ক্রিকেট Archives - Page 2 of 177 - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

ball6g.jpg

আজিঙ্কে রাহানের এই ছবি এখন ভাইরাল।নিজেই এই ছবি পোস্ট করেছেন ভারতীয় টেস্ট দলের সহ অধিনায়ক। সেই সঙ্গে টুইট করে রাহানে লিখেছেন, স্বপ্ন দেখছি ঐতিহাসিক গোলাপি বলের টেস্ট খেলার।

শুক্রবার ইডেনে দিবারাত্রির টেস্টে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ওই দিন কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে ঐতিহ্যবাহী ঘণ্টা বাজিয়ে গোলাটি টেস্টের উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই টেস্ট দিয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ও ভারত গোলাপি-যুগে প্রবেশ করবে। তাইতো আয়োজক দেশটি চায় ম্যাচটা স্মরণীয় করে রাখতে। সেজন্য নানামুখী আয়োজন হাতে নিয়েছে তারা। তবে সবার মতো খেলোয়াড়রাও বেশ রোমাঞ্চিত। ঐতিহাসিক টেস্টে যেন নাম উঠানোর ক্ষণই গুনছেন ক্রিকেটাররা।

আর ম্যাচকে ঘিরে আয়োজনের কমতি রাখেনি ভারতও। বিশেষ পোশাক, ট্রফিতে নতুনত্ব, গোলাপি টিকিট, বেলুন থেকে শুরু করে সোনার মুদ্রা ও হিরার স্বারকের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। পাশাপাশি অতিথিদের জন্য বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা তো থাকবেই এবং পুরো গ্যালারিকে গোলাপি ঢঙে সাজানো হবে।

coachbd.jpg

২২ নভেম্বর থেকে শুরু গোলাপি টেস্ট। তার আগে বাংলাদেশ দল তাদের রণকৌশল ঠিক করতে মরিয়া। এরইমধ্যে কলকাতায় পুরোদমে অনুশীলন শুরু করেছেন মুশফিকরা। তবে প্রথম টেস্টের বাজে হার নিয়ে অনেকে কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে তুলছেন কাঠগড়ায়। পেসার আল-আমিন হোসেন অবশ্য এটা মানতে নারাজ। তার কথায় মনে হলো কোচের আর কিছু করার নেই!

‘কোচ তো খাইয়ে দেবে না। আমাদের যে কাজ বা প্রক্রিয়াটা দেখিয়ে দেবেন, আমরা সেটা নিয়ে অনুশীলনে কাজ করব। ওখানেও কিন্তু সব ঠিকঠাক হচ্ছে। মাঠে চাপ থাকবে সব থাকবে কিন্তু কাজটা আমাদের। ভালো করার দায়িত্ব আমাদের। অনুশীলন যেমন ভালো হচ্ছে, সেটা মাঠের খেলাতেও দেখাতে হবে।’

ইডেনে প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্টে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ওই ম্যাচ নিয়ে কঠিন পরীক্ষারও ইঙ্গিতই দিলেন আল আমিন হোসেন। গোলাপি বলে এর আগে বাংলাদেশ কখনো খেলেনি। যেটা হতে পারে নতুন চ্যালেঞ্জ। তবে ভারতের ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রম হবে না মানছেন আল আমিন, ‘ভিন্ন তো অবশ্যই। আমরা গোলাপি বলে খেলিনি কখনো। সাদা বলে খেলেছি, লাল বলেও খেলেছি। গোলাপি বলটা সবার জন্যই নতুন। একটু ভিন্নভাবে তৈরি। সবার জন্যই প্রতিবন্ধকতা হবে। বল ভিজে গেলে আমাদের জন্যও ভেজা থাকবে, ভারতের জন্যও ভেজা থাকবে। ওদের ব্যাটসম্যানদেরও অসুবিধা হবে, আমাদের ব্যাটসম্যানদেরও হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত ম্যাচে যা হয়েছে এসব নিয়ে ভাবলে তো সামনে আগানো কঠিন। কলকাতায় দলগতভাবে ভালো করার চেষ্টা থাকবে। ঐতিহাসিক একটা টেস্ট। সবাই উন্মুখ হয়ে আছি। ভারতও অপরিচিত, আমরাও অপরিচিত। সেই হিসেবে চ্যালেঞ্জিং ম্যাচ হবে।’

এ দিকে ম্যাচটা নিয়ে চিন্তার কারণ শিশির। এজন্য ইডেন টেস্টের সময় পরিবর্তন করে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। কলকাতার ইডেন গার্ডেনে অনুষ্ঠিত এই দিবা-রাত্রির ম্যাচটি শুরু হওয়ার কথা ছিল দুপুর ১.৩০টায়। তার বদলে প্রতিদিনের খেলা ১টায় শুরু হবে।

cricwx.jpg

খেলার মাঠে ক্রিকেটারের গুরুতর আহত কিংবা মৃত্যুর ঘটনা এ প্রথম নয়। তবে রোববার হায়দরাবাদের এক ক্রিকেটারের মৃত্যুর ঘটনায় স্তম্ভিত ভারতীয় ক্রিকেটমহল থেকে গোটা দুনিয়ার ক্রিকেটপ্রেমীরা। মাঠে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অখুশি হয়ে ড্রেসিংরুমে ফিরে মৃত্যু হয়েছে আলোচিত ক্রিকেটার বীরেন্দ্র নায়েকের। তার বয়স হয়েছিল ৪১ বছর।

এদিন মারদপল্লী স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে স্থানীয় ওয়ানডে লিগে মাঠে নামেন বীরেন্দ্র। ব্যাট হাতে ঝকঝকে ৬৬ রানের ইনিংসও খেলেন তিনি। কিন্তু এর পর এমনকি ঘটল? যে জন্য মাত্র একচল্লিশেই ঝরে যেতে হলো তরতাজা প্রাণকে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, অর্ধশত রান করলেও আম্পায়ারের একটি ভুল সিদ্ধান্তের কারণে প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় বীরেন্দ্রকে। যে কারণে খুশি হতে পারেননি তিনি। ড্রেসিংরুমে ফিরেই হার্টঅ্যাটাক হয় তার। এর পর মাটিতে লুটিয়ে পড়েন ক্রিকেটার। সঙ্গে সঙ্গে তাকে গাড়িতে করে সেকেন্দ্রাবাদ হাসপাতালে নিয়ে যান সতীর্থরা। সেখানেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি।

ক্রিকেটারের পরিবার জানায়, হৃদযন্ত্রে বরাবরই সমস্যা ছিল বীরেন্দ্রর। এ জন্য নিয়মিত ওষুধও খেতেন তিনি। খেলার দিন আউট হওয়ার পর আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে ভীষণ হতাশ হয়ে পড়েন ক্রিকেটার। এতে তার হৃদযন্ত্র বিকল হয়ে যায়।

সতীর্থরা জানান, ড্রেসিংরুমে প্রবেশ করে প্রথমে একরাশ হতাশাও ছুড়ে দেন বীরেন্দ্র। এর পরই তার হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়।

তবে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে নাখোশ হয়ে এমন মৃত্যুর ঘটনা ক্রিকেটবিশ্বে বিরল। এটি বলার অপেক্ষাও রাখে না। পাশাপাশি প্রশ্ন উঠছে- হৃদযন্ত্রে সমস্যা নিয়েও এভাবে ক্রিকেট চালিয়ে যাওয়াটা কতটা যুক্তিসঙ্গত ছিল? তাই আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অখুশি হয়েই মৃত্যু নাকি পেছনে অন্য কোনো শারীরিক সমস্যা রয়েছে, প্রশ্ন দানা বাঁধছে।

sahaat333.jpg

সময় গেলে সাধন হয় না-ফকির লালন সাঁইকে বোধ হয় বড় বেশি মনে পড়বে শাহাদাত হোসেন রাজীবের। কারাগার ঘুরেও যার শিক্ষা হলো না, তার জন্য এ জাতির নুন্যতম মায়া থাকবে কি-না কে জানে?

ক্রিকেট যার রুজি-রুটির একমাত্র মাধ্যম, ওই ক্রিকেট ট্যাগটা অন্তরে মেরে মাঠে মারামারি করবেন একজন ক্রিকেটার, এটা কারোই কাম্য না। যেটা শাহাদাত করে দেখালেন। তাতে শাস্তি যে নিশ্চিত ছিল এটা হয়তো তিনি নিজেও টের পেয়েছেন। তাইতো মারধরের কাজটা সেরে চেয়েছেন ক্ষমাও।

সতীর্থ আরাফাত সানি জুনিয়রকে মারার আগে যদি একবারও ভাববেন শাস্তির কথা, তাহলে হয়তো বাংলাদেশ ক্রিকেটে আরেকটা দাগ কমই পড়ত! এখন আবার বলছেন কিভাবে চলবেন, কী করে খাবেন, কিভাবে সংসার চালাবেন। শাহাদাতের কন্ঠে, ‘ভাই জাতীয় দলে নেই, বিপিএলেও দল পাইনি। ঘরোয়া ক্রিকেট দিয়েই সংসার চালাই। কিন্তু এখন যে কী করমু। আমি ভুল করে ফেলেছি ভাই।’

সব কান্নায় যে লাভ নেই। ৫ বছর শাহাদাতকে নিষেধাজ্ঞার দেয়ালে বন্ধী থাকতে হবে। অবশ্য অপরাধের মাত্রা এবং অপরাধীর অপরাধ স্বীকারের উপর ভিত্তি করে দুই বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বিসিবি। সেক্ষেত্রে আগামী তিন বছর বিসিবির অধীনে কোনো ক্রিকেটীয় কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারবেন না শাহাদাত। পাশাপাশি তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে এই পেসারকে। তবে ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত এই শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগটা রেখেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

ঘটনাটি জাতীয় ক্রিকেট লিগের ফাইনাল রাউন্ডের দ্বিতীয় দিনের। যার সূত্রপাত বল ঘষা নিয়ে। বোলার শহীদের হাতে বল দেয়ার আগে রাজীব আরাফাত সানিকে বলেন, বল ঘষে দিতে। কিন্তু, সানি তা করতে অস্বীকৃতি জানান। তখন কথা কাটাকাটি হয় দু’জনের। এক পর্যায়ে আরাফাত সানির গায়ে হাত তোলেন শাহাদাত। ম্যাচ রেফারি আখতার আহমেদ তার রিপোর্টে এভাবেই ঘটনাক্রম উল্লেখ করেন। শাহাদাতের বিরুদ্ধে আচরণবিধির লেভেল ৪ ভাঙার অভিযোগ আনেন রেফারি। যা অত্যন্ত গুরুতর। শেষমেশ বড় শাস্তিই পেলেন তিনি।

শাহাদাতকে ঘিরে এমন বিতর্কিত ঘটনা নতুন নয়। গত বছর মিরপুর রোডে এক সিএনজি ড্রাইভারের সঙ্গে মারামারি করেও খবরের শিরোনাম হয়েছিলেন শাহাদাত। এরপর তিনি সেই সিএনজি ড্রাইভারের সঙ্গে দেখা করে তার কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন। এর ফলে নিশ্চিত থানা-পুলিশ থেকে বেঁচে যান তিনি। কিন্তু এবার আর রক্ষা হলো না।

২০১৫ সালে গৃহকর্মীকে মারধরের অপরাধে কারাভোগের সাজা হলে তাকে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা দেয় বিসিবি। এরপর থেকে তিনি আর দলে ফেরার সুযোগ পাননি। বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে ৩৮টি টেস্ট, ৫১টি একদিনের আন্তর্জাতিক এবং ৬ টি২০ ম্যাচে অংশ নিয়েছেন শাহাদাত।

tamim-iqbal-l-20190406200351.jpg

জাতীয় ক্রিকেট দলের ওপেনার তামিম ইকবাল কন্যা সন্তানের বাবা হয়েছেন। মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের দ্বিতীয় সন্তান হওয়ার খবর তামিম নিজেই জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার সকালে তামিম তার ফেসবুক ভ্যারিফায়েড অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট দিয়েছেন। সেখানে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালের কার্ডে লেখা ‘ হ্যালো আই অ্যাম অ্য গার্ল’। এর ঠিক নিচেই লেখা মিস আলিশবা ইকবাল খান।

পারিবারিক কারণ দেখিয়ে ভারত সফর থেকে ছুটি নিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। মূলত সন্তান সম্ভবা স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকার পাশে থাকতেই ভারত সফরে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি।

২০১৬ সালে পুত্র সন্তানের বাবা হয়েছিলেন তামিম। তার ছেলের নাম আরহাম ইকবাল।

mushfiqxcc.jpg

ক্রিকেটের পাশাপাশি পড়াশুনাও চালিয়ে যাচ্ছেন নিয়মিত। বর্তমানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্রিকেট নিয়ে এমফিলও করছেন মুশফিকুর রহিম।

এরইমধ্যে প্রথম পর্বে উত্তীর্ণও হয়েছেন তিনি। আর একটি পর্বে উত্তীর্ণ হতে পারলে মুশফিকের এমফিল সম্পন্ন হবে। এরপর এগোতে পারবেন পিএইচডির পথে।

এ দিকে এমফিলে মুশফিকের বিষয়টিও তার পেশা অর্থাৎ ক্রিকেট সম্পর্কিত। দক্ষিণ এশিয়ার ক্রিকেট ও বাংলাদেশ- এই বিষয়ে এমফিল করছেন বাংলাদেশ দলের এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার।

এর আগে ইতিহাস বিষয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করেন মুশফিকুর রহিম। চার বছর আগে মাস্টার্স শেষ হয় তার। যেখানে মুশফিকের রেজাল্টও ছিল ভালো। স্নাতকোত্তরে ১ম শ্রেণী পেয়ে উত্তীর্ণ হন এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান।

mashrafe3.jpg

নিছক ক্রিকেটার হয়ে যাচ্ছেন না তিনি। বরং মাশরাফি বিন মুর্তজা গোলাপি ইতিহাসে সামিল হতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হয়ে। কেবল ক্রিকেটার নয়, একজন সাংসদও মাশরাফি। নিজের জন্মস্থান নড়াইল থেকে নির্বাচিত হন তিনি। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের ওয়ানডে দলনেতা ইডেনে পা রাখবেন সাংসদের জার্সি পরেই।

এমনিতে ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলা বাংলাদেশ টিমের সব ক্রিকেটারদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ইডেনে। যে টিমে মাশরাফি ছিলেন না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যে প্রতিনিধি দল আসছে, তাতে রাজনীতি জগতের অনেকেই আসছেন। মাশরাফি তাদেরই এক জন।

মাশরাফির সঙ্গে ইডেনের একটা আত্মিক সম্পর্কও রয়েছে। দশ বছর আগে আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলেছিলেন তিনি। তবে মাশরাফি এলেও বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট ম্যাচের একমাত্র সেঞ্চুরিয়ন আমিনুল ইসলামকে হয়তো দেখা যাবে না ইডেনে। তিনি থাকেন অস্ট্রেলিয়ায়। ব্যক্তিগত কারণে কলকাতায় আসতে পারবেন না আমিনুল।

এ দিকে যতদূর শোনা যাচ্ছে, মাশরাফিকে নাকি গোলাপি টেস্টে বাংলায় ধারাভাষ্যকার হিসেবে কাজ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তিনি সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। তবে অতিথি ধারাভাষ্যকার হিসেবে ইডেনের স্টুডিয়োতে দেখা যেতে পারে বাংলাদেশ দলের সফল অধিনায়ককে।

যা খবর, টেস্টের আগের দিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবারই সপরিবারে কলকাতায় যাচ্ছেন মাশরাফি। থাকবেন টেস্টের দ্বিতীয় বা তৃতীয় দিন পর্যন্ত। ক্রিকেট থেকে পুরোপুরি সরে না গেলেও রাজনীতির ময়দানেই এখন দিনের অনেকটা সময় কাটে মাশরাফির। মিরপুরে একটি অফিসও রয়েছে মাশরাফির।

উল্লেখ্য, ২২ নভেম্বর ইডেনে প্রথমবারের মতো দিবারাত্রির টেস্টে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ওই দিন কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে ঐতিহ্যবাহী ঘণ্টা বাজিয়ে গোলাটি টেস্টের উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ ছাড়া ওই ম্যাচকে ঘিরে আরও নানামুখী আয়োজন হাতে নিয়েছে আয়োজক দেশটি।

nannu3s.jpg

ম্যাচ চলাকালে সতীর্থ আরাফাত সানি জুনিয়রকে মারধরের দায়ে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব। একই সঙ্গে তাকে তিন লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির এক সভায় শাহাদাতের অপরাধ বিচার-বিবেচনা করে এই শাস্তি দেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

সভাশেষে বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানান, আগামী ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত এই শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ পাচ্ছেন শাহাদাত।

পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞার প্রথম তিন বছর শাহাদাত কোনো ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন না। আর শেষ দুই বছর থাকছে স্থগিত নিষেধাজ্ঞা। অর্থাৎ প্রথম তিন বছরে এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটালে পরের দুই বছরও তাকে ক্রিকেট থেকে নির্বাসনে থাকতে হবে। আর যদি না ঘটান তাহলে বিসিবি চাইলে তিন বছর পরে আবারও ফিরতে পারবেন ক্রিকেটে।

সংবাদ সম্মেলনে নান্নু বলেন, খেলা চলাকালীন সতীর্থ বা অন্য কারো গায়ে হাত তোলা আচরণবিধির লেভেল ৪ ভঙ্গ করার অপরাধ। এই ধারা ভঙ্গ করলে সর্বনিম্ন ১ বছর থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত নিষিদ্ধ করার বিধান রয়েছে। শাহাদাতের অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় এনেই এই শাস্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, শাহাদাতের আগেও শৃঙ্খলাভঙ্গের ইতিহাস ছিল, সেটাকে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। মাঠের মধ্যে সতীর্থের গায়ে হাত তোলা, এটা তো গুরুতর অপরাধ। টেকনিক্যাল কমিটির সবাই তার এই শাস্তির ব্যাপারে একমত হয়েছে। আমরা আশা করছি, অন্য ক্রিকেটারদের জন্যও এটা একটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। যেকোনো ক্রিকেটারের জন্যই এটা একটা খারাপ ব্যাপার যে, সে বারবার এরকম অপ্রীতিকর ঘটনায় জড়াচ্ছে। শৃঙ্খলার ক্ষেত্রে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না, এই বার্তাটা আমরা সবাইকে দিতে চাই।

এর আগে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতনের দায়ে জেল থেকে ফিরেও সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন শাহাদাত। জেলে যাওয়ার কারণে ওই সময়ে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে তাকে নিষিদ্ধ করেছিল বিসিবি। পরে তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জীবিকার কথা ভেবে আবার ক্রিকেটে ফেরার অনুমতি দিয়েছিল বিসিবি।

sahadat3.jpg

ম্যাচ চলাকালে সতীর্থ আরাফাত সানি জুনিয়রকে মারধরের দায়ে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব। মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) তার অপরাধ বিচার-বিবেচনা করে এই শাস্তি দিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

জাতীয় লিগের ফাইনাল রাউন্ডের দ্বিতীয় দিনের ঘটনা এটি। যার সূত্রপাত বল ঘষা নিয়ে। বোলার শহীদের হাতে বল দেয়ার আগে রাজীব আরাফাত সানিকে বলেন, বল ঘষে দিতে। কিন্তু, সানি তা করতে অস্বীকৃতি জানান। তখন কথা কাটাকাটি হয় দু’জনের।

এক পর্যায়ে আরাফাত সানির গায়ে হাত তোলেন শাহাদাত। ম্যাচ রেফারি আখতার আহমেদ তার রিপোর্টে এভাবেই ঘটনাক্রম উল্লেখ করেন। শাহাদাতের বিরুদ্ধে আচরণবিধির লেভেল ৪ ভাঙার অভিযোগ আনেন রেফারি। যা অত্যন্ত গুরুতর। শেষমেশ বড় শাস্তিই পেলেন তিনি।

শাহাদাতকে ঘিরে এমন বিতর্কিত ঘটনা নতুন নয়। গত বছর মিরপুর রোডে এক সিএনজি ড্রাইভারের সঙ্গে মারামারি করেও খবরের শিরোনাম হয়েছিলেন শাহাদাত। এরপর তিনি সেই সিএনজি ড্রাইভারের সঙ্গে দেখা করে তার কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন। এর ফলে নিশ্চিত থানা-পুলিশ থেকে বেঁচে যান তিনি। কিন্তু এবার আর রক্ষা হলো না।

২০১৫ সালে গৃহকর্মীকে মারধরের অপরাধে কারাভোগের সাজা হলে তাকে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা দেয় বিসিবি। এরপর থেকে তিনি আর দলে ফেরার সুযোগ পাননি। বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে ৩৮টি টেস্ট, ৫১টি একদিনের আন্তর্জাতিক এবং ৬ টি২০ ম্যাচে অংশ নিয়েছেন শাহাদাত।

sourabe33.jpg

কলকাতার ঐতিহ্যবাহী ইডেন গার্ডেন্সে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দিবা-রাত্রির টেস্ট শুরু হবে আগামী শুক্রবার। ঐতিহ্যবাহী এই টেস্টের প্রথম তিন দিনের সব টিকিট ইতিমধ্যেই বিক্রি হয়েছে গেছে। আগ্রহী অনেক সমর্থক হন্যে হয়ে টিকিট খুঁজছেন।

এ ব্যাপারে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী বলেন, ‘ক্রিকেটপ্রেমীদের কথা ভেবে খারাপ লাগছে। কিন্তু টিকিট যদি বিক্রি হয়ে যায়, তাহলে তো আসন সংখ্যা বাড়ানো যাবে না। টেস্ট শুরুর আগেই প্রথম তিনদিনের টিকিট সব বিক্রি হয়ে গেছে। শুনে ভালোই লাগছে।

ইডেন টেস্ট নিয়ে সৌরভ বলেন, এবারের ইডেন টেস্ট একটা বড় পরীক্ষা। কারণ, এটা উপমহাদেশের প্রথম গোলাপি বলে দিবা-রাত্রির টেস্ট হবে। কোনো একটা জায়গা থেকে তো শুরু করতে হবে। টেস্ট ক্রিকেটকে পুনরুজ্জীবিত করতে এই পদক্ষেপের প্রয়োজন ছিল।

প্রসঙ্গত, ভারত সফরে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হেরে যায় বাংলাদেশ। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম খেলায় ইন্দোর ইনিংস ও ১৩০ রানে হারে টাইগাররা।