সিলেটে বিনামূল্যে ওয়াইফাই ‘জয়বাংলা’ সেবা চালু

প্রকল্পের সহকারী পরিচালক মধুসূদন চন্দ জানান, এসএসআইডি পদ্ধতিতে ব্যবহারকারী ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ এবং পাসওয়ার্ড ‘জয় বাংলা’ লিখে বিনামূল্যে যে কেউ এ সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। গত দু’মাস ধরে ওসিসি পদ্ধতিতে সিলেটে পরীক্ষামূলকভাবে এ ওয়াইফাই চালু হয়। ইতোমধ্যে নগরীর ৫০টি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ৩৬০ ডিগ্রি জুমিং সুবিধাসম্পন্ন আইপি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশের উদ্যোগ আরো কয়েকধাপ এগিয়ে নিতে ২০১৭ সালে পাইলট প্রকল্প হিসেবে দেশের প্রথম ডিজিটাল সিলেট সিটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ শেষ হবে আগামী জুন মাসে।

সিলেট মহানগরীতে বিনামূল্যে ওয়াইফাই ‘জয়বাংলা’ সেবা চালু হয়েছে। ‘ডিজিটাল সিলেট সিটি প্রকল্প’ এর আওতায় নগরীর ৬২টি এলাকায় ১২৬টি এক্সেস পয়েন্টের (এপি) মাধ্যমে এই সেবা চালু করা হয়েছে।

প্রকল্পের সহকারী পরিচালক মধুসূদন চন্দ জানান, এসএসআইডি পদ্ধতিতে ব্যবহারকারী ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ এবং পাসওয়ার্ড ‘জয় বাংলা’ লিখে বিনামূল্যে যে কেউ এ সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। গত দু’মাস ধরে ওসিসি পদ্ধতিতে সিলেটে পরীক্ষামূলকভাবে এ ওয়াইফাই চালু হয়। ইতোমধ্যে নগরীর ৫০টি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ৩৬০ ডিগ্রি জুমিং সুবিধাসম্পন্ন আইপি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশের উদ্যোগ আরো কয়েকধাপ এগিয়ে নিতে ২০১৭ সালে পাইলট প্রকল্প হিসেবে দেশের প্রথম ডিজিটাল সিলেট সিটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ শেষ হবে আগামী জুন মাসে।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদ পলকের নির্দেশে গত ১০ মার্চ থেকে এসএসআইডি পদ্ধতিতে এই সেবা চালু করা হয়েছে। নগরবাসীসহ সব পর্যটকরাও বিনামূল্যে এ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

সিলেট মহানগরী ছাড়াও একই প্রকল্পের অধীনে কক্সবাজারে ৩৫টি পয়েন্টে ৭৪ এপি স্থাপন করা হয়েছে উল্লেখ করে মধুসূদন চন্দ বলেন, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি প্রতিমন্ত্রী এটি উদ্বোধন করেন। ৩০ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয় ধরে সিলেট নগরীর ডিজিটাইজেশন কাজটি বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি বিভাগের তত্ত্বাবধানে বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি)।

‘আইপি ক্যামেরা বেইসড সার্ভিলেন্স সিস্টেম’ এর অধীনে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নজরদারির জন্য নতুন করে ১১০টি আইপি ক্যামেরা (ইন্টারনেট প্রটোকল ক্যামেরা) স্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে বিশেষ ধরনের ১০টি ফেস রিকোগনিশন (এফআর) বা ব্যক্তি শনাক্তকরণ এবং ১০টি অটো নম্বর প্লেট রিকোগনিশন (এএনপিআর) তথা যানবাহনের নম্বর প্লেট চিহ্নিতকরণ ক্যামেরা রয়েছে। যা বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ব্যবহার করা হচ্ছে। এটি দেখাশোনা করছে সিলেট মহানগর পুলিশ (এসএমপি)। এখানে প্রতি সেকেন্ডে এক্সেস পয়েন্টের চতুর্দিকে ১০০ মিটার এলাকায় ব্যান্ডউইথ থাকবে ১০ মেগাবাইট বলে জানিয়েছেন প্রকল্প কর্মকর্তা।

Download WordPress Themes Free
Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
Download Best WordPress Themes Free Download
free download udemy paid course