ডায়াবেটিস হয়েছে জানলে কী করবেন

বাংলাদেশে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা প্রায় ৭০ লাখ বলে জানিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফাউন্ডেশন। কিন্তু আক্রান্তদের ৫৭ শতাংশই তাদের এই রোগের কথা জানেন না বলেও জানিয়েছে ফাউন্ডেশন।

বাংলাদেশে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা প্রায় ৭০ লাখ বলে জানিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফাউন্ডেশন। কিন্তু আক্রান্তদের ৫৭ শতাংশই তাদের এই রোগের কথা জানেন না বলেও জানিয়েছে ফাউন্ডেশন।

ডায়াবেটিস আক্রান্ত হয়েছেন সেটা জানতে পারলে কি করবেন? এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের জন্য কিছু পরামর্শ।

খাদ্য সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি
বিবিসি বাংলাকে ডা. ফজলে রাব্বী খান বলেন, কতটুকু খাদ্য গ্রহণ নিরাপদ আক্রান্ত ব্যক্তিকে সেটি বুঝতে হবে। আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য আলাদা খাদ্যের ব্যবস্থা করতে হবে। তবে সেগুলো সুষম হতে হবে। বাংলাদেশের মানুষজন খাবারের পরিমাণটা ঠিকমত বুঝে উঠতে পারে না। এটি বাংলাদেশের মানুষের চর্চার মধ্যে নেই। চিকিৎসকরা আরও বলেন ডায়াবেটিস রোগটিকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে দীর্ঘদিন সুস্থ জীবনযাপন করা সম্ভব বলে ।

নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম করতে হবে
শুধু খেলে বসে থাকলে চলবে না। অবশ্যই নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম করতে হবে। সেটা যেকোনো ধরনের কায়িক পরিশ্রম হতে পারে। দিনে ৩০ থেকে ৪০ মিনিট অবশ্যই কোনো ধরনের শারীরিক পরিশ্রম করা উচিত। সবচেয়ে সহজ পরিশ্রম হল হাঁটতে পারা।

মিষ্টি খাওয়া যাবে, তবে.. 
সাধারণের একটি ধারণা হল ডায়াবেটিস হলে মিষ্টি খাওয়া যাবে না। চিকিৎসকরা বলছেন, মিষ্টিও খেতে পারবেন তবে অবশ্যই পরিমিত হতে হবে। একবারে এক কেজি খেয়ে ফেললেই হবে না। আর মনে রাখতে হবে মিষ্টিতে গ্লুকোজ আছে। ভাতেও কিন্তু সেটি আছে। অন্য আরও অনেক খাবারেও রয়েছে। তবে মিষ্টিতে গ্লুকোজের পরিমাণ বেশি সেটিই হল সমস্যা। মিষ্টি খাওয়া যাবে কিন্তু অল্প পরিমাণে। খাওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে তবেই ডায়াবেটিস ঠিক হবে।

জীবনাচরণ পরিবর্তন
প্রতিদিন কি খাচ্ছেন আর কতটা পরিশ্রম করছেন সব কিছু জীবনাচরণের অংশ। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের সকালে ঘুম থেকে ওঠা থেকে শুরু করে রাতে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত কতটুকু কাজ করা দরকার, কী ধরনের স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে, কতটুকু খেতে হবে, কয় বার খেতে হবে, কার জন্য কতটুকু খাবার দরকার ইত্যাদি সবই এর অংশ। সর্বদা শরীরের ওজন কমিয়ে রাখতে হবে।

আক্রান্ত রোগীর ওষুধের ব্যবহার
উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো মেনে চলার পরও যদি রক্তে সুগারের মাত্রা বেশি থাকে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের দেয়া নির্দেশিত ঔষধ সেবন করতে হবে।

বংশগত কারণে ডায়াবেটিস
ধরুন আপনার বংশে আগে কারো ডায়াবেটিস ছিল। বংশগত কারণে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেশি থাকে। কিন্তু তার মানে অন্য কারো হবে না সেটি ভাবার কোন কারণ নেই।

ডায়াবেটিসের কারণে যেসব রোগ হতে পারে
ডায়াবেটিস হলে কিডনি রোগ, চোখের রোগ, হার্টের সমস্যা ও মানসিক চাপ বৃদ্ধি পায়। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ না করলে এসব অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। হৃদযন্ত্রের বড় সমস্যা বা অন্ধত্ব পর্যন্ত গড়াতে পারে।

ডায়াবেটিস সংক্রান্ত তথ্য জেনে নেয়া
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি খুব সহজ বলে মনে করেন চিকিৎসকেরা। এ রোগ নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে তথ্যও খুব সহজেই পাওয়া যায়। সেগুলো জেনে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকেরা। কারণ তথ্য জানা থাকলে অনেক কিছুই সহজ মনে হয়।

Free Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
Download Nulled WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
free download udemy course