দাঁতে ব্যথা দূর করার কিছু ঘরোয়া উপায়

আপনি যদি কখনও দাঁতে ব্যথায় ভুগে থাকেন, তবে নিশ্চয়ই জানেন এটি কতটা তীব্র হতে পারে! দাঁতে ব্যথা সব সময় জানান দিয়ে আসে না। কখনও কখনও সহ্যের সীমাও অতিক্রম করে যেতে পারে। দাঁতে ব্যথা সারানোর জন্য দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া জরুরি। তবে তার আগে কিছু ঘরোয়া উপায় মেনে দেখতে পারেন।

আপনি যদি কখনও দাঁতে ব্যথায় ভুগে থাকেন, তবে নিশ্চয়ই জানেন এটি কতটা তীব্র হতে পারে! দাঁতে ব্যথা সব সময় জানান দিয়ে আসে না।

কখনও কখনও সহ্যের সীমাও অতিক্রম করে যেতে পারে।

দাঁতে ব্যথা সারানোর জন্য দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া জরুরি। তবে তার আগে কিছু ঘরোয়া উপায় মেনে দেখতে পারেন।

দাঁতে ব্যথা দূর করার ঘরোয়া উপায়-

লবণ-পানি

দাঁত ব্যথার জন্য প্রাথমিক চিকিৎসার একটি হলে লবণ-পানি দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করা। লবণাক্ত পানি প্রাকৃতিক জীবাণুনাশক।

এটি দাঁতের মধ্যে আটকে থাকা খাদ্যকণা বের করতে সহায়তা করে।

লবণ পানি দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করলে তা প্রদাহ কমাতে এব মুখের যেকোনও ক্ষত সারতে সহায়তা করে।

একগ্লাস গরম পানিতে ১/২ চা চামচ লবণ মিশিয়ে মাউথওয়াশ হিসাবে ব্যবহার করুন।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড

হাইড্রোজেন পারক্সাইড পানির সঙ্গে মিশিয়ে সাথে ধুয়ে ফেললে ব্যথা এবং প্রদাহ থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

এটি ব্যাকটেরিয়া হত্যা করে, দাঁতের ক্ষয় হ্রাস করে এবং মাড়ির রক্তপাত নিরাময় করে।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড পাতলা করতে ভুলবেন না। পানির সাথে ৩ শতাংশ হাইড্রোজেন পারক্সাইড মেশান এবং এটি মাউথওয়াশ হিসাবে ব্যবহার করুন। খেয়াল রাখবেন, এটি যেন কোনোভাবেই গিলে না ফেলেন।

পিপারমিন্ট টি ব্যাগ

তুলসি পাতা সংবেদনশীল মাড়ির ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। একটি ব্যবহৃত পিপারমিন্ট টি ব্যাগ নিন এবং এটি ঠান্ডা হতে দিন।

এই টি ব্যাগটি আক্রান্ত স্থানে প্রয়োগ করুন। টি ব্যাগটি কিছুটা গরম থাকা অবস্থায়ও ব্যবহার করতে পারেন।

আবার টি ব্যাগটি ফ্রিজে রেখে বরফ ঠান্ডা করেও নিতে পারেন।

রসুন

রসুন বহুকাল ধরে বিভিন্ন সমস্যার জন্য ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

রসুন ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলতে পারে যা ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়। রসুনের একটি কোয়া নিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।

এটি ক্ষতিগ্রস্থ জায়গায় প্রয়োগ করুন। এর সঙ্গে লবণও যোগ করতে পারেন।

লবঙ্গ

যুগে যুগে দাঁত ব্যথার চিকিৎসার জন্য লবঙ্গ ব্যবহৃত হয়ে আসছে। লবঙ্গ তেল কার্যকরীভাবে ব্যথা দূর করতে পারে এবং প্রদাহ হ্রাস করতে পারে।

তেলটিতে ইউজেনল রয়েছে যা প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিক।

আপনি একটি তুলোর মাধ্যমে কয়েক ফোঁটা লবঙ্গ তেল লাগিয়ে আক্রান্ত জায়গায় প্রয়োগ করতে পারেন।

ব্যবহারের আগে লবঙ্গ তেলের সঙ্গে অলিভ অয়েল মিশিয়ে পাতলা করে নিন।

পানির সঙ্গে দু-এক ফোঁটা লবঙ্গ তেল মিশিয়েও মুখ ধোয়ার কাজে ব্যবহার করতে পারেন।

তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া।

Download Best WordPress Themes Free Download
Download WordPress Themes Free
Download Premium WordPress Themes Free
Download Best WordPress Themes Free Download
download udemy paid course for free