সারাদেশ Archives - Page 4 of 10 - Dhaka Today

dt008654-1.jpg

ঘুমন্ত বড় ভাইকে দা দিয়ে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যার পর ধারালো অস্ত্রসহ রক্তমাখা কাপড় পরে নিজেই থানায় আত্মসমর্পণ করেছেন আপন ছোট ভাই। নিহতের নাম মো. আবু তাহের (৪০)। তার মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা রয়েছে।
শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর অদূরে আশুলিয়া থানার ধামসোনা ইউনিয়নের কাইচাবাড়ী এলাকার মৃত ফজর আলীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
আবু তাহের কাইচাবাড়ী এলাকায় মৃত ফজর আলীর ছেলে। মেজ ভাই জাহেদ আলীর (২৬) হাতে খুন হয়েছেন তিনি। তারা সাত ভাই ও এক বোন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আশুলিয়া থানার ওসি (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ জানান, রাতে আমি অফিস কক্ষে বসেছিলাম। এমন সময় রক্তমাখা শরীরে, রক্তমাখা দা হাতে এক যুবক রাতে হঠাৎ থানায় আসে। সে জানায় তার নাম জাহেদ আলী, ভাইকে খুন করে এসেছে। এখন আমরা যেন তাকে গ্রেপ্তার করি। পরে আমরা ওই বাড়িতে গিয়ে ঘটনার সত্যতা জানতে পারি। তবে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে আবু তাহের ছোট ভাইয়ের হাতে খুন হয়েছেন কি না সে ব্যাপারে তদন্ত করে জানা যাবে। ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করে জাহেদ আলীকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে।
তিনি আরও বলেন, জাহেদ স্বীকারোক্তিতে বলেছেন, আবু তাহের তার কক্ষে ঘুমিয়ে পড়লে তার ঘরে ঢুকে দা দিয়ে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করা হয়।
নিহতের বোন হাসিনা বেগম জানান, বড় ভাই আবু তাহের তার পৈতৃক এক শতাংশ জমি বিক্রয় করে বিদেশ যেতে চাইছিলেন। এ নিয়ে অনেকদিন ধরেই ছোট ভাই জাহেদ আলীর সঙ্গে বিরোধ চলছিল বড় ভাই আবু তাহেরের। তিন দিন আগে তাহের এক প্রতিবেশীর কাছে তার পৈতৃক এক শতাংশ জমি বিক্রি করে ১ লাখ টাকা বায়না নেন। সেই টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকা তিনি খরচ করেন। বাকি ৭০ হাজার টাকা মায়ের কাছে জমা রাখেন।

bikolpo.jpg

বিকল্পধারা বাংলাদেশ দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের জন্য ফরম বিতরণ শুরু করবে সোমবার সকাল ১০টা থেকে। চলবে ১৪ নভেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ফরম বিতরণ করা হবে।

শনিবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে দলের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মনোনয়ন ফরমের মূল্য ১,০০০/- (এক হাজার) টাকা। ফরম জমার সময় দিতে হবে ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা।

১৫ নভেম্বর ও ১৬ নভেম্বর মনোনয়ন প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হবে। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা।

বিকল্পধারার দপ্তর সম্পাদক ওয়াসিমুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওয়াসিমুল ইসলাম জানান, বিকল্পধারার বাড্ডা নির্বাচনী অফিসে সকল নির্বাচনী কার্যক্রম রীতিমত চলবে।

১৪০, বাড্ডা লিংক রোড, প্রাণ আরএফএল হেড অফিসের পাশে।

wife-hus.jpg

এবার নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন স্বামী ও স্ত্রী। তারা হলেন- সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূইয়া ও জেলা মহিলা লীগের সভাপতি প্রফেসর শিরিন বেগম।

তারা দুজনই শনিবার সন্ধ্যায় এ আসনে রাজধানী ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূঁইয়াই নিজে। এ আসনে বর্তমানে এমপি হিসেবে রয়েছেন জাতীয়পার্টি থেকে লিয়াকত হোসেন খোকা।

এর আগের দিন শুক্রবার নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসন থেকে আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক এএইচএম মাসুদ দুলাল ও কেন্দ্রীয় মহিলা লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিনা আক্তার মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

শনিবার সোনারগাঁও আসন থেকেও মহানগর আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট খোকন সাহা তার মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। খোকন সাহা নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনেও মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেন।

শনিবার এ আসনে আর মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেন নারায়ণগঞ্জের সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি অ্যাডভোকেট হোসনে আরা বেগম বাবলী ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরু।

এদের ছাড়াও এ আসন থেকে মনোনয়ন কেনার কথা রয়েছে গত নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন পাওয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম, অর্থনীতিবিদ আনোয়ারুল কবির ভূইয়া ও জেলা পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট নূর জাহানের।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে এখানে মোশারফ হোসেন নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন পান। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ তার শরীক দল জাতীয় পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দিলে এখানে জাতীয়পার্টির কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা এমপি নির্বাচিত হন।

এর আগের নির্বাচনে যখন সিদ্ধিরগঞ্জ ও সোনারগাঁও নিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসন ছিল ওই নির্বাচনে এখানে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতীকে জয়ী হন আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত। ইতিমধ্যে তিনি এবার মনোনয়ন ফরম কিনেছেন।

kamruls.jpg

‘হাইসিকিউরিটি’ রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে নিজ কক্ষে আত্মহত্যা করেছেন আইনজীবী রথীশ চন্দ্র ভৌমিক হত্যা মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলাম।

শনিবার ভোরে গলায় চাদর পেঁচিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে নিশ্চিত করেছেন রংপুর কারাগারের জেলার আমজাদ হোসেন। প্রথমে কারাকর্তৃপক্ষ তার হৃদরোগের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছিল।

পরে অবশেষে রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আমজাদ হোসেন অন্য বন্দিদের তথ্যমতে জানান, কামরুল ইসলাম ভোরে উঠে ওজু করে নামাজ পড়েন। এ সময় তিনি কাঁদছিলেন।

পরে কামরুলের সঙ্গে থাকা অন্য দুই বন্দি নামাজের জন্য অজু করতে গেলে তিনি নিজের গায়ে জড়ানো চাদর দিয়ে তৈরি করা দড়ি দিয়ে জানালার রডের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। এ সময় তার গোঙানির শব্দ শুনে অন্য বন্দিরা তাকে উদ্ধার করে জেলারকে খবর দেন। পরে কারা কর্তৃপক্ষ কামরুলকে দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে যাওয়ার ১৫ মিনিট পর চিকিৎসক ভোর সাড়ে ৫টা কামরুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

কামরুলের মৃত্যুর শুনে একই কারাগারে থাকা প্রেমিকা স্নিগ্ধা ভৌমিক কি প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন জানতে চাইলে জেলার আমজাদ হোসেন বলেন, ‘ কামরুলের আত্মহত্যার খবর জানার পর স্নিগ্ধার কোনো প্রতিক্রিয়া ছিল না।’

জেলার বলেন, ‘আমরা স্নিগ্ধাকে নিয়ে চিন্তিত ছিলাম। কারণ তিনি প্রায় বলতেন, এ জীবন ভালো লাগে না। আমি আত্মহত্যা করব। তার এ ধরনের কথায় আমরা ওই কক্ষে আরও পাঁচজন পুলিশ নিয়োগ দিয়েছি।’

রংপুর কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোখতারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ময়নাতদন্ত ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা শেষে লাশ কামরুলের পরিবারের কাছে হস্থান্তর করা হবে।

রমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. অজয় রায় মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, হাসপাতালের আনার কিছুক্ষণ পরেই কামরুল মারা যান।

উল্লেখ্য, বাবু সোনা হত্যা মামলাটি রংপুর জেলা জজ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ চলছিল। মামলার পর থেকে কামরুল ও অপর আসামি বাবু সোনার স্ত্রী কামরুলের প্রেমিকা স্নিগ্ধা সরকার ওরফে দীপা জেলহাজতে রয়েছেন।

গত ২৯ মার্চ রাতে বাবু সোনাকে ১০টি ঘুমের ওষুধ খাইয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। এরপর তার লাশ তাজহাট মোল্লাপাড়ায় কামরুলের ভাইয়ের নির্মাণাধীন বাড়ির ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখা হয়।

৩ এপ্রিল রাতে বাবু সোনার স্ত্রী দীপা ভৌমিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব আটক করে। তিনি এ হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেন এবং লাশের অবস্থান সম্পর্কে তাদের জানান। সেই সূত্র ধরে বাবু সোনার গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়।

coxzxs.jpg

কক্সবাজারের রামুতে চিরকুট লিখে এক ভিমের সঙ্গে আপন দুই বোন আত্মহত্যা করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ ও চিরকুটটি উদ্ধার করেছে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।

শনিবার দুপুরে এ চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে। আত্মহত্যাকারী দুই বোন রামু উপজেলার রশিদ নগর ইউনিয়নের নজির হোসেনের মেয়ে মরজিনা আক্তার (১৭) ও তসলিমা আক্তার (১৩)।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার নুরুল আলম আত্মহত্যার ঘটনার ব্যাপারে বলেন, দুপুর ১টার দিকে রশিদ নগরের ১নং ওয়ার্ডের নজিরের বাড়িতে হইচই লেগে যায়। পরে ঘটনাস্থলে গেলে একই পরিবারের আপন দুই বোনকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখা যায়। এ সময় পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ মৃত অবস্থায় দুই বোনকে উদ্ধার করে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘটনার সময় মা বাবা ও পরিবারের অন্যরা বাড়িতে না থাকার সুবাধে এক রুমে তারা দুই বোন পরনের ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের একটি ভিমের সঙ্গে আত্মহত্যা করেন। তাদের ছোট ভাই বোনদের ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার দেয়। পরে এলাকার লোকজন জড়ো হয়ে মহিলা মেম্বার রাবিয়া খানামকে খবর দেয়। পরিদর্শক তদন্ত মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ এসে লাশের সুরহতাল রিপোর্ট তৈরি করে থানায় নিয়ে যায়। ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

চৌকিদার জয়নাল জানান, এ সময় তাদের লিখে যাওয়া একটি চিরকুট উদ্ধার করে পুলিশ। এ চিরকুটে তারা লিখেছেন আমাদের মৃত্যু জন্য মা-বাবা এমন কী পরিবারের কেউ দায়ী নয়।

সূত্রেমতে, মরজিনা আক্তারের বিয়ের কথাবার্তা চলছিল। আর তসলিমা স্থানীয় একটি হাইস্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। তবে তারা কী কারণে আত্মহত্যা করেছে এটি জানা যায়নি।

রামু থানার পরিদর্শক তদন্ত মিজানুর রহমান জানান, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

রামু থানার পরিদর্শক তদন্ত আরও জানান, দুই বোন একদিন আগে কক্সবাজার বেড়াতে যায়। বেশি রাত হয়ে গেলে বাড়িতে না এসে তাদের এক আত্মীয়ের বাড়িতে থেকে যায়। এ ঘটনায় তাদের বাবা-মা বকাঝকা করেন। ফলে তারা দুইজন অভিমানে আত্মহত্যা করেছেন।

ctg-15.jpg

লোহাগাড়া উপজেলা ও সাতকানিয়ার উপজেলা (আংশিক) নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন চট্টগ্রাম-১৫। স্বাধীনতার পর মাত্র একবারই এ আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বিজয়ের মুখ দেখে। তাও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনে। ইতোমধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফশীল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

আওয়ামী লীগের ফরম বিতরণের প্রথম দিনেই চট্টগ্রাম-১৫ লোহাগাড়া-সাতকানিয়া) আসন থেকে আওয়ামী লীগের ফরম কিনেছেন ৯ নেতা-নেত্রি। তারা হলেন, বর্তমান সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও রূপালি ব্যাংকের পরিচালক আবু সুফিয়ান, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বনফুল এন্ড কোং এর চেয়ারম্যান এম এ মোতালেব সিআইপি, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও ২০০৮ সালের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী এডভোকেট একেএম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী মাঈনুদ্দিন হাসান চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট কামরুন নাহার, মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রি ববিতা বড়ুয়া ও অহিদ সিরাজ স্বপন।

সূত্র জানিয়েছে, এখনো চূড়ান্ত হয়নি আওয়ামী লীগের প্রার্থী। সম্প্রতি বিশাল শোডাউন করে নিজের অবন্থান জানান দিয়েছেন আমিনুল ইসলাম। সেদিন তিনি মোটর শোভাযাত্রা নিয়ে পুরো নির্বাচনী এলাকা একবার প্রদক্ষিণ করেছেন। এসময় তিনি বলেন, নিজের পক্ষে শোডাউন নয় বরং নৌকার পক্ষে কাজ করছেন তিনি।

অন্যদিকে বর্তমান সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীও মাঠে রয়েছেন। তিনি প্রায় প্রতিনিদিনই এলাকায় যাচ্ছেন এবং উন্নয়ন কর্মকা- উদ্ধোধন ও পরিদর্শন করছেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের জয়যাত্রায় আমি আমার সর্বোচ্চটা দিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। লোহাগাড়া-সাতকানিয়ার মানুষ আমার সাথে আছে। আমি বিশ্বাস করি এবারও আমাকে মনোনয়ন দিয়ে এলাকার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার সুযোগ দেয়া হবে।

শিল্পপতি এম এ মোতালেব সিআইপি বলেন, আমি গতবারও মনোনয়ন প্রাপ্তির কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে অজানা কারণে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হয়ে যাওয়ায় সেটা আর হয়ে উঠেনি। এবারও নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পাবার লক্ষ্যে মাঠে-ময়দানে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি এবার নেত্রী আমাকে মনোনয়ন দেবেন। ইতোমধ্যে আমি মনোনয়নও সংগ্রহ করেছি।

ইতিহাস বলছে, লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কোন নেতাই দুইবার মনোনয়ন পাননি। ১৯৯১ সালের গণতান্ত্রিক নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন তৎকালীন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রয়াত আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবু। সেবার তিনি জামায়াত প্রার্থী আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরীর কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। এসময় ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করেছিলেন আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী প্রকাশ মোস্তাফিজ মিয়া।

১৯৯৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবু আর এ আসনে মনোনয়ন পান নি। সেসময় নৌকার টিকেট পান ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাঈনুদ্দিন হাসান চৌধুরী। সেবার বিজয় ছিনিয়ে নিয়ে যান তৎকালীন বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য ও সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী কর্নেল (অব:) অলি আহমদ বীরবিক্রম ।

২০০১ সালের নির্বাচন ঘনিয়ে এলে তৎকালীন চট্টগ্রাম-১৪ তথা লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আসনে নতুন সংকট দেখা দেয়। বিএনপির কর্নেল অলি ও জামায়াতের শাহজাহান চৌধুরী দু’জনই চারদলীয় জোটের প্রার্থীতা চেয়ে বসেন। একপর্যায়ে জোটের হাইকমান্ড দুইজনকেই ভোটের মাঠে ছেড়ে দেয় এবং যিনি জিতে আসবেন তাকে গ্রহণ করে নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়। সেবার নৌকার মাঝি ছিলেন প্রয়াত শিল্পপতি আলহাজ্ব জাফর আহমদ চৌধুরী । তিনি সেসময় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের কো-চেয়ারম্যান ছিলেন। সেই নির্বাচনে বিএনপির কর্নেল অলি ও আওয়ামীলীগের জাফর আহমদ চৌধুরীকে ধরাশায়ী করে বিজয়ের মুকুট গলায় পরে নেন শাহজাহান চৌধুরী।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীতা পান চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট একেএম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী। অবশ্য সেবারও কর্নেল (অব:) অলি আহমদ নির্বাচন করেন। এ নির্বাচনে নিকটতম প্রতিদ্ধন্ধির প্রাপ্ত ভোটের প্রায় দ্বিগুণ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তৎকালীন চট্টগ্রাম মহানগরী জামায়াতের আমীর ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আ. ন. ম. শামশুল ইসলাম।

সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন পান দলে নবাগত প্রফেসর ড. আবু রেজা নদভী।

দলের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় একাধিক নেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, দলের সভানেত্রি ছাড়া কেউই জানে না কে হচ্ছেন চট্টগ্রাম-১৫ আসনে নৌকার মাঝি।

এই আসনে এক নেতা দুইবার মনোনয়ন না পাওয়ার ধারাবাহিকতায় আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনেও কী নতুন মুখ মনোনয়ন পাচ্ছেন নাকি বর্তমান এমপিই আবারো আ. লীগের টিকেট পাচ্ছেন তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরো কিছুদিন।

dt-suiside.jpg

কক্সবাজারের রামু উপজেলায় একই শাড়ি গলায় পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন দুই বোন। তাদের মৃতদেহের পাশে একটি চিরকুট পাওয়া গেছে, যেখানে মৃত্যুর জন্য নিজেদেরই দায়ী করেছেন দুই বোন।
শনিবার (১০ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার রশিদনগর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের সিকদারপাড়া গ্রামে নিজেদের ঘর থেকে দু’জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।
দুই বোন হলেন- সিকদারপাড়া গ্রামের নাসির হোসেনের মেয়ে তছলিমা আকতার (১৭) ও মর্জিনা আকতার (২০)। তছলিমা রশিদনগরের রেজিয়া আহমেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন। মর্জিনা আকতারও পড়াশোনা করতেন। দুই বোনের আত্মহত্যার ঘটনায় পুরো এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
গ্রামবাসী জানায়, বিকেলে মা-বাবার অনুপস্থিতিতে নিজেদের ঘরে একটি শাড়ি দু’জনে গলায় পেঁচিয়ে ঝুলে আত্মহত্যা করেন দুই বোন। বোনদের দীর্ঘ সময় না দেখে তাদের ঘরে দু’জনকে ঝুলতে দেখে চিৎকার শুরু করেন ছোট ভাই। এসময় প্রতিবেশীরা ছুটে গিয়ে দুই বোনকে মৃত দেখতে পান।
গ্রামবাসী আরও জানায়, দুই বোনের মৃতদেহের পাশে একটি চিরকুট পাওয়া যায়। চিরকুটে তারা নিজেরাই মৃত্যুর জন্য দায়ী বলে উল্লেখ করেন।
ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রামু থানার ওসি (তদন্ত) মো. মিজানুর রহমান, রশিদনগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শাহ আলম, রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সানা উল্লাহ ও প্রভাত কর্মকার।
ওসি মিজানুর রহমান জানান, মায়ের বকাবকির কারণে দু’জনে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। তাদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে।

dt008636.jpg

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসনের আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন সাবেক নির্বাচন কমিশনার ও আইন সচিব ছহুল হোসাইন।
শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ের পাশের নতুন ভবন থেকে ছহুল হোসেইনের পক্ষে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম কেনেন তার পরিবারের সদস্যরা।

মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের উৎসবমুখর পরিবেশের মুহূর্তে সিলেটের রাজনীতিতে আলোচিত নাম ছহুল হোসাইন। তিনি সিলেটের সন্তান। ২০০৭ সালে সর্বশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেছেন।

বর্তমানে অবসরে থাকা এই নির্বাচন কমিশনার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রতি তিনি রাজনীতিতে আসছেন এবং ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন নিয়ে সিলেট-১ আসনে নির্বাচন করবেন-এমন গুঞ্জন ছিল সিলেটের রাজনৈতিক অঙ্গনে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর ও ছহুল হোসাইনের ভাতিজা দিলওয়ার হোসেইন সজীব বিষয়টি নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, ছহুল হোসাইন জনগণের জন্য কাজ করতে আগ্রহী। এই কারণে তিনি নিজ এলাকার মানুষের উন্নয়ন নিয়ে ভাবছেন। মূলত; এই ভাবনা থেকে তিনি ভোটের মাধ্যমে রাজনীতিতে নামতে চান।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ছহুল হোসেইন বলেন, দেশে-বিদেশে অবস্থানরত শুভাকাঙ্ক্ষী এবং তৃণমূল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের অনুরোধে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দেশের জনগণের হয়ে কাজ করতে আগ্রহী আমি। আর এজন্যই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছি।

dt008630.jpg

রাজনীতিতে আসছেন ঢাকাই ছবির এক সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিল খান।শুধু রাজনীতিই নয়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও অংশ নিচ্ছেন তিনি।
শনিবার সকালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র কিনেছেন এ অভিনেতা।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাট-৩ আসন থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়তে চান চিত্রনায়ক শাকিল খান।
উল্লেখ্য, দ্বিতীয় দিনের মতো আজ দলীয় ফরম বিতরণ শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। প্রথম দিন শুক্রবার নৌকা প্রতীক বরাদ্দ পেতে ১৩২৮ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।
৮ নভেম্বর নির্বাচন কমিশনের (ইসি) একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঘোষণাকৃত তফসিল অনুযায়ী, নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৯ নভেম্বর।

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন ২২ নভেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর।

dt008624.jpg

রংপুরে বিশেষ জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ও আওয়ামী লীগ নেতা বাবু সোনা হত্যা মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলাম মারা গেছেন। রোববার ভোরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রিজন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।
রংপুর কারাগারের জেলার আমজাদ হোসেন ডন বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, কামরুল ডায়াবেটিস ও হৃদরোগসহ নানা রোগে আক্রান্ত ছিলেন। এরমধ্যে সাক্ষগ্রহণ চলাকালে তাকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। এক সপ্তাহ যাবৎ শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন তিনি।
শুক্রবার রাতে অসুস্থতা বাড়লে ভোর ৫টা ২০ মিনিটে তাকে কারাগার থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রিজন ওয়ার্ডে পাঠানো হয়। সেখানে সাড়ে ৫টার দিকে মারা যান কামরুল।

উল্লেখ্য, নগরীর তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন কামরুল। একই স্কুলে শিক্ষকতা করতেন নিহত বাবু সোনার স্ত্রী স্নিগ্ধা সরকার দীপা। দীপা ও কামরুল দু’জনেই বাবু সোনা হত্যা মামলার আসামি এবং আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন তারা।
গত ৩০ অক্টোবর থেকে এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। সর্বশেষ ৬ ও ৭ নভেম্বর মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ হয়। ওইসময় আদালতে হাজির করা হয় কামরুল ও দীপাকে।


About us

DHAKA TODAY is an Online News Portal. It brings you the latest news around the world 24 hours a day and 7 days in week. It focuses most on Dhaka (the capital of Bangladesh) but it reflects the views of the people of Bangladesh. DHAKA TODAY is committed to the people of Bangladesh; it also serves for millions of people around the world and meets their news thirst. DHAKA TODAY put its special focus to Bangladeshi Diaspora around the Globe.


CONTACT US

CALL US ANYTIME


Newsletter