৩ বার জীবন পেয়েও মুশফিক করলেন মাত্র ৪৩!

একবার জীবন পেলে কোনো কোনো ব্যাটসম্যান নিজের ইনিংসকে সেঞ্চুরি, এমনকি ডাবল সেঞ্চুরি পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে পারেন। ক্রিকেটে যেন অমোঘ বিধান হিসেবেই লেখা হয়ে গেছে, ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। কিন্তু সেই ক্যাচ মিসের সুফল ঘরে তুলতে পারেনি বাংলাদেশ। বিশেষভাবে বললে, মুশফিকুর রহীম এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

একবার জীবন পেলে কোনো কোনো ব্যাটসম্যান নিজের ইনিংসকে সেঞ্চুরি, এমনকি ডাবল সেঞ্চুরি পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে পারেন। ক্রিকেটে যেন অমোঘ বিধান হিসেবেই লেখা হয়ে গেছে, ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। কিন্তু সেই ক্যাচ মিসের সুফল ঘরে তুলতে পারেনি বাংলাদেশ। বিশেষভাবে বললে, মুশফিকুর রহীম এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

ভারতের বিপক্ষে আজ একবার দু’বার নয়, তিন তিনবার জীবন পেয়েছেন মুশফিকুর রহীম। তবুও এই জীবন পাওয়াকে কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। আউট হয়েছেন মাত্র ৪৩ রান করে। তবুও, মুশফিকের এই স্কোরটা হচ্ছে (এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত) বাংলাদেশ দলে সর্বোচ্চ স্কোর।

শুধু মুশফিকুর রহীমই নন, ক্যাচ মিস হয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদেরও। কিন্তু একবার জীবন পেয়েও তিনি সেটাকে কাজে লাগাতে পারলেন না। আউট হয়ে গেলেন মাত্র ১০ রান করে।

ইনিংসের ২৩তম ওভারের খেলা চলছিল তখন। মোহাম্মদ মিঠুন আউট হয়ে যাওয়ার পর মাঠে নামেন মুশফিক। ২৩তম ওভার শুরু হওয়ার সময় মুশফিক খেলে ফেলেছেন ১১ বল। রান করেছেন ৩। এ সময়ই উমেষ যাদবের বলে থার্ড স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন মুশফিকুর রহীম। বলটা হাতের তালুতে নিয়েও ফেলে দেন বিরাট কোহলি। ক্যাচ ফেলেও জিহ্বা বের করে হাসলেন কোহলি। জবাবে তাকেও হাসি উপহার দেন উমেষ। যেন বোঝাতে চাইলেন, একটি-দুটি ক্যাচ মিস হলে কিচ্ছু হবে না, ওরা ঠিকই আউট হয়ে যাবে।

২৮তম ওভারের প্রথম বলে আবারও ক্যাচ মিস। এবার মুশফিকের ক্যাচ ফেলে দেন আজিঙ্কা রাহানে। রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে প্রথম স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন মুশফিক। তার ক্যাচটি হাতের তালুতে নিয়েও ফেলে দেন রাহানে। এ সময় মুশফিক ব্যাট করছিলেন ২৫ বলে ১৪ রান নিয়ে।

৪০তম ওভারের দ্বিতীয় বল। ৬৫ বলে ৩৪ রান নিয়ে ব্যাট করছিলেন মুশফিকুর রহীম। এ সময় অশ্বিনের বলে আবারও ক্যাচ ওঠে। এবারও স্লিপে দাঁড়ানো ছিলেন রাহানে এবং আবারও মুশফিকের ক্যাচ ফেলে দেন তিনি।

দু’বার রাহানের হাতে এবং একবার বিরাট কোহলির হাত থেকে রেহাই পেলেও বোলার মোহাম্মদ শামি চিন্তা করলেন হয়তো, ক্যাচ তুলিয়ে তো লাভ নেই। সরাসরি বোল্ডই করে ফেলি। ৫৪তম ওভারে শানির এক সুইংয়েই বোল্ড হয়ে ফিরে যান মুশফিক।

তার আগে অশ্বিনের বলেই আরও একবার ক্যাচ মিস হয়। সেবার ব্যাটসম্যান ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে ফিল্ডার সেই রাহানে। ২৪ বলে ৭ রান নিয়ে ব্যাট করছিলেন রিয়াদ। ম্যাচের ৪৪তম ওভারের ৩য় বল। এ সময় হঠাৎ করেই ক্যাচ ওঠে রাহানের হাতে এবং আবারও ফেলে দেন তিনি।

শুরুতেই থার্ড স্লিপে ইমরুল কায়েসের ক্যাচ নিলেও এরপর তিনটি ক্যাচ মিস করেন তিনি। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে এর কিছুক্ষণ পরই বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান সেই অশ্বিন।

Download Premium WordPress Themes Free
Download Best WordPress Themes Free Download
Download WordPress Themes
Download Best WordPress Themes Free Download
free download udemy course