আন্তর্জাতিক Archives - Page 5 of 10 - Dhaka Today

afridiy.jpg

ফার্সি ও উর্দু সাহিত্যের অন্যতম সেরা কবি ছিলেন মোহাম্মদ ইকবাল। তিনি ছিলেন ভারত বর্ষের অন্যতম সেরা মুসলিম কবি, দার্শনিক এবং রাজনীতিবিদ।

বিখ্যাত এই কবির জন্মবার্ষিকীতে ইকবাল ‘দিবস’ পালনের জন্য পাকিস্তানের শিক্ষামন্ত্রীকে পরামর্শ দিয়ে টুইট করেছেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি।

পাকিস্তানের শিক্ষামন্ত্রী শফকাত মাহমুদকে উদ্দেশ্য করে টুইটারে আফ্রিদি লেখেন, ‘আল্লামা ইকবালের মতো কিংবদন্তির স্বপ্নের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শিক্ষার্থীদের আরও সচেতন করতে হবে। সে জন্য ইকবাল দিবস পালন করতে হবে। তাহলেই বিখ্যাত এই কবির প্রতি যথাযথ মর্যাদা দেয়া সম্ভব হবে।’

আল্লামা ইকবালের চিন্তা দর্শন হচ্ছে ভারতের মুসলমানদের স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন। এমনকি বর্তমান পাকিস্তান রাষ্ট্রের সৃষ্টিতেও ভূমিকা রেখেছেন। তার নাম মুহাম্মদ ইকবাল হলেও তিনি আল্লামা ইকবাল হিসেবেই বেশি পরিচিত।

আল্লামা ইকবাল ইরানেও ছিলেন সমধিক প্রসিদ্ধ।ইরানিদের কাছে তিনি ইকবাল-ই-লাহোরী নামে পরিচিত।

nbxdf.jpg

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার পানশালায় হামলা চালানোর ব্যক্তির পরিচয় জানা গেছে। তিনি একজন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক নৌ সেনা বলে পুলিশ জানিয়েছে। খবর ডেইলি মেইলের।

লস এঞ্জেলেসের প্রায় ৪০ মাইল উত্তর-পশ্চিমে বোর্ডলাইন বার অ্যান্ড গ্রিলে স্থানীয় সময় রাত ১১ টা ২০ মিনিটে ২৯ বছর বয়সী ইয়ান ডেভিড লং এই হামলা চালায়। এতে এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ ১২ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্ততপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। হামলার পর বারের ভেতর মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে ইয়ান লং-কে।

গতবছরের এপ্রিলে তার বাসায় একটি ঘটনার পর মানসিক চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের দেখানো হয় ইয়ানকে। পরে বিশেষজ্ঞরা তাকে সুস্থতার ছাড়পত্র দেয়। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকালে এই তথ্য জানতে পেরেছে স্থানীয় পুলিশ।

ঘটনাস্থল থেকে বেঁচে আসা ব্যক্তিরা জানায়, ইয়ান লং একদম ঠান্ডা মাথায় গুলি করেছেন। তিনি কি করছেন সেটা তিনি সেটা জেনে বুঝেই করছিলেন। লাইসেন্স করা পিস্তল গ্লক পয়েন্ট ফোরটি ফাইভ দিয়ে তিনি বার বার গুলি করেছেন। হামলার সময় পানশালাটিতে সংগীত অনুষ্ঠান চলছিল এবং কমপক্ষে ২শ’ মানুষ উপস্থিত ছিল। তাদের মধ্যে অধিকাংশই ছিল কলেজ শিক্ষার্থী।

কয়েক ডজন মানুষ প্রাণ বেঁচে ফিরেছেন। গুলি থেকে বাঁচতে কেউ পুল টেবিলের নিচে লুকান, কেউ টুল দিয়ে জানালা ভেঙে পালানোর চেষ্টা করেছেন। অনেকে টয়লেটেও আশ্রয় নেয়। হামলাকারী স্মোক গ্রেনেড ব্যবহার করে উপস্থিত ভিড়কে ভড়কে দেয়ার চেষ্টা করেন।

গুলির ঘটনা শুরু হওয়ার মাত্র তিন মিনিট পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে উপস্থিত হয়। সেখানে বন্দুকধারীর সঙ্গে তাদের গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এতে ডেপুটি শেরিফ রন হিলাস গুলিবিদ্ধ হন। স্থানীয় লস রবলেস হাসপাতালে নেয়ার পর তিনি সেখানে মারা যান।

কিছুক্ষণ পর সোয়াট টিম ঘটনাস্থলে এসে পোঁছায়। তারা বারের ভেতর থেকে ১১ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেন। এই সময় হামলাকারীকেও মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। মোট ১৩ জন এই ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন। পানশালার ভেতরে ১১ জন, একজন পুলিশ কর্মকর্তা এবং হামলাকারী ইয়ান লং।

সাবেক নৌ সেনা ইয়ান লং নিউবারি পার্ক এলাকায় থাকতেন। চলতি বছরের এপ্রিলে তার বাসায় অশৃঙ্খল আচরণ করলে পুলিশ তার বাড়িতে যায়। ইয়ান লং তখন ‘অযৌক্তিক’ এবং ‘ক্রুদ্ধ’ আচরণ শুরু করলে পুলিশ মানসিক বিশেষজ্ঞদের ডেকে আনেন। তবে চিকিৎসকরা তার মধ্যে অস্বাভাবিক কোনো কিছু খুঁজে পায়নি বলে ছাড়পত্র দেয়।

ram-mandir.jpg

ভারতের  উত্তর প্রদেশের অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণের ইস্যুটি আবারো সামনে আনছে দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ঘোষণা করেছেন যে অযোধ্যায় হিন্দু দেবতা রামের একটি বিশালাকার মূর্তি তৈরির পরিকল্পনায় এখন চূড়ান্ত রূপ দেওয়া হচ্ছে। মন্দিরের ভেতরে স্থাপন করা সেই মূর্তিটিই ভবিষ্যতে অযোধ্যার কেন্দ্রীয় আকর্ষণ হয়ে উঠবে বলেও তিনি ঘোষণা করেছেন।

এছাড়া ফৈজাবাদ শহরে নাম বদল করে অযোধ্যা রেখেছেন তিনি। একইসাথে ঘোষণা করেছেন রামচন্দ্রের নামে বিমানবন্দর হবে আর মেডিক্যাল কলেজ হবে রামচন্দ্রের পিতা দশরথের নামে। এমন ঘোষণার একদিন পর বুধবার তিনি ঘোষণা দেন- অযোধ্যায় রামমন্দির তৈরি হবে, যেখানে থাকবে রামের একটি বিশালাকার মূর্তি।

তবে এটি বিতর্কিত ভূমিতে না হয়ে নতুন কোনো জায়গায় হতে পারে বলেই আভাস দিয়েছেন তিনি।   প্রায় তিনদশক আগে থেকে বাবরি মসজিদের চত্বরেই রাম মন্দির তৈরি করতে হবে, এই দাবী তুলে এসেছে বিজেপি এবং হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলো।

এ বিষয়টি এখন দেশটির সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন রয়েছে। মনে করা হয়েছিল হয়ত দ্রুত সেই মামলার শুনানি শুরু করে দেবে শীর্ষ আদালত, কিন্তু জানুয়ারির আগে তার সম্ভাবনা নাকচ হয়ে যাওয়ার পর থেকেই বিজেপি ও তার সহযোগী সংগঠনগুলো একদিকে, অন্যদিক সাধু-সন্তরা নতুন করে অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ইস্যুটাকে সামনে নিয়ে আসছেন।

কেন রামমন্দির ইস্যুকে এখন নতুন করে সামনে নিয়ে আসতে চাইছে বিজেপি এবং হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলো? এমন  প্রশ্নের জবাবে ওপার বাংলার এক সাংবাদিক জানান, ‘গত লোকসভা নির্বাচনের আগে নরেন্দ্র মোদি নিজেকে ভারতের একজন ত্রাতা হিসাবে তুলে ধরেছিলেন। কিন্তু চারবছর পরে দেখা যাচ্ছে বলার মতো সেরকম কোনো উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তার হাতে নেই। সেজন্যই এতদিন পরে রামমন্দির ইস্যুকে তারা তুলে নিয়ে আসছে। যাতে সাধু-সন্ত, আরএসএস, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ- সকলের যৌথ প্রচেষ্টায় হিন্দু ভোট একত্র করা যায়।‘

গত সাধারণ নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদী এবং বিজেপির প্রচারের মূল স্লোগান ছিল উন্নয়ন। ক্ষমতায় আসার পরেও দীর্ঘ চার বছরের বেশী সময় ধরে মোদী এবং তার সরকারের মন্ত্রীরাও সেই উন্নয়নের কথাই বলে গেছেন। কিন্তু এতদিন পরে উন্নয়নের স্লোগান ছেড়ে কেন আবার সেই মন্দিরের ইস্যু তুলে আনছে বিজেপি- তার ব্যাখ্যা দিয়ে দিল্লির সিনিয়র সাংবাদিক গৌতম লাহিড়ী বলেন,  ‘মূল উদ্দেশ্য লোকসভার ভোট। মোদি যুবকদের কর্মসংস্থানের ওপরে খুব জোর দিয়েছিলেন, কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে পরিস্থিতি ভাল নয়। সেজন্যই পুরনো, পরিচিত এবং পরীক্ষিত পথে হিন্দু ভাবাবেগকে কাজে লাগিয়ে ভোটের বৈতরণী পেরুতে চাইছেন।’

কলকাতার চারুচন্দ্র কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক বিমল শঙ্কর নন্দ অবশ্য মনে করেন অযোধ্যা এবং রামমন্দির বহুদিন ধরেই বিজেপির মূল ইস্যু। সেই ইস্যু থেকে সরে এলে যেমন নির্বাচনী ফলাফলে ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে, তেমনই এটা বিরোধী দলগুলি যেভাবে জাতপাতের রাজনীতি করছে নানা রাজ্যে, তারই পাল্টা হিসাবে ধর্মীয় রাজনীতির কৌশল বিজেপির। কিছুটা পিছনের সারিতে চলে যাওয়ার পরও যে ফের রামমন্দির ইস্যু প্রচারে নিয়ে আসা হচ্ছে নির্বাচনের দিকে নজর রেখে, তা নিয়ে বিশ্লেষকদের মধ্যে দ্বিমত নেই। সূত্র: বিবিসি

hajj-mbs-20181108214331.jpg

ইসরায়েলে বসবাসরত ১৫ লাখ-সহ প্রায় ৩০ লাখ ফিলিস্তিনি নাগরিকের পবিত্র হজ পালনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সৌদি আরব। এর আগে ইসরায়েলে বসবাসরত এই ফিলিস্তিনি নাগরিকরা লেবানন অথবা জর্ডানের পাসপোর্ট ব্যবহার করে সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় হজ ও ওমরাহ পালনের সুযোগ পেতেন।

লন্ডনভিত্তিক মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট আই ফিলিস্তিনিদের হজ পালনে সৌদি আরবের এই নিষেধাজ্ঞা আরোপের খবর দিয়েছে।

মিডল ইস্ট আই বলছে, ফিলিস্তিনের যে নাগরিকরা জর্ডান, লেবানন, পূর্ব জেরুজালেম এবং ইসরায়েলে বসবাস করছেন তারা অস্থায়ীভিত্তিতে জর্ডান অথবা লেবাননের ট্রাভেল নথি নিয়ে সৌদি আরবে পবিত্র হজ এবং ওমরাহ পালন করতে পারতেন।

কিন্তু গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ফিলিস্তিনিদের জন্য এই দুই দেশ থেকে হজ কিংবা ওমরাহ ভিসা ইস্যু বন্ধ ঘোষণা করেছে সৌদি আরব। এর ফলে এসব দেশে বসবাসরত প্রায় ২৯ লাখ ৪০ হাজার ফিলিস্তিনি নাগরিক হজ এবং ওমরাহ পালন করতে পারবেন না।

khahr.jpg

২২ বছর সাধনার পর পাকিস্তানের ২২তম প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন ২২ গজ কাঁপানো ইমরান খান। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর চার-ছক্কা দূরের কথা, মাঠে টিকে থাকাই কঠিন হয়ে পড়েছে ইমরানের জন্য। দেশ চালানোরই টাকা নেই তার রাজভাণ্ডারে।

ফলে নিজের পারফর্মেন্স ধরে রাখতে অন্য দেশ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহের দিকে নজর দেন ইমরান খান। চীন বহু আগেই তাকে সহায়তার ঘোষণা দিলে নগদ অর্থ এখনো মেলেনি। এতে যারপরনাই বিপাকে ছিলেন পাকিস্তানের নয়া প্রধানমন্ত্রী।

পাকিস্তানের সঙ্গে সৌদি আরবের সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের। ইয়েমেনে সৌদি আরবের আগ্রাসী নীতিতে নিরবে সমর্থন দিচ্ছে পাকিস্তান। সৌদি আরবে পাকিস্তানের বহু সৈন্য একপ্রকার স্থানীয়ভাবে বসবাস করছে। অন্যদিকে সৌদি আরবে পাকিস্তানের কয়েক লাখ মানুষ কাজ করছে।

গত ২ অক্টোবর সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডের পর অনেকটা বন্ধু হারা হয়ে পড়ে সৌদি যুবরাজ ও রাজপরিবার। আন্তর্জাতিকভাবে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় সঙ্কটে পড়ে দেশটি। সুযোগ বুঝে ব্যাট চালিয়েছেন ইমরান খান।

সৌদি আরব খাশোগি হত্যার বিষয়টি প্রথমে সম্পূর্ণ অস্বীকার করলেও পরে তা স্বীকার করতে বাধ্য হয়। তবে এখনো পর্যন্ত খাশোগির লাশের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। বিষয়টি নিয়ে সৌদি আরবের ওপর এখনো চাপ অব্যাহত রয়েছে।

ব্যাপক আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যেই গত ২৩ অক্টোবর রিয়াদে রিৎজ হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে দেশটির ‘ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট ইনিশিয়েটিভ সম্মেলন’। বিশ্বব্যাপী বিনিয়োগকারীদের সৌদি আরবের বিনিয়োগে আগ্রহী করতে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বের বহু গণমাধ্য, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসায়ী এ সম্মেলন বয়কট করলেও হাজির হয়েছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

২২ গজের এক সময়ের এই চ্যাম্পিয়ন যে মাঠে নামলে খাতি হাতে ফিরতে জানেন না। তাই ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট ইনিশিয়েটিভ সম্মেলন থেকেও কোনো চার-ছক্কা হাকিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। সৌদি আরবের বিনিয়োগ সম্মেলনে গিয়ে উল্টো নিজেই ৬০০ কোটি ডলার বাগিয়ে নিয়েছেন।

সম্মেলনে সৌদি আরব ও পাকিস্তানের মধ্যে একটি সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে। ওই সমঝোতা অনুযায়ী সৌদি আরব পাকিস্তানকে ৬০০ কোটি ডলার দেবে। সম্মেলনে গিয়ে ইমরান ‘খানের চাওয়ার চেয়ে বেশি পাওয়া’তে বেশ খুশি তার অনুসারীরা।

তবে এতে শুধু ইমরান খানই খুশি নয়। পাকিস্তানকে অর্থ দিতে পেরে খুশি সৌদি আরবও। খাশোগি হত্যার পর বন্ধুহীন হয়ে পড়া সৌদি যুবরাজ এই অর্থ দিয়ে বন্ধু খুঁজে পেল মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তাই বলাই যায়, প্রাণ দিল খাশোগি, ছক্কা মারলেন ইমরান।

Khashoggi-Did-Not.jpg

নিহত সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগির পরিবার ও তার তুর্কি বাগদত্তাকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা জানিয়েছে সৌদি আরব। তুরস্কের এক সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তা এ তথ্য আল-জাজিরাকে জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, খাশোগির মৃত্যুতে ক্ষতিগ্রস্ত তার দুই ছেলে এবং হবু স্ত্রীকে ‘দিয়া’ বা ইসলামি আইন অনুসারে হত্যা বা শারীরিক ক্ষতির শিকারের কারণে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা নিশ্চিত করেছে সৌদি সরকার। তবে ক্ষতিপূরণের অংক সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি।

তুরস্কের নাগরিক হাতিস চেনগিজকে বিয়ে করার অনুমতির জন্য গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিতে গিয়ে নিখোঁজ হন আন্তর্জাতিক পরিচিতিসম্পন্ন সাংবাদিক জামাল খাশোগি।

প্রথম দিকে হত্যার দায় স্বীকার না করলেও পরে সৌদি সরকার স্বীকার করে, কনস্যুলেটের ভেতরে ‘ধস্তাধস্তিতে’ খাশোগি নিহত হন। এর দায়ে ১৮ জন অফিসারকে গ্রেপ্তার করে সৌদি সরকার। অন্যদিকে হত্যাকাণ্ডে জড়িত হিসেবে সৌদি আরবের ১৫ জন কর্মকর্তার তালিকা প্রকাশ করে।

এ ঘটনায় সৌদি রাজপরিবার, বিশেষ করে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান রয়েছেন তীব্র সমালোচনায়। কেননা খাশোগি ছিলেন সৌদি রাজতন্ত্রের একজন তীব্র সমালোচক।

অবশ্য হত্যার ন্যায় বিচার পেতে বাদশাহ সালমানের প্রতি আস্থার কথা জানিয়েছেন খাশোগির দুই পুত্র সালাহ খাশোগি, আব্দুলাহ খাশোগি।

রবিবার সিএনএন’কে দেয়া সাক্ষাৎকারে তারা বলেন, বাদশাহ সালমান তাদের কথা দিয়েছেন দোষীদের বিচারের আওতায় আনা হবে।

violence-attack-20181108175602.jpg

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের থাউজ্যান্ড ওকসের একটি বারে বন্দুকধারীর গুলিতে অন্তত ১৩ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। নিহতদের মধ্যে দেশটির পুলিশের ডেপুটি শেরিফ রন হেলুসও রয়েছেন। পরে পুলিশের গুলিতে বন্দুকধারীও মারা গেছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো কয়েক ডজন মানুষ।

দেশটির প্রভাবশালী দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট বলছে, হামলাকারীর পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এছাড়া হামলার উদ্দেশ্যও জানা যায়নি।

মার্কিন এই দৈনিক বলছে, স্থানীয় সময় বুধবার (৭ নভেম্বর) রাত ১১টা ২০ মিনিটের দিকে ওই হামলাকারী বারে আক্রমণ করে। ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই’র পাশাপাশি সোয়াত টিমের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

সরেজমিন পরিদর্শন করে আল-জাজিরার সাংবাদিক রব রেনল্ড জানিয়েছেন, হামলার সময় বারের মধ্যে বহু শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিল। হামলাকারী জোর করে সেখানে ঢুকে গুলি চালায়।

তিনি বলেন, অস্ত্রধারী বারের মধ্যে ঢুকেই কয়েক ছোট বোমা ছুঁড়ে দেয়। এরপর স্বয়ংক্রিয় বন্দুক দিয়ে গুলি চালাতে শুরু করে।

dt008617.jpg

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় একটি বারে বন্দুকধারীদের গুলিতে বহু হতাহত হয়েছে। স্থানীয় সময় বুধবার রাত ১১টা ২০ মিনিটের দিকে লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে ৫০ কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার বারে এ ঘটনা ঘটে।

আলজাজিরা খবর দিয়েছে, তাৎক্ষণিকভাবে ৩০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে জানা গেছে। যদিও বিবিসি বলেছে, গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ৬ জন।

আলজাজিরা বলছে, এই মুহূর্তে ঠিক কতজন হতাহত হয়েছেন, তা সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না।

এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঘটনাস্থলে গেছে। তারা বারের আশপাশের সবাইকে দ্রুত এলাকা ত্যাগ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়, পুলিশ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ভেতর থেকে প্রাণ নিয়ে বের হয়ে আশা প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানিয়েছেন, ভেতরে সবার মধ্যে ভয় ছড়িয়ে পড়েছে। সবাই চেয়ার ছুড়ে জানালা ভাঙ্গার চেষ্টা করছেন।

তারা জানান, হামলাকারী কালো পোশাক পরিহিত। গুলি করার সঙ্গে স্মোক গ্রেনেডও ব্যবহার করে।

dt008609.jpg
হোয়াইট হাউস গতকাল বুধবার সিএনএনের এক সাংবাদিকের প্রেস পাস সাময়িকভাবে বাতিল করেছে। এক সংবাদ সম্মেলনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ওই সাংবাদিকের তর্কবিতর্কের পর তার পাস বাতিল করা হয়। ওই সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট সাংবাদিকদের ‘জনগণের শত্রু’ হিসেবে অভিহিত করেন। খবর এএফপি’র।
যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের একদিন পর ওই সংবাদ সম্মেলনে সিএনএনের হোয়াইট হাউস প্রতিনিধি জিম আকোস্টা ট্রাম্পের বসতে বলার এবং মাইক্রোফোন ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ পালনে অস্বীকৃতি জানানোর পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট রেগে গিয়ে তাকে ‘অভদ্র ও ভয়ঙ্কর ব্যক্তি’ হিসেবে উল্লেখ করেন।
ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলনের কয়েক ঘণ্টা পর হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স আকোস্টার নাম উল্লেখ করে বলেন, ‘পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এ সাংবাদিকের প্রেস পাস বাতিল করা হয়েছে।’
সিএনএনের এ সাংবাদিক জোরপূর্বক মাইক্রোফোন ধরে রেখে যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তের দিকে আসা মধ্য আমেরিকান অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিষয়ে বারবার প্রেসিডেন্টের মতামত জানতে চাইলে তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়।
ট্রাম্প বলেন, বিষয়টি নিয়ে অনেক কথা হয়েছে, আর না! এসময় হোয়াইট হাউসের এক ইন্টার্ন সিএনএনের ওই সাংবাদিকের কাছ থেকে মাইক্রোফোনটি নেয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।
স্যান্ডার্স তার বিবৃতিতে বলেন, প্রেসিডেন্ট স্বাধীন গণমাধ্যমে বিশ্বাস এবং তিনি নিজের ও তার প্রশাসনের ব্যাপারে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন আশা করেন এবং এ ধরনের প্রশ্নকে স্বাগত জানান।
dt008604.jpg

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনসকে বরখাস্ত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ বিষয়ে বুধবার এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প লেখেন ‘আমরা অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনসকে তার কাজের জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি একই সঙ্গে তার ভালো চাই।’ খবর বিবিসির।

তবে এই বরখাস্তের ঘটনা যে খুব স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় ঘটেছে মোটেও তেমনটি নয়। এর পেছনে রয়েছে ২০১৬ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তার পক্ষে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগের বিষয়ে বিচার বিভাগের তদন্ত নিয়ে ট্রাম্প ক্ষুব্ধ হন।

তারিখবিহীন একটি পদত্যাগ পত্রে সেশনস যে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেননি সেটা স্পষ্ট ধরা পরেছে। আলাবামার সাবেক এই সিনেটর আগে ট্রাম্পের সমর্থক ছিলেন। তিনি ওই চিঠিতে লিখেছিলেন ‘প্রিয় মি প্রেসিডেন্ট আপনার অনুরোধে আমি আমার পদত্যাগ পত্র জমা দিচ্ছি’।

রিপাবলিকান এই প্রেসিডেন্টকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘সবচেয়ে বড় কথা আমি অ্যাটর্নি জেনারেল থাকার সময় আমরা আইনের শাসনকে বলবত রেখেছি।’

সেশনসের সঙ্গে বিবাদের শুরুটা হয়েছিল ২০১৭ সালের মার্চ মাসে। তখনই সেশনস রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়ে যে তদন্ত হচ্ছিল সেখান থেকে সরে আসেন এবং এই দায়িত্ব তার অধীনস্ত রড রোজেনস্টেইনকে দেন। এরপর থেকেই প্রকাশ্যে ট্রাম্প সেশনসের বিরুদ্ধে নানা ধরণের সমালোচনামূলক কথা বলতে থাকেন।

২০১৭ সালে নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে ট্রাম্প বলেন, ‘তিনি এই তদন্ত থেকে সরে যাবেন এই কথা আমাকে আগে বললে আমি তাকে এই দায়িত্ব দিতাম না। আমি অন্য কাওকে এই কাজের জন্য নিতাম।’

সেশনস তদন্তভার থেকে সরে যাওয়ার পর বিশেষ কাউন্সেল রবার্ট মুলারের চলমান তদন্ত-প্রক্রিয়া নিয়ে চরম অসন্তুষ্ট ছিলেন ট্রাম্প। মুলার প্রতিনিয়ত ট্রাম্পের প্রেসিডেন্টসিয়াল ক্যাম্পেইন এবং মস্কোর মধ্যে কোনো যোগসূত্র আছে কি না এমন তথ্য-প্রমাণ খুঁজে বেড়াচ্ছেন। আগে থেকেই গুঞ্জন ছিল নভেম্বরের মধ্যবর্তী নির্বাচনের পরেই হয়ত জেফ সেশনসকে বরখাস্ত করা হতে পারে। আর সেটাই এখন সত্য হলো।


About us

DHAKA TODAY is an Online News Portal. It brings you the latest news around the world 24 hours a day and 7 days in week. It focuses most on Dhaka (the capital of Bangladesh) but it reflects the views of the people of Bangladesh. DHAKA TODAY is committed to the people of Bangladesh; it also serves for millions of people around the world and meets their news thirst. DHAKA TODAY put its special focus to Bangladeshi Diaspora around the Globe.


CONTACT US

CALL US ANYTIME


Newsletter