বর্ষায় চুল পড়া প্রতিরোধে যা করবেন

বর্ষার সময় চুল পড়ার হার অনেক বেড়ে যায়। এ কারণে এ সময়ে চুলের বাড়তি যত্নের প্রয়োজন হয।

বর্ষার সময় চুল পড়ার হার অনেক বেড়ে যায়। এ কারণে এ সময়ে চুলের বাড়তি যত্নের প্রয়োজন হয।

কিছু নিয়ম মেনে এই সময় চুল পড়া প্রতিরোধ করতে পারেন। যেমন-

১. এই সময় বৃষ্টিতে ভিজলে আবার চুল ধুয়ে ফেলতে হবে। তা না হলে মাথার তালুতে বৃষ্টির পানিতে থাকা ধূলিকণা ও অন্যান্য দূষিত পদার্থ জমে যাবে। এতে চুলের গোড়া আলগা হয়ে চুল পড়ে যাওয়ার ভয় থাকে। তাই বৃষ্টির পানিতে ভিজলে হালকা কোনও শ্যাম্পু দিয়ে চুলটা আবার ধুয়ে মাথা পরিষ্কার করে মুছে নিন। এর পর মাথার তালুতে লেবুর রস লাগালে ধূলিকণা বেরিয়ে যাবে।

২. বাইরে বের হলে মাথা ঢেকে রাখুন। এতে বর্ষার আর্দ্রতা থেকে চুল বাঁচবে।

৩. চুলের যত্নে তেল ব্যবহারের বিকল্প নেই। যে ঋতুই হোক না কেন, চুলে তেল ব্যবহার করা প্রয়োজন। বর্ষার সময় হালকা গরম তেল ব্যবহার করা উচিত।এটি ব্যবহারে বর্ষার আর্দ্রতায় চুলে যে জট পড়ে, তার হাত থেকে রেহাই পাবেন অনেকটাই। সেই সঙ্গে চুল মসৃণও হবে। তেলমালিশের অন্তত আধঘণ্টা পরে শ্যাম্পু করে নিন। তাহলে চুল ফুরফুরে দেখাবে।

৪. শ্যাম্পুর পরে চুলে ভাল করে কন্ডিশনার দিন।এতে চুলের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হবে।

৫. বর্ষার সময় চুলের স্টাইল করা এড়িয়ে চলুন। এমনিতেই রাসায়নিক চুলের জন্য ক্ষতিকর। বর্ষায় সেই হার বেড়ে যায়।

৬. চুল ঠিক রাখতে ভেজা চুল কখনই আঁচড়াবেন না। ভাল করে চুল শুকিয়ে তবেই চুল আঁচড়ান। জট ছাড়াবার জন্য মোটা দাঁতের চিরুনি ব্যবহার করুন। ভিজে চুল আঁচড়ালে তা আরও ছিঁড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

৭. চুল ঝলমলে রাখার জন্য এক ও অদ্বিতীয় হল কেরাটিন।চুলে যাতে কেরাটিনের অভাব না ঘটে, এজন্য খাদ্যতালিকায় নজর দিন।নিয়মিত প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খান।  এছাড়া পর্যাপ্ত পানি পান করুন।

৮. বর্ষায় চুলের যত্ন নিতে বাড়িতে তৈরি বিভিন্ন প্যাক ব্যবহার করুন। স্বাভাবিক চুলের জন্য মধু আর দুধ মিশিয়ে প্যাক বানান। চুলে মালিশ করার আধ ঘণ্টা পরে ধুয়ে নিন।

দুধ থেকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পাবে চুল। আর মধু চুলকে নমনীয় করবে। শুষ্ক চুলের জন্য নারকেল তেলের সঙ্গে অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন । তেলে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন আর প্রোটিন চুলকে প্রয়োজনীয় খাদ্য দেবে। জট পড়ার প্রবণতাও কমাবে। তৈলাক্ত চুলের জন্য অ্যালোভেরার রসের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি  চুলে হালকা মালিশ করে লাগান। এরপর শ্যাম্পু করে নিন। এতে চুলের তৈলাক্ত ভাব দূর হবে।

Premium WordPress Themes Download
Free Download WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
Download WordPress Themes
free download udemy course