খবর Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

Fish5v.jpg

পটুয়াখালীর দশমিনায় এক যুবকের জালে পাওয়া বিরল প্রজাতির একটি মাছ নিয়ে চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। মাছটি সাকার ফিশ নামে পরিচিত বলে জানা গেছে।

আড়াইশ’ গ্রাম ওজনের মাছটি শনিবার বিকালে উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূজাখোলার দক্ষিণ পাশের সরদার বাড়ির একটি পুকুরে পাওয়া যায়। মাছটি দেখতে কয়েকশ’ উৎসুক জনতা ওই এলাকায় ভিড় জমান।

মাছটি পাওয়া রায়হান সরদার জানান, ঘটনার দিন দুপুরে তিনি তার এলাকার পরিচিত একজনের পুকুরে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন। সেখানে মাছ না পাওয়ায় তার বাড়ির সামনের একটি পুকুরে মাছের বিচরণ দেখতে পান। পরে তিনি বড় কোনো মাছ পাওয়ার আশায় বাড়ির সামনের পুকুরে জাল ফেলেন।

জাল ফেলার পর পুকুরে থাকা একটি গাছের সঙ্গে জাল আটকে গেলে রায়হান জাল ছাড়াতে গিয়ে জালের মধ্যে কাটাযুক্ত বিরল প্রজাতির ওই মাছটি পান। পরে স্থানীয়দের মাছটি দেখালে কেউ মাছটির নাম বলতে পারেননি।

এদিকে মাছটি পাওয়ার পর এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় বলে জানান তিনি। কয়েকশ’ লোক মাছটি দেখতে তার বাড়িতে ভিড় জমান।

রায়হান আরও জানান, সন্ধ্যায় তিনি মাছটি একটি বালতিতে থাকা পুঁটি মাছের সঙ্গে রাখলে বিরল প্রজাতির ওই মাছটি পুঁটি মাছগুলোকে খেয়ে ফেলে। এমন পরিস্থিতি দেখে রায়হান বাড়ির পাশের অন্য একটি পুকুরে ওই দিনই মাছটি ছেড়ে দেন।

রায়হানের দাবি, মাছটির ছবি তুলে ফেসবুকে দেয়ার পর জাহিদ ইসলাম নামে তাকে একজন জানান মাছটির নাম সাকার ফিশ। অচেনা হওয়ায় অনেকে তাকে মাছটি না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বলে তিনি জানান।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহবুব আলম তালুকদার জানান, এ ধরনের মাছ সম্পর্কে তার কোনো ধারণা নেই। এ নামের সঙ্গেও তিনি পরিচিত নন।

রমজান উপলক্ষ্যে সরকারি চিনির দাম কেজিপ্রতি ৩ টাকা বাড়ানো হয়েছে। ৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া প্যাকেটজাত চিনি ৬৮ টাকায় বিক্রি করবে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন (বিএসএফআইসি)। পাশাপাশি মিল এলাকায় খোলা চিনি কেজিপ্রতি ৬০ টাকা থেকে থেকে বাড়িয়ে ৬৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। রমজান মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে বিএসএফআইসির চিনি বিক্রয় কার্যক্রম নিয়ে রোববার ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন।

সূত্র জানায় ৬ এপ্রিল চিনির দাম প্রতিকেজি তিন টাকা বৃদ্ধি করে বিএসএফআইসি। দুমাস ধরে রাজধানীর খোলা বাজারে আমদানি করা চিনিও বেশি দরেই বিক্রি হচ্ছে। সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) সূত্র বলছে, সর্বশেষ গত এক মাসের ব্যবধানে প্রতিকেজি চিনি ২ দশমিক ২২ শতাংশ দাম বৃদ্ধি পেয়ে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলেন, দেশে চিনির বার্ষিক চাহিদা ১৮ লাখ টন। এর মধ্যে রমজান মাসে চাহিদা তিন লাখ টন। আর এই তিন লাখ টন চিনি নিয়ে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী প্রতিবছর রমজান সামনে রেখে নানা অজুহাতে দাম বাড়িয়ে দেয়। এমন পরিস্থিতিতে সরকারি চিনির দাম বৃদ্ধিতে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

সূত্র জানায়, রমজান মাসে অসাধুদের কারসাজি রোধে চাহিদা বিবেচনায় রেখে প্রতিবছর এক থেকে এক লাখ ২০ হাজার টনের মতো চিনি সরকার মজুত রাখে। তবে এ বছর মজুত বেশ কম। তা ছাড়া সরকারি ছয়টি চিনিকল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বাকিগুলোর উৎপাদনও সন্তোষজনক নয়। ফলে এবার রমজান সামনে রেখে সরকারি পর্যায়ে চিনির মজুত নেমে এসেছে ৫০ হাজার টনে।

Blue3x.jpg

গেল কয়েক বছর ধরে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসছে মৃত কাছিম, ডলফিন ও তিমি। কিন্তু এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি এসব সামুদ্রিক প্রাণির মৃত্যুর রহস্য।

গবেষকরা বলছেন, সাগরে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ভেসে আসছে উপকূলে এসব মৃত সামুদ্রিক প্রাণী। তবে সমুদ্র দূষণের মাত্রা বেড়ে যাওয়াও হতে পারে এসব সামুদ্রিক প্রাণির মৃত্যুর কারণ। বার বার কক্সবাজার উপকূলে মৃত প্রাণী ভেসে আসার কারণ অনুসন্ধানে কাজ করছে বলে জানিয়েছে সামুদ্রিক গবেষণা ইনস্টিটিউট।

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) হিমছড়ি সৈকতে ভেসে আসে বিশাল আকৃতির মৃত তিমি। এরপর শনিবারও (১০ এপ্রিল) ভেসে আসে আরো একটি মৃত তিমি। যাদের গায়ে ছিল আঘাতের চিহ্ন। ভেঙে গেছে হাড়ও। তিমি দুটি পচে দুর্গন্ধ ছড়ালেও মুছে যায়নি এসব আঘাতের চিহ্ন। মৃত তিমির নমুনা সংগ্রহ করতে আসেন নানা সংস্থা ও গবেষক। তারাও জানিয়েছেন, তিমির গায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

কক্সবাজারের মেরিন লাইফ অ্যালাইয়েন্স এর নির্বাহী পরিচালক জহিরুল ইসলাম বলেন, শনিবারের মৃত তিমিটির গায়ে বড় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। যা হতে পারে জাহাজের আঘাতে। মেরুদন্ডের একটি হাড়ও ভাঙা রয়েছে। এছাড়াও ১০-১৫ দিন আগে সাগরে কি ঘটেছে এটাও খতিয়ে দেখা দরকার, ওখানে কিছু হয়েছিল কিনা?

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানি মো. আশরাফুল হক বলেন, তিমির পিঠে আঘাত রয়েছে। মাথার অংশের হাড় পচে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। যাতে বুঝা যায়, অনেক দিন আগে তিমিগুলো মারা গিয়েছে। তীব্র পচনশীল হওয়ার কারণে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে বেশি। প্রাথমিকভাবে আঘাতের কারণে মারা যেতে পারে বলে ধারণা করছি।

Mominul_h.jpg

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে ১২ এপ্রিল শ্রীলঙ্কা সফরে যাবে বাংলাদেশ। যেখানে লঙ্কানদের বিপক্ষে খেলতে দেখা যাবে না সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমানকে। মূলত ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) খেলার জন্য ছুটি নেয়ায় লঙ্কানদের বিপক্ষে দলে নেই তাঁরা দুজন। সাকিব-মুস্তাফিজরা না থাকলে দলের ভালো ফলাফল হবে না এমনটা মানেন না মুমিনুল হক। গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে বাংলাদেশের এই টেস্ট অধিনায়ক বলেন, ‘না, আমার কাছে মনে হয় না সাকিব ভাই বা মুস্তাফিজ না থাকলে দলের ফলাফল হবে না। দেখেন খেলোয়াড় তো আরও আছে। ওনাদের তো ১০-১২টা হাত না। বাকিদেরও ১০-১২টা হাত না। আমার কাছে মনে হয় না এর কোনো প্রভাব পড়ে। আমরা হয়তো দলগত ভাবে খেলতে পারছি না এই কারণে ইতিবাচক ফলাফল হচ্ছে না। আর কোন কিছু না।’

আইপিএলের এবারের নিলাম থেকে ৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে সাকিবকে দলে নিয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। সবকিছু ঠিক থাকলে দলটির হয়ে খেলতে দেখা যাবে এই টাইগার অলরাউন্ডারকে। এর আগে ২০১২ ও ২০১৪ সালে কলকাতার হয়ে শিরোপা জিতেছিলেন সাকিব। এর মাঝে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেললেও খুব বেশি সুযোগ পাননি। তবে এবারের আসরে কলকাতার হয়ে মুখিয়ে রয়েছেন তিনি। আইপিএলের পুরো মৌসুম খেলতেই মূলত শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ থেকে ছুটি নিয়েছেন সাকিব। এ ছাড়া সন্তান সম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সফরেও ছিলেন না তিনি।

এদিকে সাকিব ছাড়াও আইপিএল মাতাতে দেখা যাবে মুস্তাফিজ। এর আগে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেললেও এবারের আসরে রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে খেলতে দেখা যাবে তাঁকে। এবারের মৌসুমের নিলাম থেকে ১ কোটি রুপিতে বাঁহাতি এই পেসারকে দলে নিয়েছে রাজস্থান।

‘রমজানের সময় নকল, ভেজাল ও নিম্নমানের পণ্য সরবরাহরোধে সরকার আরও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। পাশাপাশি করোনা মহামারির এই লকডাউনের সময় পণ্য পরিবহন ও সরবরাহ স্বাভাবিক থাকবে।’

রোববার (১১ এপ্রিল) রমজান মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে বিএসটিআই গৃহীত বিশেষ কার্যক্রম এবং চিনির বাজার স্থিতিশীল রাখতে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের (বিএসএফআইসি) চিনি বিক্রয় কার্যক্রম সম্পর্কে ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ, পণ্যের ওজন ও পরিমাপে কারচুপি রোধকল্পে চলমান মোবাইল কোর্ট ও বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) পরিচালিত সার্ভেল্যান্স কার্যক্রম আরও জোরদার করা হচ্ছে। জনগণ যাতে মানসম্মত পণ্য ক্রয় ও ব্যবহার করতে পারে, সেই লক্ষ্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বা প্রচার করা হচ্ছে এবং এটি অব্যাহত থাকবে।

বিএসটিআই কর্তৃক আকস্মিকভাবে পরিচালিত অভিযানগুলোতে বিশেষ করে রোজাদারগণ সচরাচর যে সকল খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করে থাকেন এবং ইফতার সামগ্রীর উপর বিশেষ নজর রাখা হবে।

এদিকে শিল্প প্রতিমন্ত্রী করোনার এই মহামারিতে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী তিনি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন।

২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার প্রকাশিত ফলে ত্রুটির অভিযোগ তুলে পুনরায় ফল পুর্নমূল্যায়নের জন্য স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে একটি স্মারকলিপি জমা দিয়েছেন পরীক্ষার্থীদের একটি অংশ। রোববার (১১ এপ্রিল) দুপুরে স্মারকলিপি জমা দেন তারা।

গত ২ এপ্রিল সারা দেশে ১০০ নম্বরের এমসিকিউ প্রশ্নে একযোগে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত ৪ এপ্রিল সন্ধ্যায় ফল প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত ফলে অসংগতির অভিযোগ তুলেছেন পরীক্ষার্থীদের একাংশ।

তারা বলছেন, পরীক্ষা শেষে পাঠ্যবইয়ের সঙ্গে প্রশ্নের উত্তর মিলিয়ে যে নম্বর প্রত্যাশা করেছিলেন, প্রকাশিত ফলাফলের সঙ্গে সেটির ব্যবধান অনেক। তাই প্রকাশিত ফলাফল স্থগিত করে পুনরায় ফলাফল ও মেধাক্রম প্রকাশ করার দাবি জানান তারা। পরীক্ষার ফলে অসংগতির কথা জানান ১ হাজার ৩২৩ জন অভিযোগকারী। তাদের তৈরিকৃত একটি সার্ভে ডেটাশিট থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

চার দফা দাবিতে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেনকে আজ স্মারকলিপি দেন পরীক্ষার্থীরা। তাদের দাবিগুলো হলো- মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার প্রতিটি সেট প্রশ্নের পুনঃযাচাই করে প্রতিটি উত্তরপত্র পুনরায় স্বচ্ছতার সঙ্গে যাচাই করতে হবে, যে সমাধান দিয়ে উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হয়েছে, তার সাথে অভিযোগকারীদের মধ্য থেকে ১০০ জনের উত্তরপত্র একজন নিরপেক্ষ প্রতিনিধির প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে স্বহস্তে যাচাই করতে হবে, পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সমাধানের ব্যাখ্যাসহ পুর্ণাঙ্গরূপে প্রশ্নপত্রের উত্তর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে এবং ইতোমধ্যে যে ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে তা স্থগিত করে পুনরায় ফলাফল ও মেধাক্রম প্রকাশ করতে হবে।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার এক দিন পরে ফলাফল প্রকাশ করা হয় এবং এই ফলাফলে দেখা দেয় বড় রকমের অসংগতি। যেখানে একজন পরীক্ষার্থীর ৭০-৭৫ নম্বর পাওয়ার কথা ছিল সেখানে ফল আসে ৬০-৬৫ নম্বর। এমনকি কোথাও আরও কম। অর্থাৎ প্রায় ১০-১৫ নম্বরের অসংগতি। এটা শুধু হাতে গোনা কয়েকজন পরীক্ষার্থীদের সঙ্গেই ঘটেনি। বরং প্রায় সহস্রাধিক পরীক্ষার্থী এই অসংগতির শিকার। আর এর মধ্যে সিংহভাগই বিগত শিক্ষাবর্ষের পরীক্ষার্থী।

এতে আরো উল্লেখ করা হয়, নিয়ম অনুযায়ী কোথাও কোনও মেডিকেলে ভর্তি থাকা অবস্থায় কেউ যদি দ্বিতীয় বার ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে, তাহলে তার ৭.৫ নম্বর কর্তন হবার কথা। কিন্তু অনেকের ক্ষেত্রেই তা ঘটেনি। শুধু ৫ নম্বর কর্তন হয়েছে এবং ২ দশমিক ৫ নম্বর বেশি দিয়ে মেধাক্রম এসেছে। এই অসংগতির কারণে যোগ্যরা বঞ্চিত হয়েছে।

ফল পুর্নমূল্যায়নের আন্দোলনের সমন্বয়কারী এসএম রাসেল সিদ্দিকী বলেন, অনেক শিক্ষার্থী ফলাফলে অসংগতি পেয়েছে। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে স্মারকলিপি জমা দিয়েছি। তিনি বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাবেন বলে আমাদের আশ্বস্ত করেছেন।

ফল পুর্নমূল্যায়নের ধাপ সম্পন্ন হলে পরবর্তীতে প্রয়োজনে হাইকোর্টে রিট করা হবে বলে জানান তিনি।

Mamunul2.jpg

গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রয়েল রিসোর্টে জান্নাত আরা ঝর্ণা নামে এক নারীসহ স্থানীয় লোকজনের হাতে আটক হন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীরমহাসচিব মামুনুল হক। বিষয়টি নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হলে জান্নাত আরাকে দ্বিতীয় স্ত্রী বলে দাবি করেন। যদিও এর সপক্ষে কোনও নথিপত্র দেখাতে পারেননি তিনি। দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে সমালোচনার মধ্যেই মামুনুল হক তৃতীয় বিয়ের দাবি করলেন।

মামুনুলের নারী সংশ্লিষ্টতা নিয়ে গত এক সপ্তাহ ধরে দেশজুড়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। বিষয়টি নিয়ে এবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্টাটাস দিয়েছেন আলোচিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন। রোববার (১১ এপ্রিল) সন্ধ্যায় দেয়া ওই স্টাটাসে তিনি মামুনুলের ১৩টি বিয়ে করার সন্দেহের কথা উল্লেখ করেছেন।

তসলিমা নাসরিন লিখেছেন- ‘মামুনুল হকের যত ফোনালাপ ফাঁস হচ্ছে, তত তিনি দাবি করছেন তিনি তার স্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। এক দুই তিনটি হলো বিয়ে। একটি বৈধ বিয়ে, বাকি দু’টো অবৈধ বা শরিয়তি বিয়ে। ফোনালাপ যদি আরও দুটো ফাঁস হয়, তবে তো তিনি চতুর্থ এবং পঞ্চম বিয়েরও দাবি করবেন। চারটে বিয়ের বেশি তো ইসলামি আইনে করা যায় না। রকম সকম দেখে আমার তো সন্দেহ হচ্ছে মামুনুল হক গোপনে ১৩টি বিয়ে করেছেন। কে জানে, নিজেকে হয়তো তিনি নবী মনে করেন।’

Hasan6.jpg

চলতি জুলাই মাসের মধ্যেই অনলাইন নিউজপোর্টাল রেজিস্ট্রেশন করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। সোমবার (১৩ জুলাই) সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানান মন্ত্রী।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা গত মার্চ মাসেই অনলাইন নিবন্ধনের উদ্যোগ নিয়েছিলাম। কিন্তু করোনার জন্য সেটা পিছিয়ে যায়। এরই মধ্যে গোয়েন্দ সংস্থার প্রতিবেদন পেয়েছি। তাই আশা করছি, এ মাসের মধ্যেই কিছু অনলাইন নিউজপোর্টাল নিবন্ধন দেয়া হবে। আর কিছু বাতিল করা হবে।

অযোগ্যদের হাতে যেন পত্রিকার ডিক্লারেশন না যায় সেজন্য উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তথ্যমন্ত্রী।

admission-test.jpg

বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তির প্রাথমিক আবেদন কার্যক্রম আগামী ১৫ এপ্রিল শেষ হচ্ছে। তবে করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যেও এ সময় আর বাড়ানো হবে না বলে জানা গেছে।

রোববার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ও গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ক টেকনিক্যাল সাব-কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূর এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘আগামী ১৫ এপ্রিল প্রাথমিক আবেদন কার্যক্রম শেষ হবে। ২৩ এপ্রিল ফলাফল প্রকাশ করা হবে। ২৪ এপ্রিল থেকে চূড়ান্ত আবেদন কার্যক্রম শুরু হবে। এ ধাপে শিক্ষার্থীদের ছবি, কেন্দ্র চয়েজ, আবেদন ফি প্রদান করতে হবে। পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে চলতি সপ্তাহে গুচ্ছ কমিটির বৈঠক হওয়ায় কথা রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনলাইন আবেদন শুরু হওয়ার পর ওয়েবসাইটে তেমন কোনো সমস্যা হয়নি। রোববার বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত ২ লাখ ৯২ হাজার ৮২৩টি আবদেন জমা হয়েছে।’

ড. মুনাজ আহমেদ জানান, ‘এ’ ইউনিটে বিজ্ঞান বিভাগে ১ লাখ ৭১ হাজার ২৫৬টি, ‘বি’ ইউনিটে বাণিজ্য বিভাগে ৮০ হাজার ৬২৯টি, ‘সি’ ইউনিটে মানবিক বিভাগে ৪০ হাজার ৯৩৭টি আবেদন এসেছে।

জানা যায়, গত ১ এপ্রিল দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে গুচ্ছ পদ্ধতিতে স্নাতক শ্রেণিতে প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন শুরু হয়েছে। চলবে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত।

school-20181215202907.jpg

উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিজস্ব স্থাপনা নেই এসব প্রতিষ্ঠানকে জরুরি ভিত্তিতে নিজ স্থাপনায় স্থানান্তরের নির্দেশ দিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। অন্যথায় এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠদান বাতিলসহ বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রোববার প্রফেসর হারুন অর রশিদ স্বাক্ষরিত এক জরুরী সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপনের অনুমতি প্রদান ও একাডেমিক স্বীকৃতি পাওয়ার পরও প্রতিষ্ঠান নামীয় জমি এখনো নামজারী ও জমা করা হয়নি। নামজারী ও জমাখারিজ না করার কারণে বিভিন্ন ক্ষেত্রে জটিলতা সৃষ্টি এবং অনাকাঙ্খিত মামলার উদ্ভব হচ্ছে। এছাড়া নামজারি না হওয়ার কারণে কিছু অসাধু চক্র কর্তৃক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জমি বেহাত হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে।

স্ব-স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জমির পরিমাণ, বিবরণ, খতিয়ান, নামজারী ও জমাভাগ ভূমি উন্নয়ন কর দাখিলা জমির দলিল এবং বাস্তব দখলের কাগজপত্র হালনাগাদ করে একটি ফাইল সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান অফিসে সংরক্ষণ এবং একটি ফাইল নিম্নস্বাক্ষরকারী তবে অতিসত্বর প্রেরণের জন্য অনুরোধ করা হলো।


About us

DHAKA TODAY is an Online News Portal. It brings you the latest news around the world 24 hours a day and 7 days in week. It focuses most on Dhaka (the capital of Bangladesh) but it reflects the views of the people of Bangladesh. DHAKA TODAY is committed to the people of Bangladesh; it also serves for millions of people around the world and meets their news thirst. DHAKA TODAY put its special focus to Bangladeshi Diaspora around the Globe.


CONTACT US

Newsletter