বয়সের ছাপ থেকে ত্বককে বাঁচাবে যে খাবার

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই ত্বকে ভাঁজ পড়ে, ঔজ্জ্বল্য কমতে থাকে। এর পেছনে অনেকগুলো কারণ রয়েছে। অতিরিক্ত ধূমপান, পানি কম খাওয়ার কারণে ডিহাইড্রেশন, কম ঘুমানো, ত্বকে অতিরিক্ত আলট্রা ভায়োলেট রশ্মির প্রভাব-এর প্রত্যেকটা প্রভাবই বেশি বয়সের আগেই মুখে বয়সের ছাপ ফেলে দেয়।

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই ত্বকে ভাঁজ পড়ে, ঔজ্জ্বল্য কমতে থাকে। এর পেছনে অনেকগুলো কারণ রয়েছে। অতিরিক্ত ধূমপান, পানি কম খাওয়ার কারণে ডিহাইড্রেশন, কম ঘুমানো, ত্বকে অতিরিক্ত আলট্রা ভায়োলেট রশ্মির প্রভাব-এর প্রত্যেকটা প্রভাবই বেশি বয়সের আগেই মুখে বয়সের ছাপ ফেলে দেয়।

তবে এই সমস্যায় সবচেয়ে খারাপ ভূমিকা নেয় মানসিক চাপ। যারা দীর্ঘ অবসাদে ভোগেন বা অশান্তির মধ্যে থাকেন, তাদের ত্বকে বয়সের ছাপ অনেক দ্রুত আসে। কিন্তু এই সমস্যার প্রতিকারও আছে। কয়েকটি খাবার আপনাকে এই সমস্যার হাত থেকে বাঁচাতে পারে। এজন্য এই খাবারগুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

টমেটো

টমেটোতে রয়েছে বিপুল পরিমাণে আয়রন এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। ফলে ত্বকের গুণমান বজায় রাখতে, ত্বক টানটান রাখতে টমেটো প্রভাব বিস্তার করে। পাশাপাশি আলট্রা ভায়োলেট রশ্মির হাত থেকে ত্বককে বাঁচাতেও সাহায্য করে টমেটো।

লাল বেল পেপার

এই সবজিটি ভিটামিন সি এবং ক্যারোটেনয়েডস নামক অ্যান্টিঅক্সিজেন্টে পরিপূর্ণ। রান্নায় এই সবজিটি বেশি পরিমাণে থাকলে ত্বকের জন্য ভালো হয়। ত্বকের ভাঁজ কমে যায়।

পাকা পেঁপে

পাকা পেঁপে এমনিতেই শরীরের জন্য খুব ভালো। কারণ এতে রয়েছে ভিটামিন এ, ডি, ই এবং কে। ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম। এ ছাড়া ফসফরাসের মতো লবণও রয়েছে পেঁপের মধ্যে। বি কমপ্লেক্স ভিটামিনও এই ফলে কম নয়। ফলে এটি সব মিলিয়ে শরীরের জন্য খুব ভালো।

শীতল জলের মাছ

শীতল জলের মাছ ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। শীতল জলের মাছের মধ্যে স্যামন এই বিষয়ে সবচেয়ে ভালো। এই মাছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটোরির মতো উপাদান থাকে। এটি ত্বকের জন্য খুব উপকারী।

গ্রিন টি

গ্রিন টি ত্বকের জন্য খুব ভালো। এতে রয়েছে শক্তিশালী পলিফেনল অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস। এটি ত্বককে অতিরিক্ত আস্তরণ দেয় রোদ বা ক্ষতিকারক দূষিত বস্তুর হাত থেকে রক্ষা করতে। তার পাশাপাশি ত্বকের নিয়মিত যে ক্ষয় হয়, তাও দ্রুত পূরণ হয় এই গ্রিন টির কারণে।

বেদানা

বেদানা অনেক অসুস্থ মানুষকেই খেতে বলেন চিকিৎসকরা। কারণ বেদানায় থাকে দ্রুত হিমোগ্লোবিন তৈরির উপাদান। রক্তস্বল্পতায় যারা ভোগেন, তাদের জন্য এই ফল খুব উপকারী। কিন্তু শুধুমাত্র হিমোগ্লোবিন তৈরির উপাদানই নয়, এতে থাকে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। ফলে ত্বকের জন্যও এই ফলটি খুব কার্যকরী।

গাজর

গাজরে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ। তা ছাড়া এর মধ্যে রয়েছে বিটা ক্যারোটিন। এই উপাদানটি ত্বক পরিষ্কার হতে সাহায্য করে। বাতাসে থাকা দূষিত পদার্থ বা কণা, যা কি না ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি করে, তার হাত থেকেও ত্বককে রক্ষা করে এই বিটা ক্যারোটিন।

অলিভ অয়েল

এই অলিভ অয়েল ত্বকের জন্য খুব ভালো। এতে রয়েছে ভরপুর ভিটামিন বি কমপ্লেক্স। এই তেল দিয়ে যদি নিয়মিত ত্বকে মাসাজ করা যায়, ত্বকের গুণমান বাড়ে। ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়া বা ফাটার হাত থেকে এই তেল ত্বককে রক্ষা করে। ডিহাইড্রেশন থেকে রক্ষা করে। এ ছাড়া এই তেল খাওয়া শরীরের জন্য উপকারী।

Free Download WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
Download Best WordPress Themes Free Download
free download udemy course