স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে যা করণীয়

গোটা বিশ্বে নারীরা যে দুটি ক্যান্সারে আক্রান্ত  হয়ে বেশি মারা যান তার মধ্যে স্তন ক্যান্সার অন্যতম। সাধারণত স্তনে কিছু কোষ অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়ায়, অতিরিক্ত কোষগুলো বিভাজনের মাধ্যমে টিউমার বা পিন্ডে পরিণত হয়। এছাড়াও নির্দিষ্ট কিছু জীবনধারা, জিনগত কারণে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বংশগত কারণে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়ানো না গেলেও জীবনযাত্রায় পরিবর্তনের মাধ্যমে এ রোগ প্রতিরোগ সম্ভব। যেমন-

গোটা বিশ্বে নারীরা যে দুটি ক্যান্সারে আক্রান্ত  হয়ে বেশি মারা যান তার মধ্যে স্তন ক্যান্সার অন্যতম। সাধারণত স্তনে কিছু কোষ অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়ায়, অতিরিক্ত কোষগুলো বিভাজনের মাধ্যমে টিউমার বা পিন্ডে পরিণত হয়। এছাড়াও নির্দিষ্ট কিছু জীবনধারা, জিনগত কারণে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বংশগত কারণে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়ানো না গেলেও জীবনযাত্রায় পরিবর্তনের মাধ্যমে এ রোগ প্রতিরোগ সম্ভব। যেমন-

১. তাজা ফল ও ফ্ল্যাভনয়েডযুক্ত শাকসবজি খেলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কম হতে পারে। এ উপাদানটি কোষ বিভাজন নিয়ন্ত্রণ করে। সেই সঙ্গে স্তন ক্যান্সারে কোষ বৃদ্ধি কম রাখে। বেগুন, টমেটো, গোলমরিচ, আপেল, ব্রকলি ইত্যাদি স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

২. যেসব নারী সন্তানকে এক বছরের বেশি সময় ধরে স্তন্যপান করান তাদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেক কমে যায়।

৩. নিয়মিত শরীরচর্চা করলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়ানো যায়। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন শরীরচর্চা করলে এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি ২৫-৩০ শতাংশ কমে যায়।

৪. যেসব নারীরা অতিরিক্ত ধূমপান করেন তাদের স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভবনা বেশি থাকে। যারা ২০ বছরের বেশি সময় ধরে ধূমপান করছেন, তাদের ৩৫ শতাংশের বেশি স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি থাকে।

৫. অতিরিক্ত ওজন বেড়ে গেলেও স্তন ক্যান্সার হতে পারে।

৬. অতিরিক্ত পরিমাণে অ্যালকোহল পানে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। তাই ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়াতে অ্যালকোহল পান থেকে দূরে থাকা উচিত।

৭. যেসব নারীরা  নিয়মিত জন্ম নিয়ন্ত্রনের ওষুধ খান তাদের ক্ষেত্রেও স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি থাকে। সূত্র : জি নিউজ

Download WordPress Themes Free
Free Download WordPress Themes
Download Premium WordPress Themes Free
Download WordPress Themes Free
udemy paid course free download