নুয়ান প্রদীপের দুর্দান্ত বোলিংয়ে শ্রীলংকার জয়

প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে মোহাম্মদ নবীর অফ স্পিনে শিকার হয়ে ৩৬.৫ ওভারে ২০১ রানে অলআউট শ্রীলংকা। বিষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ৪১ ওভারে ১৭৮ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৩২.৪ ওভারে ১৫২ রানে অলআউট আফগানিস্তান। বৃষ্টি আইনে ৩৪ রানে জয় পায় শ্রীলংকা।

প্রদীপে আলো পেলো শ্রীলংকা। পরাজয়ের আশঙ্কায় পড়ে যাওয়া শ্রীলংকাকে জয় উপহার দেন নুয়ান প্রদীপ। তার আগুনঝরা বোলিংয়ের সামনে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি আফগানিস্তান।

মঙ্গলবার ইংল্যান্ডের কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্সে বিশ্বকাপের সপ্তম ম্যাচে মুখোমুখি হয় এশিয়ার দুই প্রতিবেশী দেশ শ্রীলংকা ও আফগানিস্তান।

প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে মোহাম্মদ নবীর অফ স্পিনে শিকার হয়ে ৩৬.৫ ওভারে ২০১ রানে অলআউট শ্রীলংকা। বিষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ৪১ ওভারে ১৭৮ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৩২.৪ ওভারে ১৫২ রানে অলআউট আফগানিস্তান। বৃষ্টি আইনে ৩৪ রানে জয় পায় শ্রীলংকা।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে কুশল পেরেরাকে সঙ্গে নিয়ে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন অধিনায়ক করুনারত্নে। উদ্বোধনী জুটিতে ১৩.১ ওভারে ৯২ রান করেন তারা।

আগের ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে একাই লড়াই করেন করুনারত্নে। তার একার লড়াইয়ের পরও ১৩৬ রানে অলআউট শ্রীলংকা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫২ রানে অপরজিত ছিলেন করুনারত্নে। আজও দলের জন্য লড়াই করেন করুনারত্নে। দলকে শুভ সূচনা এনে দিয়ে ৪৫ বলে ৩০ রান করে ফেরেন লংকান অধিনায়ক।

দ্বিতীয় উইকেটে লাহিরু থিরিমান্নেকে সঙ্গে নিয়ে ৫২ রানের জুটি গড়েন কুশল পেরেরা। এরপর থেকেই লংকানদের ব্যাটিং বিপর্যয় শুরু। দলীয় ১৪৪ রানে মোহাম্মদ নবীর দ্বিতীয় শিকারে পরিনত হন থিরিমান্নে। তার আগে ৩৪ বলে করেন ২৯ রান।

এরপর কুশল মেন্ডিস, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও থিসেরা পেরেরা উইকেট থিতু হতে পারেননি। মোহাম্মদন নবী ও রশিদ খানের স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ফেরেন তারা।

ইনিংসের শুরু থেকে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে যাওয়া কুশল পেরেরাকে ক্যাচ তুলতে বাধ্য করেন রশিদ খান। দলীয় ১৮০ রানে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন পেরেরা। ৩৩তম ওভার শেষে বৃষ্টির বাগড়া।

তিন ঘণ্টা পর খেলা শুরু হলে ভেজা মাঠে বেশি দূর যেতে পারেনি শ্রীলংকা ৩৬.৫ ওভারে ২০১ রানে অলআউট হয় লংকানরা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৮ রান করেন ওপেনার কুশল পেরেরা। তার ইনিংসটি ৮১ বলে ৮টি চারে সাজানো। আফগানিস্তানের হয়ে ৯ ওভারে ৩০ রানে ৪ উইকেট শিকার করেন মোহাম্মদ নবী। এছাড়া রশিদ খান ও দৌলত জাদরান দুটি করে উইকেট নেন।

৪১ ওভারে ১৭৮ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে নুয়ান প্রদীপের গতির মুখে পড়ে আফগানিস্তান। স্কোর বোর্ডে ৫৭ রান যোগ করতেই ফেরেন আফগান ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শেহজাদ, রহমত শাহ, হযরতউল্লাহ জাজাই, হাসমতউল্লাহ শহিদী ও মোহাম্মদ নবী।

দলের এমন বিপর্যয়ে হাল ধরেন অধিনায়ক গুলবাদিন নায়েব ও নজিবুল্লাহ জাদরান। ষষ্ঠ উইকেটে তাদের অনবদ্য জুটিতে জয়ের স্বপ্ন দেখে আফগানরা। এই জুটিতে তারা যোগ করেন ৫৭ রান।

দায়িত্বশীল ব্যাটিং করে যাওয়া গুলবাদিন নায়েবকে আউট করার মধ্য দিয়ে জুটি ভাঙেন নুয়ান প্রদীপ। এরপর চাপের মধ্যে পড়ে যায় আফগানরা। দুর্দান্ত ব্যাটিং করে যাওয়া নজিবুল্লাহ জাদরানকে রান আউটের ফাঁদে ফেলেন করুনারত্নে। শেষ দিকে লাসিথ মালিঙ্গার গতির সামনে দাঁড়াতেই পারেননি মুজিব-উর-রহমান ও দৌলত জাদরানরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

শ্রীলংকা: ৩৬.৫ ওভারে ২০১/১০ (কুশল পেরেরা ৭৮, করুনারত্নে ৩০, থিরিমান্নে ২৫; মোহাম্মদ নবী ৩০/৪, রশিদ খান ২/১৭, দৌলত জাদরান ২/৩৪)।

আফগানিস্তান: ৩২.৪ ওভারে ১৫২/১০ (নজিবুল্লাহ ৪৩, হযরতউল্লাহ ৩০, গুলবাদিন নায়েব ২৩, মোহাম্মদ নবী ১১; নুয়ান প্রদীপ ৪/৩১, মালিঙ্গা ৩৯/৩)।

ফল: শ্রীলংকা ডিএলমেথডে ৩৪ রানে জয়ী।

Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
online free course