ফুটবল Archives - Page 4 of 17 - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

messii-20190319152008.jpg

গত বছরের জুন-জুলাইয়ে হওয়া ফুটবল বিশ্বকাপের পর থেকেই আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের বাইরে লিওনেল মেসি। দেখতে দেখতে চলে গিয়েছে প্রায় আট মাসের বেশি সময়। অবশেষে পুনরায় জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা এ ফুটবলার।

চলতি মাসের শেষদিকে ভেনেজুয়েলা এবং মরক্কোর বিপক্ষে দুইটি প্রীতি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। সে ম্যাচের জন্যই মূলত জাতীয় দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন মেসি।

তবে প্রথম দফায় তাকে আর্জেন্টিনায় ফিরতে হয়নি। ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে ম্যাচটি অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের ওয়ান্দা মেট্রোপলিটনের হওয়ায় স্পেনেই দলের সঙ্গে অনুশীলন শুরু করতে পেরেছেন মেসি। মাদ্রিদের ভালদেভাসে প্রথম দিনের অনুশীলন সেরেছে আর্জেন্টিনা।

গত আট মাসে মেসিকে ছাড়া ৬টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে আলবিসেলেস্তেরা। এর মধ্যে ১টি ম্যাচে হার ও ১টি ম্যাচ ড্র করলেও বাকি ৪ ম্যাচে জয়ের দেখা পেয়েছে লিওনেল স্কালোনির শিষ্যরা। তবু মেসিকে ছাড়া পরিপূর্ণ ছিলো না আর্জেন্টিনা দল।

তাই বেশ কিছু শর্ত মেনেই মেসিকে পুনরায় জাতীয় দলে ফিরিয়েছেন আর্জেন্টাইন কোচ স্কালোনি। আগামী ২২ মার্চ অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের মাঠ ওয়ান্দা মেট্রোপলিটানোতে ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে খেলবে আর্জেন্টিনা। চার দিন পর মরক্কোর মাঠে খেলতে নামবেন মেসি-ডি মারিয়ারা।

দুই ম্যাচের জন্য আর্জেন্টিনার স্কোয়াড

গোলরক্ষক: অগাস্টিন মার্চেসিন (ক্লাব আমেরিকা), হুয়ান মুসো (উদিনেস), এস্তেবান আন্দ্রাদা (বোকা জুনিয়র্স), ফ্রাঙ্কো আরমানি (রিভার প্লেট)

ডিফেন্ডার: জার্মান পিজেল্লা (ফিওরেন্তিনা), গ্যাব্রিয়েল মার্কাদো (সেভিয়া), হুয়ান ফয়েথ (টটেনহাম হটস্পার), নিকলাস ওটামেন্ডি (ম্যানচেস্টার সিটি), ওয়াল্টার ক্যানেমান (গ্রেমিও), নিকলাস তালিয়াফিকো (আয়াক্স), মার্কস আকুনা (স্পোর্টিং লিসবন), গঞ্জালো মন্টিয়েল (রিভার প্লেট), রেঞ্জো সারাভিয়া (রেসিং ক্লাব), লিসান্দ্রো মার্টিনেজ (ডিফেন্সা জাস্টিসিয়া)

মিডফিল্ডার: লিওনার্দো পারেদেস (প্যারিস সেন্ট জার্মেই), গুইদো রদ্রিগেজ (ক্লাব আমেরিকা), জিওভানি লো সেলসো (রিয়াল বেটিস), ম্যানুয়েল লানজিনি (ওয়েস্ট হ্যাম), রবার্তো পেরেইরা (ওয়াটফোর্ড), অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া (প্যারিস সেন্ট জার্মেই), মাতিয়াস জারাকো (রেসিং ক্লাব), ইভান মার্কোন (বোকা জুনিয়র্স), ডোমিঙ্গো ব্লাঙ্কো (ডিফেন্সা জাস্টিসিয়া), রদ্রিগো ডি পল (উদিনেস)।

ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি (বার্সেলোনা), গঞ্জালো মার্টিনেজ (আটলান্টা ইউনাইটেড), পাওলো দিবালা (জুভেন্টাস), অ্যাঞ্জেল কোররেয়া (অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ), লাউতারো মার্টিনেজ (ইন্টার মিলান), দারিও বেন্দেত্তো (বোকা জুনিয়র্স), মাতিয়াস সুয়ারেজ (রিভার প্লেট)।

kireo.jpg

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে মামলায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কার্যনির্বাহী সদস্য ও নারী ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ জামিন পেয়েছেন। মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনছারী ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় আসছে ২ এপ্রিল পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করেছেন।

কিরণের আইনজীবী লিয়াকত হোসেন জামিনের আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। আদালতের পেশকার পারভেজ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে শনিবার(১৬ মার্চ) ঢাকা মহানগর হাকিম আবু সুফিয়ান মো. নোমান জামিন নামঞ্জুর করে কিরণকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। সেদিন থেকে কারাগারেই ছিলেন কিরণ। জামিন পাওয়ায় ও কিরণের বিরুদ্ধে অন্য কোনো মামলা না থাকায় তার মুক্তিতে আর কোনো বাধা রইল না।

গেল ১২ মার্চ ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারী মামলা আমলে নিয়ে কিরণের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। গ্রেফতার সংক্রান্ত তামিল প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আসছে ২ এপ্রিল দিন ধার্য করা হয়েছে।

বাদী পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার রেফায়েতুল করিম লেলিন বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করার অভিযোগে কিরণের বিরুদ্ধে গেল মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আবু হাসান চৌধুরী প্রিন্স মানহানি মামলা করেন। তাতে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আবেদন করা হয়। ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারী তা আমলে নিয়ে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, গেল ৮ মার্চ বাফুফের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ক্রীড়ামোদী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কে হীন মানসিকতা নিয়ে তাকে, ফেডারেশন, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি), বাংলাদেশ ফুটবল সংগঠকদের উদ্দেশে কিরণ বলেন, পিএম হিসেবে সব খেলাই তার কাছে সমান। সেখানে কেন দু’চোখে দেখবে? মেয়েরা ব্যাক টু ব্যাক চ্যাম্পিয়ন। গিফট পরের কথা, অভিনন্দন তো দিতে পারে, মিডিয়ায় কি কোনো অভিনন্দন জানাইছে? বিএফএফের টাকা কেন প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে দেয়াবে? বিসিবির অনেক স্বার্থ আছে। বোর্ড সরকারের অনেক ফ্যাসিলিটিজ নেয়। চুন থেকে পান খসলেই প্লট,গাড়ি পেয়ে যায়। ফেডারেশন সরকারের কাছ থেকে কোনো ফ্যাসিলিটিজ নেয় না।

পরে কিরণের বক্তব্য গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রকাশিত হয়। তার এমন বক্তব্যে বাদীর ৫০ কোটি টাকার মানহানি হয়েছে মর্মে আদালতে মামলাটি করা হয়।

24-1.png

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদ হামলার ঘটনায় পুরো বিশ্ব শোকে কাতর। নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডে নিহত ৪৯ মুসল্লির প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছে সবাই। তুরস্কের সুপার লিগের ফুটবলাররাও স্মরণ করেছেন নিহতদের। তাকবির দিয়ে ফুটবল ম্যাচ খেলতে মাঠে নামলেন তারা।

ম্যাচের আগে দুই দলের খেলোয়াড়রা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়ান। এ সময় গ্যালারি থেকে ভেসে আসতে থাকে, ‘আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবর, লা ইলাহা ইল্লাহ, ওয়াল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবর, ওয়া লিল্লাহি আল হামদ।’

পুরো গ্যালারি তখন দাঁড়িয়ে। এ সময় তুরস্কের সুপার লিগের দুই দল ফেনারেবাচে ও সিভাসপোরের ফুটবলারদেরও তাকবির দিতে দেখা যায়। দেখুন ভিডিওটি।

ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদ হামলায় এখন পর্যন্ত ৪৯ জন নিহতের খবর পাওয়া গেছে। নিহতদের মধ্যে ৩ জন বাংলাদেশি রয়েছেন। এই হামলায় আহত হওয়া ৯০ জনের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

https://web.facebook.com/MuslimPlayers1/videos/324353741762264/
https://web.facebook.com/MuslimPlayers1/videos/324353741762264/?t=0

Messi-Ronldo-Beckham.jpg

বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার ইংল্যান্ডের ডেভিড বেকহ্যাম। এই মুহূর্তে আমেরিকার ইন্টার মায়ামি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট তিনি। ২০১৮-তে এই ক্লাবের জন্ম হয়। এখনও আমেরিকার মেজর সকার লিগে তারা নামেনি। পরের মওসুমে নামবে।

কিন্তু আগামীদিনে নিজের দলকে নিয়ে যে বড়ো স্বপ্ন দেখা শুরু করে দিয়েছেন বেকহ্যাম। আর সেই তালিকায় রয়েছেন মেসি, রোনাল্ডো। সেই নিয়েই মুখ খুললেন বেকহ্যাম।

তিনি জানান, “সবারই নিজের পছন্দের তালিকা থাকে। যদি আপনি দেখেন তাহলে লিও (মেসি) এবং ক্রিস্টিয়ানো (রোনাল্ডো) এখনও খেলছে। আপনাদের হয়তো মনে হতে পারে ওরা এখন ওদের কেরিয়ারের গোধূলি লগ্নে। কিন্তু আমার মনে হয় না। ওরা যে মানের ফুটবল খেলছে, তাতে এই মুহূর্তে ওদের ক্লাব ছাড়ার কোনো প্রশ্নই ওঠে না। দেখা যাক। ফুটবলে কখন কী হয় কেউ বলতে পারে না”।

তিনি আরও জানান, “ক্লাব হিসাবে, সংগঠন হিসাবে আমরা খেলোয়াড়দের নিয়ে ভাবছি। আমাদের দলটা খুব ভালো। এখন থেকেই নিজেদের তৈরিতে ব্যস্ত আমরা। খুব তাড়াতাড়ি করতে হবে। সময় মাত্র এক বছর”।

উল্লেখ্য, আমেরিকার মেজর লিগ ফুটবল লিগে ২৫ তম ফ্রাঞ্চাইজি দল হিসাবে মাঠে নামবে মায়ামি ইন্টার। আগামী বছর মার্চ মাসে।

jub-20190318093153.jpg

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে ৩-২ গোলের উড়ন্ত জয়ের পর নিজ দলের খেলোয়াড়দের খানিক বিশ্রামই দিয়েছিলেন জুভেন্টাসের কোচ মাসমিলানো অ্যালেগ্রি। তাতেই ঘটলো সর্বনাশ। থেমে গেল চলতি লিগে টানা ২৭ ম্যাচের অপরাজিত যাত্রা।

তুলনামূলক দূর্বল দল জেনোয়ার মাঠে খেলতে গিয়ে ০-২ গোলে হেরে এসেছে অ্যালেগ্রির শিষ্যরা। ম্যাচে খেলেননি অ্যাতলেটিকোর বিপক্ষে ম্যাচের ‘হ্যাটট্রিক’ হিরো ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এছাড়া সে ম্যাচে আরো পাঁচজনকে মাঠের বাইরেই রেখেছিলেন অ্যালেগ্রি।

ঘরের মাঠে বল দখলের লড়াইয়ে পিছিয়েই ছিল জেনোয়া। তবে আক্রমণের পরিসংখ্যানে জুভেন্টাসের চেয়ে যোজন-যোজনে এগিয়ে ছিল তারা। পুরো ম্যাচে তুরিনোর বুড়িদের রক্ষণে ১৮ বার হামলা চালায় জেনোয়া, পাঁচবার থাকে লক্ষ্যের দিকে। অন্যদিকে পুরো ম্যাচে মাত্র ৬ বার আক্রমণ করে জুভেন্টাস, যার একটিও ছিলো না লক্ষ্যে।

ম্যাচের প্রথমার্ধ ছিলো গোলশূন্য। গোলের তালা ভাঙতে ৭২তম মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় জেনোয়াকে। স্টেফানো স্টুরারোর গোলে এগিয়ে যায় তারা। মিনিট নয়েক বাদে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন গোরান পান্দেব। এ দুই গোলেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তারা।

টানা ২৭ ম্যাচ অপরাজিত থাকা জুভেন্টাস ২৮তম ম্যাচটি হারলেও ৭৫ পয়েন্ট নিয়ে অবস্থান করছে শীর্ষেই। দ্বিতীয় স্থানে থাকা নাপোলির সঙ্গে তাদের দূরত্ব ১৫ পয়েন্টের। জুভেন্টাসকে প্রথম পরাজয়ের স্বাদ দেয়া জেনোয়ার অবস্থান ১২তম।

kosta-20190317153805.jpg

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে জঙ্গি হামলায় অন্তত ৪৯ জন মুসলিম নাগরিক নিহত হয়েছেন। বর্বরোচিত এ হামলার প্রতিবাদে খোদ নিউজিল্যান্ডসহ ফুঁসছে সারা বিশ্ব। ব্যতিক্রম নয় বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন। দেশ-বিদেশের ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা নিজেদের স্থান থেকে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এ ঘটনার।

যে তালিকায় যুক্ত হয়েছেন নিউজিল্যান্ডের ২৮ বছর বয়সী ফুটবলার কস্তা বারবারোস। অভিনব পন্থায় নিজের গোল উদযাপন করে হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং হামলাকারীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন কস্তা।

শনিবার রাতে অস্ট্রেলিয়ান ‘এ’ লিগের ম্যাচে ব্রিসবেন রোয়ারের বিপক্ষে ২-১ গোলে জিতেছে কস্তার দল মেলবোর্ন ভিক্টরি। নিজ দলের হয়ে দুটি গোলই করেছেন নিউজিল্যান্ডের ২৮ বছর বয়সী উইঙ্গার কস্তা বারবারোস।

ম্যাচের ২৪তম মিনিটে নিজের প্রথম গোলটি করেন কস্তা। এরপর তেমন কোনো উদযাপন না করে চলে যান মাঠের একপ্রান্তে। হাঁটু গেড়ে বসে পড়েন এবং নামাজের সেজদার মতো ভঙ্গিমা করে জানান দেন নিজের প্রতিবাদের কথা।

নিজে খ্রিস্টান হলেও মুসলিমদের ওপর চালানো নারকীয় হত্যাকাণ্ডে নিউজিল্যান্ডের মানুষের কোনো মত নেই- এটিই যেন বোঝাতে চেয়েছেন কস্তা বারবারোস।

ম্যাচ শেষে নিজের এ উদযাপনের ব্যাপারে কস্তা বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে, আমার ভীষণ খারাপ লাগছে। পুরো ব্যাপারটা ভয়াবহ। আমাদের জন্য ভীষণ আবেগের দিন। তাদের (হতাহত) কাছে এটা নিশ্চয়ই কিছু না, কিন্তু এটা বিশেষ কিছু।’

ronalddo.jpg

এবার কি বড় শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো? মঙ্গলবার (১২ মার্চ) অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করে বিশ্ব ফুটবলকে চমকে দিয়েছেন তিনি। স্বয়ং লিওনেল মেসি তার পারফরম্যান্সে উচ্ছ্বসিত। অথচ সেই রোনালদো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলতে পারবেন কি না, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

প্রথম লেগে ২-০ গোলে হেরেছিল জুভেন্তাস। হারার পর অ্যালেটিকোর সমর্থকরা বিদ্রুপ করতে ছাড়েননি রোনালদোকে। তাই হারার পর ট্যানেলে যাওয়ার সময় রোনালদো বলেছিলেন, পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছি। অ্যাটলেটিকো সেই ট্রফি একবারও পায়নি।

সেদিনের যাবতীয় জ্বালাযন্ত্রণা রোনালদো উগরে দেন তুরিনে। হ্যাটট্রিক চমকে দেন। গোটা বিশ্ব রোনালদোর এই পারফরম্যান্স দেখে যখন তার বন্দনায় মুখরিত, সেই সময় ইতালির সংবাদপত্র গেজেত্তা দেলো স্পোর্ট জানায়, রোনালদোকে বড় শাস্তির মুখে পড়তে হচ্ছে। কারণ? তার বিশ্রী অঙ্গভঙ্গি। অ্যাটলেটিকোর কাছে হারের পর সমর্থকদের বিদ্রুপের জবাব দিতে গিয়ে ম্যাচ জেতার পর কুঁচকির দু’পাশে হাত নিয়ে কুৎসিত আচরণ করেন রোনালদো। যা ফুটবলের পরিপন্থী।

পর্তুগিজ তারকা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে কয়টা ম্যাচ খেলতে পারবেন না, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গেছে। জুভেন্তাস ফাইনালে উঠলে একটা ম্যাচ বসছেন, তা নিশ্চিত। তবে, অনেকে বলছেন, রোনালদো যে অঙ্গভঙ্গি করেছেন, তা দলের সতীর্থদের সামনে। দর্শক পরিবেষ্টিত স্টেডিয়ামে এমন অঙ্গভঙ্গিকে কেউ সমর্থন করতে পারছেন না।

অ্যাটলেটিকোর কোচ দিয়েগো সিমোনেকে রোনালদোর বিশ্রী অঙ্গভঙ্গি প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমি নিশ্চিত, ক্রিশ্চিয়ানো যা করেছে, তা আমিও প্রথম লেগের খেলায় করেছিলাম। তাই রোনালদোর অঙ্গভঙ্গিকে দোষ দেব কী করে?

messironaldo.jpg

অসাধারণ এক হ্যাটট্রিক করে জুভেন্টাসকে এক অবিশ্বাস্য জয় এনে দিয়েছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। প্রথম লেগে ২-০ গোলে হারার পরও দ্বিতীয় লেগে ৩-০ গোলে জিতিয়ে জুভেন্টাসকে নিয়ে গেছেন চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে। মঙ্গলবার রাতে জুভেন্টাসের মাঠে এই জাদুকরী পারফরম্যান্সের জন্য পুরো ফুটবল দুনিয়াই রোনালদোর প্রশংসায় পঞ্চমুখ। বিস্ময়কর হলেও সত্যি, রোনালদোর সেই প্রশংসাকারীদের তালিকায় যোগ দিলেন লিওনেল মেসিও। বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন তারকাও চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদোর জাদুকরী পারফরম্যান্সে বিস্মিত, মুগ্ধ।

সাংবাদিকের প্রশ্নের মুখে কখনো সখনো হয়তো একে অন্যের প্রশংসা-স্তুতি তারা গেয়েছেন। তবে সেটা স্রেফ সৌজন্যতার খাতিরে, বাধ্য হয়ে। লিওনেল মেসি বা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো, কখনোই তারা মন থেকে একে অন্যের প্রাণখোলা প্রশংসা করেননি। প্রতিদ্বন্দ্বিতার দৌড়ে নিজেকে এগিয়ে রাখতেই একে অন্যের আন্তরিক প্রশংসা করা থেকে বিরত থেকেছেন তারা।

অবশেষে ব্যক্তি স্বার্থের সেই কপটতা থেকে বেরিয়ে এসে প্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদোর পারফরম্যান্সের জয়গান গাইলেন মেসি। অন্যদের তিনিও রোনালদোর মঙ্গলবারের পারফরম্যান্সকে আখ্যায়িত করলেন ‘ম্যাজিক্যাল’ বলে। মজার বিষয় হচ্ছে, মেসি প্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদোর এই জয়গানটা গাইলেন নিজেও অবিশ্বাস্য একটা ম্যাচ কাটানোর পর।

মঙ্গলবার রোনালদো যেমন স্বপ্নময় একটা রাত কাটিয়েছেন, গতকাল মেসিও প্রায় সেরকমই একটা স্বপ্নময় রাত কাটিয়েছেন। ন্যু-ক্যাম্পের দ্বিতীয় লেগে অলিম্পিক লিঁওর বিপক্ষে বার্সেলোনাকে ৫-১ গোলের জয় এনে দিতে তিনি নিজে করেছেন জোড়া গোল। সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেন আরও দুটি।

স্বপ্নময় এই ম্যাচ শেষেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রোনালদোকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন মেসি। মোভিস্টারকে বলেছেন, ‘এক কথায়, রোনালদো ও জুভেন্টাস ছিল অবিশ্বাস্য। এটা অবশ্যই বড় বিস্ময়ের। কারণ, আমি মনে করেছিলাম, অ্যাতলেতিকো আরও শক্তিশালী হয়ে দেখা দিবে। কিন্তু জুভেন্টাস তাদের পেছনে ফেলে দিয়েছে। ৩ গোল করে ক্রিস্তিয়ানো জাদুকরী একটা রাতই কাটিয়েছে।’

দুই গোল ও দুটি অ্যাসিস্ট। গতকাল মেসিও জাদুকরী রাতই কাটিয়েছেন। তবে এরপরও রোনালদোর পারফরম্যান্সের কাছে মেসির পারফরম্যান্স কিছুটা ম্লানই। সেটি অবশ্য দুটি কারণে। প্রথমত, জুভেন্টাস অ্যাতলেতিকোর মাঠে গিয়ে প্রথম লেগে ২-০ গোলে হেরেছিল। ফলে মঙ্গলবার ফিরতি লেগে জুভেন্টাসের সামনে সমীকরণটাই ছিল এমন, কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে হলে জিততে হবে অন্তত ৩-০ গোলে।

অবিশ্বাস্য দক্ষতায় কঠিন প্রতিপক্ষ অ্যাতলেতিকোর বিপক্ষে এই কঠিন সমীকরণটাই মিলিয়ে দিয়েছেন রোনালদো। প্রয়োজনীয় ৩টি গোলই করেছেন তিনি একা। একাই খাদের কিনারা থেকে জুভেন্টাসকে নিয়ে গেছেন শেষ আটে।

বিপরীতে বার্সেলোনা লিঁওর মাঠ তেকে প্রথম লেগে গোলশূন্য ড্র করে ফিরে ছিল। ফলে শেষ আট প্রশ্নে বার্সাই ছিল সুবিধাজনক অবস্থানে। কারণ, কাল দ্বিতীয় লেগটা ছিল তাদের ঘরের মাঠ ন্যু-ক্যাম্পে। আর ন্যু-ক্যাম্পে বার্সার জয়টাও ৫-১ গোলে। মানে মেসি ছাড়াও গোল করেছেন ফিলিপে কুতিনহো, জেরার্ড পিকে ও উসমানে ডেম্বেলে।

তারপরও নিজে ২ গোল করা, সতীর্থদের দিয়ে আরও দুটি করানো-স্বপ্নময় এক রাতের কথাই বলে। তবে নিজের জয়গান বাদ দিয়ে মেসি প্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদোর জয়গানই গাইলেন। কিন্তু যার পারফরম্যান্সে এতো মুগ্ধ মেসি, কোয়ার্টার ফাইনালেই কিন্তু সেই রোনালদোর মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা আছে তার। আগামী শুক্রবার কোয়ার্টার ফাইনালের ড্র। তাতে শেষ আটেই দেখা হয়ে যেতে পারে মেসির বার্সেলোনা ও রোনালদোর জুভেন্টাসের।

মেসি অবশ্য এটা নিয়ে ভাবছেন না। তার মতে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে আসা সব দলই প্রতিপক্ষ হিসেবে কঠিন, ‘সব প্রতিপক্ষেই কঠিন। কঠিন চ্যালেঞ্জের জন্যই প্রস্তুতি নিতে হবে আমাদের।’

Zidane_Mbappe-1.jpg

কখনো কখনো গুরুত্বপূর্ণ কথাও বলা হয় মজার ছলে, কৌতুক করে। তাতে লাভ দুটো। গুরুত্বপূর্ণ বার্তাটা সংশ্লিষ্ট পক্ষকে জানানোও গেল, আবার বাইরের লোকজন কিছু মনেও করল না। মজার ছলে বলা কথাটাকে কৌতুক ভেবে উড়িয়েই দিল।

রিয়াল মাদ্রিদ সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজও হয়তো এই চালাকিটাই করতে চেয়েছিলেন। গণমাধ্যমের সামনে কৌতুক করে বলে ফেলেছেন, তার বিশ্বাস কিলিয়ান এমবাপেকে পটিয়ে রিয়ালে ভেড়াতে পারবেন জিনেদিন জিদান!

তিনি হয়তো ভেবেছিলেন, মজা করে বলা এই কথাটাকে বাইরের কেউ গুরুত্ব দেবে না। কিন্তু তার চালাকিটা খাটেনি। বরং তার কথাটা বেশ গুরুত্বের সঙ্গেই নিয়েছে ইউরোপের গণমাধ্যম। এমনকি গণমাধ্যমের সূত্র তার সেই মজার বিষয়টি পৌঁছে গেছে এমবাপের ক্লাব পিএসজির কানেও। জবাবে ফরাসি ক্লাবটির কোচ টমাস টাচেল পাল্টা প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন।

রিয়াল সভাপতি অন্য কাউকে নিয়ে মজাটা করলে হয়তো মজা হিসেবেই নিত সবাই। কিন্তু এমবাপের প্রতি রিয়ালের অতি আগ্রহের বিষয়টি সবারই জানা। গত মৌসুমেই ফরাসি এই বিস্ময় বালককে কেনার জন্য কোমড় বেধে মাঠে নেমেছিল রিয়াল। ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর যোগ্য বিকল্প হিসেবে রিয়ালের সমর্থকরাও চান এমবাপেকেই।

সমর্থকদের এই চাওয়ার সঙ্গে মিলে গেছে নতুন করে রিয়ালের কোচের দায়িত্ব নেওয়া জিদানের পছন্দও। গত সোমবার নতুন করে রিয়ালের কোচের দায়িত্ব নিয়েছেন জিদান। ব্যর্থতার দায়ে সান্তিয়াগো সোলারিকে বরখাস্ত করে কোচ করা হয়েছে জিদানকে। আর দায়িত্ব নিয়েই দুজনকে কেনার পাকা পরিকল্পনা নিয়ে ফেলেছেন জিদান। তার একজন চেলসির বেলজিয়ান মিডফিল্ডার-ফরোয়ার্ড এডেন হ্যাজার্ড। অন্যজন কিলিয়ান এমবাপে।

এই দুজনের মধ্যে আবার স্বদেশি এমবাপেই এক নম্বর পছন্দ জিদানের। আর এমবাপে যেহেতু জিদানের স্বদেশি, এই বিষয়টিই আশাবাদী করে তুলেছে রিয়াল সভাপতিকে। মঙ্গলবার নিজের এই আশাবাদের কথাটা ঘটা করে বলেও ফেলেছেন পেরেজ। গণমাধ্যম কর্মীদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি কৌতুকের সুরে বলেছেন, ‘জিদান একজন ফরাসি। আশা করি এমবাপের বিষয়ে সে কিছু একটা করতে পারবে।’

বিশ্বের সব তরুণ ফুটবলারদের কাছেই জিদান অনুপ্রেরণার নাম। একজন ফরাসি হিসেবে এমবাপে হয়তো কিংবদন্তি জিদানের প্রতি আরও বেশি দুর্বল। শুধু বিশ্বসেরা খেলোয়াড় হিসেবেই নয়, বিশ্বসেরা কোচ হিসেবেও নিজের নামটি প্রতিষ্ঠিত করেছেন জিদান। ফলে কোচ জিদানের সঙ্গে কাজ করাটাও এমবাপের মতো প্রতিভাবান ফুটবলারদের স্বপ্ন। হ্যাজার্ড যেমন শৈশবের নায়ক জিদানের সঙ্গে কাজ করতে মরিয়া।

সেই জিদান যখন স্বদেশি এমবাপেকে এক নম্বর টার্গেট বানিয়ে ফেলেছেন, পেরেজ আশাবাদী হতেই পারেন। কিন্তু সমস্যা হলো, জিদান এমবাপেকে কিছু বলার আগেই পেরেজের কৌতুক করে বলা কথাটা পিএসজির কানে পৌঁছে গেছে। না, পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় পিএসজির জার্মান টাচেল তেমন কিছুই বলেননি। তবে খবরটি কানে যাওয়ায় পিএসজি যে ২০ বছর বয়সী এমবাপেকে ধরে রাখার বিষয়ে আরও সতর্ক হয়েছে, সেটি বোঝা গেছে।

জিদানের পছন্দ হিসেবে এমবাপের খবরটিই বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে। তবে কৌতুক করে সেদিন কিন্তু এমবাপের সঙ্গে নেইমারের নামটিও উচ্চারণ করেছেন পেরেজ। নেইমারই ছিল রিয়ালের এক নম্বর টার্গেট। পেরেজ নিজেরও বিশেষ পছন্দ পিএসজির এই ব্রাজিলিয়ান তারকাকে। কিন্তু সেই নেইমারকে বাদ দিয়ে এমবাপেকে এক নম্বর টার্গেট বানানো কেন, সাংবাদিকদের এমন প্রম্নের উত্তরে পেরেজ বলে বসেন, ‘নেইমার ও এমবাপে, দুজনকেই পছন্দ আমাদের।’
পিএসজির কোচ তাই দুজনের বিষয়েই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন, ‘নেইমার ও কিলিয়ানের মতো খেলোয়াড়দের সব দলই পেতে চাইবে, এটাই স্বাভাবিক। তবে মনে রাখতে হবে তারা পিএসজির খেলোয়াড়।’

Zidane-_Militao-1.jpg

দ্বিতীয় বারের মতো রিয়াল মাদ্রিদের কোচের দায়িত্ব নিয়েই দুজন তারকা খেলোয়াড়ের দিকে হাত বাড়িয়েছেন জিনেদিন জিদান। ফরাসি কোচের সেই প্রথম পছন্দের দুই খেলোয়াড় হলেন কিলিয়ান এমবাপে ও এডেন হ্যাজার্ড। তবে এমবাপে বা হ্যাজার্ড নন, জিদান প্রথম চুক্তিটা করতে যাচ্ছেন এদের মিলিতাওয়ের সঙ্গে। রিয়ালের মুখপাত্র হিসেবে পরিচিত স্পেনের জনপ্রিয় ক্রীড়া দৈনিক মার্কা জানিয়েছে এই খবর।

পর্তুগিজ ক্লাব এফসিন পোর্তোর এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারের সঙ্গে রিয়াল কথাবার্তা চালিয়ে যাচ্ছে অনেক দিন ধরেই। মার্কার খবর, ২১ বছর বয়সী এই তরুণ ডিফেন্ডারের সঙ্গে চুক্তির বিষয়ে পোর্তোকে রাজিও করিয়ে ফেলেছে রিয়াল। এখন শুধু চুক্তির শর্তগুলো চূড়ান্ত করা হবে।

মার্কার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শর্তগুলো চূড়ান্ত করে মার্চেই চুক্তিটা সেরে ফেলা হবে। অন্তত রিয়াল মাদ্রিদ মিলিতাওয়ের সঙ্গে মার্চেই চুক্তিটা সেরে ফেলতে চাইছে। এমনকি আগামী সপ্তাহেই আনুষ্ঠানিক চুক্তিটা হয়েযেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ব্রাজিলের এই তরুণের সঙ্গে চুক্তির ব্যাপারে রিয়ালের তাড়াহুড়ো করার যুক্তিসংগত কারণও আছে।

পোর্তো বর্তমানে মিলিতাওয়ের ওপর ঝুলিয়ে রেখেছে ৫০ মিলিয়ন ইউরোর রিলিজ ক্লজ। মানে ৬ ফুট ২ ইঞ্চি উচ্চতার এই তরুণকে এখন ৫০ মিলিয়ন ইউরোতেই কিনতে পারবে রিয়াল। কিন্তু চুক্তির শর্ত অনুযায়ী আগামী জুলাইতেই পোর্তোতে তার রিলিজ ক্লজ হয়ে যাবে ৭৫ মিলিয়ন ইউরো। তাই জুলাইয়ের আগেই রিয়াল চুক্তির ঝামেলাটা চুকিয়ে ফেলতে চাইছে।

জুলাই আসতেও অবশ্য এখনো অনেকটা সময় বাকি। তবে তার আগেই যেহেতু শুরু হতে যাচ্ছে কোপা আমেরিকা, রিয়াল তাই কোপার আমেরিকার আগেই মিলিতাওকে দলে টানার বিষয়টি নিশ্চিত করতে চাইছে।

পোর্তো থেকে রিয়াল সর্বশেষ যে খেলোয়াড়টিকে কিনেছিল, তার নাম দানিলো। তিনিও একজন ব্রাজিলিয়ান। মিলিতাওয়ের মতো তিনিও একজন ডিফেন্ডার। তবে ২৭ বছর বয়সী দানিলো মাত্র দুটি মৌসুমই বার্নাব্যুতে কাটাতে পেরেছেন। ২০১৫ সালে কেনার পর ২০১৭ সালেই তাকে ম্যানচেস্টার সিটির কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। রিয়ালের কর্তারা মনে করছেন দানিলোর চেয়েও ভালো সওদা হবেন মিলিতাও। কারণ, ২০১৮ সালেই ব্রাজিলিয়ান ক্লাব সাও পাওলো ছেড়ে পোর্তোতে যোগ দেওয়া মিলিতাও এরই মধ্যে নিজের প্রতিভা-সামর্থ্য দিয়ে নজর কেড়েছেন সবার। ব্রাজিল জাতীয় দলের হয়ে একটি ম্যাচ খেলা মিলিতাওয়ের ওপর দৃষ্টি দিয়েছিল ইউরোপের আরও অনেক ক্লাবই। তবে কূটনৈতিক দৃঢ়তায় রিয়ালই পোর্তোকে আগে রাজি করাতে পেরেছে।