খেলাধুলা Archives - Page 3 of 12 - Dhaka Today

mushi-20181115142647.jpg

ঢাকা টেস্টটা মুশফিকুর রহীমের জন্য স্মরণীয় এক টেস্ট। এই টেস্টেই ইতিহাসের প্রথম উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান হিসেবে দুটি ডাবল সেঞ্চুরির মালিক হয়েছেন তিনি। বাংলাদেশের জয়ের ভিতটা আসলে গড়া হয়েছে তার ব্যাটেই। দুর্দান্ত পারফরম্যােন্সের স্বীকৃতিস্বরূপ ম্যাচসেরার পুরস্কারটিও গেছে মুশফিকের হাতেই।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ ৫২২ রানের পাহাড়সমান পুঁজি গড়ে মুশফিকের দুর্দান্ত ডাবল সেঞ্চুরিতে ভর করে। ৪২১ বলে ১৮ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় হার না মানা ২১৯ রানের মহাকাব্যিক এক ইনিংস খেলেন উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান। এটিই এখন টেস্টে বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যানের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ।

এত দীর্ঘ সময় ব্যাট করে আবার উইকেটের পেছনেও দাঁড়িয়ে গিয়েছিলেন মুশফিক। পুরো টেস্টে তিনিই উইকেটরক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন এবং সেটা বেশ ভালোভাবেই। স্বভাবতই ম্যাচসেরার পুরস্কার দিতে গিয়ে তার ব্যাপারে দ্বিতীয়বার ভাবতে হয়নি।

ম্যাচসেরার পুরস্কার হাতে নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘অবশ্যই এই জয়টা আমাদের খুব দরকার ছিল। কারণ প্রথম টেস্টটা আমরা নিজেদের মতো করে খেলতে পারিনি। আমার মনে হয়, ছেলেরা তাদের চরিত্র দেখিয়েছে। মুমিনুল দারুণ একটি ইনিংস খেলেছে। পুরো সিরিজজুড়েই বোলাররা তাদের কাজটা ঠিকভাবে করেছে, বিশেষ করে তাইজুল আর মিরাজ।’

এই সিরিজ শেষ হতে না হতেই শুরু হয়ে যাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষেও ভালো পারফরম্যান্সের ধারাটা অব্যহত রাখার আশা মুশফিকের, ‘আমরা এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলব। আশা করছি, নিজেদের এই পারফরম্যান্স ধরে রাখতে পারব। দল হিসেবে এই উন্নতিটা ধরে রাখাই লক্ষ্য।’

win-20181115134726.jpg

পঞ্চম দিনে এসেও বোঝা যাচ্ছিল না, ম্যাচের ফল কি হবে। বাংলাদেশের হারের সম্ভাবনা ছিল না। তবে জিম্বাবুয়ে বেশ শক্ত প্রতিরোধ গড়েছিল। তবে প্রতিরোধ যতই করুক, শেষ পর্যন্ত পরাজয়ের ব্যবধানটা কিন্তু বড়ই হয়েছে সফরকারিদের।

জিম্বাবুয়ের সব প্রতিরোধ আর লড়াইকে পেছনে ফেলে ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশ জিতেছে ২১৮ রানের বড় ব্যবধানে। সিরিজটাও শেষ করেছে ১-১ সমতায়। দেশের টেস্ট ইতিহাসে রানের হিসেবে এটি টাইগারদের দ্বিতীয় বড় জয়।

এর আগে এই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই নিজেদের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। ২০০৫ সালের জানুয়ারিতে চট্টগ্রামে ২২৬ রানে জিতেছিল টাইগাররা।

আসলে শুধু এ দুটি নয়। রানের হিসেবে বাংলাদেশের টেস্ট ইতিহাসের সবচেয়ে বড় পাঁচটি জয়ই এসেছে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। তৃতীয় অবস্থানে আছে ২০১৪ সালের নভেম্বরে চট্টগ্রামে পাওয়া ১৮৬ রানের জয়।

খুলনায় একই সিরিজে ১৬২ রানে জিতেছিল টাইগাররা। যেটি তাদের বড় জয়ের তালিকায় চার নাম্বারে। আর হারারেতে ২০১৩ সালে পাওয়া ১৪৩ রানের জয়টি পঞ্চম স্থানে।

mashtc.jpg

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, মাশরাফি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে খেলবে না, এ কথা বলা যাবে না। তবে সম্ভাবনা খুবই কম। কারণ মনোনয়নপত্র নিয়েছে, মনোনয়ন পাবে কি-না, সেটাও নিশ্চিত নয়, পেলে ভোটে লড়বে। সেক্ষেত্রে হয়তো উইন্ডিজ সিরিজে খেলার সম্ভাবনা কম।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে গত ১১ নভেম্বর নড়াইল-২ আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন মাশরাফি বিন মর্তুজা।

টেস্ট খেলছেন না বহুদিন হল। টি-২০কেও বিদায় জানিয়েছেন। এখন কেবল ওয়ানডেটাই চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি সংসদ নির্বাচনেও অংশ নিতে চাচ্ছেন মাশরাফি। ইসির পরিবর্তিত তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। দলীয় মনোনয়ন পেলে ভোটের মাঠে ব্যস্ত থাকতে হবে তাকে।

তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিরিজে না খেললেও ২০১৯ সালে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপে মাশরাফি খেলবেনই জানিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, মাশরাফি বিশ্বকাপে খেলবে। কারণ সে আমাদের কাছে প্লেয়ারের চেয়েও বড় অধিনায়ক হিসেবে।

বাংলাদেশ সফরে দু’টি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে উইন্ডিজ।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ২২ নভেম্বর প্রথম টেস্ট শুরু হবে। এর আগে বিসিবি একাদশের বিপক্ষে ১৮ নভেম্বর থেকে দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে হবে এ ম্যাচ। ৩০ নভেম্বর থেকে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু হবে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

টেস্ট সিরিজ শেষে শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। ৯ ও ১১ ডিসেম্বর ঢাকায় দুটি এবং ১৪ ডিসেম্বর সিলেটে তৃতীয় ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে দুইদল। ১৭ ডিসেম্বর সিলেটে হবে প্রথম টি-টোয়েন্টি। পরের দুটি টি-টোয়েন্টি ২০ ও ২২ ডিসেম্বর মিরপুরে অনুষ্ঠিত হবে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল সর্বশেষ ২০১১ সালে চট্টগ্রামে একটি ওয়ানডে ও একটি টেস্ট ম্যাচে অংশ নেয় বাংলাদেশের বিপক্ষে। ওই বছরের ১৮ অক্টোবর জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের কাছে আট উইকেটে হেরেছিল তারা।

dt008734.jpg

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই ম্যাচ সিরিজের সিলেট টেস্টে হেরে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ২১৮ রানে জিতে সমতায় সিরিজ শেষ করেছে। মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণিতে জিম্বাবুয়ে ২২৪ রানে গুটিয়ে গেলে বড় ব্যবধানের ওই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা। দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়ে এই জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন মিরাজ

dt-sakib-1280x720.jpg

জিম্বাবুয়ে দল থাকতে থাকতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের দামামা বেজে উঠলো। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নির্বাচক প্যানেল এরই মধ্যে আগামী ২২ নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া টেস্ট সিরিজের জন্য দল মোটামুটি গুছিয়ে এনেছেন।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু গতকাল জানালেন, দুই একদিনের মধ্যেই দল ঘোষণা করা হবে। চলমান মিরপুরের টেস্টের দলে চারটি পরিবর্তন এনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের জন্য ১৩ সদস্যের স্কোয়াড দেওয়া হবে।

নির্বাচকরা এখন পর্যন্ত সাকিব আল হাসানের ফিটনেস নিয়ে সন্তুষ্ট নন। নান্নু তাই বলেই দিলেন যে, প্রথম টেস্টেই ফিরছেন না বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। দ্বিতীয় টেস্টে ফিরবেন কিনা, সেটা জানার জন্য সময়ের অপেক্ষা করার কোনো বিকল্প নেই।

সাকিব অবশ্য একটু একটু করে পুরোদমে অনুশীলনে ফিরছেন। একদিন আগে লম্বা সময় বাদে ব্যাট হাতে নেওয়া টেস্ট অধিনায়ক গতকাল নেটে ব্যাটিংয়ে ঘাম ঝরিয়েছেন। তবে, সাকিব নিজের ফিটনেসের উন্নতির ব্যাপারে সন্তুষ্ট।

মিরপুরের ইনডোরে গতকাল তিনি বলেন, ‘মাত্রই প্রথম ব্যাটিং করলাম। স্পিন দিয়ে আস্তে আস্তে শুরু করলাম। প্রথম দিন হিসেবে ভালোই মনে হলো। ব্যথাটা সেভাবে বোঝা যায়নি। সামনে যখন পেসটা বাড়বে, ভলিউম বাড়বে, তখন বোঝা যাবে। এভাবে এগোতে থাকি, দেখা যাক কী অবস্থায়। প্রথম দিন হিসেবে আমি বলবো, অনেক ভালো। কোনো ব্যথা অনুভব করিনি। বেশ ভালো অনুভব করিছি। এরপর ভলিউম বাড়লে, পেস বাড়লে এবং বেশিক্ষণ ব্যাটিং করলে বোঝা যাবে।’

সাকিব জানালেন, শিগগিরই তিনি বোলিং ও ফিল্ডিং অনুশীলন শুরু করবেন। বললেন, ‘সবই আস্তে আস্তে শুরু হবে। কাল পরশু থেকে হয়তো ফিল্ডিং ও বোলিং শুরু করবো। সবকিছুর জন্য সময় লাগবে। একবারেই সব শুরু করা সম্ভব হবে না। ইমপ্রুভ হতে থাকলে ম্যাচ খেলার কথা চিন্তা করবো।’

সাইড স্ট্রেনের কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সাকিবের সঙ্গে তামিমের ফেরাও অনিশ্চিত। সাকিব নিজেও নিশ্চিত নন কবে ফিরতে পারবেন। তবে, এই মুহূর্তে তিনি কোনো ঝুঁকি নিতে চান না। মিরপুরে গতকাল বিকালেও কোচ স্টিভ রোডস ও প্রধান নির্বাচকের সঙ্গে লম্বা আলাপ করতে দেখা গেছে তাকে।

নিজের এবং তামিমের ব্যাপারে তিনি বললেন, ‘কেউ খেলতে না পারলে দলের জন্য একটা নেতিবাচক ব্যাপার। কিন্তু আমি আশা করবো তামিম যেন প্রথম ম্যাচের আগে ফিট হয়ে যায়। দেখা যাক ফিজিও ওর বিষয়ে কী বলে। আমি আস্তে আস্তে শুরু করেছি। এরপর পেস বাড়ার পর বুঝতে পারবো কী হচ্ছে। জলদি করা যাবে না। এটা হলো প্রথম কথা। কয়েক দিনের ভেতরে বুঝতে পারবো, কী হবে।’

bjgd.jpg

মিরপুর টেস্টের শেষ দিনের প্রথম সেশন শেষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার জয়ের সুবাস নিয়েই মধ্যাহ্নভোজে গিয়েছে টাইগাররা। এরই মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে জিম্বাবুয়ে। সিরিজ বাঁচাতে ৫৯ ওভারে আর ৬ উইকেট তুলে নিতে হবে টাইগারদের।

লাঞ্চ পর্যন্ত জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৬১ রান। ব্যাট করছেন ব্রেনডন টেইলর (৫৪*) ও পিটার মুর (১০*)।

তবে বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হবে টেইলর-মুরের জুটি ভাঙা। প্রথম ইনিংসে এই জুটিই ভুগিয়েছে টাইগারদের। প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরি করা টেইলর এরই মধ্যে হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করে ফেলেছেন।

এর আগে দিনের প্রথম ইউকেটটি নেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। তিন নম্বরে নামা শন উইলিয়ামস ব্যক্তিগত ১৩ রানে মোস্তাফিজের বলে বোল্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন। আর ৪৮ ওভারের ষষ্ঠ বলে তাইজুলের বল তাইজুলকেই ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছেড়েছেন সিকান্দার রাজা (১২)।

তবে এদিন একটি মুল্যবান রিভিউ নষ্ট করে বাংলাদেশ। ম্যাচের ৪৫তম ওভারের পঞ্চম বলে খালেদ আহমেদের বলটি ইনসুইং করে ব্যাটসম্যান ব্রেনডন টেইলরের প্যাডে লাগে। স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছিল বলটি লেগ স্ট্যাম্পের বেশ বাইরে দিয়ে চলে যেতো। খালেদ এলবিডাব্লুর আবেদন করলে আম্পয়ার তা নাকচ করে দেন। আর সাথে সাথে মাহমুদউল্লাহ রিভিউর আবেদন করেন।

টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় বলটি সুইং করে লেগ স্ট্যাম্পের বেশ বাইরে দিয়ে চলে যেত। ফলে আম্পয়ারের সিদ্ধান্তই বহাল থাকে। আর মূল্যবান রিভিউটি নষ্ট হয় বাংলাদেশের।

এর আগে বুধবার ৪৪০ রানের লিড নিয়ে নিজের দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। এদিন শুরুর ঘণ্টায় ৪ উইকেট হারিয়ে ধাক্কা খেলেও মাহমুদউল্লাহ ও মোহাম্মদ মিঠুনের দৃঢ়তায় বড় রানে ভিত্তি পায় বাংলাদেশ।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে অধিনায়কের সাথে ১১৮ রানের জুটি গড়ে আউট হন মিঠুন। ১১০ বল খেলে ৬৭ রান করেছেন তিনি। তার আউটের পর অবশ্য দ্রুতই ফিরে যান আরিফুল হক। আগের ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরি করা মিরাজ এ ইনিংসে যোগ্য সঙ্গ দেন মাহমুদউল্লাহর। অবিচ্ছিন্ন এই জুটিতে আসে ৭৩ রান।

wifj.jpg

দীর্ঘ ৭ বছর পর চট্টগ্রামে পা রাখল ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল। বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটযোগে বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটাররা।

বিমানবন্দর থেকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ক্রিকেটারদের নিয়ে যাওয়া হয় নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন ‘রেডিসন ব্ল–’ হোটেলে। এখানেই তাদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বুধবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১০জন ক্রিকেটার বাংলাদেশে এসেছেন। বাকিদের বৃহস্পতিবার ঢাকায় আসার কথা রয়েছে।

বাংলাদেশ সফরে দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে উইন্ডিজ।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ২২ নভেম্বর প্রথম টেস্ট শুরু হবে। এর আগে বিসিবি একাদশের বিপক্ষে ১৮ নভেম্বর থেকে দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে হবে এ ম্যাচ। ৩০ নভেম্বর থেকে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু হবে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

টেস্ট সিরিজ শেষে শুরু হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। ৯ ও ১১ ডিসেম্বর ঢাকায় দুটি এবং ১৪ ডিসেম্বর সিলেটে তৃতীয় ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে দুইদল। ১৭ ডিসেম্বর সিলেটে হবে প্রথম টি-টোয়েন্টি। পরের দুটি টি-টোয়েন্টি ২০ ও ২২ ডিসেম্বর মিরপুরে অনুষ্ঠিত হবে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল সর্বশেষ ২০১১ সালে চট্টগ্রামে একটি ওয়ানডে ও একটি টেস্ট ম্যাচে অংশ নেয় বাংলাদেশের বিপক্ষে। ওই বছরের ১৮ অক্টোবর জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের কাছে আট উইকেটে হেরেছিল তারা।

afridi987.jpg

সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন পাকিস্তানের ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি। ইমরান খান সরকারের কাশ্মিরের দাবি ছেড়ে দেওয়া উচিত বলে জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে পাকিস্তান সরকারকে তার পরামর্শ, আগে নিজেদের চারটি প্রদেশ ভালোভাবে সামলানোর কথা ভাবুক ইসলামাবাদ। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে একটি আলোচনায় বক্তব্য রাখতে গিয়েই এই মন্তব্য করেন আফ্রিদি।

আফ্রিদির এই মন্তব্যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে পাকিস্তানে। কারণ ভারত বিরোধিতা এবং কাশ্মিরের অধিকার, এই দু’টি বিষয়ই পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে আফ্রিদির মন্তব্য, ‘নিজেদের চারটি প্রদেশই ভালোভাবে সামলাতে পারে না সরকার। সেখানে কাশ্মিরের কী দরকার?’

ব্রিটিশ পার্লামেন্টে আফ্রিদি অবশ্য জানিয়েছেন, ‘আমি চাই না কাশ্মির ভারতেও চলে যাক। এটা একটা স্বাধীন দেশও হতে পারে। ওখানকার মানুষের মৃত্যু আসলে সবার কাছেই বেদনার।’

কাশ্মির ইস্যু নিয়ে এর আগেও বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন আফ্রিদি। এই বছরের এপ্রিলেই তিনি কাশ্মিরে দমননীতি চালানোর অভিযোগ এনেছিলেন ভারতের বিরুদ্ধে। ২০১৬ সালেও তিনি বলে বসেছিলেন, ক্রিকেট ম্যাচের সময় কাশ্মিরের অধিকাংশ মানুষ আসলে পাকিস্তানকেই সমর্থন করেন। তাই নিয়েও তখন বিতর্ক শুরু হয়েছিল উপমহাদেশ জুড়েই।

bjgd.jpg

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের শতকের উপর ভর করে বড় লক্ষ্য দাঁড় করেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। সেঞ্চুরি করার পরপরই রিয়াদকে মাঠে সেজদাহ করতে দেখা যায়।উদযাপনের সময় সেজদাহ দিয়ে আল্লাহর কাছে শোকরিয়া আদায় করেন।

তখন ক্রিজে থাকা অপর ব্যাটসম্যান মিরাজকেও একসাথে সেজদাহ দিতে দেখা যায়! এই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

তৃতীয় দিন শেষে ২১৮ রানে এগিয়ে থেকে চতুর্থ দিন ব্যাটিং শুরু করে বাংলাদেশ। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের তোপের মুখে পড়ে স্বাগতিকরা। ২৫ রানেই চার উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন অধিনায়ক রিয়াদ। মিথুনের সঙ্গে জুটি বেঁধে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন তিনি। মিথুন ৬৭ রানে ফিরে গেলেও টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় শতক তুলে নেন রিয়াদ।

bd-zimad.jpg

ঢাকা টেস্টে জয়ের জন্য জিম্বাবুয়েকে ৪৪২ রানের চ্যালেঞ্জ ছুঁরে দিয়েছে বাংলাদেশ। চতুর্থ ইনিংসে এই রান তাড়া করে জিততে হলে জিম্বাবুয়েকে গড়তে হবে বিশ্বরেকর্ড। টেস্ট ইতিহাসে এত রান তাড়া করে জয়ের নজির নেই। টাইগারদের পাহাড়সম লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে চতুর্থ দিন শেষে ২ উইকেট হারিয়ে ৭৬ রান সংগ্রহ করেছে সফরকারি দল।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) পঞ্চম ও শেষ দিনে জিম্বাবুয়েকে সংগ্রহ করতে হবে আরও ৩৬৮ রান। হাতে আছে ৮ উইকেট। স্বাগতিকদের লক্ষ্য জিম্বাবুয়ের অবশিষ্ট ৮ উইকেট শিকার করা। তাহলেই প্রত্যাশিত জয় পাবে বাংলাদেশ। তবে অলৌকিক কিছু না ঘটলে আপাতত হারের শঙ্কা নেই মাহমুদউল্লাহর দলের। বড় জোর ড্র হতে পারে।

তবে চতুর্থ ইনিংসে পাহাড়সম লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে যেভাবে শুরু করেছিল জিম্বাবুয়ে। তাতে টাইগার শিবিরে আতঙ্ক ভর করেছিল। কিন্তু মেহেদী হাসান মিরাজ আর তাইজুল ইসলাম বাংলাদেশকে স্বস্তি এনে দেন। বিনা উইকেটে ৬৮ রান করা জিম্বাবুয়ে ২ উইকেট হারায় মাত্র দুই রানের ব্যবধানে। মুমিনুল হকের তালুবন্দি হয়ে হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে সাজঘরে ফিরতে বাধ্য করেন মিরাজ। আর ব্রায়ান চারিকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট শিকার করা তাইজুল ইসলাম। ফলে ২ উইকেটে ৭৬ রান নিয়ে চতুর্থ দিন শেষ করে জিম্বাবুয়ে। ব্রেন্ডন টেইলর ৪ এবং শন উইলিয়ামস ২ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন।

এরআগে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরির সুবাদে ৬ উইকেটে ২২৪ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। ফলে জিম্বাবুয়ের জয়ের টার্গেট দাঁড়ায় ৪৪৩ রান। ১২২ বলে ১০১ রানে অপরাজিত ছিলেন মাহমুদউল্লাহ। নিজের ইনিংসটি তিনি সাজান চার বাউন্ডারি আর দুই ছক্কায়। মেহেদি হাসান মিরাজ (২৭) আগের ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও অপরাজিত থাকলেন।

টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটিটি মোহাম্মদ মিথুন পেয়েছেন খুব গুরুত্বপূর্ণ সময়ে। জিম্বাবুয়েকে ফলোঅন না করিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমেই বিপদে পড়েছিল বাংলাদেশ। ২৬ রান স্কোরবোর্ডে জমা করতে না করতেই ফিরে গেলেন লিটন দাস, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিম। লিডটট যদিও সন্তোষজনকই ছিল, কিন্তু জিম্বাবুয়ের সামনে বিশাল রানের লক্ষ্য দাঁড় করানোর পথে শুরুতেই গড়বড়। এমন সময়ে হাল ধরলেন মিথুন, সঙ্গী হলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। নিজেদের মধ্যে ১১৮ রানের জুটি গড়ে সেই বিপদ থেকে দলকে রক্ষা করলেন তারা।

মিথুন ফিরেছেন ১১০ বলে ৬৭ রান করে। সিকান্দার রাজার বলে চাকাভার হাতে ক্যাচ দিয়ে। ৪টি চার ও একটি ছয় আছে তাঁর ইনিংসে। মাহমুদউল্লাহ ১০ ইনিংস পর ফিফটি পেয়েছেন। মিথুনের বিদায়ের পর উইকেটে এসে আরিফুল হক অবশ্য খুব বেশি সময় টিকে থাকতে পারেননি। ৫ রান করে শন উইলিয়ামসের বলে বোল্ড হয়েছেন তিনি। কাইল জার্ভিস ও ডোনাল্ড ত্রিপানো নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

প্রথম ইনিংসে মুশফিকুর রহীমের রেকর্ড ডাবল সেঞ্চুরি (২১৯),মুমিনুল হকের সেঞ্চুরি (১৬১) এবং মেহেদী হাসান মিরাজের ফিফটিতে (৬৮) রানের পাহাড় গড়ে বাংলাদেশ। ৭ উইকেটে ৫২২ রানে ইনিংস ঘোষণা করেন স্বাগতিক অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। জিম্বাবুয়ের হয়ে ৫ উইকেট নেন জার্ভিস।


About us

DHAKA TODAY is an Online News Portal. It brings you the latest news around the world 24 hours a day and 7 days in week. It focuses most on Dhaka (the capital of Bangladesh) but it reflects the views of the people of Bangladesh. DHAKA TODAY is committed to the people of Bangladesh; it also serves for millions of people around the world and meets their news thirst. DHAKA TODAY put its special focus to Bangladeshi Diaspora around the Globe.


CONTACT US

CALL US ANYTIME


Newsletter