অমিত শাহ Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

amit-20190424211248.jpg

ভারতের ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেত্রী সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুরের সমর্থনে এবার মুখ খুললেন দলটির সভাপতি অমিত শাহ। সাধ্বীর সুরে অমিত শাহ বললেন, একজন হিন্দু কখনো জঙ্গি হতে পারে না।

মালেগাঁও বিস্ফোরণে অভিযুক্ত সাধ্বী প্রজ্ঞা জামিনে মুক্ত। তার বিরুদ্ধে ইউএপিএ আইনে মামলা চলছে। তাকেই এবার মধ্যপ্রদেশের ভোপাল লোকসভা আসন থেকে প্রার্থী করেছে বিজেপি।

কিন্তু তার প্রার্থীপদ নিয়ে হইচই শুরু করেছে বিরোধীরা। তাদের অভিযোগ, একজন জঙ্গিকে কীভাবে প্রার্থী করল বিজেপি। মঙ্গলবার বিরোধীদের এই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই মুখ খোলেন অমিত শাহ।

তিনি বলেন, একজন হিন্দু কখনো জঙ্গি হতে পারে না। কারণ হিন্দুধর্ম কাউকে আঘাত করার কথা শেখায় না। অমিত শাহর অভিযোগ, কংগ্রেস প্রজ্ঞাকে জঙ্গি বলে অভিযুক্ত করছে। তাই তাকে (প্রজ্ঞা) প্রার্থী করে বিজেপি কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সত্যাগ্রহের রাস্তা নিয়েছে বলেই দাবি অমিতের।

একই সঙ্গে তিনি ভোপালে কংগ্রেসের প্রার্থী দ্বিগ্বিজয় সিংয়ের সমালোচনা করেন। তার বক্তব্য, মধ্যপ্রদেশের মানুষই ডিগ্গি রাজাকে (দ্বিগ্বিজয়) জবাব দেবেন। কারণ, দ্বিগ্বিজয়ই সবসময় হিন্দু সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ তুলে সরব হন। সেটারই জবাব তার বিরুদ্ধে ইভিএমে পড়বে।

প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালে মালেগাঁও বিস্ফোরণ হয়। সেই বিস্ফোরণেই অভিযুক্ত সাধ্বী প্রজ্ঞা। তিনি এখন জামিনে মুক্ত। তবে তার বিরুদ্ধে মকোকা আইন প্রত্যাহার করে নিয়েছে এনআইএ। ভোটের আগে তিনি বিজেপিতে যোগ দেন। তারপরই ভোপাল থেকে তার নাম ঘোষণা করা হয়।

বিরোধীদের প্রশ্ন, সন্ত্রাসবাদে অভিযুক্ত একজনকে বিজেপি কীভাবে প্রার্থী করে? যদিও সন্ত্রাসের অভিযোগ মানতে নারাজ প্রজ্ঞা। তাকে জোর করে এই মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে বলে তার দাবি।

প্রার্থী হওয়ার পর সাধ্বীও বিতর্ক বাড়িয়েছেন। প্রথমে জেলে থাকা অবস্থায় তার ওপর পুলিশি নিপীড়নের অভিযোগ তুলে তিনি সরব হন। কর্মীদের সামনে কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরদিন ওই একই সঙ্গে বলতে গিয়ে মহারাষ্ট্র অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াডের প্রধান হেমন্ত কারকারেকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেন।

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের পর থেকে জাতীয় রাজনীতির ক্ষেত্রে অন্যতম বড় উপকরণ হয়ে দাঁড়িয়েছে গরু। ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সৌজন্যে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনেও ফের আলোচনায় এসেছে ‘গোমাতা’।

সেই আলোচনায় এবার ঘি ঢেলে দেন ভোপাল কেন্দ্রের বিজেপির নারীপ্রার্থী সাধ্বী। সোমবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে দাবি করেন, গো-মূত্র থেকে তার ক্যানসার রোগ সেরে গেছে। জিনিউজ।

amitshah.jpg

ভারতে থাকা অবৈধ মুসলিম অভিবাসীদের বঙ্গোপসাগরে ছুড়ে মারা হবে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের ক্ষমতাসীন কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ। সম্প্রতি এক নির্বাচনী জনসভায় এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্বাচনে হিন্দু জাতীয়তাবাদকে কাজে লাগিয়ে ফায়দা তোলার চেষ্টা হিসেবে এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

এর আগেও ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি অমিত শাহ ভারতে থাকা অবৈধ অভিবাসীদের উইপোকা বলে অভিহিত করেছেন।

গত বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) লোকসভা নির্বাচনে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেদিন পশ্চিমবঙ্গে এক নির্বাচনী সমাবেশে অমিত শাহ বলেন, ‘অনুপ্রবশেকারীরা বাংলার মাটিতে উইপোকার মতো করে আছে। বিজেপি সরকার সেই অনুপ্রবেশকারীদের এক এক করে ধরে বঙ্গোপসাগরে নিক্ষেপ করা হবে।’

তবে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে যাওয়া হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন ও শিখদের দেশটির নাগরিকত্ব দিতে বিজেপি যে উদ্যোগ নিয়েছে পুনরায় সেটি উল্লেখ করেন তিনি।

ভারত ইতোমধ্যে ৪০ হাজার মুসলিম রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে মিয়ানমারে ফের পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

10-1.png

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনুন, বাংলাদেশ থেকে একজন অনুপ্রবেশকারীও ঢুকতে পারবে না। গতকাল মঙ্গলবার পশ্চিমবঙ্গের মালদায় এক জনসভায় একথা বলেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।

পাশাপাশি তিনি বলেন, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (এনআরসি) এ বার পশ্চিমবঙ্গেও ইস্যু হতে চলেছে। ক্ষমতায় এলে পশ্চিমবঙ্গে বসবাসকারী সব শরণার্থী বাংলাদেশি হিন্দুদের নাগরিকত্ব দেবে বিজেপি। একজনকেও ভারত ছাড়তে হবে না।

বিভিন্ন রাজ্যের ২৩ দলকে নিয়ে ফেডারেল ফ্রন্ট গঠন করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বে গত শনিবার কলকাতায় এ ফ্রন্টের বড় সভাও হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে অমিত শাহ বলেন, ব্রিগেড সমাবেশে যে নেতারা ছিলেন তাদের মধ্যে ৯ জনেরই ইচ্ছে রয়েছে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার। বিরোধীরা মানুষের জন্য চিন্তিত নন, মোদীকে হটানোই তাদের লক্ষ্য। এ মহাজোট স্বার্থে জোট। আমরা বলছি গরিবি হটাও, বিরোধীরা বলছে মোদী হটাও। তাই সাবধান হয়ে যান।

অমিত শাহ দুদিনে পশ্চিমবঙ্গে তিনটি সভা করবেন। তবে ৮ ফেব্রুয়ারি কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভা করার ঘোষণা দিয়েছিল বিজেপি। সেই সভা বাতিল করা হয়েছে। কলকতাবাসীর ব্রিগেড প্যারেড পরিবর্তে পশ্চিমবঙ্গের আসানসোলে একই দিনে, মোদীর জনসভা হবে।

amite.jpg

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ বলেছেন, বাংলার তৃণমূল সরকারের গণেশ উল্টে দিতে এসেছি। গণতন্ত্রের হত্যাকারী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে উপড়ে ফেলতে হবে।

মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) মালদহ জেলায় দলীয় কর্মসূচিতে ভাষণ দেয়ার সময় ওই মন্তব্য করেন।

তার অভিযোগ, বাংলায় তৃণমূল সরকারের আমলে বোমা-বন্দুকের কারখানা ফুলে ফেঁপে উঠেছে। অমিত শাহের দাবি, অনুপ্রবেশ করানোর, হত্যা করানোর তৃণমূল সরকার ক্ষমতাচ্যুত হবে। একবার বিজেপির সরকার গড়লে বাংলায় অপশাসন উপড়ে ফেলবেন। বিজেপিকে সরকার গড়তে দিলে তাঁরা মানুষের নিরাপত্তা দেবেন।

পশ্চিমবঙ্গে অনুপ্রবেশ ও নাগরিকত্ব ইস্যুতে অমিত শাহ বলেন, সব হিন্দু শরণার্থীকে বলছি, বিজেপি তাঁদের নাগরিকত্ব দেবে। বিজেপিকে ক্ষমতায় আনুন, একজন অনুপ্রবেশকারীও বাংলায় ঢুকতে পারবে না।