রাকিব Archives - 24/7 Latest bangla news | Latest world news | Sports news photo video live

tamima-w.jpg

আদালতে নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ক্রিকেটার নাসির হোসেনের স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মি যেন বাংলাদেশ না ত্যাগ করতে পারেন সে জন্য সৌদি এয়ারলাইন্সকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। রাকিব হাসানের পক্ষে এ চিঠি দিয়েছেন আইনজীবী ইশরাত হাসান। ১০ মার্চ এই চিঠিটি দেওয়া হয়েছে বলে ২২ মার্চ সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী ইশরাত।

সৌদি এয়ারলাইন্সের কান্ট্রি ম্যানেজারকে দেওয়া চিঠিতে বলা হয়, কেবিন ক্রু তামিমা সুলতানার বিরুদ্ধে মহানগর হাকিম আদালতে মামলা রয়েছে। কেবিন ক্রু হিসেবে সে বাংলাদেশ ত্যাগ করে আর নাও ফিরতে পারে। যা মামলাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। রাকিব হাসান বিশ্বাস করে মামলায় থাকা এ রকম একজনকে বাংলাদেশ ত্যাগে অনুমতি দেবে না সৌদি এয়ারলাইন্স।

রাকিব হাসান বাদী হয়ে ২৪ ফেব্রুয়ারি দণ্ডবিধির ৪৯৪/৪৯৭/৪৯৮/৫০০ ধারা অনুযায়ী নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে বিয়ের তথ্য গোপন করে অন্যত্র বিয়ে, অন্যের স্ত্রীকে প্রলুব্ধ করে প্রতারণার মাধ্যমে বিয়ে, ব্যভিচার ও মানহানির অভিযোগে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন। আদালত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী ৩০ মার্চের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

এর আগে সম্প্রতি দেশের একটি টেলিভিশনের অনুসন্ধানমূলক অনুষ্ঠানে বিয়ের তালাকের কাগজপত্র নিয়ে কথা বলেন তামিমা তাম্মি। যা মুহূর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায়। ওই ভিডিওতে তামিমা তার আগের স্বামী রাকিবকে একজন সাইকো হিসেবে তুলে ধরেন এবং তাকে মেডিকেলে পাঠানোর পরামর্শ দেন।

উল্লেখ্য, গত মাসের ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিমাকে বিয়ে করেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন। বিয়েকে স্মরণীয় করতে ভালোবাসা দিবসটিকেই বেছে নেন তিনি। কিন্তু বিয়ের সপ্তাহ পার না হতেই চরম বিতর্ক শুরু হয়েছে।

rakib-nasir-265276.jpg

দেশের আলোচিত ঘটনা ক্রিকেটার নাসির-তামিমার বিয়ে। সম্প্রতি বিয়ে করেছেন তারা। আগের স্বামীর অভিযোগের কারণে মিডিয়ার আলোচিত বিষয় হয়ে দাঁড়ায় নাসির-তামিমার বিয়ে, যা আইনি লড়াই পর্যন্ত এগিয়ে যায়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো সমাধানে আসেনি। নাসির-তামিমার বিয়ে নিয়ে কিছুদিন আলোচনায় না থাকলেও আবারও তামিমা তাম্মির একটি সাক্ষাৎকার নতুন করে আলোচনায় আসে।

সম্প্রতি দেশের একটি টেলিভিশনের অনুসন্ধানমূলক অনুষ্ঠানে বিয়ের তালাকের কাগজপত্র নিয়ে কথা বলেন তামিমা তাম্মি। যা মুহূর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায়। ওই ভিডিওতে তামিমা তার আগের স্বামী রাকিবকে একজন সাইকো হিসেবে তুলে ধরেন এবং তাকে মেডিকেলে পাঠানোর পরামর্শ দেন।

তালাকনামা নিয়ে রাকিব (আগের স্বামী) যেসব প্রশ্ন তুলেছেন সেই কাগজগুলো মিথ্যা কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তামিমা বলেন, আমি জানি যে তার (রাকিব) শিক্ষাগত যোগ্যতা অনেক কম। উনার (রাকিব) ছোট মস্তিষ্ক থেকে হয়তো এটা বের করে এনেছে। আমি কি জানতাম ২০২১ সালে নাসিরের সঙ্গে আমার বিয়ে হবে? আর ২০১৬ সালের ওই তালাকনামার পেজ আমি খালি রাখব, ওখানে নাম বসানোর জন্য।

তিনি বলেন, রাকিব একজন সাইকো। কারণ সাইকোলজিক্যাল সমস্যা বলেই সে হাতের মধ্যে, গলায়, একেক জয়গায় বিশ্বাস করে তাবিজ পরে। আর আধ্যাত্মিক টাইপের কথাবার্তা বলে। আমি বলব, ওকে মেডিকেলে পাঠানো হোক। সে মেন্টালিভাবে একজন সাইকো।

তিনি বলেন, নাসির আমাকে বিয়ে করার আগেই তালাক নোটিশটা দেখেছে। তাকে তালাক দেয়ার সব পেপারস আছে। আমি বাসায় থেকে দেই আর যেখান থেকেই দেই উনাকে (রাকিব) আমি তালাক দিয়েছি কি না বলেও প্রশ্ন তুলেন তামিমা।

মেয়ে তুবার কথা তুলে ধরে তামিমা বলেন, আমি মা, আমার থেকে মনে হয় দুনিয়াতে আর কারো এত কষ্ট লাগার কথা নয়। তুবামনি রাকিবের জন্য একটা এটিএম কার্ড, কারণ যখন তার সঙ্গে আমার তালাক হয়ে গেছে, তখন রাকিব আমার কাছ থেকে কোনো রকম ফাইন্যান্সিয়াল ব্যাকআপ পাচ্ছিল না। আমার বাচ্চা তার কাছে থাকা মানে আমার সবকিছু তার কাছে থাকা, মানে আমি তার হাতের মুঠোই।

উল্লেখ্য, গত মাসের ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিমাকে বিয়ে করেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন। বিয়েকে স্মরণীয় করতে ভালোবাসা দিবসটিকেই বেছে নেন তিনি। কিন্তু বিয়ের সপ্তাহ পার না হতেই চরম বিতর্ক শুরু হয়েছে।

২০ ফেব্রুয়ারি নাসিরের স্ত্রীকে নিয়ে বিস্ফোরক তথ্য বেরিয়ে আসে। সকাল থেকে সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে তামিমার আরেক স্বামী ও সন্তানের ছবি। রাকিব নামে ওই স্বামীর সঙ্গে তার বিয়ে হয় ১১ বছর আগে। সেই ঘরে কন্যাসন্তানের বয়স এখন নয় বছর।

নাসিরের সঙ্গে বিয়ের ভিডিও ও খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ১৮ ফেব্রুয়ারি রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় জিডি করেন রাকিব। এ কথা নিশ্চিত করেন উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাও (ওসি) শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস।

জিডিতে রাকিব উল্লেখ করেন, তামিমার সঙ্গে এখনো তার ডিভোর্স হয়নি। ডিভোর্স ছাড়া স্ত্রী কীভাবে অন্যের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন সেই প্রশ্ন তার। এ জন্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে জিডি করেছেন তিনি।

পরে জিডির কপি ও তাদের বিয়ের কাবিননামাও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। জিডিতে রাকিব অভিযোগ করেছেন, তার সঙ্গে সংসার করা অবস্থায় তামিমা গোপনে আরেকজনকে বিয়ে করেন। সেখানে ছয় মাস সংসারও করেন।

জিডি সূত্রে আরও জানা যায়, তামিমা ছয় মাস যে ছেলের সঙ্গে সংসার করেছেন ওই ছেলের নাম অলক। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি অডিও ক্লিপে এই ছেলের বিষয়েই নাসির ও রাকিবের মধ্যে কথোপকথনও শোনা যায়।

এদিকে রাকিব ও নাসিরের ফোন রেকর্ড ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে রাকিবকে ফোন করে জিডি করার ব্যাপারটি ধামাচাপা দিতে বলেন নাসির।

কথোপকথনে রাকিবের প্রশ্ন ছিল, আপনি কি তামিমা সম্পর্ক সবকিছু জানেন? উত্তরে নাসির হোসেন বলেন, তার সবকিছু জেনেশুনেই আমি তাকে বিয়ে করেছি। তার বাচ্চা আছে, তার আগেও বয়ফ্রেন্ড ছিল সবকিছুই আমি জানি। আপনার বউ আপনার সঙ্গে ভালো থাকলে নিশ্চয়ই আপনার ১১ বছরের সংসার ভেঙে আমার কাছে চলে আসত না।

রাকিব হাসান ও তামিমার কাবিননামায় দেখা যায়, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তিন লাখ টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে হয়। রাকিবের দাবি, গত ১১ বছরে তার স্ত্রীর পড়াশোনা থেকে শুরু করে জব, সবক্ষেত্রেই তিনি সাহায্য করেছেন।

nasir31.jpg

বধূ কার? ফয়সালা হবে আদালতে। দুই পক্ষই তদন্ত ও আদালতের ওপর আস্থা রাখতে চান। ক্রিকেটার নাসির হোসেনের আইনজীবী জানান, তারা মামলার বাদী রাকিব হাসানের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আর রাকিব হাসান জানান, তারাও আইনি লড়াইয়ে প্রস্তুত। পিবিআই বলছে, আদালতের নির্দেশনা পেলেই শুরু হবে তদন্ত।

এক বধূ নিয়ে দু’জনের দ্বন্দ্ব গড়িয়েছে আদালতে। আদালতের বাইরেও চলছে দুপক্ষের বাকযুদ্ধ। ক্রিকেটার নাসির হোসেনের বিয়ে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে দেশজুড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও পক্ষে-বিপক্ষে নানা মন্তব্য আসছে। তাহলে এই বিতর্কের অবসান কোথায়? দুপক্ষই বলছে, যা হবে আদালতে।

ক্রিকেটার নাসির হোসেনের আইনজীবী জানান, ডিভোর্স দেয়ার পরও অন্যের বউকে নিজের দাবি করায় মামলার বাদীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবেন তারা। সে বিষয়ে কাজ চলছে। এবং তদন্তকারী কর্তৃপক্ষের কাছে প্রমাণ পেশ করবো।

তামিমাকে নিজের বৈধ বউ দাবি করা রাকিব হাসান জানান, তারা মামলা করলে সেটিও আইনিভাবে মোকাবিলা করা হবে। তিনি আরও বলেন, তারা যদি আমার বিরুদ্ধে প্রমাণ দেখাতে পারে ডিভোর্সের পেপার হাতে পেয়েছি। সেটা আমার উকিল কথা বলবে।

পুলিশ ব্যুবো অব ইনভেস্টিকেশন (পিবিআই) প্রধান বনজ কুমার মজুমদার বলেন, আমরা আদালতের নির্দেশ এখনো পাননি। পেলেই শুরু হবে তদন্ত। আগামী ৩০ মার্চ এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য রয়েছে।

tamimaw.jpg

বাংলাদেশের ক্রিকেটে ‘ব্যাড বয়’ খ্যাত নাসির হোসেন এবং তামিমা তাম্মির বিয়ের পর থেকেই বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। তামিমার আগের স্বামী রাকিব হাসানকে ডিভোর্স না দিয়েই নাসিরকে বিয়ে করেছেন বলে প্রথম অভিযোগ তোলেন রাকিব। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে আদালতে মামলাও করছেন তিনি।

এদিকে বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বনানীতে এক প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করে বিয়ে নিয়ে উদ্ভুত আলোচনা-সমালোচনার জবাব দিয়েছেন ক্রিকেটার নাসির ও তামিমা তাম্মি। ব্রিফিংয়ে নাসির ও তামিমা দাবি করেন, তারা দেশের আইন ও ধর্মীয় বিধান মেনে বিয়ে করেছেন। রাকিবের সঙ্গে তামিমার বৈবাহিক সম্পর্ক শেষ হয়েছে প্রায় পাঁচ বছর আগে। ২০১৬ সালে তামিমা ডিভোর্সের আবেদন করেন এবং ২০১৭ সালে ডিভোর্স হয়।

কিন্তু বিপত্তি বাধে অন্যখানে। সংবাদ সম্মেলনে তামিমা যে কাগজ উপস্থাপন করেছেন, তাতে দেখা যায় ২০১৬ সালের ২৩ ডিসেম্বর নিজে রাকিব হাসানকে ‘তালাক নোটিশ’ দিয়েছেন। অন্যদিকে নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে মামলার ডকেটে পাসপোর্টের যে নথি সংযুক্ত করেছেন রাকিবের আইনজীবী ইশরাত হাসান সেটিতে দেখা যায়, ২০১৮ সালে করা পাসপোর্ট ইস্যুতে স্বামীর ঘরে রাকিব হাসানের নাম ‘উল্লেখ’ করেছেন তামিমা। একই সঙ্গে ইমার্জেন্সি কন্ট্রাকেও স্বামী রাকিব হাসানের নাম উল্লেখ রয়েছে।

২০১৮ সালের ৪ মার্চ পাসপোর্টটি প্রদান করা হয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে এবং ২০২৩ সালের ৩ মার্চ এটির মেয়াদ শেষ হবে।

পাসপোর্টের ধরণ বলছে, এটি রি-ইস্যু করা। পাসপোর্টটির বর্তমান নম্বর বিআর দিয়ে শুরু হয়ে ৫৩ ডিজিট উল্লেখ করে শেষ হয়েছে। অন্যদিকে তার পুরাতন পাসপোর্টটি বিএ দিয়ে শুরু হয়ে ১১ ডিজিট উল্লেখ করে শেষ হয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠেছে, কোনটি সঠিক? ডিভোর্স পেপার না কি পাসপোর্ট?

এ বিষয়ে রাকিব হাসানের আইনজীবী ইশারত হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, তামিমা সুলতানা আমার মক্কেল রাকিবের স্ত্রী হয়েও তাকে তালাক না দিয়ে ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে করেছেন। যা আইনসিদ্ধ নয়। এখানে রাকিব হাসান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে এবং তার মানহানি হয়েছে।

এ সংক্রান্তে পাসপোর্টের কপিসহ অন্যান্য নথি আমরা মামলার ডকেটে সংযুক্ত করেছি। এসব ডকুমেন্ট আদালত বিবেচনায় নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা পূর্বক নাসির ও তামিমার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন বলে আমরা আশাবাদী। ইতোমধ্যে মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। মামলাটি তদন্ত করে আগামী ৩০ মার্চ প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

ইশরাত হাসান আরও বলেন, মামলায় তামিমা সুলতানা তাম্মিকে এক নম্বর ও ক্রিকেটার নাসির হোসেনকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে। দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ৪৯৪, ৪৯৭, ৪৯৮, ৫০০ এবং ৩৪ ধারায় এ মামলা করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি বাদীর সঙ্গে ১ নম্বর আসামি তামিমা সুলতানার ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক ৩,০০,০০১ (তিন লক্ষ এক) টাকা দেনমোহর ধার্যে বিবাহ সম্পন্ন হয় এবং রেজিস্ট্রি হয়। বিয়ের পর থেকে বাদী ও ১ নম্বর আসামি স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সংসার করতে থাকেন। দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে বাদীর ঔরসে ১নং আসামির গর্ভে একজন কন্যা সন্তানের জন্ম হয়, যার নাম রাখা হয় তোবা হাসান, বয়স-৮ বছর। ১ নম্বর আসামি (তাম্মি) পেশায় একজন কেবিন ক্রু। তিনি সৌদি এয়ারলাইন্সে কর্মরত। চাকরির সুবাদে তিনি গত ১০ মার্চ সৌদিতে গিয়েছিলেন। করোনা মহামারির কারণে জরুরি অবস্থা সৃষ্টি হলে সেখানেই অবস্থান করতে থাকেন।

গেল ১৪ ফেব্রুয়ারি বিয়ে করেছেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন। বিয়েকে স্মরণীয় করতে ভালোবাসা দিবসটিকেই বেছে নেন তিনি। নাসিরের স্ত্রীর নাম তামিমা তাম্মি। পেশায় কেবিন ক্রু। কিন্তু বিয়ের সপ্তাহ পার না হতেই চরম বিতর্ক শুরু হয়েছে।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) নাসিরের স্ত্রীকে নিয়ে বিস্ফোরক তথ্য বেরিয়ে এসেছে। সকাল থেকে সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে তামিমার আরেক স্বামী ও সন্তানের ছবি। রাকিব নামে ওই স্বামীর সঙ্গে তার বিয়ে হয় ১১ বছর আগে। সেই ঘরে কন্যা সন্তানের বয়স এখন নয় বছর।

নাসিরের সঙ্গে বিয়ের ভিডিও ও খবর ছড়িয়ে পড়ায় বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় এ জিডিটি করেন বলে নিশ্চিত করেন উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাও (ওসি) শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস।

জিডিতে রাকিব উল্লেখ করেন, তামিমার সঙ্গে এখনো তার ডিভোর্স হয়নি। ডিভোর্স ছাড়া স্ত্রী কীভাবে অন্যের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন সেই প্রশ্ন তার। এজন্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে জিডি করেছেন তিনি।

পরে জিডির কপি ও তাদের বিয়ের কাবিননামাও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। জিডিতে রাকিব অভিযোগ করেছেন, তার সঙ্গে সংসার করা অবস্থায় তামিমা গোপনে আরেকজনের কাছে চলে যায়। সেখানে ছয় মাস সংসারও করেন।

জিডি সূত্রে আরও জানা যায়, তামিমা ছয় মাস যে ছেলের সঙ্গে সংসার করেছেন ওই ছেলের নাম অলক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি অডিও ক্লিপে এই ছেলের বিষয়েই নাসির ও রাকিবের মধ্যে কথোপকথন হয়।

শনিবার রাকিব তামিমা ও তার সম্পর্কের নানা বিষয়ে কথা বলেছেন গণমাধ্যমের সঙ্গে। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, তামিমাকে তিনি দুইবার বিয়ে করেছেন। অর্থাৎ তামিমার জীবনে তিন স্বামী (নাসির হোসেন, অলোক ও রাকিব) এলেও বিয়ে করেছেন চারবার।

রাকিব বলেন, প্রেম করে বিয়ে করেছিলাম। সে আসলে আমাকে চাপ দিয়েই বিয়ে করেছিল। প্রথমে আমরা টাঙ্গাইলে কোর্ট ম্যারেজ করেছিলাম। পরে আমরা বিয়ে করি বরিশালে। আমার বউকেই দুইবার বিয়ে করেছি। এরপর সংসার শুরু করি।

Nasir-Tamima.jpg

তালাক না দিয়ে বিয়ে করার অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছে নাসিরের স্ত্রী তামিমা তাম্মি। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বনানীতে গণমাধ্যমের সঙ্গে এ দাবি করেছেন তামিমা। বিয়ে নিয়ে সাম্প্রতিক ঘটনায় নিয়ে গণমাধ্যমের উদ্দেশ্যে আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ে নাসির, তামিমা ও তার আইনজীবী বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন।

এ সময় তারা দাবি করেন, ২০১৬ সালে রাকিববে ডিভোর্স দিয়েছে তামিমা।

এর আগে বুধবার নাসির হোসেন ও স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তাম্মির আগের স্বামী মো. রাকিব হাসান। মামলায় আগের বিয়ে গোপন রেখে নতুন বিয়ে, অন্যের স্ত্রীকে প্রলুব্ধ করে নিয়ে যাওয়া, ব্যাভিচার ও মানহানির অভিযোগ আনা হয়েছে।

ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে রাকিব হাসান এ মামলা করেন।

রাকিবের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বলেন, মামলায় তামিমা সুলতানা তাম্মিকে এক নম্বর ও ক্রিকেটার নাসির হোসেনকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে। দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ৪৯৪, ৪৯৭, ৪৯৮, ৫০০ এবং ৩৪ ধারায় এ মামলা করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি বাদীর সঙ্গে ১ নম্বর আসামি তামিমা সুলতানার ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক ৩,০০,০০১ (তিন লক্ষ এক) টাকা দেনমোহর ধার্যে বিবাহ সম্পন্ন হয় এবং রেজিস্ট্রি হয়। বিয়ের পর থেকে বাদী ও ১ নম্বর আসামি স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সংসার করতে থাকেন। দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে বাদীর ঔরসে ১নং আসামির গর্ভে একজন কন্যা সন্তানের জন্ম হয়, যার নাম রাখা হয় তোবা হাসান, বয়স-৮ বছর। ১ নম্বর আসামি (তাম্মি) পেশায় একজন কেবিন ক্রু। তিনি সৌদি এয়ারলাইন্সে কর্মরত। চাকরির সুবাদে তিনি গত ১০ মার্চ সৌদিতে গিয়েছিলেন। করোনা মহামারির কারণে জরুরি অবস্থা সৃষ্টি হলে সেখানেই অবস্থান করতে থাকেন।

উল্লেখ্য, গেল ১৪ ফেব্রুয়ারি বিয়ে করেছেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন। বিয়েকে স্মরণীয় করতে ভালোবাসা দিবসটিকেই বেছে নেন তিনি। নাসিরের স্ত্রীর নাম তামিমা তাম্মি। পেশায় বিমানবালা। কিন্তু বিয়ের সপ্তাহ পার না হতেই চরম বিতর্ক শুরু হয়েছে।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) নাসিরের স্ত্রীকে নিয়ে বিস্ফোরক তথ্য বেরিয়ে এসেছে। সকাল থেকে সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে তামিমার আরেক স্বামী ও সন্তানের ছবি। রাকিব নামে ওই স্বামীর সঙ্গে তার বিয়ে হয় ১১ বছর আগে। সেই ঘরে কন্যা সন্তানের বয়স এখন নয় বছর।

নাসিরের সঙ্গে বিয়ের ভিডিও ও খবর ছড়িয়ে পড়ার বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় এ জিডিটি করেন বলে নিশ্চিত করেন উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাও (ওসি) শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস।

জিডিতে রাকিব উল্লেখ করেন, তামিমার সঙ্গে এখনো তার ডিভোর্স হয়নি। ডিভোর্স ছাড়া স্ত্রী কিভাবে অন্যের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন সেই প্রশ্ন তার। এজন্য স্ত্রীর বিরুদ্ধে জিডি করেছেন তিনি।

পরে জিডির কপি ও তাদের বিয়ের কাবিন নামাও সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। জিডিতে রাকিব অভিযোগ করেছেন, তার সঙ্গে সংসার করা অবস্থায় তামিমা গোপনে আরেকজনকে। সেখানে ছয়মাস সংসারও করেন।

জিডি সূত্রে আরও জানা যায়, তামিমা ছয় মাস যে ছেলের সঙ্গে সংসার করেছেন ওই ছেলের নাম অলক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি অডিও ক্লিপে এই ছেলের বিষয়েই নাসির ও রাকিবের মধ্যে কথোপকথন হয়।

শনিবার রাকিব তামিমা ও তার সম্পর্কের নানা বিষয়ে কথা বলেছেন গণমাধ্যমের সঙ্গে। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, তামিমাকে তিনি দুইবার বিয়ে করেছেন। অর্থাৎ তামিমার জীবনে তিন স্বামী (নাসির হোসেন, অলোক ও রাকিব) এলেও বিয়ে করেছেন চারবার।

রাকিব বলেন, ‘প্রেম করে বিয়ে করেছিলাম। সে আসলে আমাকে চাপ দিয়েই বিয়ে করেছিল। প্রথমে আমরা টাঙ্গাইলে কোর্ট ম্যারেজ করেছিলাম। পরে আমরা বিয়ে করি বরিশালে। আমার বউকেই দুইবার বিয়ে করেছি। এরপর সংসার শুরু করি।’

এদিকে রাকিব ও নাসিরের ফোন রেকর্ড সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে রাকিবকে ফোন করে জিডি করার ব্যাপারটি ধামাচাপা দিতে বলেন নাসির।

কথোপথনে রাকিবের প্রশ্ন ছিল, আপনি কি তামিমা সম্পর্ক সব কিছু জানেন? উত্তরে নাসির হোসেন বলেন, তার সব কিছু জেনেশুনেই আমি তাকে বিয়ে করেছি। তার বাচ্চা আছে, তার আগেও বয়ফ্রেন্ড ছিল সবকিছুই আমি জানি। আপনার বৌ আপনার সাথে ভালো থাকলে নিশ্চয়ই আপনার ১১ বছরের সংসার ভেঙে আমার কাছে চলে আসতো না।

রাকিব হাসান ও তামিমার কাবিননামায় দেখা যায় ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি তিন লাখ টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে হয়। রাকিবের দাবি, গেল ১১ বছরে তার স্ত্রীর পড়াশোনা থেকে শুরু করে জব সবক্ষেত্রেই তিনি সাহায্য করেছেন।

tamima-w.jpg

বিয়ে করে বিপাকে পড়েছেন তারকা ক্রিকেটার নাসির হোসেন। ১৪ ফেব্রুয়ারি ‘ভালোবাসা দিবসে’ কেবিন ক্রু তামিমা তাম্মির সঙ্গে তার বিবাহবন্ধনের ছবি অন্তর্জালে বেশ উষ্ণতা ছড়িয়েছে। কিন্তু সপ্তাহ না পার হতেই নাসিরপত্নীর ‘সাবেক স্বামী’র দাবি, বিবাহবিচ্ছেদ ছাড়াই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন নবযুগল।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) তামিমার প্রথম স্বামী রাকিব হাসান দাবি করেন, আইনগতভাবে তাদের বিবাহবিচ্ছেদ ছাড়াই নাসিরের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছেন তামিমা। এ ব্যাপারে তামিমাকে ফোন করে কোনো সাড়া না পেয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তিনি।

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে রাকিব হাসান বলেন, আমি এরইমধ্যে থানায় জিডি করেছি। তামিমাকে আমি আর ফেরত নিতে চাই না। তবে আমাকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করা ও না জানিয়ে বিয়ে করায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেব। তবে আপাতত নাসিরের বিরুদ্ধে আমি কোনো ধরনের আইনি পদক্ষেপ নিচ্ছি না।

জিডি করার কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, সংসারজীবনে বিবাদীর কাছে অনেক টাকা ও স্বর্ণালংকার রাখা আছে। এমনকি আমাকে তালাকও দেননি। টাকা ও অলংকার চাইলে বিবাদী আমাকে ক্ষতি করবে বলে হুমকি দিয়েছেন। আপাতত কোনো মামলা করবেন না বলে উল্লেখ করেছেন রাকিব।

aid-for.jpg

ক্রিকেটার নাসির ও তামিমার কাণ্ডে রাকিব হাসানের পাশে দাঁড়াচ্ছে পুরুষ অধিকার নিয়ে কাজ করা ‘এইড ফর মেন ফাউন্ডেশন’ নামের একটি সংগঠন। তারা ইতোমধ্যে রাকিব হাসানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। এ সংক্রান্তে রাকিবকে আইনগত সহায়তা দেয়ার পাশাপাশি যেকোনো যৌক্তিক সহায়তায় পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে সংগঠনটি। শুরুর দিকে এ বিষয়ে অভিযোগ নিতে উত্তরা পশ্চিম থানা পুলিশের অনীহা থাকায় বিচার নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছে সংগঠনটি।

এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নাদিম  বলেন, রকিব হাসানের স্ত্রী তামিমা তাম্মী তার স্বামীকে ডিভোর্স না দিয়েই ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে করেছেন। যা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। এ ইস্যুতে নাসির ও তামিমা প্রভাবশালী হওয়ায় রাকিবকে বিভিন্ন রকমের হুমকি ধামকি দিচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে আমরা রাকিব হাসানের পাশেই আছি।

তিনি আরও বলেন, রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় আমরা সংগঠনের পক্ষ থেকে ভিক্টিম রাকিব হাসানের সঙ্গে দেখা করি এবং তার পাশে থাকার আশ্বাস দেই।

উল্লেখ্য, ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসে বিয়ে করেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন। গেল বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) হলুদ সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। পরের দিন গতকাল শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) তাদের বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে অভিযোগ উঠেছে স্বামীকে তালাক না দিয়েই নাসিরের সঙ্গে বিয়ে পিড়িতে বসেছেন স্ত্রী তামিমা তাম্মী।

গত শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাইসা ইসলাম বাবুনি নামক এক ফেসবুক ব্যবহারকারীর একটি পোস্ট ভাইরাল হয়। যেখানে তামিমার স্বামী রাকিবের পক্ষে দাবি করা হয়েছে, এখনও তাদের মধ্যে বৈবাহিক সম্পর্ক রয়েছে। তাদের ঘরে রয়েছে ৮ বছর বয়সী একটি মেয়ে সন্তানও। তালাক না দিয়ে নতুন বিয়ে করায় তামিমার বিরুদ্ধে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন রাকিব।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ওই পোস্টে রাকিবের সঙ্গে নাসিরের একটি অডিও কলও রয়েছে। যা আরটিভি নিউজের হাতেও আছে। যেখানে নাসির রাকিবকে ফোন দিয়ে জানতে চান কেনো তিনি জিডি করেছেন। এদিকে ২০১১ সালে রাকিবের সঙ্গে তামিমার বিয়ে হয়। বর্তমানে সৌদিয়া এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু হিসেবে কর্মরত রয়েছেন তামিমা।

নাসিরের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে নাসিরের বড় ভাই নাসিম হোসেনের সঙ্গে জানতে চাওয়া হয়।  তিনি বলেন, আমি আপাতত মন্তব্য করতে চাচ্ছি না। খুব শিগগিরই আমরা এ বিষয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলবো।

nasir-mim.jpg

‘ব্যাড বয়’ হিসেবে ক্রিকেটপাড়ায় আলাদা একটা পরিচয় আছে অনেকদিন জাতীয় দলের বাইরে থাকা স্পিনিং অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের। সেটা অবশ্য নিজের বিভিন্ন ‘বিতর্কিত’ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের কারণেই। সম্প্রতি বিয়ে করেছেন আলোচিত এই ক্রিকেটার। তার বিয়ে নিয়েও শোনা যাচ্ছে নানা কথা।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে বিয়ের খবর দিয়েছিলেন নাসির। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কনেসহ ছবি পোস্ট করে দোয়া চেয়েছিলেন ভক্তদের কাছে। কিন্তু সপ্তাহখানেক না যেতেই শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক।

জানা গেছে, নাসিরের স্ত্রী তামিমা তাম্মির এটি দ্বিতীয় বিয়ে। প্রথম বিয়ে করেছিলেন ২০১১ সালে। ছয় বছরের একটি কন্যাসন্তানও আছে। শোনা যাচ্ছে, প্রথম স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ প্রক্রিয়া না করেই নাকি নাসিরকে বিয়ে করেছেন তামিমা। এ বিষয়ে আইনি সহায়তা চেয়েছেন তামিমার প্রথম স্বামী রাকিব। সাধারণ ডায়রিও (জিডি) করেছেন তিনি।

এরই মধ্যে শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে একটি ফোনালাপের অডিও ক্লিপ। তাতে যে দু’জনকে কথা বলতে শোনা গেছে, তারা দু’জনে নিজেদের নাসির এবং রাকিব হিসেবেই পরিচয় দিয়েছেন। ৪ মিনিট ১৯ সেকেন্ডের এই কথোপকথনে নাসিরকে তামিমার প্রথম স্বামী জিজ্ঞাসা করছেন, নাসির কেন না জেনেই প্রথম স্বামী বর্তমান থাকা সত্ত্বেও তামিমাকে বিয়ে করেছেন।

পাঠকদের জন্য নাসির হোসেন ও রাকিবের কথোপকথনটি হুবহু তুলে ধরা হলো—

নাসির: হ্যালো, আমি নাসির হোসেন বলছিলাম।

রাকিব: কোথা থেকে?

নাসির: আমি ক্রিকেটার নাসির হোসেন বলছিলাম।

রাকিব: ওহ…

নাসির: এটা রাকিবের নাম্বর না?

রাকিব: হ্যাঁ, আমি রাকিব বলছিলাম।

নাসির: আপনি সেই রাকিব কিনা….

রাকিব: সেই রাকিব মানে?

নাসির: আমি আপনাকেই চাচ্ছিলাম, ভালো আছেন আপনি? ভাইয়া, আমি তামিমার ব্যাপারে কিছু কথা বলার জন্য আপনাকে ফোন দিয়েছি।

রাকিব: হ্যাঁ, বলুন…

নাসির: আপনি যা করলেন… আপনি নাকি জিডি করছেন?

রাকিব: হ্যাঁ, করছি। বলেন

নাসির: এগুলা করে কী পাচ্ছেন আপনি, আমাকে একটু বলবেন?

রাকিব: কিছু পাচ্ছি না। আচ্ছা আপনি কী তামিমার সম্পর্কে সবকিছু জানেন?

নাসির: আমি সবকিছুই জানি ভাইয়া।

রাকিব: কী কী জানেন আপনি?

নাসির: ওর বাচ্চা আছে, বিয়ে হয়েছে, বয়ফ্রেন্ড ছিল… আমি ওর সবকিছুই জানি। আমি জেনেশুনেই বিয়ে করেছি। এখন আপনি কি চান না তামিমা হ্যাপি থাকুক?

রাকিব: হ্যাঁ, তামিমা তো হ্যাপি থাকতেছে। আমি তো আর ডিসটার্ব করছি না। জিডি করেছি কারণ তামিমা তো আমাকে কোনো পেপার দেয়নি। তামিমার সঙ্গে আপনার যখন কথা হয়, তখন আমি ওকে জিজ্ঞাসা করলাম যে তামিমা, নাসির কে? সে বলল, আমার ফ্রেন্ড, বার্থডেতে আসছিল…। জাস্ট ফ্রেন্ড…

নাসির: ভাইয়া শোনেন…

রাকিব: আপনি আমার কথা শোনেন। আপনি সবই জানেন (বিয়ে, বাচ্চা), জেনেশুনে আরেকজনের বউকে বিয়ে করে ফেললেন! সে যদি আমাকে বলত, রাকিব তোমার সঙ্গে থাকতে আমার ভালো লাগে না, চলে যাব। ওকে, চলে যাবে। আমার কোনো সমস্যা ছিল না। তো আসত, আমার সঙ্গে বসত, আমাকে কাগজ দিত, সম্পর্ক ছিন্ন করত। ভবিষ্যতে আমিও তো বিয়ে করব, তাই না? সো, আমারও তো কাগজের দরকার আছে। সে এসব কিছু না করেই আপনাকে বিয়ে করল।

নাসির: সে কিন্তু চলে গেছে, সেটা দেখেই বিয়ে করছি আমি। ঠিক আছে?

রাকিব: ভাই দেখেন, আপনি কী দেখে বিয়ে করছেন, আমি জানি না। আমি আট বছর আগে বিয়ে করছি। আমার মেয়ের বয়স ছয় বছর। আমি তার জন্য কী করছি না করছি, আপনি কিছুই জানেন না। আপনি বললেন যে আমি চাই কি না যে তামিমা সুখে থাক। তো আমি আপনাকে জিজ্ঞাসা করছি, আপনি চান না যে আমি আর তামিমা সুখে থাকি? আপনি সেটা কীভাবে করলেন? একজনের মেয়ে আছে, সংসার আছে…।

নাসির: আপনার সঙ্গে তো তার সংসার নাই, বুঝছেন না? ভাই, আমি এত ঘুরিয়ে পেচিয়ে কথা বলতে পছন্দ করি না। আমি শুধু এতটুকু জানতে চাই যে আপনি কি চান না যে তামিমা সুখে থাক? যদি চান, তাহলে এটা নিয়ে আর কিছুই কইরেন না। যদি তামিমা আপনার সঙ্গে হ্যাপি থাকত, তাহলে আপনার কাছেই থাকত।

রাকিব: আচ্ছা, আপনি আমাকে ফোন দিয়েছেন কেন? আমি তো আপনাকে চিনি না। ফোন তো আমাকে দেবে তামিমা।

নাসির: তামিমা কেন ফোন দেবে?

রাকিব: অবশ্যই তামিমা ফোন দেবে। তামিমার সমস্যা, সে আমাকে ফোন দেবে। নাকি এখন আপনার সমস্যা? আপনি কি জানেন, আপনি যে বাসায় থাকতেছেন সেই বাসার ফার্নিচারগুলোও আমার?

নাসির: তাই! আমি জানি সবকিছুই জানি।

রাকিব: আপনাকে যদি আপনার স্ত্রী বলে… সে করোনার আগে যখন গেল, গিয়ে আটকা পড়ল, তার আগেও তো আমার সঙ্গে দেখা করে আমার সঙ্গে থেকেছে।

নাসির: আচ্ছা… ভাই আমার কথাটা আপনি শোনেন।

রাকিব: আপনার সে কিভাবে গার্লফ্রেন্ড হলো, বলেন তো? ভাই আমি এখন আসরের নামাজে যাব। আমি এখন আপনার সঙ্গে কথা বলতে পারতেছি না বলে দুঃখিত।


About us

DHAKA TODAY is an Online News Portal. It brings you the latest news around the world 24 hours a day and 7 days in week. It focuses most on Dhaka (the capital of Bangladesh) but it reflects the views of the people of Bangladesh. DHAKA TODAY is committed to the people of Bangladesh; it also serves for millions of people around the world and meets their news thirst. DHAKA TODAY put its special focus to Bangladeshi Diaspora around the Globe.


CONTACT US

Newsletter