৬৭ বছরের মধ্যে প্রথম নারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করলো যুক্তরাষ্ট্র

এক গর্ভবতী নারীকে হত্যা ও তার শিশুকে অপহরণের দায়ে যুক্তরাষ্ট্রে এক নারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। লিসা মন্টেগোমারি নামের ওই নারীর দণ্ড কার্যকরের ওপর থাকা স্থগিতাদেশ সুপ্রিম কোর্ট তুলে নেওয়ার পর ইন্ডিয়ানা রাজ্যের টেরে হাওতে কারাগারে তাকে প্রাণঘাতী ইনেজকশন দেওয়া হয়।

এক গর্ভবতী নারীকে হত্যা ও তার শিশুকে অপহরণের দায়ে যুক্তরাষ্ট্রে এক নারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। লিসা মন্টেগোমারি নামের ওই নারীর দণ্ড কার্যকরের ওপর থাকা স্থগিতাদেশ সুপ্রিম কোর্ট তুলে নেওয়ার পর ইন্ডিয়ানা রাজ্যের টেরে হাওতে কারাগারে তাকে প্রাণঘাতী ইনেজকশন দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে এই মামলাটি বিপুল মনোযোগ পাওয়ার কারণ তার আইনজীবীরা সব সময় দাবি করেছেন ওই নারী শিশু অবস্থায় বিপুল নিপীড়নের শিকার হয়ে মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

৫২ বছর বয়সী লিসা মন্টোগোমারি ২০০৪ সালে মিসৌরিতে অপর এক গর্ভবতী নারীকে গলা টিপে হত্যা করে তার পেট কেটে শিশুকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

হত্যাকাণ্ডের শিকার ছিলেন ২৩ বছর বয়সী ববি জো স্টিন্নেট। লিসা মন্টেগোমারির দণ্ড কার্যকরের ৬৭ বছর আগে সর্বশেষ ১৯৫৩ সালে বনি ব্রাউন হিডি নামে অপর এক নারীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।

তার আগে একই বছর তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে ইথেল রোসেনবার্গ নামের আরেক নারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

দণ্ড কার্যকর হতে দেখা এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান মন্টেগোমারির সামনে দাড়িয়ে এক নারী তার ফেস মাস্ক খুলে নেন আর তার কিছু বলার আছে কিনা জানতে চান। জবাবে তিনি বলেন, ‘না।‘

মন্টেগোমারির আইনজীবী কেলি হেনরি জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় রাত একটা ৩১ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। তিনি দাবি করেন, এই দণ্ড কার্যকরে জড়িত সবার লজ্জিত হওয়া উচিত।

গত বছরের ৮ ডিসেম্বর মন্টেগোমারির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আইনজীবীরা বিভিন্ন যুক্তিতে আদালতে গেলে দুই দফা তা স্থগিত হয়। শেষ পর্যন্ত সব আইনি প্রক্রিয়া শেষ করে তার দণ্ড কার্যকর হয়।

Download WordPress Themes
Free Download WordPress Themes
Free Download WordPress Themes
Download Nulled WordPress Themes
udemy course download free