বেঙ্গালুরুর ‘জওহরলাল নেহরু সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড সায়েন্টিফিক রিসার্চ’-এ ভূকম্পবিদ সি পি রাজেন্দ্রনের নেতৃত্বে চালানো হয়েছে এই গবেষণা। সেখানেই দেওয়া হয়েছে এই প্রলয়ের পূর্বাভাস। প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে হিমালয়ের তলার প্লেটে চাপ বাড়ছে। প্লেটের একটি অংশ আরেকটি অংশের ওপর কয়েকশ’ বছর ধরে চাপ বাড়িয়ে চলেছে। মাটির তলার প্লেট সেই চাপ সহ্য না করার জায়গায় পৌঁছেছে। অন্তত একটি ৮.৫ রিখটার স্কেলের ভূমিকম্প এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

হিমালয়ে মহাপ্রলয়ের আশঙ্কা

হিমালয় সংলগ্ন অঞ্চলে ৮ দশমিক ৫ কিংবা তার থেকেও অধিক মাত্রার ভূমিকম্পের সতর্কবার্তা দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। সেই দাবির সঙ্গে সহমত জানিয়েছেন একদল মার্কিন বিশেষজ্ঞও। খবর আনন্দবাজার।  

ভূকম্পবিদ সি পি রাজেন্দ্রনের নেতৃত্বে চালানো হয় বেঙ্গালুরুর ‘জওহরলাল নেহরু সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড সায়েন্টিফিক রিসার্চ’ গবেষণা। সেখানেই রয়েছে এই প্রলয়ের পূর্বাভাস। প্রকাশিত রিপোর্টে জানানো হয়েছে, “হিমালয়ের তলার প্লেটে অনেক দিন ধরে  চাপ বাড়ছে। কয়েকশো বছর ধরে প্লেটের একটি অংশ, আরেকটি অংশের উপর  চাপ বাড়িয়ে চলেছে। এখন আর মাটির তলার প্লেট সেই চাপ সহ্য করতে পারছে না। ৮.৫ রিখটার স্কেলের ভূমিকম্প শুধু সময়ের অপেক্ষায়।”

বেঙ্গালুরুর ‘জওহরলাল নেহরু সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড সায়েন্টিফিক রিসার্চ’-এ ভূকম্পবিদ সি পি রাজেন্দ্রনের নেতৃত্বে চালানো হয়েছে এই গবেষণা। সেখানেই দেওয়া হয়েছে এই প্রলয়ের পূর্বাভাস। প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে হিমালয়ের তলার প্লেটে চাপ বাড়ছে। প্লেটের একটি অংশ আরেকটি অংশের ওপর কয়েকশ’ বছর ধরে চাপ বাড়িয়ে চলেছে। মাটির তলার প্লেট সেই চাপ সহ্য না করার জায়গায় পৌঁছেছে। অন্তত একটি ৮.৫ রিখটার স্কেলের ভূমিকম্প এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

তিনি বলেন, মাটির তলার চাপ যে জায়গায় পৌঁছেছে, সেখানে একটি অংশ অন্য অংশের থেকে প্রায় ১৫ মিটার সরে যেতে পারে। মাটির তলার এই ১৫ মিটার সরে যাওয়ার প্রভাব বহু গুনে বেড়ে পৌঁছবে ওপরে। যার ভয়াবহতা বিচার করার জায়গায় এই মুহূর্তে নেই বিজ্ঞানীরা।

জার্নালে প্রকাশিত প্রবন্ধে  সি পি রাজেন্দ্রন জানান “এই মাত্রার কম্পনের পরিণতি হবে মারাত্মক। এই প্রলয় মোকাবেলায় কোনও প্রস্তুতি এই মুহূর্তে ভারতের হাতে নেই। গত কয়েক বছর ধরেই হিমালয়ের বিভিন্ন অংশে আমরা ছোট ছোট কম্পন লক্ষ্য করছি, যা বড় মাত্রায় কেঁপে ওঠার লক্ষণ” ।

ভারতীয় ভূবিজ্ঞানীদের এই দাবির সঙ্গে পুরোপুরি একমত মার্কিন বিজ্ঞানীরা। কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক রজার বিলহ্যাম বলেন, হিমালয়ে ৮ দশমিক ৫ মাত্রার ভূমিকম্প আসন্ন।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে নেপাল হিমালয়ে ৮.১ ভূকম্পনে এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল গোটা দেশ। ৯০০০ মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। ধ্বংস হয়ে যাওয়া দেশের অর্থনীতি থেকে এখনও পুরোপুরি বেরোতে পারেনি এই পর্বতরাষ্ট্র। ২০০১ সালে গুজরাতে ৭.৭ ভূমিকম্পে  কেড়ে নিয়েছিল প্রায় ১৩ হাজার প্রাণ।

Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
Download Nulled WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
free online course