৮৬ বছর পর হায়া সোফিয়ায় আজান

আদালতের রায়ের পর আজান দেয়া হয়েছে তুরস্কের বিখ্যাত ঐতিহাসিক স্থাপনা হায়া সোফিয়ায়। এর ফলে ৮৬ বছর পর পুনরায় আজান শোনা গেল ঐতিহাসিক এই স্থাপনা থেকে। তুর্কী সরকারের কট্টরপন্থী সমর্থক ‘হাবার টিভি’সহ অন্যান্য টেলিভিশন চ্যানেলে এই দৃশ্য সম্প্রচার করা হয়। খবর বিবিসি’র।

আদালতের রায়ের পর আজান দেয়া হয়েছে তুরস্কের বিখ্যাত ঐতিহাসিক স্থাপনা হায়া সোফিয়ায়।

এর ফলে ৮৬ বছর পর পুনরায় আজান শোনা গেল ঐতিহাসিক এই স্থাপনা থেকে।

তুর্কী সরকারের কট্টরপন্থী সমর্থক ‘হাবার টিভি’সহ অন্যান্য টেলিভিশন চ্যানেলে এই দৃশ্য সম্প্রচার করা হয়। খবর বিবিসি’র।

আদালতের রায়ের পরই হায়া সোফিয়াকে মসজিদে রুপান্তর করে একটি ডিক্রি স্বাক্ষর করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

দেড় হাজার বছরের পুরনো হায়া সোফিয়া এক সময় ছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড় গির্জা।

বাইজান্টাইন সম্রাট জুস্টিনিয়ান এক’র তত্ত্বাবধানে ৫৩৭ সালে অর্থোডক্স গীর্জা হিসেবে গড়ে উঠেছিল হায়া সোফিয়া।

১৪৫৩ সালে অটোমানরা ইস্তাম্বুল জয়ের পর এটিকে মসজিদে রূপান্তর করা হয়।

তারপর ১৯৩৪ সালে খেলাফতের পতনের পর আধুনিক তুরস্কের স্থপতি মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক হায়া সোফিয়াকে জাদুঘরে রূপান্তর করেন।

দীর্ঘদিন ধরেই সেখানে নামাজ আদায়ের দাবি জানিয়ে আসছে তুর্কি মুসলিমরা।

এক টুইটে এরদোয়ান জানান, হায়া সোফিয়ার সম্পত্তি ‘দিয়ামাত’ বা তুর্কী ধর্মীয় বিষয়ক দফতরের হাতে সোপর্দ করা হবে।

Download WordPress Themes
Download WordPress Themes Free
Free Download WordPress Themes
Download WordPress Themes
udemy course download free