খেলাধুলা Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

ishant-20190121213619.jpg

হাসি-কান্না মিলিয়েই ক্রীড়াবিদদের জীবন। আজ হাসবেন তো কাল কাঁদতে হবে না এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। কোন দিন জয়ীর হাসি কিংবা কোন দিন পরাজিতের গ্লানি সঙ্গী হবে তা বলতে পারে না কেউই। সাফল্যের পাশাপাশি ব্যর্থতাকে সত্য মেনে নিয়েই এগিয়ে যায় ক্রীড়াবিদদের জীবন।

কোন দিন খেলায় হেরে গেলে সে ম্যাচের দুঃখ বা হতাশা ঠিক কতদিন পোড়াতে পারে একজন খেলোয়াড়কে? কতদিনই বা অশ্রুসিক্ত হতে পারে একজন খেলোয়াড়ের চোখ? স্বাভাবিকভাবে হয়তো ৩-৪ দিন কিংবা বড়জোর এক সপ্তাহ তাড়িয়ে বেড়ায় সে গ্লানি।

কিন্তু ভারতের ৩০ বছর বয়সী পেসার ইশান্ত শর্মা নিজ দেশ ভারতকে এক ম্যাচে হারিয়ে কেঁদেছেন টানা ১৫ দিন। স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ তথ্য নিজেই জানিয়েছেন তিনি।

ঘটনা ২০১৩ সালের। পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল তখন অবস্থান করছে ভারতে। সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার সামনে ৩০৪ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছিল স্বাগতিকরা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪৭ ওভার শেষে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ উইকেট হারিয়ে ২৬০ রান।

ম্যাচ জিততে হলে শেষের ১৮ বল করতে হতো ৪৪ রান। অধিনায়ক ধোনি বোলিংয়ে ডাকেন তখনো পর্যন্ত ৭ ওভারে ৩৩ রান খরচ করা ইশান্ত শর্মাকে। কিন্তু সে ওভার করতে গিয়ে বিপত্তি বাঁধান ইশান্ত। অসি অলরাউন্ডার জেমস ফকনারের কাছে ৪টি ছক্কা ও ১টি চারের মারে মোট ৩০ রান দিয়ে বসেন তিনি।

৭ ওভার শেষে মাত্র ৩৩ রান খরচ করা ইশান্তের বোলিং ফিগার দাঁড়ায় ৮ ওভার শেষে ৬৩ রান। শেষপর্যন্ত ভারতও ম্যাচটি হেরে যায় ৪ উইকেটের ব্যবধানে। মাত্র ২৯ বলে ৬৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে দলকে জেতান ফকনার।

সে ম্যাচে ৪৮তম ওভারে দেয়া সেই ৩০ রানের কথা দীর্ঘদিন তাড়িয়ে বেড়িয়েছে ইশান্তকে। নিজ দেশকে হারানোর অনুতাপে টানা ১৫ দিন কেঁদেছেন তিনি। সে সময়ের কথা মনে করে ইশান্ত বলেন, ‘আমি শুধু একদিনই কান্না করিনি…অন্তত ১৫ দিন কেঁদেছি সেই ম্যাচের পর। আমি সবসময় ভালো করার জন্য দৃঢ়প্রত্যয়ী। আমি অন্য কাউকে দায়ী করে পালিয়ে বেড়ানোর মানুষ নই। সেদিন সবকিছু আমার বিপক্ষে গিয়েছিল। আমি ভারতের পক্ষে একটি ম্যাচ হেরে গিয়েছিলাম।’

সেসময় ইশান্তকে এমন অবস্থায় দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন তার স্ত্রী প্রতিমা সিংও। তিনি স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘আমি সেদিনের আগে কখনো তার (ইশান্ত) চোখ ভিজতেও দেখিনি। কিন্তু তখন সে রীতিমতো কাঁদছিল, আমি কখনো কল্পনাও করিনি এমন দৃশ্য দেখবো। আমি তাকে বোঝানোর চেষ্টা করছিলাম যে ক্রিকেটই জীবনের সব নয়। জীবন আরও অনেক বড়।’

ctgi.jpg

রবি ফ্রাইলিঙ্কের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে সোমবার (২১ জানুয়ারি) বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসকে এক বল হাতে রেখেই ৩ উইকেটে হারায় চিটাগং ভাইকিংস।এর আগেও ফ্রাইলিঙ্কের ব্যাট ও বলে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সেই সুপার ওভারেও জয় পায় চিটাগং।

১৪০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই উইকেট হারায় চিটাগং ভাইকিংস। দুই বল খেলে শূন্যরানে আন্দ্রে রাসেলের বলে শুভাগত হোমের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে ফেরেন আফগান উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শেহজাদ।

এই ধাক্কা বেশ ভালোভাবেই সামাল দেন ক্যামেরন ডেলপোর্ট। পরপর দুটি ছক্কা ও একটি চার হাঁকান শুভাগত হোমের এক ওভারে। পরের ওভারেও রাসেলের বলে হাঁকান আরও দুটি চার। কিন্তু সাকিব আল হাসানের মুখোমুখি হতে পারলেন না এক বলের বেশি। বল হাতে সাকিবের প্রথম বলেই বোল্ড হয়ে ফেরেন ডেলপোর্ট। তবে ফেরার আগে মাত্র ১২ বলে ৩০ রানের ঝকঝকে একটি ইনিংস খেলেন। যেখানে ছিল চারটি চার ও দুইটি ছক্কার মার।

নিজের করা দ্বিতীয় ওভারে সাকিব নেন নিজের দ্বিতীয় উইকেটটি। ইয়াসির আলীকে উইকেটের পেছনে কাজী নুরুল হাসান সোহানের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন সাকিব। আউট হয়ে ফেরার আগে ১৭ বলে ১৫ রান করেন ইয়াসির।

ধারাবাহিকতা ভাঙেননি সাকিব। ব্যক্তিগত তৃতীয় ওভারে নেন তৃতীয় উইকেট। ওভারের প্রথম বলেই ফেরান ৩ বলে ২ রান করা দাসুন শানাকাকে। চিটাগংয়ের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের চেষ্টাও বৃথা করে দেন ঢাকার ডানহাতি ফাস্ট বোলার রুবেল হোসেন। ২৩ বলে ২২ রান করা মুশফিককে সুনীল নারাইনের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন তিনি।

বাদ যায়নি সাকিবের চতুর্থ ওভারও। নিজের কোটার শেষ ওভারের পঞ্চম ওভারে তুলে নেন ১১ বলে ৪ রান করা নাঈম হাসানকে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে রান আউট হয়ে ফেরেন দলীয় সর্বোচ্চ ৩৩ রান করা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ডারুইস রাসোলির পাঠানো বলে রান আউট হয়ে ফেরার আগে ৩৯ বলে ৩৩ রান করে ফেরেন সৈকত। ম্যাচ অনেকটাই ঢাকার হাতে চলে গেলেও এক প্রকার ছিনিয়ে আনেন ফ্রাইলিঙ্ক। মাত্র ১০ বলে ২৫ রানের মহাগুরুত্বপূর্ণ এক ইনিংস খেলে দলকে এনে দেন ষষ্ঠ জয়। ফলে ৭ ম্যাচ খেলে ছয় জয় মুশফিকের দলের।

ঢাকার হয়ে একাই ৪ উইকেট তুলে নেন অধিনায়ক সাকিব। এছাড়াও একটি করে উইকেট নেন আন্দ্রে রাসেল ও রুবেল হোসেন।

এর আগে, চিটাগং ভাইকিংসের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং আর ব্যাটসম্যানদের মন্থর ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৩৯ রান সংগ্রহ করে ঢাকা ডায়নামাইটস।

সোমবার (২১ জানুয়ারি) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে ব্যাটিং বেছে নেওয়ার সিদ্ধান্ত বুমেরাং হয়ে আসে ঢাকা ডায়নামাইটসের জন্য। ইনিংসের প্রথম ওভারেই ওপেনার হারানো দিয়ে শুরু। এরপর ঢাকার ইনিংস এগিয়েছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে।

দলীয় শূন্য রানেই ওপেনার রনি তালুকদার চিটাগংয়ের পেস অলরাউন্ডার রোবি ফ্রাইলিঙ্কের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন। আরেক ওপেনার সুনীল নারাইনের ব্যাট থেকে আসে ৯ বলে ১৮ রান। তিনিও ফ্রাইলিঙ্কের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন।

বিপিএলের মাঝপথে ঢাকায় যোগ দেওয়া নতুন খেলোয়াড় হেইনো কুহন নিজের অভিষেক রাঙাতে ব্যর্থ হয়েছেন। আবু জায়েদের বলে বোল্ড হওয়ার আগে ২১ বল খেলে ৩ চারে ১৮ রান সংগ্রহ করেছেন এই তরুণ ব্যাটসম্যান। তার বিদায়ের পর কোনো রান যুক্ত না করেই বিদায় নেন ডরউইশ রাসোলিও।

৫৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলা দলকে টেনে নেওয়ার দায়িত্ব পড়ে অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের ওপর। ৩৪ বলে ৩৪ রান করে তার সেই চেষ্টা অবশ্য একেবারে বিফলে যায়নি। ডেলপোর্টের বলে ইয়াসির আলীর হাতে ক্যাচ দিয়ে তিনি যখন বিদায় নেন দলের স্কোর তখন ৯৫/৫।

এরপর বলার মতো রান এসেছে শুধু নুরুল হাসান ও শুভাগত হোমের ব্যাট থেকে। ১৮ বলে ৫ চারে ২৭ রান করেছেন নুরুল আর ১৫ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৯ রান করেছেন শুভাগত।

বল হাতে ৪ ওভারে ২৫ রান খরচ করে ৩ উইকেট তুলে নিয়েছেন চিটাগংয়ের ডেলপোর্ট। ২টি করে উইকেট পেয়েছেন ফ্রাইলিঙ্ক ও আবু জায়েদ। অন্য উইকেটটি পেসার খালেদ আহমেদের।

kaisar-hamid.jpg

নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার সাবেক ফুটবলার কায়সার হামিদ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, আমি নিজেও জানতাম না এই ধরনের একটি মামলা রয়েছে। যেটা ২০১৪ সালের। আপসও করে নেওয়া হয়েছিল। তারপরও একটা মামলা ছিল। আমি একটি কোম্পানিতে কাজ করতাম। সে কোম্পানিতে কাজ করা অবস্থায় কোম্পানির নামে মামলা হয়েছিল। কিন্তু কোম্পানির কাউকে খুঁজে পায় না দেখেই আমাকে অপদস্থ করা হয়েছে। আপনারা পত্রিকায় দেখেছেন। আমার জন্য দোয়া করবেন।

এছাড়া, এসব ঘটনা প্রকাশ করায় সংবাদমাধ্যমগুলোর ওপরও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জাতীয় দল ও মোহামেডানের এই সাবেক ফুটবলার।

কায়সার হামিদ বলেন, আসলে এটা কোনো বড় মামলা নয়। একজনে একটা মামলা দিয়েছে সাত লাখ টাকার। আরেকজন ২২। আমি কিছু বুঝলাম না এত অল্প কিছু টাকার জন্য মিডিয়াতে কেন ফলাও করে ছাপল। আমি এতে অবাক হয়ে যাই। এত হাজার কোটি টাকা মানুষ নেয়, তাদের কিছুই করা হয় না। কিন্তু সামান্য কিছু টাকা। আমি কোম্পানিতে কাজ করতাম পরামর্শক হিসেবে। কাজ করার সময় এই টাকাগুলো অপব্যবহার করে কোম্পানি। কিন্তু পুরোপুরি আমার ঘাড়ে এসে পড়ে।

প্রসঙ্গত, গত রোববার (২০ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোড থেকে কায়সার হামিদকে গ্রেফতার করা হয়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, আসামি কায়সার এজাহার নামীয় অন্য আসামিদের সহযোগিতায় ‘নিউওয়ে মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ’ নামে একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করে নিরীহ জনসাধারণকে অধিক মুনাফা দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে তাদের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। এরপর কোম্পানিটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। এই মামলার বাদীর কাছ থেকে ২২ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে তদন্তে প্রমাণ পাওয়া যায়। আসামি দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিল। আসামি জিজ্ঞাসাবাদে অভিযোগ স্বীকার করেন। এটি ছাড়াও এই আসামির বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশিদ শুনানি শেষে জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে তাকে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দিন সুষ্ঠু তদন্তসহ নানা কারণ দেখিয়ে আসামিকে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে রাখার আবেদন করেন।

আদালতে হাজির ছিলেন আসামির স্ত্রী শাহানাজ সুলতানা কায়সার। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, এই কোম্পানিটি ছিল শ্রীলঙ্কার। ওরা বাংলাদেশে এসে ব্যবসা শুরু করে। পরে কায়সারও এর সদস্য হন। ওই কোম্পানি নিজেরাই আমাদের টাকা নিয়ে চলে যায়। এছাড়া এ কোম্পানিতে আমাদের পরিবারের লোকজনের টাকাও আছে। আমাদের টাকাও আত্মসাৎ করেছে। এখানে কায়সারের কোনও সংশ্লিষ্টতা নেই।

hardik-p.jpg

কফি উইথ করণ-শোতে নারীদের নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে ভারতীয় দলের দুই ক্রিকেটার হার্দিক পাণ্ডিয়া এবং কেএল রাহুল। অনির্দিষ্টকালের জন্য তাদের নিষিদ্ধ করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। এবার তাদের সেই তদন্ত সুপ্রিম কোর্টে। পাণ্ডিয়া ও রাহুল কবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরবেন, তার কোনও ঠিক নেই।

এসবের মধ্যেই বোর্ডের কার্যকরী প্রেসিডেন্ট সিকে খান্না চিঠি লিখেছেন কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটরের কাছে। তার দাবি, তদন্ত যেমন চলছে চলুক, কিন্তু ক্রিকেটের বাইশ গজে খেলার সুযোগ দেওযা হোক হার্দিক, রাহুলকে।

কফি উইথ করণ শো-তে নারীদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জেরে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড পাণ্ডিয়া ও রাহুলকে আপাতত নির্বাসনে পাঠিয়েছে। শো-কজের জবাব দেওয়ার পাশাপাশি নিঃশর্ত ক্ষমাও চেয়েছেন দুই ক্রিকেটার। ইতিমধ্যে বোর্ডের সিইও রাহুল জোহরি দুই ক্রিকেটারের সঙ্গে ফোনে কথাও বলেছেন। অস্ট্রেলিয়ায় একদিনের সিরিজে খেলা হয়নি। পরিস্থিতি যা তাতে  নিউজিল্যান্ড সফরেও হয়তো খেলা হবে না পাণ্ডিয়া-রাহুলের।

বোর্ডের কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটরের কাছে আবেদন জানিয়ে এক চিঠিতে বোর্ডের কার্যকরী প্রেসিডেন্ট লিখেছেন, “ওরা ভুল করেছে। তার জন্য ওদেরকে নির্বাসনেও পাঠানো হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া থেকে সিরিজ না খেলে দেশে ডেকে আনা হয়েছে। ইতিমধ্যেই তারা নিঃশর্ত ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছে বোর্ডের কাছে।”

এরপর তিনি আরও লেখেন, ” আমার মনে হয়, তদন্ত যেমন চলছে সেই রকম চলুক। কিন্তু ক্রিকেটে দুজনকে ফিরিয়ে নেওয়া হোক। দু’জনকেই যত দ্রুত সম্ভব নিউজিল্যান্ড সফরে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হোক।”

হার্দিকরা যে মন্তব্য করেছেন ওই শো-তে গিয়ে সেটা কোনভাবেই মেনে নেওয়া যাওয়া যায় না। কিন্তু বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে উঠতি ক্রিকেটারদের ভুল শুধরে দ্রুত সুযোগ দেওয়া উচিৎ বলেই মনে করেন সিকে খান্না।

amla.jpg

বিশ্বের দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডে ক্রিকেটে ২৭টি শতরানের নজির গড়লেন হাসিম আমলা। ইনিংসের হিসাবে ভাঙলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির রেকর্ড। কিন্তু দলের জয়ই শেষ কথা। তাই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দক্ষিন আফ্রিকা সিরিজের প্রথম ম্যাচ হেরে বসায় প্রশ্নের মুখে আমলার মন্থর ব্যাটিং।

শনিবার পোর্ট এলিজাবেথে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে মুখোমুখি হয় দক্ষিণ আফ্রিকা-পাকিস্তান। টেস্ট সিরিজে পাক দলকে ক্লিন সুইপ করার পর নজর ছিল প্রথম ওয়ানডে’র দিকে। প্রথম ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২ উইকেটে ২৬৭ রান তোলে দক্ষিণ আফ্রিকা। যার মধ্যে ওপেনে নেমে আমলার অবদান ১২০ বলে অপরাজিত ১০৮ রান। ওয়ান ডে ক্রিকেটে ১৬৭ ইনিংসে এদিন ২৭ তম সেঞ্চুরিটি তুলে নেন এই প্রোটিয়া ওপেনার। একইসঙ্গে টপকে যানবিরাট কোহলিকে। তবে কাজে আসেনি আমলার সেঞ্চুরি। পাঁচ বল বাকি থাকতে রান তাড়া করে ম্যাচ জিতে নেয় পাকিস্তান।

উল্লেখ্য, ওয়ানডে ক্রিকেটে ২৭ তম সেঞ্চুরি করতে বিরাট নিয়েছিলেন ১৬৯ ইনিংস। অর্থাৎ দু’ইনিংস কম খেলেই দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে ২৭টি সেঞ্চুরি ছোঁয়ার নজির এদিন স্পর্শ করেন আমলা। প্রথম উইকেটে হেনড্রিকসের সঙ্গে ৮২ রান তোলার পর মিডল ওভারে ভ্যান ডার ডাসেনের সঙ্গে জুটি বাঁধেন আমলা। ৪৬.১ ওভারে শতরান থেকে সাত রান দূরে দাঁড়িয়ে যখন আউট হন ডাসেন, স্কোরবোর্ডে তখন দক্ষিণ আফ্রিকার রান ২৩৭। দ্বিতীয় উইকেটে লম্বা পার্টনারশিপে ১৭১ বলে ১৫৫ রান যোগ করেন আমলা-ডাসেন জুটি।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৫ উইকেটে ম্যাচ হারের পর আমলার সেঞ্চুরিকে বাহবা জানালেও মিডল ওভারে দুই ব্যাটসম্যানের মন্থর ব্যাটিং নিয়ে সরব হন অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি। স্লো ওভার রেটের কারণে শেষ টেস্টে নির্বাসিত হয়েছিলেন যিনি। ফাফ জানান, ‘দুজনে দুরন্ত ব্যাট করেছে। তবে পাক বোলারদের প্রতি আরেকটু নির্দয় হলে আরও ১৫-২০ রান যোগ হতে পারত দলের খাতায়।’ একইসঙ্গে মিডল ওভারে দুই ব্যাটসম্যানকে সেভাবে হাত খুলতে না দেওয়ায় পাক বোলারদেরও তারিফ করেন প্রোটিয়া অধিনায়ক।

মন্থর ব্যাটিং ছাড়াও ১৫ মাস পর আমলার এই শতরান উল্লেখযোগ্য হয়ে রইল আরও একটি কারণে। প্রথমবার ওয়ানডে ক্রিকেটে আমলা শতরান করার পরও ম্যাচ হারতে হল দক্ষিণ আফ্রিকাকে। সবমিলিয়ে শনিবার পোর্ট এলিজাবেথে নজির গড়াটা সুখের হল না প্রোটিয়া ওপেনারের। তবে আমলার জন্য অপেক্ষা করছে আরও একটি নজির। পরবর্তী সাত ইনিংস থেকে ১৯৬ রান সংগ্রহ করতে পারলেই দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডে ক্রিকেটে ৮,০০০ রানের মালিক হবেন আমলা।

advill.png

দক্ষিণ আফ্রিকার তারকা ক্রিকেটার এবি ডি ভিলিয়ার্স বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের জার্সিতে খেলেতে এখন ঢাকায়। রংপুর রাইডার্সের জার্সিতে খেলেতে নেমেই দলকে দারুণ জয় এনে দিয়েছেন এবি।

ভিলিয়ার্সের স্ত্রী ড্যানিয়েল ডি ভিলিয়ার্সের মন খারাপ স্বামীর বৈদেশ ভ্রমণে । সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেয়া এক পোস্টে ভিলিয়ার্সের স্ত্রী জানিয়েছেন, তিনি স্বামীকে ছাড়া এক মুহূর্ত থাকতে পারছেন না। স্বামীকে খুব মিস করছেন।

ইনস্টাগ্রামে আবেগঘন একটি পোস্টে ভিলিয়ার্সের স্ত্রী লিখেছেন- ‘দুদিন আগে তুমি গেলে। দীর্ঘদিন পর এটি তোমার প্রথমবারের মতো লম্বা ট্যুর। তুমি হয়তো ভাবতে পারো, আমি এটির সঙ্গে অভ্যস্ত।

কিন্তু ছোট দুই বাচ্চাকে নিয়ে জীবনটা এখন অন্যরকম। তারা প্রত্যেক সকালে ঘুম থেকে উঠে দুটো শব্দ করে- বাবা কোথায়? আমরা তিনজন ধীরে ধীরে আমাদের নতুন রুটিনের সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে যাচ্ছি।’

এই স্ট্যাটাসের নিচে ভিলিয়ার্সের সঙ্গে নিজের একটি অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবিও দিয়েছেন ড্যানিয়েল। যা এখন ইন্টারনেট দুনিয়ায় ভাইরাল।

স্ট্যাটাসে ড্যানিয়েল আরও লিখেন- ‘তোমাকে আমি পাগলের মতো মিস করছি। তুমি আমাদের জন্য যা করেছ, তার জন্য আমরা খুবই কৃতজ্ঞ। তুমি না ফেরা পর্যন্ত নির্ঘুম রাত গণনা করছি।’

mash-sumi.jpg

নির্বাচন নিয়ে কিছুদিন ব্যস্ত থাকার পর নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা ফিরেছেন। এখন তার ব্যস্ততা বিপিএল নিয়েয়ে। এবারের টুর্নামেন্টে তিনি নেতৃত্ব দিচ্ছেন রংপুর রাইডার্সের।

শনিবারের খেলায় সিলেটকে হারিয়ে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই আছেন মাশরাফি। আর তাই তো সহধর্মিনী সুমনা হক সুমিকে সময় দেন।

মাশরাফি সুমিকে নিয়ে বাইক চালিয়ে সেলফিতে ব্যস্ত ছিলেন। আর সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করেন মাশরাফির সহধর্মিনী সুমনা হক সুমির আইডিতে। ছবিটির ক্যাপশনে সুমি লিখেছেন, লাভলি ওয়েদার।

রোববার সন্ধ্যায় আপকরা তিনটি ছবি ফেসবুকে মাশরাফি ভক্তরা শেয়ার করছেন। এরই মধ্যে এসব ছবি ভাইরাল হয়ে গেছে।

hardik.jpg

হার্দিক পাণ্ড্যকে নিয়ে উদ্ভুত বিতর্কে এবার মুখ খুললেন ভারতীয় অলরাউন্ডারের প্রাক্তন প্রেমিকা এল্লি আভ্রাম।করন জোহরের টক শো ‘কফি উইথ করন’-এর র‌্যাপিড ফায়ার রাউন্ডে এসে পান্ডে তাঁর প্রথম যৌনতার বিষয়ে মুখ খুলেছিলেন। প্রথমবার যৌনক্রিয়া করার পরে হার্দিক তাঁর বাবা-মা’কে জানিয়েছিলেন,আজ ম্যায় কর কে আয়া। এমন মন্তব্যকে কার্যত নারীবিদ্বেষী বলেই ধরা হচ্ছে। সেই ঘটনার পরেই সোশ্যাল মিডিয়া-সহ সমাজের বিভিন্ন প্রান্তে আলোচনা শুরু হয়।

ভুল বুঝতে পেরেই হার্দিক নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ক্ষমা চেয়ে নেন। আত্মপক্ষ সমর্থন করে তারকা ক্রিকেটার জানান, কফি উইথ করন-তে নিজের মতামত ব্যক্ত করার পরে যদি কেউ আঘাত পেয়ে থাকেন, তাহলে ক্ষমাপ্রার্থনা করছি।

এতদিন বাদে এবার এলি আভ্রাম মুখ খুললেন। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে পান্ডে প্রসঙ্গে আভ্রাম বলেছেন, যে মানুষটাকে আমি চিনতাম, জানতাম, সেই মানুষটা মোটেও এমন ছিল না। হার্দিক যে সময়ে এমন মন্তব্য করেছিল, আমি সেই সময়ে দেশে ছিলাম না। অনেকেই আমাকে ফোন করে প্রতিক্রিয়া জানতে চেয়েছিল। কিন্তু আমি এবিষয়ে কিছুই জানতাম না। এর পরে আমি টক শোয়ের কিছু ভিডিও দেখি। ভিডিওগুলো দেখার পরে আমার মনে হয়েছে এটা অত্যন্ত হতাশাজনক। আমি তো সব দেখেশুনে থ মেরে গিয়েছি।এবার প্রাক্তন প্রেমিকাও সরে গেলেন পান্ডের পাশ থেকে।

rohit4.jpg

সদ্য বাবা হয়েছেন রোহিত শর্মা। এবার সামনে এল তার পুরনো প্রেমের খবর। সাত বছর আগে সোফিয়া হায়াত ও রোহিত শর্মার মধ্যে একটা মধুর সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। দ্রুতই সেই সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়। সূত্র: এবেলা।

কিন্তু সোফিয়া এখনও হয়তো ভুলতে পারেননি রোহিতকে। তাই সোফিয়া ফিরে যাচ্ছেন তাদের পুরনো প্রেম, প্রথম দেখা, প্রথম চুম্বনের দিনগুলোতে।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে সোফিয়া স্মৃতি রোমন্থন করে বলেন, লন্ডনের একটি ক্লাবে রোহিতের সঙ্গে আমার প্রথম সাক্ষাৎ হয়েছিল। আমি নাচছিলাম, তখনই মুভি সেটের এক বন্ধু আমার সঙ্গে রোহিতের পরিচয় করিয়ে দেয়। সেই বন্ধু আমাকে বলে, এই হল রোহিত শর্মা। আমি সত্যি সত্যিই রোহিতকে চিনতাম না। কারণ আমি ক্রিকেট খুব একটা দেখতাম না। প্রাথমিক সাক্ষাতের পরে আমরা একে অপরের সঙ্গে কথা বলছিলাম। তার পরে ক্লাবের অপেক্ষাকৃত ফাঁকা জায়গায় চলে যাই। রোহিত আমাকে চুম্বন করে। তার পরে আমরা এক সঙ্গে নেচেছিলাম।

সোফিয়া অকপট। রোহিতের কানে এসব কথা পৌঁছেছে কি না জানা নেই। মুম্বাইকর সোফিয়ার সাক্ষাৎকারের প্রসঙ্গে একটি মন্তব্যও করেননি। রোহিতের জীবন থেকে হয়তো মুছে গিয়েছেন সোফিয়া।

এখানেই শেষ নয়, সোফিয়া আরও বলেন, রোহিত খুব মিষ্টি একটা ছেলে। আমরা একে অপরের সান্নিধ্য পছন্দ করতাম। ভাল না খেললে সমর্থকরা কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখান, সেই ব্যাপারে আমরা অনেক কথাবার্তাও বলি। মিডিয়া আমাদের ব্যাপারে জানতে পেরে গিয়েছিল। কারণ হোটেলে ও ঘরে আমাদের একসঙ্গে দেখা যেত প্রায়ই। আমার মনে হয় কেউ মিডিয়াকে আমাদের ব্যাপারে বলে দিয়েছিল। আমাদের নিয়ে মিডিয়ায় চর্চা হচ্ছে সেটা আমার ম্যানেজারই আমাকে জানিয়েছিলেন। কিন্ত আমি আমার ম্যানেজারকে জানিয়েছিলাম, আমি সবার সামনে এবিষয়ে একটি মন্তব্যও করবো না। কারণ আমি এই সম্পর্কটাকে সম্মান করি।

সেই সম্পর্ক এখন চুকেবুকে গিয়েছে। সোফিয়া এখনও তাদের পুরনো প্রেম, ভালবাসা ভুলতে পারেননি।

federar.jpg

দারুন ফর্মে ছিলেন রজার ফেদেরার। কোনো বাঁধা ছাড়াই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শেষ ষোলতে জায়গা করে নিয়েছিলেন। কেউ বোধহয় ভাবতে পারেননি এখান থেকেই বিদায় নিতে হবে ফেদেরারকে। রোববার তাঁকে হারিয়ে দিয়ে বড় অঘটনই ঘটিয়েছেন গ্রিসের স্তেফানোস সিসিপাসে।

এখনো অবধি অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে ফেদেরার জিতেছেন ছয়বার। সেই সুইস তারকাকে কি না মেলবোর্ন পার্কের রড লেভার অ্যারেনায় ৬-৭, ৭-৬, ৭-৫, ৭-৬ গেমে হারালেন অখ্যাত সিসিপাসে। চতুর্দশ বাছাইয়ের কাছে হেরে বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম থেকে বিদায় নিয়েছেন রেকর্ড ২০ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক।

সত্যিকার অর্থেই বড় অঘটন দেখল টেনিস বিশ্ব। গ্রিসের প্রথম কোনো খেলোয়াড় হিসেবে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছেন সিসিপাসে। তবে ম্যাচটা জিততে বেশ কষ্ট করতে হয়েছে ২০ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়কে। তিন ঘণ্টা ৪৫ মিনিটের লড়াই শেষে হতাশা নিয়েই ফিরলেন ফেদেরার।

এই পরাজয় ফেদেরারের জন্য বিস্ময়কর। কারণ গত ১৬ বছরে এবার নিয়ে মাত্র দ্বিতীয়বার বছরের প্রথম এই গ্র্যান্ড স্ল্যামের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে পারলেন না তিনি। ২০ বছর বয়সীর কাছে হেরে গেলেন ৩৭ পেরিয়ে যাওয়া ফেদেরার। পুরুষ এককের কোয়ার্টার ফাইনালে স্পেনের রবের্তো বাউতিস্তার বিপক্ষে লড়বেন সিসিপাসে।

এদিকে, কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে তেমন বেগ পেতে হয়নি আরেক ফেভারিট রাফায়েল নাদালের। রোববারের আরেক ম্রাচে চেক রিপাবলিকের টমাস বের্দিচকে ৬-০, ৬-১, ৭-৬ গেমে হারালেন এই স্প্যানিয়ার্ড। ১৭টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী সেমিতে উঠার লড়াইয়ে খেলবেন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রান্সেস টিয়াফোর সঙ্গে।