রূপচর্চায় অলিভ অয়েল কেন ব্যবহার করবেন?

জলপাই তেল বা অলিভ অয়েল খুবই ভেষজ গুণ সম্পন্ন। এটি রূপচর্চাতেও অনন্য। রূপচর্চায় এটি আদিকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। চলুন জেনে নেয়া যাক রূপচর্চায় অলিভ অয়েলের কিছু গুণাগুণ...

জলপাই তেল বা অলিভ অয়েল খুবই ভেষজ গুণ সম্পন্ন। এটি রূপচর্চাতেও অনন্য। রূপচর্চায় এটি আদিকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। চলুন জেনে নেয়া যাক রূপচর্চায় অলিভ অয়েলের কিছু গুণাগুণ…

১. যারা নখ লম্বা রাখতে ভালবাসেন তারা নখের কিউটিকলকে আরও মজবুত রাখতে অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারেন।

২. পা বা পায়ের গোড়ালি ফাটার সমস্যা সারাতে অলিভ অয়েল দুর্দান্ত কাজ করে।

৩. শ্যাম্পু করার আগে উষ্ণ জলের সঙ্গে ২-৩ চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে চুলের গোড়ায় গোড়ায় ভাল করে মালিশ করে অন্তত ১৫-২০ মিনিট রেখে দিন। তার পর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন নিয়ম করে অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারলে চুলের চাকচিক্য বাড়বে।

৪. মেক-আপ রিমুভার হিসাবেও অত্যন্ত কার্যকরী অলিভ অয়েল। তুলার মধ্যে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল নিয়ে চোখ আর মুখের মেক-আপ তুলে ফেলুন। এতে ত্বকে কোনও রকম অস্বস্তি তো হবেই না বরং ত্বক হয়ে উঠবে কোমল, দীপ্তীময়।

৫. শেভিং বা ওয়্যাক্সিং-এর আগে ক্রিম হিসাবে অলিভ অয়েল ব্যবহার করে দেখুন। ত্বকের উপর রেজার ব্যবহার করার আগে ত্বকে  অলিভ অয়েল লাগান। এতে শেভিং বা ওয়্যাক্সিং-এর পরবর্তী জ্বালা বা অস্বস্তি থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

Free Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
Download Best WordPress Themes Free Download
Download WordPress Themes Free
free download udemy course