রকমারি Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

tiktok.jpg

জনপ্রিয় ভিডিও অ্যাপ টিকটক বিতর্কিত কাজে ব্যবহারের অভিযোগে ভারতে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে। ভারতের কয়েকজন আইনজীবী এই অ্যাপের উপর নিষেধাজ্ঞা জারির আবেদন করে অভিযোগ করেন যে, এসব ভিডিও সমাজে অপসংস্কৃতি ছড়াচ্ছে। তরুণদেরকে ছাড়াও বিশেষত নষ্ট করছে তরুণীদেরকে।

তারা আরও অভিযোগ করেন, অল্প বয়সের ছেলে-মেয়েরা টিকটকে আসক্ত হয়ে পড়ছেন। এবং সারাদিন মোবাইলের দিকে তাক করেই বসে রয়েছেন।

আইনজীবীদের আবেদনে একমত হয়ে তামিলনাড়ুর তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী এম মণিকন্দন জানান, সে রাজ্যে টিকটক নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে।

এর আগে অ্যাপটি বন্ধ করা নিয়ে সরব হয়েছিলেন তামিলনাড়ুর বিধায়ক থামিমুন আনসারি। তিনি বলেন, এই অ্যাপ কোনও ভালো কাজে তো লাগেই না। উল্টো যুব প্রজন্মের ক্ষতিই করছে। টিকটক-এ এমন কিছু ভিডিও রয়েছে যা যৌন উদ্দীপনা তৈরি করছে। ফলে সমাজে ক্রমেই ছড়াচ্ছে অপসংস্কৃতি। তাঁর কথাতেই সুর মিলিয়ে তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে কেন্দ্রের সঙ্গেও কথা বলবেন তিনি। এ দেশ (ভারত) থেকেই যাতে টিকটক-কে মুছে ফেলা যায়, সেই ব্যবস্থাই নিতে চাইছে তামিলনাড়ু সরকার।

ঘটনা হল, শুধু বিনোদনের জন্যই যে মানুষ এই ভিডিও অ্যাপ ব্যবহার করছেন, এমন নয়। নানাভাবে এর অপব্যবহার করছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে কোথাও শিশুদের নিয়ে অশ্লীল ভিডিও তৈরি হচ্ছে। এমনকী, ভিডিওতে মশকরা সহ্য করতে না পেরে গত বছর এক ব্যক্তি আত্মঘাতীও হয়েছিলেন। যদিও টিকটক-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, যাতে এর কোনও অপব্যবহার না হয়, তার জন্য সদা সচেষ্ট থাকবে সংস্থাটি।

manisha-2019-02-15-02-20-48.jpg

মনিষা কর্মকারের জন্ম বরগুনার আমতলীতে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের এই ছাত্রী সংসার সামলে বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আগেই বিয়ে দেয়া হয় তাকে। তাই কোচিং ছাড়াই তাকের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। নিজের চেষ্টায় তিনি কোচিং ছাড়াই চান্স পান প্রাচ্যের অক্সফোর্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। স্বপ্ন দেখতে থাকেন নিজের পায়ে দাঁড়ানোর। তবে সংসার সামলে ওই স্বপ্নের পথে হাঁটা সহজ ছিল না মনিষার। গভীর রাত পর্যন্ত পড়াশোনা করতেন আর দিনের বেলায় সংসার সামলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস করতে যেতেন। তবুও দমে যাননি তিনি।

মফস্বলে বেড়ে ওঠার কারণে নানামুখী সমস্যার অধ্যায় অতিক্রম করতে হয়েছে মনিষাকে। মাধ্যমিকের অর্ধেকটা সময় বাবার হাত ধরে স্কুলে যেতে পারলেও কলেজ জীবনের পর্ব ছিল আরও নাজুক। মফস্বলের বিভিন্ন বৈরী পরিবেশে মনিষার ভাগ্যে কলেজে যেমন ক্লাস করা তেমন একটা হয়নি বিশ্ববিদ্যালয় লাইফেও তার পুনরাবৃত্তি ঘটে। এরই মাঝে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষেই জন্মগ্রহণ করে মনিষার প্রথম সন্তান অন্তিক দাশ।

তবে সবচেয়ে কঠিন সময় গিয়েছে মাস্টার্সে অধ্যয়নের সময়। এসময় মনিষার বাবা বাংলাদেশ বেতার বরিশালের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অজয় কর্মকারের মৃত্যু হয়। মনিষার গর্ভে তখন ৭ মাসের মেয়ে ধৃতিপ্রভা দাশ। বাবার মৃত্যুতে অনেকটাই ভেঙে পড়েন মনিষা। তবে দমে যাননি তিনি। নতুন উদ্যেমে শুরু করেন জীবন জয়ের লড়াই। মাস্টার্সের পর ঢাকার খিলগাঁও মডেল কলেজে লেকচারার পদে যোগ দেন মনিষা। কলেজে শিক্ষকতার সময়ই ধীরে ধীরে বিসিএসের প্রতি আগ্রহ জাগতে থাকে মনিষার। কারণ ওই সময়টাতে মনিষার অনেক বন্ধু-বান্ধব বিসিএস দিয়ে প্রশাসন এবং পুলিশ ক্যাডারে চাকরি হয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে মনিষা স্বপ্ন দেখতে থাকেন তিনি বিসিএস ক্যাডার হবেন। তবে ৩৫তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নিলেও চান্স পাননি। ৩৬তম বিসিএসেও তিনি সফল হতে পারনেনি। আবার শুরু করলেন নতুন উদ্যোমে। এবার চান্স হলো ৩৭তম বিসিএসে। অ্যাডমিন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হলেন তিনি। তিনি এখন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

মনিষা ২০০১ সালে আমতলী মফিজ উদ্দিন বালিকা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগে তখন সর্বোচ্চ জিপিএ ৪.১৩ পেয়ে এসএসসি এবং ২০০৩ সালে আমতলী ডিগ্রি কলেজ থেকে একই বিভাগে ৩.৮০ জিপিএ নিয়ে এইচএসসি পাস করেন। পরে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজকর্ম বিভাগে অনার্স এবং মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। মনিষা কর্মকারের মা গৃহিণী, বড়বোন সুস্মিতা রাণী কর্মকার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের লেকচারার এবং ছোট ভাই প্রকাশ কর্মকার কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। স্বামী সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাপস চন্দ্র দাশ।

saudi-women-20190215120634.jpg

গত বছর থেকেই গাড়ি চালানোর অনুমতি পেয়েছেন সৌদির নারীরা। কিন্তু তার আগ পর্যন্ত দেশটিতে মেয়েদের গাড়ি চালানো নিষিদ্ধ ছিল। নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার পর থেকেই গাড়ি চালানোয় নারীদের স্বত:স্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে সম্প্রতি সৌদির এক নারী রেসিং কার চালিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।

saudi women

২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে সৌদির বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সৌদ ঘোষণা করেন, মেয়েদের গাড়ি চালানোর উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হবে। এর পরই রাস্তায় গাড়ির স্টিয়ারিং ধরেন নারীরা।

saudi women

২০১৮ সালের ২৪ জুন মধ্যরাতে রিয়াদের রাস্তায় ইতিহাস সৃষ্টি হয়। কয়েক দশকের নিষেধের বাধা অতিক্রম করে ছুটে চলে গাড়ি, যার স্টিয়ারিং ছিল নারীদের হাতে। এবার রেসিং কারের স্টিয়ারিং হাতে নিলেন রীমা আল জুফালি নামের এক নারী।

saudi women

জুনে লাইসেন্স পাওয়ার পরই অক্টোবরেই প্রথম রেসে অংশ নেন রীমা। কলেজে পড়তে পড়তেই ফর্মুলা ওয়ানের প্রতি ঝোঁক বাড়ে রীমার। তারপর রেসিং কার লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেন তিনি। ফর্মুলা কার রেসিং স্কুলে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি।

saudi women

২৬ বছরের রীমার বাড়ি জেদ্দাতে। দেশের বাইরে তিনি স্নাতক পড়ছেন। ফিরে এসে রেসিং শুরুর ইচ্ছা তার। শুধুমাত্র গাড়ি চালানোই নয়, কার রেসিংয়েও যে সে দেশের মেয়েরা কারও চেয়ে কম নয়, সেটা প্রমাণ করতেই তার এই পদক্ষেপ।

saudi women

রেসিং প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য পরিবারকে চার বছর ধরে বুঝিয়ে রাজি করিয়েছেন রীমা। তিনি বলেন, যতজন তার কাজের বিরোধিতা করেছেন, তার দশ গুণ মানুষ তার সমর্থনে এগিয়ে এসেছেন। জিটি ৮৬ কার দিয়ে প্রথম রেসিং শুরু করেছেন তিনি। ডিসেম্বরে একটি রেসও জিতেছেন।

E-passport.jpeg

চলতি বছরের জুন মাসে ই-পাসপোর্ট হাতে পাবে বাংলাদেশের নাগরিকরা। আগামী জুন থেকে ই-পাসপোর্ট দেয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর। নির্ধারিত ফি পরিশোধ করে কমপক্ষে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১০ বছরের জন্য ই-পাসপোর্ট পাবে দেশবাসী।

গত বছরের ডিসেম্বর ও পরে এ বছরের মার্চ মাসে আসার কথা থাকলেও নানা জটিলতায় বিলম্ব হয় ই-পাসপোর্ট প্রদান কার্যক্রম। তবে আগামী জুনে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম শুরুর বিষয়ে আশাবাদী অধিদফতর ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ই-পাসপোর্ট প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুর রহমান খান বলেন, এখনও কাজ চলছে। যত শিগগিরই সম্ভব ই-পাসপোর্ট দেয়ার চেষ্টা করছি। কাজ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট তারিখ বলা যাচ্ছে না। তবে আমরা এ বছরের জুন মাসকে টার্গেট করে কাজ করছি।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের যুগ্মসচিব (বহিরাগমন-১) মো. মুনিম হাসান বলেন, ‘রোডম্যাপ অনুযায়ী ২০১৯ সালের জুন মাসে ই-পাসপোর্ট প্রদান কার্যক্রম শুরু হবে বলে আশা করছি।’

২০১৮ সালের জুলাই মাসে অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাসুদ রেজওয়ান জার্মানির ভেরিডোসের সঙ্গে ই-পাসপোর্টের চুক্তি করেন। এরপর ডিসেম্বর মাসে পাসপোর্ট দেয়ার কথা থাকলেও সেই সিদ্ধান্তে কিছুটা পরিবর্তন আনে অধিদফতর। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ দিয়ে প্রথম ধাপে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার ও কমার্শিয়াল ইমপোর্টেন্ট পারসনকে (সিআইপি) ই-পাসপোর্ট দিয়ে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করার কথা ছিল। সর্বসাধারণকে জানুয়ারিতে পাসপোর্ট দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তবে নানা জটিলতায় তা সম্ভব হয়নি।

দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, ই-পাসপোর্ট প্রকল্প বাস্তবায়নে জার্মানির দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, পাসপোর্টের ইলেকট্রনিক চিপে দশ আঙুলের ছাপ থাকার কথা। তবে চুক্তি স্বাক্ষরের পর প্রকল্প বাস্তবায়নকারী জার্মান কোম্পানি মাত্র দুটি আঙুলের ছাপ সংরক্ষণ করতে চাচ্ছে। ‘মাত্র ২ আঙ্গুলের ছাপে ভবিষ্যতে জালিয়াতি হতে পারে’- তাই এ প্রস্তাবে রাজি হচ্ছে না পাসপোর্ট অধিদফতর। এনিয়ে জার্মান প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক ও চিঠি চালাচালি হয়েছে। তবে বিষয়টি এখনও সুরাহা হয়নি। এটাও ই-পাসপোর্টের বিলম্ব হওয়ার অন্যতম কারণ।

এ বিষয়ে পিডি সাইদুর রহমান খান বলেন, ‘ই-পাসপোর্ট নিয়ে আর কোনো জটিলতা থাকবে না ইনশাআল্লাহ।’

এদিকে ই-পাসপোর্টের মেয়াদ ১০ বছর রাখার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলেও এর ফি এখনও নির্ধারিত হয়নি। অধিদফতর থেকে স্বরাষ্ট্র ও অর্থ মন্ত্রণালয়ে অনুমোদনের জন্য তিন ধরনের ফি’র পরিমাণ প্রস্তাব করা হলেও ফেব্রুয়ারির ১২ তারিখ পর্যন্ত মন্ত্রণালয় থেকে ফি চূড়ান্ত করে দেয়া হয়নি।

গত মঙ্গলবার (ফেব্রুয়ারি ১২) ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) মোহাম্মদ শিহাব উদ্দিন খান বলেন, ‘এখনও মন্ত্রণালয় থেকে ফি নির্ধারণ করে দেয়া হয়নি।’

দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, ই-পাসপোর্ট পাসপোর্ট হবে ১০ বছর মেয়াদের। ফি নির্ধারণ কমিটির প্রস্তাবে সাধারণ পাসপোর্টের জন্য ৬ হাজার (২১ দিন), এক্সপ্রেস ডেলিভারির জন্য ১২ হাজার (৭ দিন) এবং সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারির জন্য ১৫ হাজার টাকা (১ দিন) প্রস্তাব করা হয়েছে। এ ছাড়াও পাসপোর্টের দুই ধরনের ক্যাটাগরি হচ্ছে। একটা ৪৮ পৃষ্টার। আরেকটা ৭২ পৃষ্টার। যারা বেশি নিতে চান তাদের ফি-টাও একটু বেশি দিতে হবে।

এ বিষয়ে অধিদফতরের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, এটি ৪ হাজার কোটি টাকার একটি বৃহৎ প্রকল্প। বর্তমান অর্থবছরের বাজেট হয়েছে জুনে। এর মাসখানেক পর ই-পাসপোর্ট প্রকল্প চুক্তি হয়। সরকার যেহেতু বাজেটে ই-পাসপোর্টের বরাদ্দ রাখেনি তাই এই কার্যক্রমে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে।

অত্যাধুনিক এই ই-পাসপোর্ট একটি বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট, যাতে একটি এমবেডেড ইলেক্ট্রনিক মাইক্রোপ্রসেসর চিপ থাকবে। এই মাইক্রোপ্রসেসর চিপে পাসপোর্টধারীর বায়োগ্রাফিক ও বায়োমেট্রিক (ছবি, আঙ্গুলের ছাপ ও চোখের মণি) তথ্য সংরক্ষণ করা হবে, যাতে পাসপোর্টধারীর পরিচয়ের সত্যতা থাকে। ই-পাসপোর্ট চালু হলে জালিয়াতি ও পরিচয় গোপন করা কঠিন হবে বলে দাবি করেছে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর।

পাসপোর্ট অধিদফতর জানায়, ই-পাসপোর্টে ৩৮ ধরনের নিরাপত্তা ফিচার থাকবে। বর্তমানে এমআরপি ডেটাবেইসে যেসব তথ্য আছে, তা ই-পাসপোর্টে স্থানান্তর করা হবে।

পাসপোর্ট অধিদফতর জানায়, শুরুতে ২০ লাখ ই-পাসপোর্ট জার্মানি থেকে প্রিন্ট করিয়ে সরবরাহ করা হবে। এরপর আরও ২ কোটি ৮০ লাখ পাসপোর্ট বাংলাদেশে প্রিন্ট করা হবে। সে জন্য উত্তরায় কারখানা স্থাপন করা হবে। পরবর্তীতে ওই কারখানায় থেকেই পাসপোর্ট ছাপানো অব্যাহত রাখা হবে।

ই-পাসপোর্ট প্রকল্পের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা। পুরো টাকাই বাংলাদেশ সরকার বহন করবে। বর্তমানে বই আকারের পাসপোর্টে সরকারের যে টাকা ব্যয় হয়, সেই অনুপাতে ই-পাসপোর্ট চালু হলে পাসপোর্ট প্রতি সরকারের প্রায় ৩ ডলার করে সাশ্রয় হবে বলে কর্মকর্তারা ধারণা করছেন।

এদিকে অনেকেই শঙ্কায় আছেন, ই-পাসপোর্ট চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) বাতিল হবে কি না। এ বিষয়ে অধিদফতর জানায়, কারও পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে তাকে এমআরপির বদলে ই-পাসপোর্ট নিতে হবে। তবে যাদের এমআরপি রয়েছে সেটিও গ্রহণযোগ্য হবে।

onkita.png

মাত্র সাতাশ বছর বয়সে অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন এক বঙ্গতনয়া। তাঁর নাম অঙ্কিতি বসু। ব্যবসা শুরু করেছিলেন মাত্র ২১ লক্ষ টাকা নিয়ে। মাত্র চার বছরে তা ফুলেফেঁপে দাঁড়াল ৯ হাজার ৮০০ কোটিতে।

কোনও সংস্থার ব্যবসা ১০০ কোটি মার্কিন ডলার পেরোলে, কাল্পনিক জন্তুর নাম অনুসারে ইউনিকর্ণ তকমা জোটে। অঙ্কিতির ফ্যাশন ই-কমার্স সংস্থা জিলিঙ্গো ইতিমধ্যেই তা পেয়ে গিয়েছে। তার জেরে কনিষ্ঠতম ভারতীয় মহিলা নির্বাচিত হলেন অঙ্কিতি, যিনি কোনও ইউনিকর্ণ সংস্থার সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও।

বাঙালি পরিবারে জন্ম হলেও, বাংলার বাইরেই বেড়ে ওঠা অঙ্কিতি বসুর। ২০১২ সালে মুম্বইয়ের সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে অর্থনীতি ও গণিত নিয়ে পড়াশোনা করেন তিনি। তার পর চাকরি শুরু করেন মার্কিন কনসাল্টিং সংস্থা ম্যাকিনজির মুম্বই শাখায়।

সেখান থেকে যোগ দেন অন্য একটি মার্কিন সংস্থা সেকোয়া ক্যাপিটালসের বেঙ্গালুরু অফিসে। তেইশ বছর বয়সে বেঙ্গালুরুতেই বছর চব্বিশের ধ্রুব কপূরের সঙ্গে আলাপ তাঁর। আইআইটি গুয়াহাটি থেকে পড়াশোনা সেরে গেমিং স্টুডিয়ো কিউয়ি আইএনসি-তে সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে কর্মরত ছিলেন ধ্রুব।

চাকরি ছেড়ে নিজের মতো কিছু করার স্বপ্ন ছিল দুজনেরই। প্রথমেই ই-কমার্স সাইট খোলার কথা মাথায় আসে তাঁদের। কিন্তু ভারতে তখন ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজনের মতো সংস্থা জাঁকিয়ে বসে। তাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পেরে ওঠা যাবে না বুঝেছিলেন তাঁরা।

তাই চিন্তাভাবনা জারি থাকে। সে বছরই ব্যাঙ্কক বেড়াতে গিয়ে চোখ খুলে যায় অঙ্কিতির। সেখানকার চতুচক বাজারে ঢুকে স্থানীয় ডিজাইনারদের তৈরি পোশাক, জুতো, ব্যাগ এবং অ্যাকসেসরিজ ইত্যাদি নজর কাড়ে তাঁর।

ভাষাগত সমস্যা থাকায়, স্থানীয় ব্যবসায়ীদের পক্ষে সেগুলি বাইরের লোকের কাছে পৌঁছে দেওয়া যাচ্ছে না বুঝতে পারেন তিনি। তখনই মাথায় আইডিয়া আসে। দেশে ফিরে ধ্রুবের সঙ্গে আলোচনা সারেন অঙ্কিতি।

চাকরি ছেড়ে ২১ লক্ষ টাকা পুঁজি নিয়ে কাজে লেগে পড়েন তাঁরা। তবে যাত্রা সহজ ছিল না। মার্কেট রিসার্চ সারতেই প্রায় একবছর লেগে যায় তাঁদের। ব্যাঙ্ককের বাজারে ঘুরে ঘুরে ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনলাইন ব্যবসায় আগ্রহ গড়ে তুলে শুরু করেন অঙ্কিতি।

বেঙ্গালুরুতে বসে প্রযুক্তিগত দিকটা সামলাতে শুরু করেন ধ্রুব। দক্ষিণ এশিয়ার বাজার দখল করতেই আগ্রহী ছিলেন তাঁরা। সেই মতো কাজ শুরু করেন। গত চারবছরে সিঙ্গাপুর,ফিলিপিন্স, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, তাইওয়ান, চিন, কোরিয়া এবং কম্বোডিয়ার বাজার দখল করতে সফল হয়েছে জিলিঙ্গো। ভারত এবং অস্ট্রেলিয়াতেও লেনদেন শুরু হয়েছে।

একসময় যে সেকোয়া সংস্থার কর্মী ছিলেন অঙ্কিতি, আজ তারাও জিলিঙ্গোয় ২২ কোটি ৬০ লক্ষ মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করেছে। বিনিয়োগ রয়েছে সিঙ্গাপুরের তামসেক হোল্ডিং প্রাইভেট লিমিটেডের। এই মুহূর্তে জিলিঙ্গোর সিইও অঙ্কিতি। সিঙ্গাপুরে সংস্থার সদর দফতর সামলান তিনি। বেঙ্গালুরুতে ১০০ জন কর্মীকে নেতৃত্ব দেন ধ্রুব। তিনি সংস্থার প্রযুক্তিগত প্রধান (সিটিও)।

valentines-day-1.jpg

আজ ভালোবাসার দিন। বিশ্ব ভালোবাসা দিবস; যা ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’ হিসেবে বিশ্বে পরিচিত। প্রতি বছর এ দিনে অনেক দেশের মতই বাংলাদেশেও উদযাপন করা হয় এ ‘ভালোবাসা দিবস’। রাষ্ট্রীয়ভাবে এর স্বীকৃতি না থাকলেও সরকারি বিধিনিষেধ না থাকায় এর জনপ্রিয়তা এখন আকাশছোঁয়া।

তবে বিশ্বের অনেক দেশ রয়েছে, যারা নিজেদের দেশে ভালোবাসা দিবস পালন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে।

১৭৭৬ সালে ফ্রান্স সরকার কর্তৃক সেদেশে ভ্যালেন্টাইন উৎসব বা ভালোবাসা দিবস নিষিদ্ধ করা হয়। ইংল্যান্ডে ক্ষমতাসীন পিউরিটানরাও একসময় প্রশাসনিকভাবে এ দিবস উদযাপন নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।

এছাড়া অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি ও জার্মানিতে বিভিন্ন সময়ে এ দিবস প্রত্যাখ্যাত হয়। অনেক মুসলিম দেশ রয়েছে যেখানে দিবসটি পালনে বিশেষ নিষেধ রয়েছে।

সম্প্রতি পাকিস্তানেও ২০১৭ সালে ইসলামবিরোধী হওয়ায় ভ্যালেন্টাইন উৎসব নিষিদ্ধ করে সেদেশের আদালত।

onlin-big-20190212122114.jpg

অনলাইনে প্রেম করতে গিয়ে আজকাল অনেকেই প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। একাকীত্ব কাটাতে অনেকেই সঙ্গী খোঁজেন ডেটিং অ্যাপে। আর এরই সুযোগ নিয়ে মানুষকে ফাঁদে ফেলছে প্রতারক চক্র।

অ্যাপের মাধ্যমে পরিচয়ের পর অনেকে প্রেমের অভিনয় করে সঙ্গীর সব তথ্য জেনে নিচ্ছেন। তারপর প্রেমিক বা প্রেমিকার দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে প্রতারকরা হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা।

কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতারকরা অন্যদের পরিচয় ব্যবহার করেও প্রতারণা করছে।

য়ুক্তরাজ্যের অ্যাকশন ফ্রডের তথ্য অনুসারে, ২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে অনলাইনে বেশি প্রতারণার শিকার হয়েছেন প্রেমিক-প্রেমিকারা। গত এক বছরে যুক্তরাজ্যে প্রতারণার শিকার হয়ে ৫৪১ কোটির বেশি টাকা হারিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

অ্যাকশন ফ্রড বলছে, প্রেমে বেশি প্রতারণার শিকার হচ্ছেন নারীরা। কারণ ভুক্তভোগীদের দুই-তৃতীয়াংশই নারী। সিটি অব লন্ডন পুলিশ এবং দ্য ন্যাশনাল ফ্রড ইনটেলিজেন্স ব্যুরোর তথ্য অনুসারে, অ্যাকশন ফ্রডে গত বছর ৪ হাজার ৫০০ জন ডেটিং অ্যাপে প্রতারণার শিকার হয়ে অভিযোগ করেন।

৪০ শতাংশ ভুক্তভোগী জানান, প্রতারণার শিকার হয়ে তাদের অর্থের পাশাপাশি স্বাস্থ্যও নষ্ট হয়েছে।

জানা গেছে, অ্যাপের মাধ্যমে পরিচয়ের পর অনেক প্রেমিক বিয়ে কিংবা বাড়ি করার নাম করে সঙ্গীর কাছে টাকা চায়। কেউ বা নিজের বিপদের কথা বলেও প্রেমিক-প্রেমিকার কাছে টাকা দাবী করে। তখন প্রেমিক বা প্রেমিকা আবেগপূর্ণ হয়ে তাদের সাহায্য করে।

যুক্তরাজ্যের ইকোনোমিক ক্রাইম ফাইন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাটি ওরোবেক বলেন, ‘আমরা প্রেমে প্রতারকদের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে গ্রাহকদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি । ধোঁকাবাজির মাধ্যমে এই ভ্যালেন্টাইনে কাউকে বোকা বানানোর সুযোগ আমরা দেব না।’

তিনি জানান, সন্দেহজনক লেনদেনের ব্যাপারে ব্যাংকগুলো সতর্ক রয়েছে। তবে এ ব্যাপারে তিনি ডেটিং অ্যাপ ব্যবহারকারীদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ‘অপরিচিত কেউ টাকা চাইলে অবশ্যই খোঁজখবর নেওয়া উচিত। এমন কাউকে টাকা দেওয়া উচিত নয়, যাকে চেনেন না।’

bpu4.jpg

আসছে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। আর এ ভালোবাসা দিবসেই বিয়ে করার অধিকার আদায়ে আদালতে মামলা করতে যাচ্ছে জাপানের ১৩ সমকামী যুগল৷ শুধু রাজধানী টোকিওতে নয়, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি জাপানের কমপক্ষে চারটি শহরের আদালতে মামলা হবে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন ইয়োশি ইয়োকোইয়ামা নামের এক আইনজীবী৷

রয়টার্সকে ইয়োশি বলেন, ‘সংবিধান আপনাকে সুখি থাকার অধিকার দিয়েছে, সম অধিকার দিয়েছে, সমকামীদের বিয়ের অধিকার না দিয়ে আপনি তা লঙ্ঘন করছেন৷আমি আমার মক্কেলদের পক্ষে অবশ্যই আইনি লড়াই করব।

এশিয়ার অন্যান্য দেশের চেয়ে জাপানে সমকামিতার ব্যাপারটি বেশ সহনশীল। তবে সামাজিকভাবে সমকামী দাবি করার ব্যাপারে এখনো কিছু বিধি-নিষেধ আছে৷প্রচলিত এই মনোভাবের পরিবর্তন আনতে এক যুগল ২৫টি দেশে যেখানে সমকামী বিয়ে বৈধ সেখানে তাদের বিয়ের ছবি প্রদর্শনীর করার কথা ভাবছেন৷ তবে বিয়ে অবৈধ হলেও দেশটির অনেক শহরে সমকামী যুগলরা সনদ ব্যবহার করে যে কোনো বিবাহিত যুগলের মতো বাসা ভাড়া করা কিংবা হাসপাতালে দেখতে যাওয়া ইত্যাদি সুবিধা লাভ করতে পারে৷ সূত্র- রয়টার্স

hanjala-20190211111216.jpg

হঠাৎ মুক্তিযোদ্ধা সেজে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের (ইইডি) প্রধান প্রকৌশলীর পদ রীতিমতো আকড়ে আছেন এক প্রকৌশলী। তার নাম দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে একবছর এবং পরে তদবিরের জোরে চুক্তিভিত্তিক আরও তিনবছর চাকরিসহ চার বছরের মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়েছেন তিনি। এই প্রক্রিয়ায় শিক্ষার নির্মাণ কাজের এ প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ পদটি একপ্রকার করায়ত্ত করে নেন তিনি।

এরপর প্রতিষ্ঠানটি একপ্রকার পারিবারিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয়। নামে-বেনামে তার ভাইসহ অন্যান্যদের মাধ্যমে বিভিন্ন নির্মাণ কাজ করানোর অভিযোগ উঠে। তার পরিবারের বেশ কয়েক সদস্য এ প্রতিষ্ঠানে ঠিকাদারি করেন। এ ছাড়া কাজ নিয়ে নানান ধরনের অনিয়মের অভিযোগও আছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন (২০১৪-১৮) প্রশাসনকে ম্যানেজ করে এই প্রকৌশলী প্রতিষ্ঠানটিতে সর্বেসর্বায় পরিণত হন। ২০১০ সালে মুক্তিযোদ্ধা কর্মকর্তাদের চাকরির বয়স দুইবছর বৃদ্ধি করে অবসরের বয়স ৫৯ করে সরকার। পরে ২০১৩ সালে আরও একবছর বাড়িয়ে ৬০ করা হয়। ২০১০ সালে চাকরির বয়স বৃদ্ধির সরকারি সিদ্ধান্তের পরই হঠাৎ মুক্তিযোদ্ধায় পরিণত হন নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান হানজালা। ২০১১ সালে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা ঘোষণা করেন এই প্রকৌশলী। অথচ ১৯৮১ সালে চাকরিতে যোগদানকালে এ ধরনের কোনো কাগজপত্র জমা দেননি তিনি। তার এই মুক্তিযোদ্ধা হওয়ার ইস্যু নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান আছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১৫ সালের আগস্ট মাসে নিয়মিত চাকরির মেয়াদ শেষ হলে কথিত মুক্তিযোদ্ধার সনদ দিয়ে তিনি চাকরির মেয়াদ প্রথমে এক বছর বৃদ্ধি করিয়ে নেন। পরবর্তীতে একই পদ্ধতিতে নিজের এক সিন্ডিকেটের মাধ্যমে প্রথমে একবছর ও পরে দুই বছরের জন্য তিনি চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ নেন।

কথিত আছে, শিক্ষার তৎকালীন এক শীর্ষ ব্যক্তি রহস্যজনক কারণে ফাইল হাতে করে নিয়ে গিয়ে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়কে ম্যানেজ করে তার চাকরির বয়স বাড়িয়ে আনেন। গত বছরের ১৭ জুলাই তার সেই চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মেয়াদ আরো এক বছরের জন্য বাড়িয়ে দেয়া হয়।

অভিযোগ আছে, এরপর বেপরোয়া হয়ে উঠেন এই প্রকৌশলী। গড়ে তোলেন একটি সিন্ডিকেট। ওই সিন্ডিকেটে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের দফতরের ও প্রধান প্রকৌশলীর পরিবারের ৩-৪ জন ব্যক্তি রয়েছেন।

ফলে ইইডিতে বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম, দুর্নীতি ও জালিয়াতির অভিযোগ উঠতে থাকে। ইইডি সংশ্লিষ্টরা জানান, বিভিন্ন নির্মাণ কাজ উল্লিখিত সিন্ডিকেটের সদস্যদের মধ্য থেকে এক ব্যক্তির মাধ্যমেই রফা হয়ে থাকে। ওই ব্যক্তি প্রধান প্রকৌশলীর ভাই আবদুল হাই। এই ব্যক্তিকে কখনো নামে আবার কখনো বেনামে কাজ দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী (নওফেল) বলেন, প্রধান প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে বেশ কিছু অভিযোগ পেয়েছি। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজের অনিয়মের বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। আমি তাকে (প্রধান প্রকৌশলী) ডেকেছিলাম। তার কাছে জানতে চেয়েছি। পরে এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিবের সমন্বয়ে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর বোঝা যাবে সেখানে (জগন্নাথে) কী ধরনের অনিয়ম হয়েছে।

তিনি বলেন, দুর্নীতি যেই করুন তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। মৌখিক অভিযোগ পেয়ে আমরা কারোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারি না। বিধান মেনে সব কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। কারোর বিরুদ্ধে আমরা তথ্য-প্রমাণসহ অভিযোগ পেলে তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কেউ যদি ভুক্তভোগী হয়ে থাকেন, তবে আমাদের কাছে এলে তা গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখা হবে।

উল্লেখ্য, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভৌত-অবকাঠামো উন্নয়ন, নতুন ভবন নির্মাণ, পুনঃনির্মাণ, রক্ষণাবেক্ষণ, মেরামত ও সংস্কারসহ আসবাবপত্র সরবরাহের মতো বিষয়গুলো এই অধিদফতরের দায়িত্বে। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরেই এসব কাজে দুর্নীতির অভিযোগ আছে। কিন্তু ২০১৪ সালের পর অভিযোগ আরও তীব্র হয়। বিভিন্ন অভিযোগের একটি হলো- অবৈধ উপায়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ ও সংস্কারের কার্যাদেশ নিয়ে রীতিমতো পুকুরচুরি। ইইডির শুধু ঢাকা মেট্রো জোনের ২০১৭ সালের জুন মাসের ১০৮টি কাজ পর্যালোচনা করে বিভিন্ন অনিয়মের চিত্র পাওয়া যায়। এর মধ্যে দু-চারটি নতুন নির্মাণের কার্যাদেশ ছাড়া বাকি সবই ছিল মেরামত ও সংস্কার সংক্রান্ত।

আবার সাধারণত মেরামত ও সংস্কার কাজে প্রতিটিতে বরাদ্দ থাকার কথা ৩-৫ লাখ টাকা। কিন্তু এখানে দেখা যাচ্ছে, অনেক কাজেই বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১০ লাখ টাকার বেশি। এটা ইইডির ইতিহাসে বিরল বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এ নিয়ে সৃষ্টি হয়ে নানান প্রশ্ন। শুধু মেট্রো জোনেই নয়, ইইডির সারাদেশের কার্যক্রমেই একই চিত্র বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। নামে-বেনামে এসব কাজ বাগিয়ে নেন প্রধান প্রকৌশলী পরিবারের একাধিক সদস্যসহ উল্লিখিত সিন্ডিকেটের ঘনিষ্ঠজনরা।

জানা গেছে, প্রধান প্রকৌশলীর ভাই আবদুল হাই নিজের প্রতিষ্ঠান পদ্মা কনস্ট্রাকশন ছাড়াও স্ত্রীর প্রতিষ্ঠান মেসার্স ফিরোজা এন্টারপ্রাইজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে কাজ নিয়েছেন।

তবে এ ক্ষেত্রে কিছুটা কৌশল খাটিয়েছেন তিনি। নিজের প্রতিষ্ঠানের নামে নিয়েছেন ছোটখাটো কাজ। অন্যদিকে বড় কাজগুলো নিয়েছেন নিজের স্ত্রী এবং বন্ধু-বান্ধবদের প্রতিষ্ঠানের নামে। যাতে সরকারি কাজে পরিবারিকীকরণ প্রমাণিত না হয়, সে কারণে এমন কৌশলের আশ্রয় নেয়া হয়েছে।

তবে এরপরও অপকর্ম হাতেনাতে ধরা পড়ে যায় বলে জানা গেছে। আজিমপুরের গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের একটি নির্মাণ কাজের টেন্ডারে কার্যাদেশ দেয়া হয়েছিল ১ কোটি ৬৯ লাখ টাকার। ঠিকাদার আবদুল হাইয়ের বন্ধুর প্রতিষ্ঠান মেসার্স শামস এন্টারপ্রাইজের নামে কার্যাদেশটি দেয়া হয়েছিল। ২০১৭ সালের ২৫ জুন এই প্রতিষ্ঠানকে ৬৫ লাখ টাকার বিল পরিশোধ করা হয়। এর তিন দিন পর ২৯ জুন একই কাজের জন্য আরও ৩৫ লাখ টাকার বিল পরিশোধ করা হয়। তিন দিনের মাথায় নতুন করে এই বিল পরিশোধের ঘটনায় নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, ইডেন কলেজ সম্প্রসারণ বাবদ ২ কোটি ১৭ লাখ ৫ হাজার ৫১৩ টাকার কার্যাদেশ এবং গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের ৪ তলা হোস্টেল ভবনের টয়লেট-স্যুয়ারেজ মেরামত-সংস্কার বাবদ ১৪ লাখ ৩৫ হাজার ৮৬৪ টাকার কার্যাদেশ পায় মেসার্স ফিরোজা এন্টারপ্রাইজ। এই প্রতিষ্ঠানটি আবদুল হাইয়ের স্ত্রীর বলে জানা গেছে। টেকনিক্যাল টিচার্স ট্রেনিং কলেজের একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনের বৈদ্যুতিক বিতরণ লাইনের মেরামত বাবদ ১০ লাখ ৮৯ হাজার ৯২৭ টাকার কাজ বন্ধুর প্রতিষ্ঠান মেসার্স শামস এন্টারপ্রাইজের নামে নিয়ে আবদুল হাই নিজেই তা করেছেন।

গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের ৩ তলা হোস্টেলের টয়লেটগুলোর পানির লাইন ও স্যুয়ারেজ মেরামত-সংস্কার বাবদ ১৫ লাখ ৩৬ হাজার ২৯ টাকার কার্যাদেশ দেয়া হয় আবদুল হাইয়ের শ্যালকের প্রতিষ্ঠান মেসার্স ফয়সাল এন্টারপ্রাইজের নামে। সরকারি বিজ্ঞান কলেজ প্রধান শিক্ষকের কক্ষ সংলগ্ন স্টোর রুমের সম্প্রসারণ কাজ (১৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকার), গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ ৩ তলা শিক্ষক কোয়ার্টারের মেরামত ও সংস্কার কাজসহ (১৪ লাখ ৯১ হাজার টাকার) ৪টি কাজ পেয়েছে মেসার্স সপ্তদীপা সংসদ। এই প্রতিষ্ঠানটির মালিক আবদুল হক, যিনি প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মো. হানজালার আপন খালাতো ভাই। হানজালার বাসায়ই তিনি বসবাস করেন বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ, ধানমন্ডি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের উভয় ব্লকের ছাদের জলছাদ ও সংস্কার কাজ, ধানমন্ডি গার্লস স্কুল- উত্তর ব্লকের মেরামত কাজ এবং ধানমন্ডি গার্লস স্কুল- নামাজ রুমের মেরামত কাজ পেয়েছেন প্রধান প্রকৌশলী হানজালার আরেক খালাতো ভাই গোলাম মোস্তফার প্রতিষ্ঠান মেসার্স জিএম এন্টারপ্রাইজ। ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট- দক্ষিণ গেট মেরামত ও সংস্কার কাজ (৯ লাখ ৪৫ হাজার ৫৪ টাকার) পেয়েছে হানজালার আপন বড় ভাইয়ের প্রতিষ্ঠান মেসার্স আব্দুল্লাহ এন্টারপ্রাইজ। হানজালার ছোট ভাই আবদুল হাইয়ের বন্ধুর প্রতিষ্ঠান মেসার্স রাফিদ ইন্টারন্যাশনাল ইডেন মহিলা কলেজের ৬টি আলাদা বড় কাজ পেয়েছেন, যার ৫টিই মেরামত ও সংস্কার সংক্রান্ত। এ কাজগুলো বন্ধুর প্রতিষ্ঠানের নামে নেয়া হলেও কাজের মালিকানা আসলে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী হানজালার ভাই আবদুল হাইয়ের নিজেরই।

ঢাকা জোনের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা নজরুল ইসলামের আপন ভাই মির্জা আমিনুল ইসলাম পেয়েছেন ৪টি মেরামত ও সংস্কার কাজ। সংশ্লিষ্টমহলের অভিযোগ, টেন্ডারে ম্যানিপুলেট করা না হলে কোনো ক্রমেই একটি প্রতিষ্ঠান এতোগুলো কাজ পাওয়া সম্ভব নয়। নির্বাহী প্রকৌশলী ছাড়াও এই ম্যানিপুলেশনের সঙ্গে প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা সরাসরি জড়িত বলে অভিযোগ আছে।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা বলেন, আমার ভাই-ভাতিজা কী তাহলে ব্যবসা করবে না? তিনি দাবি করেন, সবগুলো কাজই নিয়ম-মাফিক হচ্ছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এসব বিষয় তদন্ত করা হচ্ছে। একটি মহল আমার সুনাম নষ্ট করতে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, দরপত্র কার্যক্রম বিকেন্দ্রীকরণ করা হয়েছে, তাই আমার ভাই বা পরিচিত কাউকে দরপত্র পাইয়ে দেয়া আমার হাতে নেই, জবির দরপত্র আমার আগের প্রধান প্রকৌশলী করেছেন। তাই অর্থ লুটপাট হলে তার দায়িত্ব আমি নেব না। আমি যদি অপরাধী হই, তবে তদন্ত করে আমার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে আমার কোনো আপত্তি নেই। তবে তদন্ত ছাড়া আমার বিরুদ্ধে কোনো দোষ চাপিয়ে দেয়া যাবে না।

জানা গেছে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের ৪৫ কোটি ২৪ লাখ ১৬ হাজার ৩৬৭ টাকার নির্মাণ কাজ দেয়া হয়েছে ‘দি বিল্ডার্স ইঞ্জিনিয়ার্স নামের একটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে। কিন্তু ওই প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী হলেন ঢাকা কলেজের সাবেক ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ও যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা জুলফিকার ভুট্ট। এই প্রতিষ্ঠানকে লাভবান করিয়ে দিতে আরও কৌশলের আশ্রয় নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এর মধ্যে অন্যতম হলো, ২০তলা ভিতের ভবনের ১৫তলা করার কার্যাদেশ দেয়া হলেও রহস্যজনক কারণে পরে তা ১৩ তলা করার অনুমতি দেয়া। কিন্তু দুটি ফ্লোর কমানো হলেও সেই হারে বাজেট কাটা হয়নি। এ ক্ষেত্রে অনেক কম অর্থ কাটা হয়েছে। এতে সরকার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্টরা জানান, কেবল উল্লিখিত কাজগুলোই নয়, ইইডির গত ১০ বছরের বিভিন্ন নির্মাণ ও সংস্কার কাজের ব্যাপারে তদন্ত হলে সব অনিয়ম বেরিয়ে আসবে। বিশেষ করে উন্নয়ন কাজে কমিশন বাণিজ্য, সর্বনিম্ন দরদাতাকে জোরপূর্বক টেন্ডার প্রত্যাহার করানো, প্রকল্প পিছিয়ে বাজেট বাড়ানো, নির্মাণকাজে অবহেলা, ভুতুড়ে কাজের নামে বিল ও ভুয়া ভাউচার তৈরি করে সরকারি অর্থ আত্মসাতসহ নানা অনিয়ম বেরি আসবে।

১৩ প্রকৌশলীর পেনশন আটকা

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতর থেকে অবসরপ্রাপ্ত ১৩ জন প্রকৌশলীর পেনশন ও আনুতোষিক ভাতাও আটকে দিয়েছেন প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মো. হানজালা। ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে বলেছেন, নিয়ম-বহির্ভূতভাবে আটকে রাখা হয়েছে তাদের পেনশন ও আনুতোষিক ভাতা।

চলতি বছরের ২২ জানুয়ারি শিক্ষামন্ত্রী বরাবর এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট বরাবর আলাদা দুটি অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী প্রকৌশলীরা।

পেনশন সহজীকরণ বিধি মোতাবেক একজন সহকারী কর্মকর্তা অবসরে যাওয়ার এক মাসের মধ্যে তাকে পেনশন ও আনুতোষিকের ৮০ শতাংশ ভাতা প্রদান করতে হয়। কোনো জটিলতা থাকলে আনুতোষিকের বাকি ২০ শতাংশ ভাতা জটিলতা শেষে প্রদান করা হয়।

us-muslim-woman.jpg

হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে- ইসলাম গ্রহণ করা আমেনার- হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম গ্রহণ করা আমেনার করুণ এই গল্পে কাঁদবেন আপনিও পড়েই দেখুন। মৃত দাদীকে চিতায় তুলে দিয়ে আগুনে পোড়ানো হচ্ছিল। আর এই দৃশ্য দেখছিল ১১ বছর বয়সী নাবালিকা কৃষ্ণা ব্যানর্জি।

এমন দৃশ্য দেখে আতঙ্কিত হয়ে ঘর ছাড়েন এই বালিকাটি। কৃষ্ণা সেদিন ঘর ছেড়ে তার এক মুসলিম বান্ধবীর বাড়িতে গিয়ে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং তার নাম রাখেন আমেনা বেগম। ঘটনাটি ১৯৮৯ সালের মানিকগঞ্জের এক পাড়াগাঁয়ের।বর্তমান সেই আমেনা বেগমের বয়স ৩৫ বছর।

সেদিন তিনি অনেকটা না বুঝেই শুধুমাত্র নিজ ধর্মের সৎকার রীতির ভয়াবহতা থেকে মুক্তি পেতেই ইসলামের দিকে ধাবিত হয়েছিলেন। এর ফলে পৈত্রিক সম্পত্তি, আত্মীয়-স্বজন সবকিছুর মায়া ত্যাগ করতে হয়েছিল তার। এরপর ওই বান্ধবীর পরিবারের সহায়তায় ভর্তি হন ঢাকার কামরাঙ্গীরচর মহিলা মাদ্রাসায়।

সেখানে স্বল্প সময়েই নওমুসলিম আমেনা বেগম হয়ে উঠেন একজন কুরআনের হাফেজ।মাদ্রাসায় পড়াকলিন সময় সেখানকার হুজুরদের মধ্যস্থতায়ই আমেনার বিয়ে হয় নোয়াখালি সন্দ্বীপের হাফেজ বদিউল আলমের সঙ্গে। ধর্মীয় অনুশাসনের মধ্যে সুখের সংসার ছিল তাদের। কিন্তু ২০০৮ সালে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় তার স্বামী বদিউল আলমের।

স্বামীহারা বিধবা নওমুসলিম আমেনা বেগম ফের একা হয়ে পড়েন। কোথায় থাকবেন, কার কাছে যাবেন এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ে যান। এ অবস্থায় ঢাকা বায়তুল মোকাররম এলাকায় তার সঙ্গে পরিচয় হয় গুলশানের অভিজাত এলাকার এক ধনাঢ্য বৃদ্ধার সঙ্গে। তার বাসার পরিচারিকা হিসেবে নিযুক্ত হন আমেনা বেগম।

প্রায় সাড়ে তিন বছর ওই বৃদ্ধাকে আপন মায়ের মতই সেবা করেন তিনি। এক পর্যায়ে ওই বৃদ্ধাও ইন্তেকাল করেন।বৃদ্ধার ইন্তেকালের পর তার সন্তানেরা এই স্বজনহারা হাফেজা নওমুসলিমের আর খোঁজ নেননি। অবলম্বনহীন এই পর্দানশীন হাফেজা নারী পরবর্তীতে জনৈক ব্যক্তির সহায়তায় চলে যান সাভারের রাজ ফুলবাড়িয়া এলাকায়।

সেখানে এক বাড়ির শিশুদের কুরআন শেখানো ও গৃহস্থলির কাজের বিনিময়ে আশ্রয় মেলে তার। বর্তমান সেখানেই আছেন তিনি।দুই যুগ আগে স্বেচ্ছায় ধর্মান্তরিত মুসলিম আমেনা বেগম বলেন, কোনো লোভে মুসলমান হইনি। আল্লাহই আমাকে মুসলমান বানিয়েছেন। আমার মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজন সবাইকে ছেড়ে এসেছি আমি।

২৪ বছর ধরে মুসলমান সমাজেই কেটেছে আমার জীবন। এখন এটাই আমরা সব। তিনি আরো জানান, ২০১১ সালে নওমুসলিমদের জন্য বাংলাদেশ সরকারের একটি প্রকল্প থেকে সোয়া দুই কাঠা জমি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে তার নামে।

সাভারের রাজ ফুলবাড়িয়ার পানপাড়া এলাকায় ওই জমিটুকু অনাবাদিভাবে পড়ে আছে। অর্থাভাবে সেখানে একখানা ঘর বানিয়ে বসবাসের ব্যবস্থা করতে পারেননি তিনি। আমেনা বলেন, বাসায় বাসায় প্রাইভেট পড়িয়ে আমি জীবিকা নির্বাহ করছি।

অন্যের বাসায় থাকি। অনাত্মীয় কারও বাসায় থেকে পর্দা পালন করা কষ্টকর হচ্ছেঅথচ মুসলমান হওয়ার পর থেকে আমি কখনও পর্দা লঙ্ঘন করিনি। তার একটি ছবি তুলতে চাইলে তিনি বললেন আপনার সামনে মুখ খুলতে পারবো না। ছবি তোলাকে গোনাহের কাজ বলেই বিশ্বাস করেন তিনি।

অপরের অধীনে মানবেতর জীবন থেকে মুক্ত হয়ে আত্মনির্ভরশীল হতে চান তিনি। হাফেজা বলেন, মহান আল্লাহই আমার ভরসা। তবে কারো পক্ষ থেকে একটু সহযোগিতা পেলে আমি ওই জমিতে ছোট একটি ঘর তুলতে চাই। সেখানেই গড়ে তুলতে চাই আপন ভুবন। থাকতে চাই নিরাপদে, নিজ আবাসে।