়েছেন। আর ধর্ম, জাত, লিঙ্গের প্রেক্ষিতে তা নিয়ে পার্থক্য করা অপরাধ। যেভাবে কাশ্মীরি মহিলাদের নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মন্তব্য উঠে আসছে ৩৭০ ধারা অবলুপ্তির পর, তা অপমানজনক ও ক্ষমার উর্ধ্বে।’

কাশ্মিরের নারীদের নিয়ে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি নেতাদের নানা ধরনের আপত্তিকর বক্তব্যের জবাবে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে শিখ ধর্মাবলম্বীরা। শিখ সম্প্রদায়ের ‘অকাল তখত’ এর পক্ষ থেকে গত রোববার বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে।

তাতে অকাল তখতের জাঠেদার জ্ঞানী হরপ্রীত সিং বলেছেন, ‘ঈশ্বর সকলকে সমান অধিকার দিয়েছেন। আর ধর্ম, জাত, লিঙ্গের প্রেক্ষিতে তা নিয়ে পার্থক্য করা অপরাধ। যেভাবে কাশ্মীরি মহিলাদের নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মন্তব্য উঠে আসছে ৩৭০ ধারা অবলুপ্তির পর, তা অপমানজনক ও ক্ষমার উর্ধ্বে।’

তিনি বলেন, ‘এরা ভুলে গেছেন যে এই মানুষগুলি কারোর মা, কারোর বোন, কারোর স্ত্রী। এই মহিলাদের সৃষ্টির ক্ষমতা রয়েছে।’ এরসঙ্গেই তিনি বলেন, কাশ্মীরি মহিলাদের সুরক্ষা দেওয়া শিখদের ধর্মীয় দায়িত্ব কর্তব্য। আর সেই রাস্তায় তাঁরা অবিলচ থাকবেন।

প্রসঙ্গত, শিখ সম্প্রদায়ের এক দিল্লি নিবাসী ব্যক্তি কয়েকদিন আগেই মহারাষ্ট্রে আটকে পড়া ৩৪ কাশ্মীরি মহিলাকে বিভিন্ন মাধ্যমের অনুদানের সাহায্যে নিজের বাড়ি পৌঁছে দেন। এদের টিকি কেনার জন্য ৪ লাখ টাকার প্রয়োজন ছিল। আর সেই অর্থই অনুদানের মাধ্যমে যোগাড় করে কাশ্মীরি মেয়ে দের সাহায্যে এগিয়ে আসেন এই সম্প্রদায়ের এক ব্যক্তি।

গত ৫ আগস্ট কাশ্মিরের সাংবিধানিক বিশেষ মর্যাদা হরণের পর বিজেপির পক্ষ থেকে একাধিক নেতা ভারতীয় তরুণদের আহ্বান জানান যে, তারা যেন কাশ্মিরে গিয়ে সেখানকার ফর্সা মেয়েদের বিয়ে করে। এরপরই শিখ সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে কাশ্মিরী নারীদের সহায়তায় এগিয়ে আসার এসব ঘটনা ঘটছে।

Download Premium WordPress Themes Free
Download Premium WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
Download Premium WordPress Themes Free
free download udemy paid course