তাহাজ্জুদ নামাজে যে সুফল লাভ করে মুমিন

তাহাজ্জুদ বা রাতের নামাজের গুরুত্ব অপরিসীম। এ নামাজে মুমিনের মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। আল্লাহর একান্ত প্রিয় বান্দা হওয়ার অন্যতম উপায়ও এটি। প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়ের মাধ্যমে মুমিনের উপকারিতা ও সতর্কতা তুলে ধরেছেন।

তাহাজ্জুদ বা রাতের নামাজের গুরুত্ব অপরিসীম। এ নামাজে মুমিনের মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। আল্লাহর একান্ত প্রিয় বান্দা হওয়ার অন্যতম উপায়ও এটি। প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়ের মাধ্যমে মুমিনের উপকারিতা ও সতর্কতা তুলে ধরেছেন।

শয়তান মানুষের প্রকাশ্য দুশমন। তাই তো বিতাড়িত শয়তান মানুষকে তার সব কৌশল প্রয়োগ করে মুমিন বান্দাকে তাহাজ্জুদ থেকে গাফেল রাখতে সদা সচেষ্ট। সে কারণে প্রকৃত মুমিন বান্দা শয়তানকে চ্যালেঞ্জ করে রাতের আরামকে হারাম করে তাহাজ্জুদের জায়নামাজে রাত কাটিয়ে দেন।

মুমিন বান্দার জন্য প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হাদিসের এ ঘোষণা অনুযায়ী আমল করাই যথেষ্ট। হাদিসে এসেছে-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে কেউ যখন ঘুমিয়ে থাকে তখন শয়তান তার মাথার শেষাংশে (ঘাড়ে) তিনটি গিট মেরে দেয়। প্রত্যেক গিট দেয়ার সময় এ মন্ত্র পড়ে মুমিন বান্দাকে অভিভূত করে দেয় যে, তোমার এখনো লম্বা রাত বাকি, অতএব ঘুমাতে থাকো।

সুতরাং সে যদি জেগে ওঠে আল্লাহর জিকির করে তবে (শয়তানের দেয়া গিটের) একটি বাঁধন খুলে যায়। তারপর ওজু করলে আরেকটি বাঁধন খুলে যায়। অতঃপর তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়ের মাধ্যমে তার সবগুলো বাঁধনই খুলে যায়।

ফলে ফজরের সময় সে উদ্যম ও স্বতস্ফুর্তভাবে ভোর বেলা জেগে ওঠে। অন্যথায় (তাহাজ্জুদ না পড়লে) আলস্যভরা ভারী মন নিয়ে ফজরের সময় জেগে ওঠে। (মুয়াত্তা মালেক, বুখারি, মুসলিম, আবু দাউদ, নাসাঈ, ইবনু মাজাহ)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে শয়তানের যাবতীয় ক্ষতিকর বাঁধন থেকে মুক্ত হতে তাহাজ্জুদ যথাযথ তাহাজ্জুদ নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Download WordPress Themes
Download WordPress Themes
Free Download WordPress Themes
Download WordPress Themes
free online course