প্রচ্ছদ Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

weather2.jpg

উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি আজ সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ উপকূল অতিক্রম করতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে।

আজ দুপুর ১টায় আবহাওয়া অফিস জানায়,‘উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি আরও উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকার কাছ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপকূল অতিক্রম শুরু করে আজ দুপুর ১২টায় উপকূলীয় পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ উপকূল অতিক্রম করতে পারে।’

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এদিকে নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ৪০ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। নিম্নচাপ কেন্দ্রের কাছে সাগর উত্তাল রয়েছে।

নিম্নচাপটির প্রভাবে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী ও চট্টগ্রাম এবং তাদের কাছাকাছি দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ থেকে ৫ ফুটের বেশি উচ্চতায় বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

নিম্নচাপটির প্রভাবে ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহ, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের অনেক স্থানে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে।

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

সেই সাথে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে। সূত্র: বাসস

coronavirusmgn10.jpg

করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে দেশে চব্বিশ ঘণ্টায় আরও ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময়ে ১৪ হাজার ১১৯টি নমুনা পরীক্ষা করে সংক্রমণ ধরা পড়েছে ১ হাজার ৫৮৬ জনের শরীরে।

দেশে গত মার্চের শুরুর দিকে কভিড-১৯ এর সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর শুক্রবার পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৫ হাজার ৭৬১ জনে।

আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৯৬ হাজার ৪১৩ জন। এর মধ্যে ১ হাজার  ৫৩৩ জনসহ সুস্থ হয়েছেন মোট ৩ লাখ ১২ হাজার ৬৫ জন।

দেশের সবশেষ করোনা পরিস্থিতি নিয়ে শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত ৮ মার্চ। এর ১০ দিনের মাথায় ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে।

weather-4-20190606151555.jpg

গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে উপকূলীয় অঞ্চলে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ০৩-০৫ ফুট অধিক উচ্চতার পানিতে নিমজ্জিত হতে পারে বলে সতর্ক করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সকালে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, বরগুনা,পটুয়াখালী, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরিশাল, ভোলা, লক্ষীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চাঁদপুর ও চট্টগ্রাম অঞ্চলসমূহ এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ০৩-০৫ ফুট অধিক উচ্চতার পানিতে নিমজ্জিত হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়, উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ স্থানে থাকার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।

এদিন দেশের সমুদ্র বন্দরগুলোকে ৪ (চার) নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার অধিদপ্তর জানিয়েছে, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায়; রাজশাহী , ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর বিভাগরে কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। সেইসাথে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারী থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে।

বৃষ্টির এই প্রবণতা পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে।

এরপর বৃষ্টিপাতের প্রবণতা কিছুটা কমে আসতে পারে।

weather-20191104233606.jpg

উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর আশপাশের এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে।

এর প্রভাবে শনিবার (২৪ অক্টোবর) ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে।

শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সকাল ৭টা থেকে পরবর্তী ৬ ঘণ্টার জন্য ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারিবর্ষণ হতে পারে। আকাশ আংশিক মেঘলা থেকে মেঘাচ্ছন্ন থাকতে পারে।

এদিকে শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) ভোর থেকেই রাজধানী ঢাকা ও উপকূলীয় জেলাগুলোসহ সারাদেশে টানা বৃষ্টি হচ্ছে।

বৈরী আবহাওয়ার কারণে বিভিন্ন রুটে অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় থেমে থেমে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হচ্ছে। তবে কক্সবাজারে বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গে রয়েছে বাতাসও।

আর আগে বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) গভীর রাত থেকে রাজধানীতেও ঝুমবৃষ্টি শুরু হয়। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বৃষ্টিও কমতে থাকে।

শুক্রবার সকাল থেকে কিছুটা কমে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে রাজধানীতে। কোথা কোথাও বৃষ্টির পানি জমে রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে যে কোনও ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে নৌপথে বন্ধ রয়েছে ছোট আকৃতির নৌযান চলাচল।

আবহাওয়ার ৪ নম্বর বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আরও উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে।

শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সকাল ৬টায় এটি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৪৫ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৪৫ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ২৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর দিকে অগ্রসর হতে পারে।

গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের কাছে সাগর উত্তাল রয়েছে।

গভীর নিম্নচাপটির প্রভাবে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী ও চট্টগ্রাম এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ থেকে ৪ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এ ছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

Vaccine3.jpg

দেশীয় গ্লোব বায়োটেকের ব্যানকোভিড ভ্যাকসিনের দাম হতে পারে প্রায় সাড়ে তিন হাজার টাকা।

এটি সফল হলে বাংলাদেশের চাহিদা মেটানোর পরই বিভিন্ন দেশে রফতানি করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদ।

এদিকে, হিউম্যান ট্রায়ালের আগেই বিশ লাখ ডোজ টিকা কিনতে সমঝোতা করেছে নেপাল।

গ্লোবের চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদ বলেন, বাংলাদেশে তৈরি করোনা ভ্যাকসিন ব্যানকোভিডের দুই মিলিয়ন ডোজ ক্রয়ের সমঝোতা হয়েছে নেপালের আনমোল ফার্মাসিক্যাল। আগ্রহী আরো বেশ কয়েকটি দেশ। তবে তিনি এই দেশটির নাম বলেননি।

নেপালের অ্যাম্বাসেডর ডা. বনশ্রীধর মিশ্রা বলেন, তারা এই ভ্যাক্সিন নিতে আগ্রহী। সফল হলে সরকারিভাবে ক্রয় করতে চান তারা।

বাংলাদেশ সরকার চাইলে নেপাল ক্লিনিক্যাল ট্রায়েলে আগ্রহী নেপাল।

গ্লোব বায়োটেকের প্রধান বলেন, বাংলাদেশকে সন্তুষ্ট করই আমদানি হবে ব্যানকোভিড।

দামের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না হলেও অন্য ভ্যাকসিনের চেয়ে তা তুলনামূলক কম হবে বলে জানান তিনি।

শিগগিরই মানবদেহে প্রয়োগের অনুমতি চাইতে সিআরও এর মাধ্যমে বিএমআরসিতে আবেদন জমা দিবে গ্লোব বায়োটেক।

এর আগে, গত ৫ অক্টোবর গ্লোব জানায়, গ্লোব সফলভাবে প্রাণিদেহে তাদের ট্রায়াল সম্পন্ন করেছে, এখন হিউম্যান ট্রায়ালে যওয়ার জন্য প্রস্তুত।

সেদিন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান মো. হারুনুর রশীদ জানান, সব ঠিকঠাক থাকলে, সরকারের সার্বিক সহযোগিতা পেলে ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির শুরুতে আসবে। তবে এজন্য তিনি সরকারের পৃষ্ঠপোষকতার জন্য আবেদন করেন।

rohinga-20190929110639.jpg

রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশে ফিরতে ইচ্ছুক হওয়ায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত আন্তরিকভাবে তাদের প্রত্যাবাসনের পরিবেশ তৈরিতে কাজ করা।

যত দ্রুত সম্ভব রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে- বলেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটের টেকসই সমাধান নিয়ে আলোচনার জন্য আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সম্মেলনে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এ কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এক সম্মেলনে একত্রিত করে এবং তারা রোহিঙ্গা ও তাদের আশ্রয়দাতাদের সমর্থন করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে।

ভার্চুয়াল সম্মেলনে ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়াসহ অন্যান্য আঞ্চলিক দেশগুলোও অংশ নেয়।

জাতিসংঘের ৭৫তম সাধারণ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সমস্যাটি মিয়ানমার তৈরি করেছে এবং এর সমাধান মিয়ানমারকে খুঁজে বের করতে হবে।

বাংলাদেশ আর এ বোঝা (রোহিঙ্গা) বহন করার মতো অবস্থানে নেই এবং রোহিঙ্গাদের অবশ্যই অবিলম্বে তাদের স্বদেশে ফিরে যেতে হবে।

তিনি বলেন, যখন দ্বিতীয় কোনো দেশ রোহিঙ্গাদের দায়িত্ব নিতে রাজি ছিল না, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কেবল দেশের সীমান্ত খুলে দিয়েছিলেন এবং লাখ লাখ রোহিঙ্গার জীবন রক্ষা করেছিলেন।

মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, গত তিন বছরে প্রত্যাবাসনের অগ্রগতির অভাবে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মধ্যে ব্যাপক হতাশার সৃষ্টি হয়েছে।

এ জন্য তারা মানবপাচার, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ছে।

নিরবচ্ছিন্ন মানবিক সহায়তার পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের জরুরি প্রত্যাবাসন বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় রাজনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানান তিনি।

ভার্চুয়াল এ সম্মেলনে রোহিঙ্গা, তাদের আশ্রয়দাতা এবং মিয়ানমারে অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত মানুষের জন্য সহায়তা বাড়াতে দেশগুলোর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন আয়োজকরা।

sahariarmp.jpg

এক লাখ রোহিঙ্গাকে নোয়াখালীর ভাষানচরে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত আন্তর্জাতিক মহলকে অবহিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের একথা জানান তিনি। প্রতিমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান শুধু প্রত্যাবাসনের মধ্যে দিয়েই সম্ভব।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন,  আমরা মনে করি, রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান প্রত্যাবাসনের মধ্য দিয়ে সম্ভব।

বাংলাদেশ সার্বভৌমত্ব এবং নিরাপত্তা প্রশ্নে যেকোন সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তারই ধারাবাহিকতায় অনুযায়ী ইতিমধ্য কাজ শুরু হয়েছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাউন্ডারি ওয়াল করা হচ্ছে। ভাষানচরে একলাখ রোহিঙ্গা নিয়ে যাওয়া হবে।

আমাদের এই সিদ্ধান্তের বিষয়টি আমরা তাদেরকে জানিয়ে দিয়েছি।

primary3.jpg

নিরাপদ সড়ক দিবসের দিনে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য নতুন নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেছেন, ‘দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে প্রত্যেকটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক রুলের পোস্টার লাগিয়ে রাখতে হবে।’

বৃহস্পতিবার সড়ক দিবসের অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালে যুক্ত হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘ট্রাফিক আইন মেনে চলা সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। চালকদের পাশাপাশি পথচারীদেরও সচেতন থাকতে হবে।

সেখানে সচেতনতার খুব অভাব। বারবার বলছি এখনো বলছি, ছোট বাচ্চাদের স্কুলজীবন থেকে শুরু করে প্রত্যেকটা জায়গায় এই ট্রাফিক আইন সম্পর্কে শিক্ষা দিতে হবে। তাদের সচেতন করা প্রয়োজন।’

‘এ কারণে প্রত্যেকটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালত সব জায়গায় ওই ট্রাফিক রুলের পোস্টার লাগিয়ে রাখতে হবে। যেন শিশুসহ মানুষ সচেতন হয়।’ যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সব চালককে ‘ডোপ টেস্ট’ করোনারও নির্দেশ দেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, ‘যারা গাড়ি চালাচ্ছে, তারা মাদক সেবন করে কিনা? তাদের ডোপ টেস্টের মাধ্যমে তা পরীক্ষা করা দরকার।

প্রত্যেকটা চালকের এ পরীক্ষাটা একান্তভাবে অপরিহার্য। এ পরীক্ষাটা করতে হবে।’

‘সড়ক নির্মাণে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার তাগিদ দিয়ে’ সরকারপ্রধান বলেন, ‘দেশে প্রচুর পরিমাণে সড়ক, সেতু, কালভার্ট নির্মাণ করা হচ্ছে।

এসব নির্মাণে যেন প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষা করা হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। পাশাপাশি স্থানীয় মানুষ যাতে এসব থেকে উপকৃত হয় তার ব্যবস্থা নিতে হবে।’

অনুষ্ঠানে সড়কের উন্নয়নে সরকারের গৃহীত নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন বঙ্গবন্ধুকন্যা।

বলেন, ‘রাজধানীর সঙ্গে দেশের জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের যোগাযোগ ব্যবস্থা করেছে সরকার।

যোগাযোগ ব্যবস্থার আরও উন্নয়নে মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। দুর্ঘটনা এড়াতে সড়কের বাঁক কমানো হয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সড়ক শুধু তৈরিই করিনি, সেই সড়ক নিরাপদ করারও চেষ্টা করেছি।

কোথায় কোথায় সড়ক দুর্ঘটনা বেশি হচ্ছে, কেন বেশি হচ্ছে সেসব নজর রেখেছি।

মহাসড়কের যেখানে যেখানে দুর্ঘটনা হয়, সেই জায়গাগুলো নিরাপদ করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।’

weathear-20180502165337.jpg

মধ্য বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া লঘুচাপের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হা্ওয়াসহ ভারি বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া সারাদেশে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

আগামীকাল শুক্রবার পর্যন্ত এই প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহা্ওয়া অধিদপ্তর।

এ জন্য সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত এবং নদী বন্দরের মধ্যে কিছু এলাকায় ২ এবং কিছু এলাকায় ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, লঘুচাপটি উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে আরও ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে।

এটি এখন পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

বুধবার বিকেল ৬টার পূর্বাভাসে বলা হয়, লঘুচাপের প্রভাবে ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রাজশাহী, ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।

সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা থেকে পরবর্তী ৬ আকাশ আংশিক মেঘলা থেকে অস্থায়ীভাবে মেঘলা থাকতে পারে। হালাকা বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।

corona24.jpg

করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে দেশে চব্বিশ ঘণ্টায় আরও ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময়ে ১৪ হাজার ৯৫৮টি নমুনা পরীক্ষা করে সংক্রমণ ধরা পড়েছে ১ হাজার ৬৯৬ জনের শরীরে।

দেশে গত মার্চের শুরুর দিকে কভিড-১৯ এর সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৫ হাজার ৭৪৭ জনে।

আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৯৪ হাজার ৮২৭ জন। এর মধ্যে ১ হাজার  ৬৮৭ জনসহ সুস্থ হয়েছেন মোট ৩ লাখ ১০ হাজার ৫৩২ জন।

দেশের সবশেষ করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত ৮ মার্চ। এর ১০ দিনের মাথায় ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে।