পরীমনিকে থাপ্পড় মারেন নাসির: রিমান্ডে স্বীকারোক্তি

বুধবার (১৬ জুন) দুপুরে গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ বলেন,’ দুজনেই পরীমনিকে গালে থাপ্পড় মারা ও তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। এছাড়া সেদিন বোট ক্লাবে কি ঘটেছিল? কার কি ভূমিকা ছিল সবকিছুই সিসি ক্যামেরার ফুটেজে আছে।’

রিমান্ডে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে মারধরের কথা স্বীকার করেছেন ডেভলপার ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমি। রিমান্ডে তারা আরও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন গোয়েন্দা পুলিশকে।

বুধবার (১৬ জুন) দুপুরে গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশিদ বলেন,’ দুজনেই পরীমনিকে গালে থাপ্পড় মারা ও তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। এছাড়া সেদিন বোট ক্লাবে কি ঘটেছিল? কার কি ভূমিকা ছিল সবকিছুই সিসি ক্যামেরার ফুটেজে আছে।’

গোয়েন্দা পুলিশের কাছে আসা সিসি ফুটেজ দেখা যায়, ঘটনার দিন রাত ১২-২২ মিনিটের দিকে কালো রঙের একটি গাড়ি বোট ক্লাবের ভেতরে প্রবেশ করেছে। গাড়ি থেকে অমি’র সঙ্গে নামেন পরীমনি। সঙ্গে ছিলেন পরীমনির ডিজাইনার জিমি ও তার বোন বনি। সুস্থ এবং স্বাভাবিকভাবে ক্লাবটিতে প্রবেশ করেন তারা।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, রাত ২ টার দিকে পরীমনিকে অচেতন অবস্থায় দুজন ধরাধরি করে বাইরে বের করে নিয়ে আসেন।

৯ জুন আশুলিয়ার বিরুলিয়ার তুরাগ নদীর ধারে নির্মিত বোট ক্লাবে পরীমনি মারধর ও লাঞ্ছনার শিকার হন। পরীমনি অভিযোগ করেন সেখানে নাসির ইউ মাহমুদ জোর করে তার মুখে মদ ঢেলে দেওয়ার চেষ্টা চালান। এই ঘটনায় পরীমনি বাদি হয়ে সাভার থানায় মামলা করলে গোয়েন্দা পুলিশ নাসির, অমি ও ৩ নারীকে উত্তরার একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে। ক্লাবটিতে পরীমনিকে তার পূর্ব পরিচিত অমি নিয়ে যান।

Download Nulled WordPress Themes
Download Premium WordPress Themes Free
Premium WordPress Themes Download
Download WordPress Themes
free download udemy course