জাতীয় Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

mamms.jpg

রোহিঙ্গাদের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবিক উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, রোহিঙ্গারা আমাদের অতিথি। তাদের প্রতি আমাদের মানবিক হতে হবে। তারা মার খেয়ে পানিতে ভেসে আসছে। তাদের প্রতি আমরা মানবিক আচরণ করবো। তাদের যাতে সম্মান রক্ষা হয় সেই বিষয়টি দেখতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুর চট্টগ্রাম ১২টায় নগরের সার্কিট হাউসে ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ উপলক্ষে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

এম এ মান্নান বলেন, কেউ ভুলের ঊর্ধ্বে নয়। জনশুমারি ও গৃহগণনা করতে গিয়েও কিছু ভুল হয়। কিন্তু আমরা এবার খুব ভালোভাবে জনশুমারি ও গৃহগণনা করতে চাই। যারা এ কাজে সম্পৃক্ত হবেন তাদের আগের চেয়ে চারগুণ সম্মানি ভাতা দেওয়া হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে খুব আন্তরিক। জনশুমারি এই বিভাগ, ওই বিভাগের কাজ নয়। এটি সবার কাজ, সবাই মিলে এই কাজকে আমরা সহযোগিতা করবো।

তিনি বলেন, মুজিববর্ষের মধ্যেই আমরা জনশুমারির একটা সংখ্যা নিয়ে আসতে পারবো। সুইডেন, নরওয়ে ও ফিনল্যান্ডে প্রতিবছর জনশুমারি করা হয়। সেই ব্যবস্থা আমরাও নিয়ে আসবো। অনেকে ক্যালেন্ডার ইয়ার অনুসরণ করতে বলেছেন। আমিও ক্যালেন্ডার ইয়ারের পক্ষে। কারণ আমাদের বছর জুন-জুলাই হওয়ার কারণে অনেক সময় ব্যতিক্রম লাগে।

জনশুমারি ও গৃহগণনায় সব দলের লোকেরা অংশ নিতে পারবে জানিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, অনেকে প্রশ্ন করেন নিজ দলের লোকেরা জনশুমারিতে থাকেন। কিন্তু এবারে সব দলের লোকেরাই এ কাজে অংশ নিতে পারবে। আমরা নির্ভুলভাবে এ কাজ করতে চাই। ফলাফল যাই আসুক, আমরা সঠিক তথ্যটাই জনগণের কাছে তুলে ধরতে চাই। কারণ জনগণের জানার অধিকার আছে।

বিশ্বব্যাংক, জাতিসংঘ ও আইএমএফসহ আন্তর্জাতিক অনেক সংস্থা বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোকে কোড করে জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের পরিসংখ্যান ব্যুরো এখন বিশ্বমানের। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো স্বীকার করেছে, আমাদের ব্যুরোর তথ্য অনেক এগিয়েছে। এমনকি আইএমএফ তাদের সংখ্যার সঙ্গে আমাদের সংখ্যা মিলিয়ে দেখে প্রায় একই পেয়েছে।

mirza46df.jpg

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ঢাকাবাসী তাকেই ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচন করবেন যে ঢাকার উন্নয়নে, ঢাকাকে পরিবর্তনের জন্য কাজ করবেন। তাই আমরা মনে করি ইতোমধ্যেই ইশরাক হোসেন ঢাকাসহ সারাদেশে তার বক্তব্য, তার মেধা, সাহসী বক্তব্য এবং সাহসী পদক্ষেপে প্রমাণ করেছেন তিনিই একমাত্র নেতা যিনি আগামীতে ঢাকাকে নেতৃত্ব দিতে পারেন মেয়র হিসেবে। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা দক্ষিণে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেনের পক্ষে গণসংযোগে হাইকোর্ট গেটে দাঁড়িয়ে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ঢাকাবাসী তাদের আগামী দিনের নেতা নির্বাচিত করবেন। তারা এমন একজনকে নির্বাচিত করবেন যিনি হবেন সাহসী ও ভবিষ্যতে ঢাকাকে একটি সত্যিকার অর্থে আধুনিক নগর হিসেবে গড়ে তুলবেন। সেজন্য ঢাকাবাসীর পক্ষ থেকে আপনাদের প্রিয় নেতা সাদেক হোসেন খোকার জ্যেষ্ঠ সন্তান ইশরাক হোসেনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারি দলকে সাহায্য করার জন্যই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ইভিএম নিয়ে আসা হয়েছে। তিনি বলেন, ইভিএমের বিষয়টা পুরোপুরি নির্বাচন কমিশনের। এতে অন্য কারো কোন এখতিয়ার নাই। নির্বাচন কমিশন তাদের অযোগ্যতা ঢাকার জন্য ইভিএম নিয়ে এসেছে। প্রয়োজনে নির্বাচন পিছিয়ে দিয়ে ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচন পরিচালনা করতে হবে।

নির্বাচন সম্পূর্ণভাবে পক্ষপাতদুষ্ট হচ্ছে দাবি করে বিএনপি এই নেতা বলেন, আপনারা দেখেছেন নির্বাচন শুরু হওয়ার পর থেকে ইশরাকের ওপর আক্রমণ হয়েছে। তাবিথের ওপর আক্রমণ হয়েছে। মঙ্গলবার উত্তরের প্রার্থী তাবিথের ওপরে শারীরিকভাবে আক্রমণ করা হয়েছে। আমরা নিন্দা জানিয়েছি ও প্রতিবাদ করছি। এখন পর্যন্ত এই ঠুঁটো জগন্নাথ নির্বাচন কমিশন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আমরা অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতারের আহ্বান জানাচ্ছি।

ইশরাক হোসেনকে ধানের শীষে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে ঢাকাবাসীর প্রতি আমার একটা আকুল আবেদন থাকবে তরুণ উদ্দীপ্ত নেতা ইশরাক হোসেনকে ধানের শীষে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ত্বরান্বিত করুন।

প্রচারণায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদিন, যুগ্ম-মহাসচিব ও সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব-উন নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ দলীয় নেতাকর্মীরা।

পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে ২২তম স্প্যান বসানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সেতুর ৫ ও ৬ নম্বর পিলারের ওপর স্প্যানটি বাসানো হয়। এতে করে সেতুর ৩ হাজার ৩০০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে।

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮টায় মাওয়া কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ধূসর রংয়ের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের স্প্যানটিকে নিয়ে সেতুর ৫ ও ৬ নং পিলারের কাছে রওনা দেয় তিন হাজার ৬০০ টন ধারণক্ষমতার ভাসমান ক্রেন ‘তিয়ান-ই’। ২১তম স্প্যান বসানোর আট দিনের মাথায় ২২তম স্প্যান বসানো হলো।

সূত্রে জানা যায়, ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের স্থায়ীভাবে বসেছে ওয়ান-এফ স্প্যান। আর তার ঠিক সঙ্গেই বসানো হলো এই স্প্যানটি। পদ্মাসেতুর ৪২টি পিলারের মধ্যে কাজ বাকি আছে ৬টি পিলারের। এগুলো হলো- ৮, ১০, ১১, ২৬, ২৭, ২৯ নম্বর পিলার।

পুরো সেতুতে ২ হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে ২ হাজার ৯৫৯টি। পদ্মা সেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান।

tib4353.jpg

দুর্নীতির বিরুদ্ধে নানা অভিযান এবং সরকারের উচ্চস্তরের ঘোষণা সত্ত্বেও বাংলাদেশে দুর্নীতি কমছে না। তবে আগের বছরের (২০১৮) তুলনায় বাংলাদেশ এ সূচকে এক ধাপ উন্নতি করেছে। ১০০ নম্বরের মাণদণ্ডে এবার (২০১৯) বাংলাদেশের স্কোর ২৬। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) ‘দুর্নীতির ধারণা সূচক ২০১৯’ এ চিত্র উঠে এসেছে।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর ধানমন্ডির মাইডাস সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

বিশ্বের ১৮০টি দেশ ও অঞ্চলের ২০১৯ সালের দুর্নীতির পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বার্লিনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) এই সূচক প্রকাশ করেছে। টিআই প্রতিবছর বিশ্বজুড়ে দুর্নীতির ধারণা সূচক প্রকাশ করে। এরই ধারাবাহিকতায় সিপিআই-২০১৯ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

২০১৯ সালে বাংলাদেশ তালিকার সর্বনিম্ন থেকে গণনা ও স্কোর অনুযায়ী ১৮০ দেশের মধ্যে ১৪তম অবস্থানে রয়েছে; যা সিপিআই ২০১৮ থেকে এগিয়েছে। সর্বোচ্চ থেকে গণনা অনুযায়ী বাংলাদেশ ১৪৬তম; এখানে গত বছরের তুলনায় ৩ ধাপ উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশের।

এশিয়া প্যাসিফিকের ৩১ দেশের মধ্যে বাংলাদেশ চতুর্থ সর্বনিম্ন অবস্থানে এবং দক্ষিণ এশিয়ার ৮ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সর্বনিম্ন থেকে গণনা অনুযায়ী আফগানিস্তানের পর দ্বিতীয় সর্বনিম্ন

bsf3.jpg

নওগাঁর পোরশা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে তিন বাংলাদেশি গরু ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) ভোরে উপজেলার দুয়ারপাল সীমান্ত এলাকার ২৩১/১০(এস) মেইন পিলারের নীলমারী বীল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ভারতের মালদা জেলার ক্যাদারীপাড়া ক্যাম্পর বিএসএফ জোয়ানরা ঘটনাটি ঘটিয়েছেন বলে জানা গেছে।

নিহতরা হলেন- পোরশা উপজেলার বিষ্ণুপুর বিজলীপাড়ার গ্রামের শুকরার ছেলে সদিপ, কাঁটাপুকুর গ্রামের মৃত-জিল্লুর রহমানের ছেলে কামাল এবং চকবিষ্ণুপুর দিঘিপাড়ার মৃত-খোদাবক্সের ছেলে মফিজুল উদ্দিন।

বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাতে বাংলাদেশের বেশ কিছু গরু ব্যবসায়ী সীমান্ত পার হয়ে ভারত যান। গরু নিয়ে ভোরে সীমান্তে ২৩১/১০ (এস) মেইন পিলার এলাকা দিয়ে আসার পথ ক্যাদারীপাড়া ক্যাম্পর টহলরত বিএসএফ জোয়ানরা তাদের পিছন থেকে গুলি করে। এ সময় অন্যরা পালিয়ে আসতে পারলেও ভারতের ১০০গজ ভেতরে সদিপ ও কামাল মারা যান। তবে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মফিজুল বাংলাদেশে চলে আসেন। পরে তিনিও মারা যান।

বিজিবি-১৬ হাপানিয়া ক্যাম্প কমান্ডার নায়েব সুবদার মোখলেছুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পূর্বপশ্চিমকে বলেন, তিনজন গুলিবিদ্ধ হলেও এদের মধ্যে একজন গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশের মধ্যে এসে মারা গেছেন। দুইজন ভারতে মারা গেছেন।

বিজিবি-১৬ (নওগাঁ) ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফুল ইসলাম জানান, পতাকা বৈঠকের জন্য বিএসএফকে চিঠি দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

atik35s.jpg

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেছেন, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকার কোনো বিকল্প নেই। নৌকা দেবে শান্তি, নৌকা দেবে সচল ঢাকা। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পাশের সড়ক থেকে গণসংযোগের শুরুতে তিনি এ কথা বলেন।

শহরের সৌন্দর্য নষ্ট না করার স্বার্থে আতিকুল বলেন, যত্রতত্র পোস্টার টাঙিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা না করে আসুন আমরা এমন পদ্ধতি বের করি যেন শহরের সৌন্দর্য নষ্ট না হয়। কোনো ডিজিটাল প্রচারণা পদ্ধতি আমরা বের করি। এছাড়া বিজ্ঞাপন, প্রচারণার পোস্টার যত্রতত্র না লাগিয়ে আমরা নির্দিষ্ট কোনো জায়গা তৈরি করতে পারি। শুধু সেসব স্থানেই মানুষ তাদের প্রতিষ্ঠানের বা নিজের প্রচারণার পোস্টার, ব্যানার লাগাবে। এমন পদ্ধতি চালু করতে পারলে শহরের সৌন্দর্য নষ্ট হওয়া রোধ করা যাবে।

নতুন যুক্ত হওয়া ওয়ার্ডগুলোর প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, আপনারা যদি আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেন তাহলে আগামী ৬ মাসের মধ্যেই ওসব এলাকার উন্নয়নের কাজ শুরু করা হবে। ইতোমধ্যে নগর পরিকল্পনাবীদরা ওসব নতুন ওয়ার্ডগুলোর কোথায় রাস্তা হবে, ফুটপাত, ড্রেন কেমন হবে তার নকশা কাজ করছেন। এ ছাড়া নতুন ওয়ার্ডগুলো সিটি করপোরেশনের সব নাগরিক সুবিধাসহ নতুন রূপে সাজাতে ৪ হাজার ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আগামী ১ ফেব্রুয়ারি। এবার পুরো নির্বাচন ইভিএমের মাধ্যমে হবে।

al-5-mp.jpg

গত ছয় মাসে চলতি একাদশ জাতীয় সংসদের সাতটি সংসদীয় আসন ফাঁকা হয়েছে। এর মধ্যে গত এক মাসেই এমপিশূন্য হয়েছে পাঁচটি আসন। এসব আসনের মধ্যে পদত্যাগের কারণে একটি এবং বাকি ছয়টি সংসদ সদস্যের মৃত্যুতে শূন্য হয়েছে, তারা সবাই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

গত ২৭ ডিসেম্বর থেকে ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত আওয়ামী লীগ দলীয় চারজন সংসদ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। সর্বশেষ গতকাল মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) মারা যান যশোর-৬ ( কেশবপুর)আসনের এমপি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক। এর দুদিন আগে গত ১৮ জানুয়ারি বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের এমপি ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মান্নান মারা যান।

গত ১০ জানুয়ারি বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসন থেকে পাঁচবারের এমপি ডা. মোজাম্মেল হোসেন মারা যান। এর আগে গত ২৭ ডিসেম্বর গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের এমপি মো. ইউনুস আলী সরকারের মৃত্যু হয়।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হওয়ায় নিয়ম অনুযায়ী গত ২৯ ডিসেম্বর ঢাকা-১০ আসনের এমপির পদ থেকে পদত্যাগ করেন ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। তার আসনটি নিয়ে বর্তমানে পাঁচটি সংসদীয় আসন শূন্য রয়েছে। এসব শূন্য আসনে ৯০ দিনের মধ্যে উপ-নির্বাচনের বিধান রয়েছে।

এর আগে গত ১৮ অক্টোবর আওয়ামী লীগের জোটের শরিক জাসদের (একাংশ) চট্টগ্রাম-৮ আসনের এমপি মঈনুদ্দিন খান বাদলের মৃত্যুতে তার আসনটি শূন্য হয়। সেখানে ১৩ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে জয় পেয়ে শপথ নিয়েছেন আওয়ামী লীগের মোছলেম উদ্দিন।

গত ১৮ আগস্ট ফরিদপুরের সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি রুশেমা বেগমের মৃত্যুুতে আসনটি শূন্য হলে তা পূরণ করা হয়।

btcl-logo-1280x579.jpg

মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিটিসিএল বিনা টাকায় নতুন টেলিফোন সংযোগ ও পুনঃসংযোগ দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার।

বুধবার জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সদস্য মো. মামুনুর রশীদ কিরনের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। এছাড়া ২০১৯ সালের ১৬ আগস্ট থেকে টেলিফোনের লাইন রেন্ট বাতিল করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

মন্ত্রী বলেন, বিটিসিএলের কল রেট আনলিমিটেড প্রতিমাসে মাত্র ১৫০ টাকা করা হয়েছে। অন্য অপারেটরের কল রেট প্রতি মিনিট ৮০ পয়সা থেকে কমিয়ে ৫২ পয়সা করা হয়েছে। সরকার বিটিসিএলকে আধুনিক ও লাভজনক করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

সরকারি দলের সদস্য নাছিমুল আলমের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের গত মেয়াদে টেলিকমিউকেশন নেটওয়ার্ক ডেভেলমেন্টের জন্য বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

Democracy-map-2001221156.jpg

বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে আট ধাপ অগ্রগতি হয়েছে বাংলাদেশের। বিশ্বের ১৬৫টি দেশ ও দুটি ভূখণ্ডের এই সূচকে গত বছর ৮৮তম অবস্থানে থাকলেও এ বছর আট ধাপ এগিয়ে বাংলাদেশ উঠে এসেছে ৮০তম স্থানে।

বুধবার যুক্তরাজ্যের লন্ডনভিত্তিক সাময়িকী দ্য ইকোনমিস্টের ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) করা এ সূচক প্রকাশ করা হয়।

২০০৬ সাল থেকে বিশ্ব গণতন্ত্র পরিস্থিতি পাঁচটি মানদণ্ডে ১০ স্কোরের ভিত্তিতে এ সূচক প্রকাশ করে আসছে ব্রিটিশ সাময়িকী দ্য ইকোনমিস্টের ইন্টেলিজেন্স ইউনিট। পাঁচটি মানদণ্ডগুলো হলো- নির্বাচনী ব্যবস্থা ও বহুদলীয় অবস্থান, সরকারে সক্রিয়তা, রাজনৈতিক অংশগ্রহণ, রাজনৈতিক সংস্কৃতি এবং নাগরিক অধিকার।

ইআইইউর এই সূচকে ১০ স্কোরের মধ্যে বাংলাদেশ পেয়েছে ৫ দশমিক ৮৮, যা গত বছর ছিল ৫ দশমিক ৭৭। গণতান্ত্রিক এই সূচকে বাংলাদেশের আট ধাপ অগ্রগতি হলে প্রতিবেশী ভারতের অবনমন ঘটেছে ব্যাপক। গত বছর দেশটি ৭.২৩ স্কোর নিয়ে তালিকায় ৪১তম থাকলেও এবার ৫১তম অবস্থানে নেমে গেছে। এ বছর ভারতের স্কোর ৬.৯০।

দক্ষিণ এশিয়ায় শ্রীলংকা ৬.১৯ স্কোর নিয়ে গত বছর ৭১তম অবস্থানে থাকলেও এবার দেশটির দুই ধাপ অগ্রগতি হয়েছে। ৬.২৭ স্কোর নিয়ে এ বছর ৬৯তম অবস্থানে উঠে এসেছে দেশটি। এদিকে ৪ দশমিক ১৭ স্কোর নিয়ে পাকিস্তান গত বছর ১১২তম থাকলেও এবার ৪.২৫ স্কোর নিয়ে ১০৮তম অবস্থানে রয়েছে।

ইআইইউর সূচকে এবারো ৯.৮৭ স্কোর নিয়ে বিশ্বে শীর্ষ দেশ নরওয়ে। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে আইসল্যান্ড। দেশটির স্কোর ৯.৫৮। তৃতীয় স্থানে রয়েছে সুইডেন (স্কোর ৯.৩৯), চতুর্থ নিউজিল্যান্ড (স্কোর ৯.২৬) এবং পঞ্চম দেশ ফিনল্যান্ড (স্কোর ৯.২৫)।

বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে এ বছর একেবারে তলানিতে রয়েছে উত্তর কোরিয়া। দেশটি ১.০৮ স্কোর নিয়ে ১৬৭তম অবস্থানে রয়েছে। এছাড়া ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো ১৬৬তম (স্কোর ১.১৩), সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ১৬৫তম (স্কোর ১.৩২), সিরিয়া ১৬৪তম (স্কোর ১.৪৩) ও চাদ ১৬৩ (স্কোর ১.৬১)।

5j6i.jpg

ছাত্রী ও শিক্ষকদের টিফিনের টাকায় কক্সবাজার সৈকতে হয়ে গেল বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে দেশের সর্ববৃহৎ আলোকচিত্র প্রদর্শনী।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমার উদ্যোগে বুধবার (২২ জানুয়ারি) সমুদ্র সৈকতের দরিয়ানগর পয়েন্টে রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রীরা ব্যতিক্রমী এ আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করেন।

এ প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। উদ্বোধনকালে তিনি বলেন, জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বৃহৎ চিত্রপ্রদর্শনী আয়োজনের মাধ্যমে ছাত্রীরা বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এ আয়োজন সবার জন্য অনুকরণীয় এবং গৌরবের। এর মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ নেতৃত্ব আর অসীম ত্যাগের ইতিহাস সম্পর্কে শিক্ষা অর্জন করবে।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি প্রণয় চাকমা জানান, সম্প্রতি তিনি এ ধরনের উদ্যোগে কথা জানালে বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা তাদের টিফিনের টাকায় এ বিশাল কর্মযজ্ঞ আয়োজনে আগ্রহ প্রকাশ করে। এতে সায়ও দেন তিনি। এরই প্রেক্ষিতে বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষকের সহায়তায় ছাত্রীরা টিফিনের টাকা জমিয়ে বঙ্গবন্ধুর জীবনের বিভিন্ন চিত্রকর্ম সংগ্রহ শুরু করে। অল্পদিনে ছাত্রীরা সংগ্রহ করে বঙ্গবন্ধুর এক হাজার চিত্র। পরে এসব ছবি দিয়ে এক হাজার ফুট দীর্ঘ এ প্রদর্শনী আয়োজন করা হয়।

ইউএনও আরও জানান, টিফিনের টাকা আর নিজেদের শ্রমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চিত্রপ্রদর্শনী আয়োজনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা ছিল বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রীদের। বিশাল এ চিত্রপ্রদর্শনী সর্বত্র সাড়া জাগিয়েছে। এ প্রদর্শনী দেখে সর্বস্তরের মানুষের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরাও বঙ্গবন্ধুর জীবনের শুরু থেকে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অজানা অধ্যায় জানার সুযোগ পেয়েছে

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এম জয়নাল আবেদীন জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা স্ব-উদ্যোগে, টিফিনের টাকায় বঙ্গবন্ধুর চিত্রপ্রদর্শনী আয়োজন করেছে। শিক্ষকরা যা পারেনি, তা ছাত্রীরা করেছে। ছাত্রীদের এ উদ্যোগ জেলাবাসীর জন্য গৌরবের।

প্রদর্শনী সমন্বকারী সহকারী শিক্ষক সুমথ বড়ুয়া জানালেন, বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে এতবড় চিত্রপ্রদর্শনী দেশে আগে আর হয়নি। জাতির পিতাকে নিয়ে দেশের দীর্ঘতম আলোকচিত্রটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে রামু উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) চাই থোয়াইলা চৌধুরী, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গৌরচন্দ্র দেসহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রীসহ বিপুল দর্শক উপস্থিত ছিলেন। সৈকতে আসা দেশি-বিদেশি পর্যটকরাও এ প্রদর্শনী দেখে বিমোহিত হন।