সারাদিন পানি পিপাসা কমাতে সেহেরিতে যা খাবেন

নিয়ম মেনে খাবার না খেলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। তাই রোজায় ইফতারি ও সেহেরিতে নিয়ম মেনে খাবার খাওয়া উচিত। তবে এই গরমে রোজায় সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে পানির পিপাসা বেশি লাগে। তাই কিছু খাবার আছে যা খেলে সারা দিন পানির পিপাসা কম লাগবে।

এ বছর রমজানে প্রায় ১৪ থেকে ১৫ ঘণ্টা রোজা থাকতে হচ্ছে। এমনিতেই গরম কালে শরীরে প্রচুর পানি প্রয়োজন হয়। রোজার দিনে পানি পান করা সম্ভব না। এই সময়ে এমনিতেও শরীরে পানি জমা থাকতে পারে না। আর শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিলে মাথা ঘোরানো, মাথা ব্যথা এবং শরীর অবসন্ন হয়ে পড়তে পারে।

নিয়ম মেনে খাবার না খেলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। তাই রোজায় ইফতারি ও সেহেরিতে নিয়ম মেনে খাবার খাওয়া উচিত। তবে এই গরমে রোজায় সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে পানির পিপাসা বেশি লাগে। তাই কিছু খাবার আছে যা খেলে সারা দিন পানির পিপাসা কম লাগবে।

রোজার মাস ভালো থাকার জন্য একটা ব্যালেন্স ডায়েট বা সুষম খাবারের দরকার। রোজায় স্বাস্থ্যসম্মত খাবার নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন ডায়েটিশিয়ান শওকত আরা সাঈদা লোপা।

সেহেরির খাবার

রোজায় সেহেরির খাবার হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, তাই এটি যেন কোনোভাবেই বাদ না পড়ে কারণ না খেলে শরীর দুর্বল হয়ে যাবে। আবার অতিরিক্ত খাবার খেয়ে সারা দিনের ক্ষুধা মেটানোও সম্ভব না।

কিন্তু খাবার নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটু খেয়াল রাখলেই ক্ষুধাকে বিলম্বিত করা সম্ভব। আঁশযুক্ত খাবার এবং খাবারগুলো ভুনা না হয়ে কম তেল মশলার ঝোলের তরকারি হলে সবচেয়ে ভালো হয়। তাহলে সারাটা দিন ভালো যাবে।

সেহেরিতে থাকতে পারে যে খাবারগুলো-

  • লাল চালের ভাতের সঙ্গে খেতে পারেন মিক্সড সবজি যেমন লাউশাক, মিষ্টিকুমড়া, শসা, পটোল, ঝিঙে, কচুশাক, কচু।
  • মাছ বা মুরগি ১ টুকরা, ডাল আধা কাপ, সঙ্গে দই বা লো ফ্যাট দুধ ১ কাপ।
  • সেহেরিতে ১-২টি খেজুর খেলে সারাদিন কিছুটা পিপাসা কম লাগবে।
  • ভাত খেতে না চাইলে রুটি, চিড়া-দই, কর্ন ফ্ল্যাক্স-দুধও খেতে পারেন।
  • অনেকেই সেহেরির সময় একসঙ্গে বেশি পানি খেয়ে ফেলেন, এটা করা যাবে না। ইফতারের পর থেকে রাত পর্যন্ত অল্প অল্প করে পানি বা অন্যান্য তরল খেয়ে দেহকে আর্দ্র রাখতে হবে।
Download WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
udemy paid course free download