১৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ!

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি শুকিয়ে যাওয়া নদীখাত থেকে ১৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ পেয়েছেন নৃতত্ত্ববিদরা। নিউ মেক্সিকো অঙ্গরাজ্যের হোয়াইট স্যান্ডস ন্যাশনাল পার্কের নদীখাতে পাওয়া পায়ের ছাপ একজন পুরুষ, একজন নারী ও একটি বাচ্চার বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। খবর ডেইলি মেইলের।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি শুকিয়ে যাওয়া নদীখাত থেকে ১৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ পেয়েছেন নৃতত্ত্ববিদরা।

নিউ মেক্সিকো অঙ্গরাজ্যের হোয়াইট স্যান্ডস ন্যাশনাল পার্কের নদীখাতে পাওয়া পায়ের ছাপ একজন পুরুষ, একজন নারী ও একটি বাচ্চার বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। খবর ডেইলি মেইলের।

খবরে বলা হয়েছে, অনেকগুলি পায়ের ছাপের জীবাশ্ম পেয়েছেন নৃতত্ত্ববিদরা। তারা জানিয়েছেন, সবক’টি পায়ের ছাপই পরস্পরের সঙ্গে মিলে যায়।

পরীক্ষা করে তারা বুঝতে পেরেছেন, ওই সব জীবাশ্মের মধ্যে রয়েছে পূর্ণবয়স্ক এক পুরুষ, প্রাপ্তবয়স্কা এক নারী এবং এক শিশুর পদচিহ্ন।

নৃতত্ত্ববিদরা বলছেন, ওই মানুষগুলি খুব তাড়াহুড়োর মধ্যে ছিলেন। তারা দেখেছেন, পুরুষ এবং নারীর প্রতি সেকেন্ডে পদক্ষেপের গতি ছিল ১.৭ মিটার। ধীরে-সুস্থে হাঁটলে যা হওয়ার কথা প্রতি সেকেন্ডে ১.২ মিটার; বড়জোর ১.৫ মিটার।

নৃতত্ত্ববিদরা আরও জানান, এই দম্পতির পায়ের ছাপের মাঝে আচমকাই এক কোলের শিশুর পায়ের ছাপও দেখা গিয়েছে।

এ থেকে তাদের অনুমান- হয়তো মা ক্লান্ত হয়ে শিশুটিকে কিছুক্ষণের জন্য কোল থেকে নামিয়েছিলেন!

নৃতত্ত্ববিদদের দাবি, ফেরার পথে আর শিশুটির পায়ের ছাপ দেখা যায়নি! কারণ হিসেবে তারা জানিয়েছেন, সেই সময়ে এই গ্রহে অসংখ্য ভয়ঙ্কর প্রাণী ছিল।

হয়তো তাদের থেকে সুরক্ষার জন্য শিশুটিকে নিরাপদ কোনো আশ্রয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন বাবা-মা।

বাবা-মা শিশুটিকে হয়তো নিরাপদ কোনো জায়গায় লুকিয়ে রেখে আবার আগের জায়গায় ফিরে গিয়েছিলেন।

Premium WordPress Themes Download
Free Download WordPress Themes
Premium WordPress Themes Download
Premium WordPress Themes Download
free download udemy paid course