Ashraful Islam, Author at 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

kader3x.jpg

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা মেনে দুঃসময়ের কর্মীদের প্রাধান্য দিয়ে কমিটি পুর্ণাঙ্গ করার কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার সকালে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ঢাকা মহানগর ও সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শেষে এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ৩ অক্টোবর কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভা আহ্বান করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ২৮ সেপ্টেম্বর দলীয় সভাপতির ৭৪তম জন্মদিন পালনের বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি নেত্রীকে করোনার সময় সর্বোচ্চ মানবিকতা দেখিয়ে জামিন দেয়া হয়েছে।

বিএনপি একে দুর্বলতা মনে করলে ভুল করবে। গণবিরোধী যড়ষন্ত্রে লিপ্ত হলে দেশের জনগণকে নিয়ে কঠিন জবাব দেবার হুঁশিয়ারি দেন কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ সবসময় জনগণের আবেগ-ভালোবাসা ও আশা-আকাঙ্ক্ষাকে ধারণ করে এবং কাজকর্মে তা প্রতিফলন করে।

তিনি দাবি করেন, আওয়ামী লীগ কখনো যড়যন্ত্রের রাজনীতি করে না; ষড়যন্ত্রের বরদাশত করে না। বরং আওয়ামী লীগই বারবার ষড়যন্ত্রের রাজনীতির শিকার হয়েছে।

hardley-davidson-1280x720.jpg

ভারত থেকে নিজেদের ব্যবসা গুটিয়ে নিচ্ছে জনপ্রিয় মার্কিন মোটরসাইকেল নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হারলে ডেভিডসন।

ভারতের হরিয়ানার বাওয়ালে হারলে ডেভিডসনের কারাখানা বন্ধ হওযা এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

দুই চাকার জগতে হারলে ডেভিডসন অন্যতম সেরা ব্র্যান্ড। ভারতের বাজারে তারা ব্যবসা শুরু করেছিল বছর দশেক আগে।

কিন্তু সেই ব্যবসা এখন আর নেই। দেশের আর্থিক অবস্থা বেহাল। দেশবাসীর কাছে অর্থের টানাটানি।

তাই হারলে মোটরসাইকেল বিক্রি কমেছে রেকর্ড হারে। তাই ভারতের বাজার থেকে ব্যবসা গোটাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

জানা গেছে, ভারতের হিরো মোটো করপোরেশনের সঙ্গে জুটি বেঁধে এবার ভারতের বাজারে মোটরসাইকেল বিক্রি করতে পারে হারলে।

ইতিমধ্যে একাধিক সংস্থার সঙ্গে আউটসোর্সিং নিয়ে কথা বলছে তারা।

ভারত থেকে ব্যবসা গোটালেও আরও ৫০টি জায়গায় নতুন করে বিনিয়োগ করবে হারলে।

আমেরিকা, ইউরোপ ও এশিয়া প্যাসিফিক-এর অনেকগুলো জায়গায় হারলের নতুন করে ব্যবসা শুরু করবে বলে জানা যাচ্ছে।

হারলে কর্তৃপক্ষ ভারতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে। আর এবার অন্য জায়গায় নতুন করে ব্যবসা শুরু করে সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চাইছে কর্তৃপক্ষ।

ridesharing8.jpg

বাসের জন্য লম্বা লাইনে দাঁড়ানো কিংবা পিক আওয়ারে সিএনজি চালকের সঙ্গে দরকষাকষির ঝামেলা থেকে মুক্তি দিয়েছে রাইড শেয়ারিং।

এখন যাত্রীরা প্রয়োজন অনুযায়ী সময় ও খরচ বাঁচিয়ে শুধুমাত্র মোবাইলের মাধ্যমেই গাড়ি বা মোটরসাইকেল বুক করতে পারেন যা পৌঁছে যায় দোরগোড়ায়।

আর অ্যাপসভিত্তিক সার্ভিস হওয়ায় নিরাপত্তার ব্যাপারেও আপোষ করতে হয় না।

কিন্তু এত সুবিধার পরেও অতিরিক্ত লাভের আশায় অনেকেই অফলাইন ট্রিপ নিচ্ছেন যার কারণে যাত্রী ও চালক উভয়েই আছেন নিরাপত্তা ঝুঁকিতে।

যাত্রী ও চালকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাইড শেয়ারিং সেবায় কিছু সেফটি ফিচার আছে যা অফলাইন ট্রিপে নেই।

যেমন- এই কোভিড পরিস্থিতিতে চালক ও যাত্রী মাস্ক পরেছেন কি না তা নিশ্চিত করতে ট্রিপ শুরুর আগে বাধ্যতামূলক সেলফি তুলতে হয়।

এছাড়া প্রতিটি ট্রিপ শুরুর আগে ও পরে গাড়ি ঠিকমতো জীবাণুমুক্ত করা হয়েছে কি না সেটি ও পরীক্ষা করা হয়।

এর পাশাপাশি রাইড শেয়ারিং অ্যাপে কিছু ফিচার রয়েছে, যেমন- জিপিএস ট্র্যাকিং, যাত্রী ও চালকদের প্রয়োজনীয় তথ্য, ভিওআইপি কল, ইমার্জেন্সি বাটন যা বিপদের সময় সরাসরি জাতীয় জরুরি সেবার সাথে সংযোগ স্থাপন করে দেয়, সার্বক্ষণিক ডেডিকেটেড ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম (আইআরটি), ট্রাস্টেড কন্ট্যাক্টস যার মাধ্যমে যাত্রী ও চালক উভয়েই তাদের পরিচিত ৫ জনের সাথে তাদের ট্রিপ শেয়ার করতে পারেন যাতে তারা নিরাপদ বোধ করেন এবং একই সাথে অনাকাঙ্ক্ষিত কোন ঘটনার সময় তাদের অবস্থান জানাতে পারেন।

এছাড়াও, অ্যাপের মাধ্যমে কোন ট্রিপ নেওয়া হলে যাত্রী বা চালকের যাত্রাকালীন সময়ে কোন দুর্ঘটনার ফলে শারীরিক ক্ষতি হলে চিকিৎসার খরচও দেয় রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলো।

যাত্রী ও চালকের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে রাইডশেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলো নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

আর তাই চালক ও যাত্রী উভয়েরই উচিত নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বাধিক প্রাধান্য দেয়া এবং অফলাইন ট্রিপ পরিহার করা।

pm654.jpg

বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই সরকার কূটনীতি পরিচালনা করছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জাতিসংঘ অধিবেশনে ঐতিহাসিক বাংলায় ভাষণের ৪৬ বছর পূর্তি এবং ফরেন সার্ভিস একাডেমি ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন সরকারপ্রধান।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু যে পররাষ্ট্রনীতি দিয়ে গেছেন ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব কারো সাথে বৈরিতা নয়’-এই নীতিতেই চলছে বাংলাদেশ।

প্রধানমন্ত্রী জানান, এখন কূটনীতির ধরন বদলে গেছে। শুধু রাজনৈতিক কূটনীতি নয়, এখন সময় অর্থনৈতিক কূটনীতির।

সেভাবেই বাংলাদেশের কূটনীতিকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

দেশকে এগিয়ে নিতে অনেকগুলো পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সরকারের মূল লক্ষ্য দেশ ও মানুষের উন্নয়ন।

দীর্ঘসময় ক্ষমতায় থাকার কারণেই আজ মানুষ সুফল পাচ্ছে। দেশে উন্নয়ন দৃশ্যমান হচ্ছে।

করোনায় যাতে কম ক্ষতি হয় সে লক্ষে সরকার কাজ করছে জানিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, দেশে যেনো কোনোভাবেই খাদ্যের সংকট না হয় সে লক্ষে সরকার খাদ্য উৎপাদন, মজুদ ও সরবরাহের যথাসাধ্য চেষ্টা করছে।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রাকৃতিক এবং মানুষের তৈরি নানা দুর্যোগ মোকাবিলা করেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ।

করোনাভাইরাসে সারা বিশ্বই ক্ষতির শিকার হচ্ছে। আগের চেয়ে প্রবৃদ্ধি আরও বৃদ্ধি করার কথাও বলেন তিনি।

porom.jpg

আসছে ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে পরম্পরা নামে দুটি গাড়ি ছাড়বে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)।

যে গাড়িতে বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অর্জন নিয়ে বিভিন্ন বই থাকবে। যে কেউ চাইলে বই কিনতে পারবেন, আবার চাইলে নিয়ে পড়তেও পারবেন।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিশ্ব দরবারে পরিচিতি আরোও বাড়াতে তার জন্মদিন উদযাপনে নানামুখী কর্মসূচি নিয়েছে ডিএনসিসি।

ব্যাপক লোক সমাগম করার ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও করোনাভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিনব্যাপী কর্মসূচি নিয়েছে ডিএনসিসি।

প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিন উপযাপনে আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর গুলশান-২ এর ৮৬ নং রোডের ‘বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমদ পার্ক’, এ চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।

সেখানে অতিথি হিসেবে থাকার কথা রয়েছে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেনের। মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে হবে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কর্মময় জীবন নিয়ে আলোকচিত্র ও চিত্রাংকন এবং আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর ও সুবর্ণা মুস্তাফা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আবৃত্তি করবেন।

জন্মদিন উদযাপনের অংশ হিসেবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা ‘পরম্পরা’র উদ্বোধন হবে।

দ্বিতীয় দিন ২৯ সেপ্টেম্বর উত্তরা সেক্টর-১১ এর সোনারগাঁও জনপথ মাসকাট প্লাজা পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিনে ৭৪টি বৃক্ষের চারারোপণ করা হবে।

মেয়র আতিকুল ইসলাম, মন্ত্রী, এমপিসহ অন্যান্য অতিথি এবং ডিএনসিসির ৫৪ জন কাউন্সিলর এই ৭৪টি বৃক্ষের চারারোপণ করবেন।

সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকার কথা রয়েছে স্বরাষ্টমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকার কথা রয়েছে ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার), র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লা-আল মামুন বিপিএম, পিপিএম।

biman-ticket.png

আন্তর্জাতিক কার্ডের মাধ্যমে ঘরে বসে বিদেশি এয়ারলাইন্সের টিকিট কেনার ব্যবস্থা করলো বাংলাদেশ ব্যাংক।

এখন থেকে বিদেশ যাওয়ার আগে বাংলাদেশ থেকে বিদেশস্থ গন্তব্যে যেমন নিউইয়র্ক থেকে ফিলাডেলফিয়া, কিংবা সিংগাপুর থেকে কুয়ালালামপুরের জন্য এয়ারলাইন্সের টিকিট আন্তর্জাতিক কার্ডের মাধ্যমে কেনার সুযোগ দেয়া হলো।

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এতে বলা হয়েছে, স্থানীয় ট্রাভেল অপারেটরের মাধ্যমে টিকিট কেনার ক্ষেত্রে কার্ডের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রায় দাম পরিশোধ করা যাবে।

স্থানীয় ট্রাভেল অপারেটরদের বৈদেশিক মুদ্রা মার্জিন হিসাবে ওই অর্থ জমা থাকবে।

বৈদেশিক মুদ্রা হিসাবের স্থিতি থেকে কমিশন, রিফান্ড, ট্যাক্স সমন্বয়ের পর অবশিষ্ট অংশ বিদেশি প্রতিসঙ্গী প্রতিষ্ঠানের কাছে পাঠানো যাবে।

এয়ার টিকিট ছাড়াও স্থানীয় ট্রাভেল অপারেটরদের কাছ থেকে আন্তর্জাতিক কার্ডের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রায় বিদেশের ট্রেন/বাসের টিকিটও আগাম কেনা যাবে। পাশাপাশি স্থানীয় ট্রাভেল অপারেটরেরা বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময়ে হোটেল বুকিং সেবাও দিতে পারবেন।

স্থানীয় ট্রাভেল অপারেটররা বলেন, আন্তর্জাতিক কার্ডের মাধ্যমে টিকিট বিক্রি, হোটেল বুকিং সেবারে সুযোগ ট্যুর অপারেটরদের দেয়ার ফলে এজেন্সি ব্যবসার প্রসার ঘটবে।

পাশাপাশি বিদেশগামী যাত্রীরা সুলভ মূল্যে বিদেশের টিকিট এবং হোটেল বুকিং বাংলাদেশ থেকে করাতে পারবেন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, বৈদেশিক লেনদেন ব্যবস্থা প্রতিনিয়ত সময়োপযোগী করা হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক কার্ডের মাধ্যমে বিদেশের টিকিট এবং হোটেল বুকিং স্থানীয়ভাবে পরিশোধের সুযোগ দেওয়ার ফলে বিদেশগামী যাত্রীরা ভ্রমণ স্বস্তির সঙ্গে করতে পারবেন।

robot5.jpg

মানুষের শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ, রোগীর সকল তথ্য ডাক্তারকে প্রদান করাসহ একজন নার্সের কাজ সুচারুভাবে পালনে সক্ষম রোবট উদ্ভাবন করেছে সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের (গবি) কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগের শেষ বর্ষের চার ছাত্রী।

বিভাগীয় প্রজেক্টের অংশ হিসেবে প্রায় ৪০ হাজার টাকা ব্যয়ে এটির কাজ সম্পন্ন হয়।

বৃহস্পতিবার বিভাগীয় প্রধান এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীরা  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রোবটটির নাম দেওয়া হয়েছে অ্যাভওয়ার (ABHWR), যেটির পূর্ণ রুপ Advanced Biopola Humanoid Walking Robot. এই উদ্ভাবনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা হলেন—দলনেতা দূর্গা প্রামানিক, মৌসুমি কণা, সুমনা আক্তার ও আফরিন আহমেদ বৃষ্টি।

রোবটটির বিশেষত্ব সম্পর্কে তারা জানান, নার্সের কাজ ছাড়াও যেকোনো অফিসে এটি রিসেপশনিস্ট হিসেবে কাজ করতে পারবে।

একইসাথে অনলাইনে বিভিন্ন কাজেও সক্ষম রোবটটি। এর সাথে ব্লুটুথ সংযোগ থাকায় অফলাইনেও কাজ করতে পারবে এটি।

এছাড়া হাঁটা-চলা ও কথা বলতেও সক্ষম বিশেষ এই উদ্ভাবনটি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারি ক্যাম্পাস-সংলগ্ন নিরিবিলিতে একটি পরীক্ষাগারে এর কাজ শুরু হয়।

করোনাজনিত কারণে ৩ মাস বিলম্বের পর চলতি মাসের ৯ তারিখে কাজ সম্পন্ন হয়।

এরপর বেশকিছু প্রক্রিয়া শেষে ২১ সেপ্টেম্বর এটি নিজ বিভাগে উন্মুক্ত করা হয়।

পুরো কাজটি সম্পন্ন করতে সুপারভাইজার হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন সিএসই বিভাগের শিক্ষক শেলিয়া  রহমান।

কো-সুপারভাইজার হিসেবে কাজ করেন একই বিভাগের শিক্ষক রোয়িনা আফরোজ অ্যানি।

এছাড়া প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করেন উজ্জ্বল সরকার, যিনি সাম্প্রতিককালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন উদ্ভাবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন।

রোবট উদ্ভাবনের বিষয়ে সিএসই বিভাগের প্রধান করম নেওয়াজ বলেন, ডিপার্টমেন্ট থেকে শেষ সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রজেক্ট দেওয়া হয়।

সে অনুযায়ী এই ধরণের চমৎকার কাজগুলো শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে উঠে আসে।

আমাদের শিক্ষার্থীরা অসাধারণ কর্মদক্ষতার অধিকারী, যার প্রমাণ এই উদ্ভাবন। এটাকে ডেভেলপ করতে আরও কিছু কাজ চলছে।

রোবটটির পেছনে যারা কাজ করেছে, তারা প্রত্যেকেই মেয়ে। মেয়েরা যেকোনো অংশে পিছিয়ে নেই, এটা তার প্রমাণ।

প্রসঙ্গত, গত বছরের অক্টোবর মাসেও একই বিভাগের ছয় শিক্ষার্থী রোবট ‘মিরা’ উদ্ভাবন করেন, যা ওই সময় দেশের বিভিন্ন মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার হয়।

pancha-237791.jpg

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় মাদকাসক্ত শাহিনুর ইসলাম (২৮) নামে এক মাদকাসক্ত সন্তানকে প্রশাসনের কাছে তুলে দিয়েছেন তার মা সাহেরা বেগম। বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের ভেল্কুগছ গ্রামে শাহিনুর ইসলামকে প্রশাসনের কাছে তুলেন দেন সাহেরা বেগম।

জানা যায়, বুধবার রাতে শাহিনুর মাদক না পেয়ে বাড়ি ঘর ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন এবং স্ত্রী-সন্তানকে মারধর করতে শুরু করেন।

তাছাড়া তিনি মাদকের টাকা না পেলে প্রায়ই সন্তানদের এমন মারধর করতেন। বুধবারের ঘটনার পর তার মা উপজেলা প্রশাসনকে মুঠোফোনে জানালে, খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদুল হক ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

পরে মাদকাসক্ত ওই যুবককে বাড়ির চারপাশের বেড়া, বিছানা, টেবিলসহ একটি রান্না ঘর মাদকাসক্ত শাহীন ভেঙেছেন বলে প্রমাণ পান এবং তার পকেট থেকে মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেন।

এছাড়া তিনি তার মা ও স্ত্রীকে মারধরের কথা স্বীকার করেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে ৩০০ টাকা অর্থদণ্ড ও ১ বছর ১০ মাসের কারাদণ্ড দেন।

এসময় তেঁতুলিয়া মডেল থানা পুলিশ, গ্রাম পুলিশ ও স্থানীয় গণ্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে মাসুদুল হক জানান, আমরা মাদকাসক্ত যুবক শাহিনুর ইসলামের মা সাহেরা বেগমের মুঠোফোনের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার কাছে মাদকদ্রব্য জব্দ করি। এছাড়া সন্তান, স্ত্রী ও মাকে মারধর এবং বাড়িঘর ভাঙচুরের প্রমাণ পাই।

এ কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে ৩০০ টাকা জরিমানা ও ১ বছর ১০ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

baitus2.jpg

নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহত ও আহত ৩৫ জনের পরিবার ৫ লাখ টাকা করে আর্থিক সহায়তা পাচ্ছেন।

এ জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বমোট এক কোটি ৭৫ লাখ টাকার আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আগামী রোববার বা সোমবার ওই ৩৫ পরিবারের সদস্যদের হাতে আর্থিক সহায়তা তুলে দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে এশার নামাজের সময় ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে।

এ ঘটনায় দগ্ধদের মধ্যে ৩৭ জনকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এখন পর্যন্ত ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

xray.jpg

বন্ধুদের সঙ্গে বাজি লেগে নানা ধরনের চ্যালেন্জিং কাজ অনেকেই করে থাকেন। কিন্তু তাই বলে আস্ত মোবাইল ফোন গিলে ফেলার মত ঘটনা সাধারনত শোনা যায় না। তবে মিসরের রাজধানী কায়রোতে এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে।

কায়রোর একটি হাসপাতালের চিকিৎসকরা এক যুবকের পেটে আল্ট্রাসনোগ্রাম করে সেখানে আস্ত একটি মোবাইল ফোন খুঁজে পেয়েছেন।

গত সাত মাস ধরে ২৮ বছর বয়সী ওই যুবকের পেটের মধ্যেই ছিল সেটি।

সহকর্মীদের সঙ্গে মজা করতে গিয়ে এটি গিলে ফেলেছিল বলে চিকিৎসকদের জানায় যুবকটি। তার ধারণা ছিল এটি সে হজম করে ফেলতে পারবে।

দক্ষিণ কায়রোর আল ওয়াটান নামে ওই বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মো. আল জহোর বলেন, প্রথমে টিউমার মনে করে অস্ত্রোপচারের জন্য আল্ট্রাসনোগ্রাম করা হয়। কিন্তু এতে দেখা যায়, আস্ত একটি মোবাইল ফোনসেট।

এর পর তাকে দ্রুত হাসপাতালের জরুরি অস্ত্রোপচার ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়।

সূত্র: গালফ নিউজ