রকমারি Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

taka56.jpg

সফল বা ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে নিজের নাম করে নিতে কে না চায়! সে চাকরি অথবা ব্যবসা যে উপায়েই হোক না কেন।

কিন্তু অনেকের জন্য ধনী হওয়া সহজ হয় না। বর্তমানে যাদের শীর্ষ ধনী বলা হচ্ছে তারা বিশ্বের অর্ধেক মানুষের সমান সম্পদের মালিক। মাত্র দুই হাজার মানুষ শীর্ষ ধনী।

জানলে অবাক হবেন, ১০০ কোটি গরিবের যে সম্পদ রয়েছে তারচেয়ে চারগুণ বেশি সম্পদের মালিক এই দুই হাজার ব্যক্তি।

তবে এমন ধনী হওয়ার আশা না করলেও তুলনামূলক বেশি সম্পদের মালিক হতে নিশ্চয় চান! সম্পদের মালিক হতে গেলে জীবনের অনেক অভ্যাস বদলে ফেলতে হবে। আসুন জেনে নেয়া যাক এর জন্য কোন কাজগুলো ঠিকঠাক করতে হবে বা অনুসরণ করতে হবে-

ঝুঁকি গ্রহণ সফল হতে চান কিন্তু ঝুঁকি নিতে নারাজ, তা হবে না। কারণ সফলতার পথ মোটেও সহজ নয়।

তাই ঝুঁকি আছে জেনেই আগাতে হবে। তাই সতর্কতার সঙ্গে ঝুঁকি গ্রহণ করার মনোভাব নিয়েই এগিয়ে চলুন।

পদক্ষেপ নেন সফলতার জন্য আপনাকে পদক্ষেপ নিতেই হবে। বসে থাকলে বা শুধু চিন্তা করলে কখনোই সফল হওয়া যাবে না।

তাই আগামীতে কি করবেন তা নিয়ে ভাবুন। আর পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

ব্যর্থতাকে জয় করুন একবার ব্যর্থ হলে অনেকেই আর সফল হবে না ভেবে থেমে যান। থেমে যাওয়া কখনোই সমাধান নয়।

ব্যর্থতাকে আপনি অভিজ্ঞতা অর্জন হিসেবে গ্রহণ করুন, আর এগিয়ে যান। সফল আপনি হবেনই।

নিজের স্বপ্নকে অনুসরণ করুন প্রতিটি মানুষেরই নিজের কিছু স্বপ্ন থাকে। আর যারা ভালো কিছু করার স্বপ্ন দেখেন, তাদের তা পূরণের চেষ্টা করে যাওয়া উচিত। নিজের স্বপ্নকে অনুসরণ করে জীবন পরিচালিত করুন। তবেই সফলতা আপনার হবেই হবে।

প্রতিদিন নতুন কিছু শেখা জীবনে সফল হতে চাইলে প্রতিদিন কিছু না কিছু শেখার চেষ্টা করুন।

কারণ সফল মানুষরা প্রতিদিনই নতুন কিছু শেখার চেষ্টা করেন।

৮৮ ভাগ ধনী লোক প্রতিদিন ৩০ মিনিট বা তারও বেশি সময় কঠোরভাবে জানতে এবং নিজেকে শিক্ষিত করতে ব্যয় করেন।

চিন্তা নিয়ন্ত্রণ ৯১ ভাগ ধনী ব্যক্তি নিজেই সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী। আপনারও নিজস্ব কিছু চিন্তা আছে নিশ্চয়! একটি বড় কল্পনা শক্তি আছে।

আপনি যা কিছু করছেন তার মালিক আপনিই। তাই নিজের চিন্তাকেই নিয়ন্ত্রণ করুন। সফলতা আপনারই হবে।

দায়িত্বশীলতা দায়িত্বজ্ঞানহীন মানুষ কখনোই সফল হতে পারে না। তাই নিজের কাজের প্রতি দায়িত্বশীল হোন।

বরং আপনি সুযোগ খোঁজেন, যা আপনাকে আরো দায়িত্ববান করবে।

আউটওয়ার্ক করা ধনী ব্যক্তিরা দিন, সপ্তাহ, মাস এবং বছরব্যাপী কাজ করতে ভয় পান না।

বরং ধনী ব্যক্তিরা সপ্তাহে গড়ে ১১ ঘণ্টা বেশি কাজ করেন ধনহীনদের তুলনায়।

দৃঢ়সংকল্প লক্ষ্য পূরণের জন্য ক্রমাগত দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ হতে হবে। লক্ষ্যের পেছনে ছুটেই জীবনে নিজেকে সামনে এগিয়ে নিতে হবে।

ধনীদের ৮০ ভাগই লক্ষ্য কেন্দ্রীক। তারা লক্ষ্য অর্জনে অভ্যস্ত হতে অভ্যাস গড়ে তোলেন।

প্রত্যাশাকে অতিক্রম প্রত্যাশাকে অতিক্রম করা গুরুত্বপূর্ণ। আপনি অন্যদের প্রত্যশাকে অতিক্রম করার চেষ্টা করুন।

তবেই ধনী হতে সক্ষম হবেন।

সম্পর্কে অন্ধবিশ্বাসী ছোট থেকে বড় সব সম্পর্ককেই গুরুত্ব দিন। সবার সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন।

আপনার মূল্যবান সম্পর্ক আপনার জন্য নানা দ্বার খুলে দেবে। সম্পর্ক আপনার কাছে মুদ্রার মতো।

অন্যকে প্রাধান্য দিন লোকজন আপনাকে পছন্দ করে। তারা আপনার সঙ্গে কাজ করতে এবং ব্যবসা করতে পছন্দ করে।

আপনি লোকদের প্রফুল্ল হতে, সুখী, উৎসাহী এবং আশাবাদী করে তোলেন।

police31.jpg

দাড়ি রাখার কারণে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয় ভারতের উত্তরপ্রদেশের উপপরিদর্শক (এসআই) ইন্তেসার আলী।

পরে চাকরি ফিরে পাওয়ার জন্য আবেদনও করেছিলেন তিনি। তবে কোনো লাভ হয়নি। শেষ পর্যন্ত দাড়ি কাটতে রাজি হওয়ায় চাকরি ফিরে পাচ্ছেন তিনি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রোববার এই সংক্রান্ত একটি নোটিশ জারি করে তাকে কাজে পুর্নবহাল করার কথা জানানো হয়েছে উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের তরফ থেকে।

পুলিশ ম্যানুয়ালের ড্রেস কোড না মেনে দাড়ি রাখার জন্য গত ২০ অক্টোবর সাসপেন্ড করা হয় উত্তরপ্রদেশের বাগপত জেলার রামলালা থানার এসআই ইন্তেসার আলীকে।

এর আগে পুলিশ সুপার অভিষেক সিং তাকে তিনবার দাড়ি কেটে ফেলার জন্য নির্দেশ দিলেও রাজি হননি তিনি।

এরপরই অনুমতি ছাড়া দাড়ি রাখার জেরে তাকে সাসপেন্ড করা হয়।

বর্তমানে নিজের আগের অবস্থান থেকে সরে এসে দাড়ি কাটতে রাজি হওয়ায় তাকে চাকরিতে পুনর্বহাল করা হচ্ছে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন।

এ বিষয়ে বাগপত জেলার পুলিশ সুপার অভিষেক সিং বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে দাড়ি রাখার জন্য বাগপত জেলার এসআই ইন্তেসার আলীকে সাসপেন্ড করা হয়েছিল।

আজ তিনি আমার কাছে লিখিত আবেদন করেছেন যে, পুলিশ ম্যানুয়াল মেনে তিনি দাড়ি কাটতে রাজি আছেন।

তাই সাসপেনশন প্রত্যাহার করে তাকে ফের কাজে যোগ দিতে বলা হয়েছে।’

পুলিশ কর্মকর্তা ইন্তেসার আলীর ভাষ্য, ‘২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে দাড়ি রাখার আবেদন জানিয়ে চিঠি দিয়েছিলাম।

কিন্তু, এখনো তার জবাব পাওয়া যায়নি। গত ২৫ বছর ধরে উত্তরপ্রদেশ পুলিশে কাজ করছি।

কিন্তু, এতদিন পর্যন্ত কেউ আমাকে দাড়ি রাখতে বাধা দেয়নি। কিন্তু, এখনই যত সমস্যা হচ্ছে।’

police31.jpg

দাড়ি রাখার কারণে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিলেন ভারতের উত্তর প্রদেশের উপপরিদর্শক (এসআই) ইন্তেসার আলীকে।

পরে চাকরি ফিরে পাওয়ার জন্য আবেদনও করেছিলেন তিনি। তবে কোনো লাভ হয়নি।

শেষ পর্যন্ত দাড়ি কাটতে রাজি হওয়ায় চাকরি ফিরে পেলেন তিনি। দাড়ি কেটে কাজেও যোগ দিয়েছেন ইন্তেসার আলী।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রোববার এই সংক্রান্ত একটি নোটিশ জারি করে ইন্তেসার আলীকে কাজে পুর্নবহাল করার কথা জানানো হয়েছে উত্তর প্রদেশ প্রশাসনের তরফ থেকে।

পুলিশ ড্রেস কোড না মেনে দাড়ি রাখার কারণে গত ২০ অক্টোবর বরখাস্ত করা হয় উত্তর প্রদেশের বাগপত জেলার রামলালা থানার এসআই ইন্তেসার আলীকে।

এর আগে পুলিশ সুপার অভিষেক সিং তাকে তিনবার দাড়ি কেটে ফেলার নির্দেশ দিলেও রাজি হননি তিনি। এরপরই অনুমতি ছাড়া দাড়ি রাখার জেরে তাকে বরখাস্ত করা হয়।

বর্তমানে নিজের আগের অবস্থান থেকে সরে এসে দাড়ি কাটতে রাজি হওয়ায় তাকে চাকরিতে পুনর্বহাল করা হচ্ছে জানিয়েছে একাধিক সংবাদমাধ্যম।

এ বিষয়ে বাগপত জেলার পুলিশ সুপার অভিষেক সিং বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে দাড়ি রাখার জন্য বাগপত জেলার এসআই ইন্তেসার আলীকে বরখাস্ত  করা হয়েছিল।

আজ তিনি আমার কাছে লিখিত আবেদন করেছেন যে, পুলিশ ম্যানুয়াল মেনে তিনি দাড়ি কাটতে রাজি আছেন।

তাই সাসপেনশন প্রত্যাহার করে তাকে ফের কাজে যোগ দিতে বলা হয়েছে।’

vikkhuk.jpg

প্রতারণার অভিযোগে এক নারী ভিক্ষুককে গ্রেফতার করেছে মিসরের পুলিশ।

সুস্থসবল হয়েও হুইল চেয়ারে বসে দেশটির বিভিন্ন প্রদেশে ভিক্ষা করতেন ৫৭ বছর বয়সী ওই নারী।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে গালফ নিউজ এক প্রতিবেদনে জানায়, ওই ভিক্ষুক পাঁচটি বিশাল ভবনের মালিক।

শুধু তাই নয়, তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রায় তিন মিলিয়ন মিসরীয় পাউন্ড (প্রায় এক কোটি ৬২ লাখ টাকা) গচ্ছিত আছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এত সম্পদের মালিক হয়েও ওই নারী মানুষকে ধোকা দিয়ে হুইল চেয়ারে বসে মিসরের বিভিন্ন প্রদেশে ভিক্ষা করতেন।

নিজেকে প্রতিবন্ধী পরিচয় দিয়ে তিনি এই বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন।

কিন্তু সম্প্রতি এক ব্যক্তি ওই নারীকে হুইল চেয়ার ছেড়ে হাঁটতে দেখে ফেলে। তার পরই সামনে চলে আসে নাফিসা নামের ওই কোটিপতি ভিক্ষুকের আসল চরিত্র।

পুলিশ জানিয়েছে, নাফিসাকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং তার বিপুল সম্পদের ব্যাপারে তদন্ত করা হচ্ছে।

ভ্রমণ পিপাসু মানুষের জন্য সুখবর এসেছে।সারা দেশে নতুন ৮০০ পর্যটন স্থান চিহ্নিত করেছে পর্যটন করপোরেশন।

রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ তথ্য জানায় মন্ত্রণালয়।

সংসদীয় কমিটি বলেছে, নতুন ৮শ’ পর্যটন এলাকা বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ে তালিকভুক্ত করতে হবে।

পর্যটকদের আকর্ষণীয় করে তুলতে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন। জনপ্রতিনিধিরা এ কাজে  সম্পৃক্ত করতে হবে।

কমিটির সভাপতির আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, আশেক উল্লাহ, আনোয়ার হোসেন খান এবং সৈয়দা রুবিনা আক্তার অংশ নেন।

saintmartin-20191111102201.jpg

বৈরী আবহাওয়ায় সেন্টমার্টিনে বেড়াতে এসে চার শতাধিক পর্যটক তিন দিন ধরে দ্বীপে আটকে পড়ছেন।

আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ায় আজ রোববার (২৫ অক্টোবর) বিকেলে সেন্টমার্টিন থেকে এসব পর্যটক ফিরে যাওয়ার অনুমতি পেয়েছেন।

গত বুধবার কক্সবাজারের পর্যটকবাহী জাহাজ ও নৌযানে ভ্রমণে এসে তারা সেখানে আটকে পড়েন।

অন্যদিকে, নৌযান চলাচল বন্ধ থাকায় টেকনাফে আটকে পড়েন দ্বীপের দেড়শ’ মানুষ।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র চট্টগ্রাম অঞ্চলের উপপরিচালক নয়ন শীল বলেন, ‘আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ায় নৌপথে জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

কাল পরিস্থিত ভালো থাকলে কক্সবাজার থেকে পর্যটকবাহী জাহাজ সেন্টমার্টিনে যেতে পারবে। এই জাহাজে করে দ্বীপে আটকা পড়া পর্যটকরা ফিরবেন।’

বিশ্বে আপনার টিকে থাকার জন্য অর্থ অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। এটি সমস্ত অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত এবং ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তেরও ভিত্তি।

যদি অনেকেই আছেন যারা বেশি ব্যয় করেন আবার অনেকেই আছেন যারা সঞ্চয় করতে পছন্দ করেন।

রাশিচক্রের লক্ষণগুলো আমাদের অর্থ ব্যয় করার উপায়কে প্রভাবিত করে।

তবে কিছু রাশি রয়েছে যারা তাদের অর্থ সবচেয়ে ভালোভাবে পরিচালনা করতে পারেন। চলুন সেই রাশিগুলো সম্পর্কে জেনে আসি।

মকর : 

এই রাশির লোকেরা অত্যন্ত নিখুঁত এবং পরিশ্রমী। তারা পর্যাপ্ত অর্থ উপার্জনের জন্য উসমাজে উচ্চ স্তরের হিসাবে বিবেচিত হয়।

বেশিরভাগ ক্যারিয়ার-ভিত্তিক, মকররা উপযুক্ত মানসিকতা এবং শীর্ষে পৌঁছানোর এবং সাফল্য অর্জনের দৃঢ় সংকল্পের অধিকারী।

তারা কঠোর পরিশ্রম করতে এবং তাদের স্বপ্ন এবং লক্ষ্যগুলি অনুসরণ করতে ভয় পায় না।

বৃষ : 

এই রাশির চিহ্নটি পাঁচটি অঙ্গ সংজ্ঞার উপর নির্ভর করে। অর্থাৎ স্বাদ, গন্ধ, দর্শন, শ্রবণ এবং স্পর্শ।

বুদ্ধিদীপ্তভাবে এই ইন্দ্রিয়গুলিকে একসাথে উদ্দীপিত করার ফলস্বরূপ, বৃষরাশিরা নিজেরাই আর্থিক সম্পদকে আকর্ষণ করতে পারে।

তাদের অর্থ কোথায় এবং কীভাবে ব্যয় করবে সে সম্পর্কে তারা বুদ্ধিমানের মতো সিদ্ধান্ত নেয়।

কুম্ভ : 

কুম্ভ রাশির জাতরা সৃজনশীল। তারা বিভিন্ন পদ্ধতির উদ্ভাবন এবং অর্থনীতির মূল বিষয়গুলো জানতে আগ্রহী।

তারা ইতিবাচক ফলাফলের জন্য এবং পরিবর্তনের জন্য উপায়গুলো বের করার চেষ্টা করে। এর মাধ্যমে তারা একাধিক অর্থনৈতিক সুযোগ দেয়।

তুলা :

তুলা রাশির জাতকদের অত্যন্ত মোহনীয় বলে মনে করা হয়। তারা তাদের কর্তব্যগুলো নিখুঁত এবং সমন্বয়ের সঙ্গে সম্পন্ন করে।

তারা পরিশ্রমী হয় এবং অর্থকে আকৃষ্ট করেন। তারা তাদের চূড়ান্ত অর্জন না হওয়া পর্যন্ত কোনো কিছুতেই থামে না।

কন্যা : 

কন্যারাশির জাতরা অত্যন্ত সম্পদশালী হওয়ার জন্য সুস্পষ্ট দৃষ্টি রাখে। তাদের আর্থিক বিষয় এবং প্রাচুর্যের দিকে দৃষ্টি দেয়।

তাদের এই বৈশিষ্ট্য তাদের পছন্দসই আর্থিক লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে পারে। তারা প্রচুর পরিশ্রমী হয়।

Indian-visa-Bangladesh-22-2001180804.jpg

করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘ আট মাস বাংলাদেশ-ভারত বিমান চলাচল বন্ধ থাকার পর তা আবার চালু হচ্ছে। ইতোমধ্যে যাত্রীদের জন্য একটি গাইডলাইন প্রকাশ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশে ভারতীয় হাই কমিশনের ওয়েবসাইটে এই নির্দেশিকা দেওয়া হয়।

নির্দেশিকায় বলা হয় : 

* টুরিস্ট ভিসা ছাড়া বাংলাদেশি নাগরিকরা সকল বিভাগের ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। কেবলমাত্র আকাশপথ ও নৌ-রুটের মাধ্যমে ভারতে প্রবেশ করা যাবে।

এছাড়া টুরিস্ট ভিসা এবং মেডিকেল ভিসা ছাড়া, যে সকল ভিসা ১২ মার্চ থেকে স্থগিত রয়েছে কেবলমাত্র সেগুলো আকাশপথ/নৌ-রুটের মাধ্যমে ভারতে যাওয়ার জন্য চালু করা হয়েছে।

বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুসারে বাংলাদেশের সমস্ত কূটনৈতিক বা সরকারি পাসপোর্টধারীরা ভারতে ভ্রমণের জন্য ভিসার প্রয়োজন হবে না।

এছাড়া যেকোনো ভারতীয় নাগরিক এবং ওসিআই কার্ডধারীরা।

গাইডলাইনে আরো বলা হয়, যাত্রীদের নির্ধারিত ভ্রমণের তারিখের কমপক্ষে ২ ঘণ্টা আগে অনলাইন পোর্টাল ‘এয়ার সুবিধা’

(www.newdelhiairport.in)-এ একটি ফর্ম জমা দিতে হবে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আদেশ অনুসারে, সমস্ত আন্তর্জাতিক যাত্রীদের বাধ্যতামূলকভাবে বোর্ডিংয়ের আগে যেকোনো সময় ফর্মটি পূরণ করতে হবে।

এছাড়া ভারতে যেতে ইচ্ছুক যাত্রীদের এই পোর্টালে একটি প্রতিজ্ঞাপত্র দিতে হবে। সেটা হচ্ছে- বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিনের জন্য নিজস্ব ব্যয়ে কোয়ারেন্টাইনে থাকা। এছাড়া স্বাস্থ্য বিভাগের পর্যবেক্ষণে নিজ বাড়িতে ৭ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে।

যদি কোনো যাত্রী অব্যাহতি চান তবে তারা বোর্ডিংয়ের কমপক্ষে ৭২ ঘণ্টা আগে এয়ার সুবিধা পোর্টালে আবেদন করবেন।

অনলাইন পোর্টালে যোগাযোগের মাধ্যমে সরকারের গৃহীত সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে।

অব্যাহতির কারণ হলো:

গর্ভবতী নারী, পরিবারের কারো মৃত্যু, গুরুতর অসুস্থ, ১০ বছরের কম বয়সী বাচ্চাদের সঙ্গে বাবা-মা, করোনা নেগেটিভ সনদ (আরটি পিসিআর পরীক্ষার) সংযুক্ত করতে হবে।

করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট (আরটি পিসিআর টেস্ট): বন্দর ছাড়ার ৯৬ ঘণ্টার আগে এই সার্টিফিকেট নিতে হবে।

চূড়ান্ত সার্টিফিকেট যদি ফ্লাইটের ৭২ ঘণ্টা আগে পাওয়া না যায় তবে যাত্রীরা রিপোর্টটি বহন করতে পারবেন এবং বিমানবন্দরে পৌঁছানোর সময় এটি প্রদর্শন করতে পারবেন।

এ জাতীয় যাত্রীরা এয়ার সুবিধায় ছাড়ের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারেন। সেখানে তারা উল্লেখ করতে পারেন ‘ফলাফল আসার অপেক্ষায় রয়েছেন’।

সবশেষ প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড় পাওয়া যাত্রীরা তাদের চূড়ান্ত গন্তব্যে যেতে অভ্যন্তরীণ বিমানসহ অন্যান্য পাবলিক ট্রান্সপোর্টে ব্যবহার করতে পারবেন।

IELTS-2.jpg

IELTS (International English Language Testing System) হচ্ছে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ইংরেজি ভাষার দক্ষতার সনদ।

এই পরীক্ষার মাধ্যমে মূলত ইংরেজিতে আপনার দক্ষতা কতটুকু সেটি যাচাই করা হয়।

IELTS পরীক্ষা দু’ধরনের হয়- একটি একাডেমিক, আরেকটি জেনারেল ট্রেনিং।

যারা উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে যেতে ইচ্ছুক, তাদেরকে দিতে হয় একাডেমিক পরীক্ষা। আর মাইগ্রেশন, ট্রেনিং এবং প্রফেশনালদের জন্য জেনারেল। যে কেউ এই পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে। এই পরীক্ষা দেয়ার জন্য কোনো শিক্ষাগত যোগ্যতার দরকার নেই।

টেস্ট ফরম্যাট

একাডেমিক এবং জেনারেল দুই মডিউলেই মোট চারটি বিষয়ে দক্ষতা যাচাই করা হয়- লিসেনিং, রাইটিং, রিডিং এবং স্পিকিং। লিসেনিং, রাইটিং এবং রিডিং পরীক্ষা হবে একইদিনে কোনোরকম বিরতি ছাড়া।

তবে স্পিকিং পরীক্ষা হবে এক সপ্তাহ আগে অথবা পরে। পরীক্ষার আগে দিন-তারিখ জানিয়ে দেয়া হবে।

মানে আপনাকে দুদিন পরীক্ষা দিতে হবে। পরীক্ষার সময়সীমা মোট ২ ঘন্টা ৪৫ মিনিট।

রাইটিং (Writing)

সময়সীমাঃ ৬০ মিনিট
রাইটিং এ সাধারণত যাচাই করা হয় আপনি কতটুকু কল্পনা শক্তি খাটাতে পারেন। এক ঘণ্টার মাঝে আপনাকে দুটি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে।

প্রথম প্রশ্নে একটি গ্রাফ, চার্ট, ডায়াগ্রাম অথবা ম্যাপ দেয়া থাকবে। সেটি দেখে আপনাকে বিশ্লেষণ করতে হবে।

আর দ্বিতীয় প্রশ্নে একটি আর্গুমেন্ট অথবা স্টেটমেন্ট দেয়া থাকে যেটির পক্ষে-বিপক্ষে আপনাকে যুক্তি উপস্থাপন করতে হবে।

বলে রাখা ভালো, দ্বিতীয় প্রশ্নে প্রথম প্রশ্নের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ নাম্বার থাকে। তাই এ প্রশ্নের উত্তর আগে দেয়াই ভালো।

প্রথম প্রশ্নের জন্য ২০ মিনিট সময় ব্যয় করতে পারেন। প্রথম প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে ১৫০ শব্দের মাঝে।

অপরদিকে দ্বিতীয় প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে ২৫০ শব্দের ভিতরে। আপনি চাইলে শব্দসীমার বাইরেও কিছু লিখতে পারেন, তবে কোনোভাবেই কম লেখা যাবে না।

তাহলে নাম্বার কাটা যাবে। একাডেমিক এবং জেনারেল ট্রেনিং-এর রাইটিং এ প্রথম প্রশ্নে একটু পার্থক্য আছে।

জেনারেলের ক্ষেত্রে ডায়াগ্রাম, চার্ট ইত্যাদির জায়গায় একটি চিঠি লিখতে হয়; সেটি ফরমাল, ইনফরমাল অথবা পার্সোনাল হতে পারে। দ্বিতীয় প্রশ্ন দুই মডিউলেই একই।

স্পিকিং (Speaking)

সময়সীমাঃ ১০-১৫ মিনিট

আপনি কতটুকু গুছিয়ে আর কতটা সাবলীলভাবে ইংরেজি বলতে পারেন, এই টেস্টের মাধ্যমে সেটিই যাচাই করা হয়।

একজন ট্রেইনারের সাথে আপনার কথোপকথন করতে হবে। এই পরীক্ষাটি ৩টি অংশে ভাগ করা যায়।

প্রথম অংশে আপনার ব্যক্তিগত কিছু বিষয়ে জানতে চাইবে। যেমন- আপনি থাকেন কোথায়, আপনার পছন্দের রঙ কোনটি, আপনার শহরের বিবরণ অথবা কিভাবে আপনি বাসা থেকে পরীক্ষার হলে পৌঁছেছেন।

অর্থাৎ খুব সাধারণ কিছু প্রশ্ন করবে। তারপর দ্বিতীয় অংশে আপনাকে কাগজ কলম দিবে আর একটি টপিক ঠিক করে দিবে যেটি নিয়ে আপনাকে কিছু বলতে হবে।

টপিক দেয়ার পর আপনাকে এক-দেড় মিনিটের মতো সময় দিবে কাগজে নোট নেয়ার জন্য। তারপর আপনাকে টপিকের উপর মোটামুটি দুই মিনিটের মতো বলতে হবে। মনে রাখবেন, ২ মিনিট শেষ হয়ে গেলেও ট্রেইনার আপনাকে না থামতে বলার আগে না থামাই ভালো।

এরপর তৃতীয় এপিসোডে আপনাকে যে টপিক দিয়েছিলো, সেটির সাথে সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন করবে আর সেগুলোর উত্তর দিতে হবে।

লিসেনিং (Listening)

সময়সীমাঃ ৩০ মিনিট
লিসেনিং এ আপনাকে মোট ৪টি রেকর্ডিং শোনানো হবে। উল্লেখ্য, রেকর্ডিং এ কনভারসেশন থাকবে ব্রিটিশ উচ্চারণে।

এই চারটি রেকর্ডিং শোনার পর আপনাকে আলাদা একটি উত্তরপত্রে কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। একটি রেকর্ড একবারই বাজিয়ে শোনানো হবে।

রেকর্ডিং ১ – এক নাম্বার রেকর্ডিং এ থাকবে দুজন ব্যক্তির মাঝে দৈনন্দিন জীবনযাপনে ব্যবহার করা হয় এমন একটি বিষয়ে কথোপকথন।

রেকর্ডিং ২ – এই রেকর্ডে আপনাকে সোশ্যাল কন্টেক্সটে একটি মনোলোগ শোনানো হবে; যেমন- স্থানীয় সোশ্যাল ফ্যাসিলিটি নিয়ে একটি স্পিচ।

রেকর্ডিং ৩ – এখানে সর্বোচ্চ ৪ জন ব্যক্তির মাঝে হচ্ছে এমন একটি কথোপকথন আপনাকে শোনানো হবে, সেটি কোনো ট্রেনিং অথবা শিক্ষা বিষয়ে হতে পারে; যেমন- ৩ জন ছাত্র শিক্ষকের সাথে একটি অ্যাসাইনমেন্ট অথবা প্রজেক্ট নিয়ে আলোচনা করছে এমন।

রিডিং (Reading)

সময়সীমাঃ ৬০ মিনিট
রিডিং এ মোট ৪০টি প্রশ্ন থাকবে। এই প্রশ্নগুলো দিয়ে তারা আপনি একটি আর্টিকেল পড়ে মূল বিষয়টি ধরতে পারছেন কিনা, কোনো একটি বিষয়ে আপনি কতটুকু বুঝেছেন, লজিকাল আর্গুমেন্ট, স্কিমিং, লেখকের লেখার উদ্দেশ্য এবং মতামত বুঝতে পারছেন কিনা ইত্যাদি যাচাই করবে।

রিডিং টেস্টে একাডেমিক এবং জেনারেল টেস্টে একটু পার্থক্য আছে। তাই আলাদাভাবে ব্যাখ্যা করছি।

একাডেমিকে আপনাকে মোট ৩টি লম্বা আর্টিকেল তুলে দিবে জার্নাল, ম্যাগাজিন, বই অথবা পত্রিকা থেকে।

এই আর্টিকেলগুলো বিজ্ঞান বিষয়ক গবেষণা অথবা জার্নাল হতে পারে। জার্নালগুলো এমন হবে যাতে সাধারণ ছাত্ররা পড়ে বুঝতে পারে। তাই ঘাবড়ানোর কিছু নেই।

জেনারেলের রিডিং একাডেমিক থেকে তুলনামূলক সহজ। এখানেও ম্যাগাজিন, পত্রিকা, বই, বিজ্ঞাপন অথবা হ্যান্ডআউট থেকে লেখা তুলে দিবে।

তবে জেনারেলে একাডেমিকের মতো গবেষণা অথবা বিজ্ঞান বিষয়ক না, বরং দৈনন্দিন জীবনে আপনি মুখোমুখি হবেন এমন বিষয়ই থাকবে।

গ্রেডিং সিস্টেম কি?

IELTS এ কোনো পাশ নাম্বার নেই। তার বদলে দেয়া হয় ব্যান্ড স্কোর। আপনি কত নাম্বার পেয়েছেন তার উপর ভিত্তি করে ১-৯ এর মাঝে আপনাকে একটি স্কোর দেয়া হবে। IELTS এর চারটি মডিউল আছে- রাইটিং, রিডিং, স্পিকিং এবং লিসেনিং।

এই চার মডিউলে আপনি যত পাবেন তার গড় হচ্ছে আপনার ওভারঅল ব্যান্ড স্কোর। সাধারণত ৬ বা তার উপরের স্কোর করতে পারলে সেটিকে ভালো ব্যান্ড স্কোর ধরা হয়। নিচের ছবিতে কত নাম্বার পেলে কত ব্যান্ড স্কোর সেটি দেয়া হলো।

প্রস্তুতি কি ঘরে বসে নিবো নাকি কোচিং এ ভর্তি হবো?

এটি পুরোটাই আপনার ব্যক্তিগত বিষয়। আপনার যদি কমিটমেন্ট থাকে, তাহলে ঘরে বসে ইন্টারনেটের সাহায্য নিয়েই প্রস্তুতি নেয়া সম্ভব।

কোচিং সেন্টারে শুধু কিছু টেকনিক শিখিয়ে দেয়, বাকিটা আপনার নিজের কাছে। তবে আপনি কিছুদিন নিজে প্রস্তুতি নিয়ে তারপর একটি মক টেস্ট দিতে পারেন যেকোনো জায়গায় নিজের লেভেল যাচাই করার জন্য।

মক টেস্ট দিলে পুরো প্রক্রিয়ার সাথেও পরিচিত হতে পারবেন। নিজেই প্রস্তুতির জন্য ieltsliz.com এই সাইটে যেতে পারেন।

এই সাইটটি অনেক উপকারি। তাছাড়া ইউটিউব এবং বিভিন্ন সাইটের সাহায্য নিতে পারেন। আর বাসায় প্রস্তুতির জন্য ক্যামব্রিজের IELTS এর বইগুলো নিতে পারেন।

দাম মাত্র ৬০-৭০ টাকা করে প্রতি পিস। কেনার সময় সিডি আছে কেনা তা অবশ্যই দেখে নিবেন।

কোথায় এবং কিভাবে পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রেশন করবো?

আপনি চাইলে IDP অথবা ব্রিটিশ কাউন্সিল যেকোনো একটির অধীনে পরীক্ষা দিতে পারেন। ঢাকায় ধানমন্ডি, উত্তরা সহ মোট ৫টি জায়গায় ব্রিটিশ কাউন্সিলের টেস্ট সেন্টার আছে।

তাছাড়া ঢাকার বাইরে চট্টগ্রাম, সিলেট এবং রাজশাহীতেও ব্রিটিশ কাউন্সিলের টেস্ট সেন্টার আছে। অনলাইন এবং টেস্ট সেন্টারে গিয়ে দু’ভাবেই পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রেশন করা যায়।

বিস্তারিত জানার জন্য IDP অথবা ব্রিটিশ কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে ঢুঁ মারতে পারেন।

IELTS অনেক সহজ একটি পরীক্ষা। তাই এটি নিয়ে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। এ পরীক্ষায় অল্প সময়ে ভালো করার কোনো সুযোগ নেই যদি আপনি ইংরেজি চর্চার মাঝে না থাকেন।

তবে যাদের বেসিক ভালো, তারা অল্প কিছুদিনের চেষ্টায় শুধু টেকনিক শিখেই ভালো রেজাল্ট করতে পারবেন।

ইংরেজি মুভি দেখুন, পত্রিকা পড়ুন, খবর দেখুন টিভিতে আর কয়েক বন্ধু মিলে স্পিকিং প্র্যাক্টিস করুন।

সোজা কথায় আপনাকে এর পেছনে সময় ব্যয় করতে হবে। এ পরীক্ষায় ভালো করার কোনো শর্টকাট রাস্তা নেই।

saintmartin-20191111102201.jpg

বৈরি আবহাওয়ার কারণে কক্সবাজারের সেন্টমার্টিন দ্বীপে বেড়াতে গিয়ে চার শতাধিক পর্যটক আটকা পড়েছেন।

মধ্য বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া লঘুচাপটি আরও ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হওয়ায় বৃহস্পতিবার পর্যটকরা ফিরতে পারেননি।

আটকেপড়া ৪ শতাধিক পর্যটকের মধ্যে কক্সবাজার থেকে ৩শ জনের ‘আমার বাজার’ নামে একটি দল তিন দিনের জন্য দ্বীপে ভ্রমণে যায় গত বুধবার। পর্যটকবাহী জাহাজ কর্ণফুলী এক্সপ্রেসে করে কক্সবাজার থেকেই সরাসরি সেন্টমার্টিন পৌছেন এসব পর্যটকরা।

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, মধ্য বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া লঘুচাপটি আরও ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে।

এটি আরও ঘনীভূত হতে পারে। এর প্রভাবে উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়াসহ ভারি বৃষ্টি হতে পারে।

এজন্য সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত এবং নদীবন্দরের মধ্যে কিছু এলাকায় ২ এবং কিছু এলাকায় ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

লঘুচাপটি উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে আরও ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটি এখন পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

সেন্টমার্টিন দ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুর আহমেদ বলেন, ভ্রমণে আসা সেন্টমার্টিনে চারশ জনেরও বেশি পর্যটক দ্বীপে আটকা পড়েছেন।

তারা আজকে ফিরে যাবার কথা থাকলেও বৈরী আবহাওয়ার কারণে ফিরতে পারেননি। বুধবার পর্যটকদের মাইকিং করে দ্বীপ ছাড়তে বলা হয়েছিল। অনেকে কথা শুনেননি।

তিনি জানান, হঠাৎ বৃহস্পতিবার ভোর থেকে ঝড়ো হাওয়া শুরু হলে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে সকল নৌযানসহ জেলেদের সাগরে মাছ শিকারে না যেতে নিষেধ করা হয়েছে।তবে দ্বীপে আটকা পড়া পর্যটকদের যাতে কোন অসুবিধা না হয় সে বিষয়ে খোঁজ রাখা হচ্ছে।

দ্বীপে পর্যটকরা নিরাপদে রয়েছেন উল্লেখ করে টেকনাফ মডেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান, সেন্টমার্টিনে আটকেপড়া পর্যটকদের খোঁজ-খবর রাখতে দ্বীপের পুলিশ ফাঁড়িকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দ্বীপের বাসিন্দা নুর মুহাম্মদ বলেন, সাগর উত্তাল ও বৈরি আবহাওয়ায় কক্সবাজার থেকে জাহাজ না আসায় দ্বীপে চার শতাধিক পর্যটক অবস্থান করছেন।

এর মধ্যে গত বুধবার ৩’শ জনের একটি পর্যটক দল তিন দিনের ভ্রমণে আসেন সেন্টমার্টিনে।

তবে পর্যটকরা বিভিন্ন হোটেল-মোটেলে নিরাপদে আছেন। সাগর স্বাভাবিক হয়ে গেলে পর্যটকরা ফিরে যাবেন। তাছাড়া সকাল থেকে দ্বীপে জড়োহাওয়া শুরু হয়।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, সেন্টমার্টিনে আটকেপড়া পর্যটকরা যাতে হয়রানির শিকার না হয়, সেদিকে খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে। বৈরি আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে পর্যটকরা ফিরবেন।’

এ দিকে কক্সবাজার থেকে কর্ণফুলী এক্সপ্রেস নামে একটি পর্যটবাহী জাহাজ চলাচলের অনুমতি ফেলেও এখন পর্যন্ত টেকনাফ থেকে কোনো পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলের অনুমতি পায়নি।